Logo
শিরোনাম

২১৭ রানে শেষ বাংলাদেশ, ফলো-অন করায়নি দক্ষিণ আফ্রিকা

প্রকাশিত:রবিবার ১০ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ১৩১জন দেখেছেন
Image

দিনের শুরুটা বেশ ভালো করেছিলেন দুই অপরাজিত ব্যাটার ইয়াসির আলি রাব্বি ও মুশফিকুর রহিম। দুজনের জুটিতে বেশ ভালোভাবেই এগোচ্ছিল বাংলাদেশ। কিন্তু প্রথম সেশনে শেষ দিকে ইয়াসিরের বিদায়ের মাধ্যমে শুরু হয় দলীয় পতনের।

শেষ পর্যন্ত ১৪.৩ ওভারের ব্যবধানে মাত্র ২৫ রানের মধ্যে ৫ উইকেট হারিয়ে ২১৭ রানে অলআউট হয়ে গেছে বাংলাদেশ। দক্ষিণ আফ্রিকার প্রথম ইনিংসে করা ৪৫৩ রানের চেয়ে ২৩৬ রানে পিছিয়ে থাকলেও, বাংলাদেশকে ফলো-অন করাননি স্বাগতিক অধিনায়ক ফাফ ডু প্লেসি।

আগেরদিন করা ৫ উইকেটে ১৩৯ রান নিয়ে আজকের দিনের খেলা শুরু করেছিল বাংলাদেশ দল। আজ আর ৩৩.২ ওভারে মাত্র ৭৮ রান করতেই সাজঘরের পথ ধরেছেন বাকি পাঁচ ব্যাটার। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৫১ রান করেছেন আত্মঘাতী রিভার্স সুইপে আউট হওয়া মুশফিকুর রহিম।

পোর্ট এলিজাবেথের সেইন্ট জর্জেস পার্কে আজকের দিনের খেলা শুরুর আগেই আকাশে মেঘের ঘনঘটা ছিল। অন্ধকারে ছেয়ে ছিল পুরো স্টেডিয়াম। তবু যতটুকু আলো ছিল তাতেই দিনের খেলা শুরু করার প্রস্তুতি নিয়েছিলেন দুই আম্পায়ার। মাঠেও নেমে গিয়েছিলেন দুই দলের ক্রিকেটাররা।

কিন্তু প্রথম বল করার আগেই নামলো বৃষ্টি। ফলে মাঠে গড়ালো না কোনো বল। গুঁড়িগুঁড়ি বৃষ্টিতে ভিজতে ভিজতে দৌড়ে মাঠ ছাড়েন বাংলাদেশ দলের দুই ব্যাটার মুশফিকুর রহিম ও ইয়াসির আলি রাব্বি। অন্যদিকে দক্ষিণ আফ্রিকার ফিল্ডাররা ধীর পায়ে অনেকটা অনিচ্ছা নিয়েই মাঠের বাইরে যান।

বাংলাদেশ সময় দুপুর দুইটায় শুরুর কথা ছিল পোর্ট এলিজাবেথ (গেবেখা) টেস্টের তৃতীয় দিনের খেলা। কিন্তু বৃষ্টির কারণে যথাসময়ে শুরু হয়নি আজকের খেলা। বৃষ্টির পানি থেকে রক্ষা পেতে উইকেট ও এর আশপাশের জায়গা ঢেকে দেওয়া হয় কভার দিয়ে। পরে ২০ মিনিট দেরিতে শুরু হয় খেলা।

দিনের খেলা শুরুর পর লিজাড উইলিয়ামসের করা প্রথম ওভারের প্রথম তিন বলেই তিন বাউন্ডারি হাঁকান ইয়াসির রাব্বি। উইলিয়ামসের পরের ওভারের প্রথম বলেও হাঁকান বাউন্ডারি। আরেক পেসার ডোয়াইন অলিভারকেও অন ড্রাইভে চার মারেন তিনি।

সবমিলিয়ে দিনের প্রথম পাঁচ ওভারেই ২৭ রান তুলে নেয় বাংলাদেশ। যার মধ্যে ছয় চারের মারে ২৬ রান একাই করেন ইয়াসির। অন্য রান আসে লেগ বাই থেকে। আরেক অপরাজিত ব্যাটার মুশফিক প্রথম পাঁচ ওভারে ৫ বল খেলে কোনো রান নিতে পারেননি।

এমন উড়ন্ত শুরুর পর নিজেদের ব্যাটিংয়ে লাগাম টানেন মুশফিক-ইয়াসির। বাঁহাতি স্পিনার কেশভ মহারাজকে আক্রমণে এনে রানরেটটাও কমিয়ে নেয় দক্ষিণ আফ্রিকা। তবু সুযোগ পেলেই উইয়ান মাল্ডার কিংবা মহারাজকে বাউন্ডারি হাঁকাতে কার্পণ্য করেননি মুশফিক বা ইয়াসির।

শেষ পর্যন্ত ইনিংসের ৬০তম ওভারে গিয়ে আঘাত হানেন মহারাজ। সেই ওভারের চতুর্থ বলে ইয়াসিরের বিপক্ষে লেগ বিফোরের জোরালো আবেদন করেও সফল হয়নি দক্ষিণ আফ্রিকা। নিজেদের শেষ রিভিউ নিয়েও উইকেট আদায় করতে পারেনি তারা।

কিন্তু একই ওভারের শেষ বলে অনসাইডে খেলতে গিয়ে লিডিং এজে ফিরতি ক্যাচ দিয়ে বসেন ইয়াসির। বলটি তালুবন্দী করেই উল্লাসে ফেটে পড়েন মহারাজ। আউট হওয়ার আগে ৭ চারের মারে ৮৭ বলে ৪৬ রান করেন ইয়াসির। তার বিদায়ে ভাঙে ৭২ রানের ষষ্ঠ উইকেট জুটি।

ইয়াসির না পারলেও চলতি ইনিংসে বাংলাদেশের প্রথম হাফসেঞ্চুরিয়ান হওয়ার আশা বাঁচিয়ে রেখে খেলতে থাকেন মুশফিক। তাকে ভরসা দিয়ে দায়িত্বশীল ব্যাটিং শুরু করেন আট নম্বরে নামা মেহেদি হাসান মিরাজও। এর মধ্যে অলিভারের বাউন্সারে বাউন্ডারি হাঁকিয়ে নির্ভরতার বার্তাই দেন তিনি।

কিন্তু মুশফিক পারেননি বেশিক্ষণ থাকতে। সাইমন হার্মারের করা ইনিংসের ৬৯তম ওভারের প্রথম বলে বাউন্ডারি হাঁকিয়ে তুলে নেন ক্যারিয়ারের ২৫তম ফিফটি। এর এক বলই রিভার্স সুইপ খেলতে গিয়ে বোল্ড হন ১৩৬ বলে ৮ চারের মারে ৫১ রান করা মুশফিক।

এরপর মধ্যাহ্ন বিরতির আগে আর বিপদ ঘটতে দেননি মেহেদি মিরাজ ও তাইজুল ইসলাম। বিরতির আগপর্যন্ত ২৩ বলে ৯ রান করেছেন মিরাজ। তাইজুল ৩ বল খেলে রানের খাতা খুলতে পারেননি। এই প্রথম সেশনের ২৯ ওভারে ৭১ রানে ২ স্বীকৃত ব্যাটারের উইকেট হারিয়েছে বাংলাদেশ।

পরে দ্বিতীয় সেশন শুরুতেই হার্মারের দ্বিতীয় শিকারে পরিণত হন তাইজুল। টার্ন করে বেরিয়ে যাওয়া বলে বড় শট খেলতে গিয়ে হাওয়ায় ভাসিয়ে নিজের উইকেট বিলিয়ে দেন তিনি। সাজঘরে ফেরার আগে ১৪ বলে ৫ রান করেন এ বাঁহাতি ব্যাটার।

ঠিক পরের ওভারে ছক্কা হাঁকাতে যান মেহেদি মিরাজও। মহারাজের বলে তার স্লগ সুইপটি ব্যাটে-বলে ভালোভাবেই সংযোগ ঘটে। কিন্তু পার হয়নি ডিপ মিড উইকেট সীমানা। একদম বাউন্ডারির মাথায় দাঁড়িয়ে নিরাপদে ক্যাচ নিয়ে ১১ রান করা মিরাজের বিদায়ঘণ্টা নিশ্চিত করেন অলিভার।

শেষ উইকেট তুলে নিতে বেশি সময় লাগেনি দক্ষিণ আফ্রিকার। মিরাজ আউট হওয়ার দুই বল পর হার্মারের বলে ছক্কা মারতে গিয়ে লিজাড উইলিয়ামসের হাতে ধরা পড়েন এবাদত হোসেন। বাংলাদেশের ইনিংস থেমে যায় ২১৭ রানে, দক্ষিণ আফ্রিকার চেয়ে ২৩৬ রানে পিছিয়ে থেকে।

