মান্দা উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আ’লীগের জয়; বিএনপির ভোট বর্জন

Wednesday, October 21st, 2020
কাজী কামাল হোসেন,নওগাঁ ; নওগাঁর মান্দা উপজেলা পরিষদের উপ-নির্বাচনে ৬৫ হাজার ১১১ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন আওয়ামী লীগের আলহাজ্ব মোল্লা এমদাদুল হক। তিনি নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। তাঁর নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বি বিএনপির প্রার্থী মকলেছুর রহমান পেয়েছেন ১৪ হাজার ৯১ ভোট। উপজেলার ১০৮টি ভোট কেন্দ্রের ফলাফলে ৫১ হাজার ২০ ভোটের ব্যবধানে জয়লাভ করেন তিনি। তবে ভোট কেন্দ্রগুলোতে সকালে একটু ভোটারের উপস্থিতি দেখা গেলেও দুপুরের মধ্যেই কেন্দ্রগুলো ফাঁকা হয়ে যায়। অধিকাংশ ভোটকেন্দ্রেই ভোটার উপস্থিতি ছিল খুবই কম। তবে এর মধ্যেই বিভিন্ন কেন্দ্রে বিএনপি প্রার্থীর এজেন্টদের কেন্দ্র থেকে বের করে দেওয়া ও ভোটারদের ভোট দানে বাধা দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। ভোটার উপস্থিতি খুবই কম। বেশিরভাগ বুথে কোনো ভোটার নেই। মাঝে-মধ্যে দু-একজন ভোটার আসছেন ও ভোট দিচ্ছেন।
 সকাল ৯টায় উপজেলার প্রসাদপুর ইউনিয়নের বড়পই সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোট দেন আওয়ামী লীগের প্রার্থী মোল্লা এমদাদুল হক। এ সময় কেন্দ্রটিতে ভোটারদের লাইন দেখা যায়। তবে ওই কেন্দ্রে দুপুর ১২টার দিকে কেন্দ্র ফাঁকা। কেন্দ্রের ছয়টি বুথে কোনোটিতে ভোটারের লাইন নেই। দুপুরে সাড়ে ১২টার দিকে উপজেলার তেতুলিয়া ইউনিয়নের ছোটমুলুক বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায়, কেন্দ্রটিতে ভোটারদের কোনো সারি নেই। কিছুক্ষণ পর পর দুই-একজন ভোটার আসছেন ও ভোট দিচ্ছেন।
বিএনপি প্রার্থীর ভোট বর্জন : ভোটগ্রহণ শেষ হওয়ার আগেই দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে বিএনপির প্রার্থী মোখলেছুর রহমান মান্দা উপজেলা সদরে বিএনপির দলীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে বিএনপির এজেন্টদের বের করে দেওয়া ও ভোটারদের ভোটদানে বাধা দেওয়ার অভিযোগো ভোট বর্জন করেন। সংবাদ সম্মেলনে মোখলেছুর রহমান বলেন, নির্বাচনের আগে গত দুই তিন দিন ধরে বিএনপির নেতাকর্মীদের মাঠছাড়া করতে অত্যাচার-নির্যাতন চালানো হয়েছে।
গতকাল ভোটগ্রহণ শুরুর পর থেকেই ভোটকেন্দ্রগুলোতে বিএনপির সমর্থক ও সাধারণ ভোটারদের ভোট দিতে বাধা দেয় আওয়ামী প্রার্থীর লোকজন। ১০৮টি ভোটকেন্দ্রের প্রত্যেকটি বুথে ধানের শীষের এজেন্ট দেওয়া হয়েছিল। ৯টার সময় ভোট শুরুর পর পরেই আওয়ামী লীগের কর্মী-সমর্থকেরা বিএনপির এজেন্টদের মারধর করে বের করে দেয়। অনেক কেন্দ্রে বিএনপির সমর্থক হিসেবে পরিচিত এবং কোনো দল করে না এমন অনেক সাধারণ ভোটারদের ভোট দিতে বাধা দেওয়া হয়েছে। এই নির্বাচনকে প্রহসনের নির্বাচন উল্লেখ করে এই নির্বাচন বাতিল করে নতুন করে ভোট দেওয়ার দাবি জানান তিনি। মান্দা উপজেলায় মোট ভোটার ৩ লাখ ৯৭৬ জন। নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির প্রার্থী ছাড়া আর কোনো প্রার্থী ছিল না। গত ৬ জুন মান্দা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সরদার জসিম উদ্দিনের মৃত্যুর পর চেয়ারম্যান পদটি শুন্য ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন।