Logo
শিরোনাম

চার জেলায় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে ৫ জনের মৃত্যু

প্রকাশিত:শনিবার ১৮ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২ | ৪২জন দেখেছেন
Image

চার জেলায় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে পাঁচজনের মৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে ময়মনসিংহে দুজন, শেরপুর, ফরিদপুর ও গোপালগঞ্জে একজন করে মারা যান। এদের মধ্যে দুজন নারী ও তিনজন পুরুষ। জাগো নিউজের প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

ময়মনসিংহ: দুপুরে জেলার ফুলবাড়িয়া উপজেলার গাংবড়াইল গ্রামে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে দুজনের মৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে ইলেকট্রিক মিস্ত্রি খলিল মিয়া অপরজন বাড়ির মালিক আব্দুল কাদের (৭৫)। অসাবধানতাবশত খলিল মিয়া বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হন। তাকে বাঁচাতে গিয়ে আব্দুল কাদের ঘটনাস্থলে মারা যান।

শেরপুর: বিদ্যুৎচালিত মোটরে গোসল করতে গিয়ে শিল্পী বেগম (৩৪) নামে এক গৃহবধূর মৃত্যু হয়েছে। বিকেল ৩টার দিকে শেরপুর সদর উপজেলার কামারেরচর ইউনিয়নের সন্ন্যাসীরচর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

ফরিদপুর: জেলার বোয়ালমারীতে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে আঞ্জিরা খানম (৩৬) নামের এক গৃহবধূর মৃত্যু হয়েছে। তিনি উপজেলার শেখর ইউনিয়নের দুর্গাপুর গ্রামের লুৎফর রহমানের স্ত্রী তিনি। দুপুরে তাকে বোয়ালমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের জরুরি বিভাগে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

গোপালগঞ্জ: সকালে সদর উপজেলার বলাকইড় গ্রামে নিজ সেচ ব্লকে বিদ্যুতায়িত হয়ে হাফিজ মোল্লা (৩৮) নামের এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। পরে ময়নাতদন্ত ছাড়া মরদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।


আরও খবর



সীতাকুণ্ডে বিস্ফোরণ নাশকতা কি না, খতিয়ে দেখা হবে: তথ্যমন্ত্রী

প্রকাশিত:রবিবার ০৫ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৩ জুলাই ২০২২ | ৬০জন দেখেছেন
Image

সীতাকুণ্ডে বিএম কনটেইনার ডিপোতে বিস্ফোরণের ঘটনাটি দুর্ঘটনা নাকি নাশকতা, তা খতিয়ে দেখা হবে বলে জানিয়েছেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘এত বড় একটি ঘটনা, সেটা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। এটি (কনটেইনার ডিপোতে বিস্ফোরণ) দুর্ঘটনা নাকি নাশকতা, সেটিও খতিয়ে দেখা হবে।’

রোববার (৫ জুন) বেলা সাড়ে ১১টায় তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্র‍্যাব) নব-নির্বাচিত কমিটির সঙ্গে মতবিনিময় ও সাংবাদিকদের ব্রিফিংয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী নিজে বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করছেন। তিনি সবাইকে নির্দেশনা দিয়েছেন। আওয়ামী লীগ ও এর অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের নির্দেশনা দেওয়া আছে। তারা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ঝাঁপিয়ে পড়েছেন। যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছসেবকলীগের নেতাকর্মীরা কাজ করছেন। তাদের নির্দেশনা দেওয়া আছে, যেখানে রক্ত দেওয়া লাগবে যেন দেওয়া হয়।’

ঘটনা ঘটার পর তদন্তের কথা বলা হয়, আগে কেন মনিটরিং করা হয় না- এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘ঘটনা ঘটার আগে কীভাবে খতিয়ে দেখবে? আগে খতিয়ে দেখার কোনো সুযোগ নেই। তাদের সব কমপ্লায়েন্স ছিল কি না, তা অবশ্যই খতিয়ে দেখা হবে।’