স্বাগতিকদের পক্ষে সমান ৩টি করে উইকেট নিয়েছেন সাইমন হার্মার ও উইয়ান মাল্ডার। এছাড়া অলিভার ও মহারাজের শিকার ২টি করে উইকেট।


আরও খবর



‘অশনি’র প্রভাবে কমেছে স্পিডবোটের যাত্রী, চাপ বেড়েছে ফেরিতে

প্রকাশিত:বুধবার ১১ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১৮ মে ২০২২ | ৩৩জন দেখেছেন
Image

ঘূর্ণিঝড় ‘অশনি’র প্রভাবে উত্তাল রয়েছে পদ্মা। এরকম আবহাওয়ায় স্পিডবোটে পদ্মাপাড়ি দেওয়া বেশ ঝুঁকিপূর্ণ। তাই মাদারীপুরের বাংলাবাজার-শিমুলিয়া নৌরুটের অধিকাংশ যাত্রীরা ফেরিতে করে পদ্মা পার হওয়ায় চাপ বেড়েছে।

বুধবার (১১ মে) বাংলাবাজার ঘাট ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেলো।

jagonews24

ঘাটে আসা পটুয়াখালী থেকে ঢাকামুখী এক যাত্রী বলেন, গুড়িগুড়ি বৃষ্টি হচ্ছে। স্পিডবোটে যাওয়া অনেক ঝুঁকি। তাই লঞ্চ আর ফেরিতে যাত্রীর চাপ বেশি।

শিবচরের ঢাকাগামী যাত্রী মো. খায়রুজ্জামান খান বলেন, ফেরিতে প্রচণ্ড ভিড়। যাত্রীর চাপ বেশি। অশনির প্রভাবেই যাত্রীরা আজ ফেরিতে ভিড় করছে বেশি। লঞ্চ আর স্পিডবোটের যাত্রীরাই ফেরিতে আগে উঠে পড়ছে।

jagonews24

বিআইডব্লিউটিসির বাংলাবাজার ঘাটের ব্যবস্থাপক মো. সালাউদ্দিন বলেন, চাপ অনেকটাই কমে গেছে। অশনির প্রভাবে যাত্রীরা ফেরিতে বেশি ঝুঁকছে। তবে ফেরিঘাটে আগের মতো যানবাহন নেই। গত দুদিনে ঘাটে আটকেপড়া অন্য যানবাহন পার করতে সক্ষম হয়েছি। এখন ঘাট অনেকটাই স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসতে শুরু করেছে।


আরও খবর



আমার ভবিষ্যতের সিদ্ধান্ত প্রায় হয়ে গেছে: এমবাপে

প্রকাশিত:সোমবার ১৬ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ৩৯জন দেখেছেন
Image

কিলিয়ান এমবাপে কি প্যারিস সেন্ট জার্মেই (পিএসজি) ছাড়ছেন? এখনও কোনো কিছু পরিষ্কার নয়। মাঝে একবার খবর শোনা যায়, পিএসজির সঙ্গে নতুন করে দুই বছর চুক্তি করেছেন এমবাপে। কিন্তু তার মা এমন গুঞ্জন অস্বীকার করেন।

এমবাপেও পরিষ্কার করে কখনও বলেননি, তিনি পিএসজিতেই থাকছেন অথবা অন্য ক্লাবে যাচ্ছেন। তবে রিয়াল মাদ্রিদ থেকে একাধিক সূত্র দাবি করে, আগামী মৌসুমে লা লিগার ক্লাবটিতেই যোগ দিচ্ছেন ফরাসি সুপারস্টার।

গুঞ্জন নিয়ে এবার মুখ খুললেন এমবাপে। যদিও রেখে দিলেন রহস্য। স্বনামধন্য ইতালিয়ান ক্রীড়া সাংবাদিক ফেবরিজিও রোমেনো এক টুইট বার্তায় জানিয়েছেন, এমবাপের ভবিষ্যৎ চূড়ান্ত হয়ে গেছে।

এমবাপে বলেন, ‘আমি আমার ভবিষ্যত নিয়ে কিছু বলতে চাই না। আপনারা খুব দ্রুত এটা জানতে পারবেন...তবে এটা মোটামুটি সিদ্ধান্ত হয়ে গেছে।’

ফরাসি স্ট্রাইকার যোগ করেন, ‘এখন এটা নিয়ে বলার সঠিক সময় নয়। তবে হ্যাঁ, আমার সিদ্ধান্ত বলতে গেলে চূড়ান্ত।’

