তানোরে আলু সিন্ডিকেটের দৌরাত্ন্য

Friday, October 16th, 2020
আলিফ হোসেন,তানোর: রাজশাহীর আলু নিয়ে সিন্ডিকেটের আলুবাজিতে সাধারণ মানুষ অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে। সরকারি নির্দেশনাকে বৃদ্ধাঙ্গুলী প্রদর্শন করে সিন্ডিকেট চক্র হিমাগারে হাজার বস্তা আলু মজুদ ও বাজারে আলুর কৃত্রিম সঙ্কট সৃস্টি করে সাধারণ মানুষের পকেট কাটছে। এছাড়াও সরকারকে বিপাকে ফেলতে একটি সিন্ডিকেট চক্র আলুবাজি করছে। চলতি মৌসুমে কৃষক পর্যায়ে জমিতে আলু বিক্রি হয়েছে  সর্বোচ্চ ১০ টাকা কেজি দরে, আর সেই আলু এখন বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকা কেজি দরে।এতে কৃষক নয় মধ্যস্বত্ত্বভোগী ফড়িয়া সিন্ডিকেট চক্র লাভবান হচ্ছেন। স্থানীয় সুত্র জানায়, তানোরে ৫টি কোল্ডস্টোর রয়েছে এসব কোল্ডস্টোরে বিপুল পরিমাণ আলু মজুদ আছে যার সিংহভাগ ধানতৈড় ও গুবিরপাড়া গ্রামের জামায়াত-বিএনপি মতাদর্শী আলু সিন্ডিকেট চক্রের সক্রিয় সদস্যদের। এদিকে প্রত্যক্ষদর্শী সুত্র জানায়, প্রশাসনের চোঁখ ফাঁকি দিতে এসব কোল্ড স্টোরে দিনের পরিবর্তে গভীর রাতে ট্রাক লোড করা হচ্ছে। বাজার নিয়ন্ত্রণের স্বার্থে এসব কোল্ড স্টোরে দ্রুত প্রশাসনের অভিযান জরুরী হয়ে পড়েছে।
জানা গেছে, বাজার নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্যে চালের পর এবার আলুর দাম নির্ধারণ করে দিয়েছে সরকার। তিন পর্যায়ে এই দাম নির্ধারণ করা হয়। কেজিপ্রতি খুচরা পর্যায়ে ৩০ টাকা, পাইকারিতে ২৫ টাকা ও হিমাগার থেকে ২৩ টাকা। এই দামে আলু বিক্রি না করলে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও ভোক্তা অধিকার কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। কিন্তু তানোর উপজেলার বিভিন্ন হাট-বাজারের প্রায় প্রত্যেকটি দোকানেই খুচরা পর্যায়ে আলু বিক্রি হচ্ছে পঞ্চাশ টাকায়।  সরেজমিন উপজেলার গোল্লাপাড়া হাট, কালীগন্জ, তালন্দ, মুন্ডুমালা হাট ঘুরে দেখা যায় প্রায় প্রতিটি দোকানেই আলু খুচরা পর্যায়ে বিক্রয় হচ্ছে ৫০ টাকা। ঠিক কি কারণে আলুর দাম নিয়ন্ত্রণে নেই তা নিয়ে চিন্তিত সাধারণ মানুষ। তারা দ্রুত প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছে। তানোর পৌর এলাকান বাসিন্দা বকুল হোসেন (৩০) ও আশরাফুল ইসলাম (২৮) জানান, তারা এই মাত্রই গোল্লাপাড়া বাজারের একটি দোকান থেকে ৫০ টাকা দরে আলু কিনেছেন সরকার নির্ধারিত মূল্যে আলু কিনতে পারলাম কই ?  তারা বলেন, আমরা দ্রুত প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি। এমনিতেই সংসার চালাতে আমাদের মতো মানুষের খুব কস্ট হয়। এখন প্রত্যেক দ্রব্যের দাম যদি এইভাবে বাড়তে থাকে তাহলে আমরা জীবন জীবিকা নির্বাহ করবো কিভাবে ? আর আলু তরকারি হিসেবে আলু একটি অতি প্রয়োজনীয় সবজি। রাজশাহী
ক্যাবের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সুত্র জানায়, অসৎ ব্যবসায়ীদের কারণেই আলুর দাম নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না। এদিকে জাতীয় ভোক্তা অধিকার
সংরক্ষণ অধিদপ্তর, রাজশাহীর এক কর্মকর্তা বলেন, দ্রুত আমাদের মনিটরিং কার্যক্রম আরো জোরদার করা হবে।