দাহ্য পদার্থ থাকলে উদ্ধারকাজের সময় অন্যভাবে ফায়ার সার্ভিস কাজ করতো, সেই বিষয়ে মালিকপক্ষের কমপ্লায়েন্স ছিল কি না, জানতে চাইলে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘ঢাকায় বসে আমি সেটি বলতে পারবো না। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ সেটি খতিয়ে দেখছে। যদি তাদের কমপ্লায়েন্স না থাকে, সেক্ষেত্রে কর্তৃপক্ষ দায়ী হবে। আর কমপ্লায়েন্স থাকার পরও এটি ঘটলে, তা দুর্ঘটনা নাকি নাশকতা সেটিও বেরিয়ে আসবে।’


আরও খবর



২৫ জনকে চাকরি দেবে খুলনা শিপইয়ার্ড

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৮ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৩ জুলাই ২০২২ | ২৬জন দেখেছেন
Image

বাংলাদেশ নৌবাহিনী পরিচালিত খুলনা শিপইয়ার্ড লিমিটেডে ০৫টি পদে ২৫ জনকে নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহীদের আগামী ০৪ জুলাই সরাসরি সাক্ষাতের জন্য উপস্থিত থাকতে হবে।

প্রতিষ্ঠানের নাম: খুলনা শিপইয়ার্ড লিমিটেড

পদের বিবরণ
jagonews24

চাকরির ধরন: অস্থায়ী
প্রার্থীর ধরন: নারী-পুরুষ
কর্মস্থল: খুলনা

বয়স: ৩০ জুন ২০২২ তারিখ ১৮-৩০ বছর। বিশেষ ক্ষেত্রে শিথিলযোগ্য

আবেদন ফরম: আগ্রহীরা প্রতিষ্ঠানটির ওয়েবসাইট www.khulnashipyard.com থেকে আবেদনপত্র সংগ্রহ করতে পারবেন।

আবেদনের ঠিকানা: ব্যবস্থাপনা পরিচালক, খুলনা শিপইয়ার্ড লিমিটেড, বাংলাদেশ নৌ বাহিনী, খুলনা।

আবেদন ফি: ৫০ টাকা ক্যাশ জমা দিতে হবে।

পরীক্ষার জন্য উপস্থিত থাকার তারিখ ও সময়: ০৪ জুলাই ২০২২ তারিখ সকাল ০৮টা ৩০ মিনিট

পরীক্ষার জন্য উপস্থিত থাকার ঠিকানা: হিউম্যান রিসোর্স ম্যানেজমেন্ট সেকশন, খুলনা শিপইয়ার্ড লিমিটেড, খুলনা।

সূত্র: বাংলাদেশ প্রতিদিন, ২৮ জুন ২০২২


আরও খবর



প্রতিদিন ৭৫ হাজার গাড়ি চলবে পদ্মা সেতুতে

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৪ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ৩০ জুন ২০২২ | ২৬জন দেখেছেন
Image

পদ্মা সেতু নির্মাণে বজায় রাখা হয়েছে সর্বোচ্চ মান। এ ক্ষেত্রে সরকার বিভিন্ন বিষয় মাথায় রেখেছে। এর মধ্যে অন্যতম ভূমিকম্প। কঠিনতম ভূমিকম্প সহনশীল হিসেবে বানানো হয়েছে এই সেতুকে।

পদ্মা সেতুর পিলারের নকশা এমনভাবে করা হয়েছে যে, খরস্রোত পদ্মা ৬২ মিটার পর্যন্ত মাটি সরিয়ে নিয়ে গেলেও সমস্যা হবে না। এটি রিখটার স্কেলে প্রায় নয় মাত্রার ভূমিকম্প সহনশীল।

সেতুটি চার হাজার ডেড ওয়েট টনেজ (ডিডব্লিউটি) ক্ষমতার জাহাজের ধাক্কা সামলাতে পারবে। মাটি সরে যাওয়া, জাহাজের ধাক্কা ও ৯ মাত্রার ভূমিকম্প এক সঙ্গে ঘটলেও কোনো সমস্যা হবে না।

সব কিছু সামলিয়ে দৈনিক ৭৫ হাজার যানবাহন পার হতে পারবে পদ্মা সেতু দিয়ে। এতে উপকারভোগী হবেন দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১টি জেলার তিন কোটি মানুষ।