এমবাপে জানান, জুনে ফ্রান্স জাতীয় দলের শিবিরে ফেরার আগেই ঘোষণাটি দিয়ে দেবেন। তিনি বলেন, ‘আমি আমার ভবিষ্যৎ নিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে সিদ্ধান্ত জানাব জুনে ফ্রান্স জাতীয় দলে যোগ দেওয়ার আগেই।’


আরও খবর



খালিয়াজুরীতে বজ্রপাতে কৃষি শ্রমিকের মৃত্যু

প্রকাশিত:বুধবার ১৮ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ১৮জন দেখেছেন
Image

নেত্রকোনার খালিয়াজুরীতে বজ্রপাতে জাকারুল মিয়া (৩৫) নামের এক কৃষি শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে।

বুধবার (১৮ মে) বিকেল সাড়ে ৪টায় উপজেলার সাতগাঁও হাওরে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত জাকারুল মিয়া আটপাড়া উপজেলার ইকরহাটিয়া গ্রামের আক্কেব আলীর ছেলে। কিছুদিন ধরে মেন্দিপুর ইউনিয়নের খলাপাড়া গ্রামে শ্বশুর আব্দুল জলিলের বাড়িতে থেকে ধান কাটার কাজ করছিলেন তিনি।

খালিয়াজুরী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মজিবুর রহমান জানান, জাকারুলসহ কয়েক শ্রমিক সাতগাঁও হাওরে ধান কাটছিলেন। বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে বজ্রপাত হলে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে।

খালিয়াজুরীর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) ইয়াসিন খন্দকার জানান, নিহতের পরিবারকে উপজেলা প্রশাসন থেকে ১৫ হাজার টাকা সহায়তা দেয়া হবে।


আরও খবর



যেসব পরীক্ষায় মানুষের গুনাহ মাফ হয়

প্রকাশিত:শনিবার ১৪ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ | ৪৯জন দেখেছেন
Image

আল্লাহ তাআলা যার কল্যাণ চান, তাকে দুঃখ-কষ্টে ফেলে পরীক্ষা করেন। যারা এ পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন তারাই সফলকাম। মানুষ দুনিয়ার জীবনে নানান সময় ধন-সম্পদ, জীবন ও সন্তান-সন্তুতির দ্বারা পরীক্ষার সম্মুখীন হন; এ সব পরীক্ষায় যারা সফলতা পান; আল্লাহ তাআলা তাদের গুনাহ ক্ষমা করে দেন। দুনিয়ায় তাদের দান করেন সুমহান মর্যাদা। হাদিসে এসেছে-

হজরত আবু হুরায়রা রাদিয়াল্লাহ আনহু বর্ণনা করেছেন, নবিজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন-

من يُرِدِ الله به خيرا يُصِبْ مِنه

‘আল্লাহ যার মঙ্গল চান, তাকে দুঃখ-কষ্টে ফেলেন।’ (বুখারি)

হাদিসের এ বর্ণনা থেকে বিষয়টি সুস্পষ্ট। ছোট্ট একটি হাদিসে নবিজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম গুরুত্ব এ বিষয়টি সুন্দরভাবে তুলে ধরেছেন।

এ হাদিস দ্বারা নবিজী কী বুঝিয়েছেন?

আল্লাহ তাআলা যখন তার বান্দাদের প্রতি কল্যাণের ইচ্ছা করেন, তখন তাদের জান, মাল ও সন্তান বিষয়ে পরীক্ষায় ফেলেন; যাতে তা তাদের গুনাহ মাফ হয়ে যায় এবং তাদের মর্যাদা বৃদ্ধির কারণ হয়। নিঃসন্দেহে বলা যায়- এটি (পরীক্ষা) তাদের জন্য দুনিয়া ও পরকাল তথা উভয় জগতে উত্তম।

দুনিয়া উত্তম হওয়ার কারণ

দুনিয়াতে উত্তম হওয়ার কারণ হলো- মানুষ যখন ধন-সম্পদ, সন্তান-সন্তুতি ও নিজের জানের বিপদে পড়ে তখন তারা আল্লাহর কাছে দোয়া-মোনাজাতে কান্নাকাটি ও নিজেদের অক্ষমতার কথা প্রকাশ করেন। তাওবা-ইসতেগফারের মাধ্যমে আল্লাহর দিকে ফিরে যান। তখন আল্লাহ তাআলা ওই বান্দার জন্য দয়াশীল হয়ে যান। তাদের প্রতি রহম করেন; তাদের গুনাহ ক্ষমা করে দেন এবং তাদের মর্যাদা বাড়িয়ে দেন।

পরকাল উত্তম হওয়ার কারণ

বান্দা যখন পরীক্ষায় পড়ে ক্ষমা প্রার্থনার মাধ্যমে গুনাহ থেকে মুক্ত হন; তখন পরকালে আর তাদের অপমান ও আজাবের কারণ থেকে মুক্তি পান। আর এ কারণে পরকালেও তাদের মর্যাদা বৃদ্ধি পায়। এ কারণেই আল্লাহ তাআলা কোরআনুল কারিমে ঘোষণা দিয়েছেন-

وَ لَنَبۡلُوَنَّکُمۡ بِشَیۡءٍ مِّنَ الۡخَوۡفِ وَ الۡجُوۡعِ وَ نَقۡصٍ مِّنَ الۡاَمۡوَالِ وَ الۡاَنۡفُسِ وَ الثَّمَرٰتِ ؕ وَ بَشِّرِ الصّٰبِرِیۡنَ

‘আর আমরা অবশ্যই তোমাদের পরীক্ষা করব কিছু ভয়, ক্ষুধা এবং জান-মাল ও ফল-ফলাদির ক্ষতি/স্বল্পতার মাধ্যমে। আর তুমি ধৈর্যশীলদের সুসংবাদ দাও।’ (সুরা বাকারা : আয়াত ১৫৫)

ছোট্ট এ হাদিস দ্বারা নবিজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের উদ্দেশ্য ছিলো- ‘যার প্রতি আল্লাহ কল্যাণের ইচ্ছা করেন সে ধৈর্য ধারণ করে এবং সওয়াবের আশা করে। আল্লাহ তাকে মুসিবত দেন; যাতে তিনি তার পরীক্ষা নেন।

আর যদি সে ধৈর্য ধারণ না করে, তাহলে অনেক সময় মানুষের ওপর অনেক বিপদ আসে; কিন্তু তাতে তার জন্য কোনো কল্যাণ থাকে না, আল্লাহও তার জন্য কল্যাণের ইচ্ছা করেননি। যেমন- কাফিররা অনেক মুসিবতে আক্রান্ত হয়, তারপরও তারা কুফুরি থেকে ফেরে না, এমনকি তারা কাফির অবস্থায় মারা যায়। নিঃসন্দেহে তাদের প্রতি আল্লাহ কল্যাণের ইচ্ছা করেননি।

তাই হাদিস দ্বারা উদ্দেশ্য হলো- ’যার প্রতি আল্লাহ কল্যাণের ইচ্ছা করেন, তাকে মুসিবতে ফেলেন, তারপর সে এ সব মুসিবতের ওপর সবর করে। আর তা অবশ্যই তার জন্য কল্যাণকর হয়।’

হাদিসের শিক্ষামূলক দিকনির্দেশনা

১. একজন মুমিন দুনিয়াতে বিভিন্ন ধরনের বিপদের সম্মুখীন হয়ে থাকে; চাই তা তার মালের ক্ষেত্রে অথবা দ্বীনের ক্ষেত্রে।

২. এতে রয়েছে মুসলিমের জন্য বড় সু-সংবাদ’ কেননা কোনো মুসলিম দুঃখ-কষ্ট থেকে মুক্ত নয়।

৩. বিপদের সম্মুখীন হওয়া কখনো বান্দার প্রতি আল্লাহর ভালোবাসার আলামত হয়; যাতে তার মর্যাদা বৃদ্ধি করা হয় এবং তার গুনাহগুলো ক্ষমা করে দেওয়া হয়।

সুতরাং মুমিন মুসলমানের উচিত, বিপদ-মুসিবত দেখলে অস্থির ও অধৈর্য না হয়ে আল্লাহর ফয়সালার প্রতি সন্তুষ্ট থাকা। আল্লাহর ওপর তাওয়াক্কুল করা। আল্লাহ তাআলাই উত্তম নেয়ামত দানকারী।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে বিপদে ধৈর্য ধরার মাধ্যমে হাদিসে বর্ণিত গুনাহ মাফ ও মর্যাদা পাওয়ার তাওফিক দান করুন। দুনিয়া ও পরকালের কল্যাণ দান করুন। আমিন।


আরও খবর



টিকিট কালোবাজারিকে না ধরে যাত্রীকে জরিমানা করছে রেলওয়ে!

প্রকাশিত:রবিবার ০৮ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১৮ মে ২০২২ | ৪৩জন দেখেছেন
Image

কালোবাজারির কাছ থেকে টিকিট কিনে যিনি ট্রেনে ভ্রমণ করবেন তাকে অপরাধীদের সহযোগী হিসেবে দেখছে বাংলাদেশ রেলওয়ে। সম্প্রতি এমন তিন যাত্রীকে জরিমানা করেছে সংস্থাটি। এটিকে রেলওয়ের ‘বিতর্কিত’ কর্মকাণ্ড উল্লেখ করে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন যাত্রীরা।

তাদের অভিযোগ, রেলওয়ের অব্যবস্থাপনায় ট্রেনের টিকিট অনলাইনে এবং কাউন্টারে পাওয়া যায় না। সেই টিকিট পাওয়া যায় কালোবাজারির হাতে। বাধ্য হয়ে অনেক যাত্রী সেখান থেকে টিকিট কেনেন। কিন্তু এখন কালোবাজারিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিয়ে যাত্রীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছে রেলওয়ে। এটা রেলওয়ে সংশ্লিষ্টদের অজ্ঞতা ছাড়া কিছুই নয়।

তবে রেল সংশ্লিষ্টরা বলছেন, প্রত্যেক যাত্রীকে এনআইডি কার্ড দেখিয়ে টিকিট কাটা বাধ্যতামূলক। তাই কালোবাজারিদের কাছ থেকে টিকিট কেনাও অপরাধ।

রেলওয়ে সূত্র জানায়, গত শুক্রবার (৬ মে) সিল্কসিটি এক্সপ্রেসে ঢাকা যাওয়ার সময় তিন যাত্রী ফেসবুকে পোস্ট করে জানান, তারা কালোবাজারিদের থেকে বাড়তি দামে টিকিট কিনে ভ্রমণ করছেন। বিষয়টি মুহূর্তের মধ্যে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। তখন ওই ট্রেনে ‘টিকিট যার ভ্রমণ তার’ নামে একটি সচেতনতামূলক অভিযান চালাচ্ছিলেন রেলওয়ের পশ্চিমাঞ্চল জোনের জেনারেল ম্যানেজার অসীম কুমার তালুকদার।

তিনি বিষয়টি জানতে পেরে ফেসবুকে পোস্ট করা ওই তিন যাত্রীকে খুঁজে বের করেন। দেখেন তাদের কেউ টিকিট কেনার জন্য নিজেদের এনআইডি ব্যবহার করেননি। তাই তাদের প্রত্যেককে পুনরায় ৪০০ টাকা দিয়ে নতুন করে টিকিট কাটতে বাধ্য করা হয়।

এ ঘটনার বর্ণনা রেলের পশ্চিমাঞ্চলের ফেসবুক পেজে শেয়ার দেন অসীম কুমার তালুকদার। তখন বিষয়টি নিয়ে আলোচনা-সমালোচনা শুরু হয়। নিয়মিত ট্রেন ভ্রমণ করেন এমন যাত্রীদের অনেকেই ওই পোস্টে কমেন্ট করে ক্ষোভ প্রকাশ করেন।

যাত্রীদের অনেকে লেখেন, রেলের এমন বিতর্কিত কর্মকাণ্ডে কালোবাজারিরা আরও উৎসাহিত হবে। বাড়বে যাত্রী হয়রানি। রেলওয়ের উচিৎ টিকিট কালোবাজারির সঙ্গে যারা জড়িত তাদের খুঁজে বের করা।

জানতে চাইলে রোববার (৮ মে) সকালে মুঠোফোনে অসীম কুমার তালুকদার জাগো নিউজকে বলেন, কালোবাজারির কাছ থেকে টিকিট কিনে তাদের সাহায্য করার অপরাধ করেছেন যাত্রীরা। তাই তাদের টিকিটগুলো জব্দ করে জরিমানা হিসেবে ফের টিকিট কিনতে বাধ্য করা হয়। পাশাপাশি কালোবাজারিদের খুঁজে বের করার চেষ্টা চলছে।

তিনি বলেন, ওই তিন যাত্রী যে তিনটি টিকিটে ভ্রমণ করেছিলেন, সেই টিকিটগুলো কোন ভোটার আইডি নম্বর দিয়ে কেনা হয়েছে তা বের করতে তদন্ত কমিটি করা হচ্ছে। আশা করি তদন্তে কালোবাজারিরা ধরা পড়বে।


আরও খবর