পদ্মা বহুমুখী সেতু নির্মাণ প্রকল্পের পরিচালক শফিকুল ইসলাম জাগো নিউজকে বলেন, পদ্মাসেতু দিয়ে দৈনিক ৭৫ হাজার যানবাহন চলতে পারবে। সেই লক্ষ্যমাত্রা নিয়েই সেতু নির্মাণ করা হয়েছে।

ভূমিকম্প সহনীয় প্রসঙ্গে তিনি বলেন, পানিপ্রবাহের বিবেচনায় বিশ্বে আমাজন নদীর পরই পদ্মার অবস্থান। মাটির ১২০-১২৭ মিটার গভীরে পাইল বসানো হয়েছে এই সেতুর। পৃথিবীর অন্য কোনো সেতু তৈরিতে এত গভীরে পাইল বসানো হয়নি। যা বিশ্বে সৃষ্টি করেছে রেকর্ড।

শফিকুল ইসলাম জানান, পদ্মা সেতুর আরেকটি রেকর্ড হলো ভূমিকম্পের বিয়ারিং সংক্রান্ত রেকর্ড। এই সেতুতে ‘ফ্রিকশন পেন্ডুলাম বিয়ারিং’র সক্ষমতা ১০ হাজার টন। এখন পর্যন্ত কোনো সেতুতে এমন সক্ষমতার বিয়ারিং লাগানো হয়নি।

রিখটার স্কেলে ৯ মাত্রার ভূমিকম্পে পদ্মা সেতু টিকে থাকতে পারবে বলে জানান সেতু নির্মাণ প্রকল্পের এই পরিচালক। তিনি বলেন, পদ্মা সেতুর পিলার এবং স্প্যানের মধ্যে যে বিয়ারিং রয়েছে সেটির ওজন ১০ হাজার ৫০০ মেট্রিক টন।


আরও খবর



গ্যাসের দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের দাবি ফখরুলের

প্রকাশিত:সোমবার ০৬ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২ | ৫৯জন দেখেছেন
Image

গ্যাসের দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। রোববার (৫ জুন) রাতে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে তিনি এই দাবি জানান।

মির্জা ফখরুল বলেন, বর্তমান স্বৈরাচারী সরকার ক্ষমতাসীন হওয়ার পর থেকে জনগণের স্বার্থকে ত্যাজ্য করে গ্যাসের মূল্য বারবার বৃদ্ধি করে আসছে। আজ (রোববার) আবারও প্রাকৃতিক গ্যাসের দাম গ্রাহক পর্যায়ে বাড়ানো হয়েছে শতকরা ২২ দশমিক ৭৮ শতাংশ। দাম বাড়িয়ে প্রতি ঘনমিটার ১১ টাকা ৯১ পয়সা করা হয়েছে, যার বর্তমান মূল্য ৯ টাকা ৭০ পয়সা। আবাসিক এক চুলার বর্তমান দাম ৯৫০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৯৯০ টাকা এবং দুই চুলার দাম ৯৭৫ টাকা থেকে বাড়িয়ে ১০৮০ টাকা করা হয়েছে।

তিনি বলেন, প্রিপেইড মিটার ব্যবহারকারী গ্রাহকদের বর্তমান প্রতি ইউনিটের দাম ১২ টাকা ৬০ পয়সা থেকে বাড়িয়ে ১৮ টাকা করা হয়েছে। বিদ্যুৎ কেন্দ্রের জন্য প্রতি ঘনমিটার গ্যাসের দাম ৪ টাকা ৪৫ পয়সা থেকে বাড়িয়ে ৫ টাকা ২ পয়সা করা হয়েছে। বৃহৎ শিল্পে বেড়েছে ১১ দশমিক ৯৬ শতাংশ। ক্যাপটিভে ১৫ দশমিক ৫ শতাংশ বাড়ানো হয়েছে। সার কারখানার জন্য ৪ টাকা ৪৫ পয়সা থেকে বাড়িয়ে ১৬ টাকা করা হয়েছে।

বিবৃতিতে বিএনপি মহাসচিব বলেন, এই মূল্য বৃদ্ধি দেশের অর্থনীতিতে বিরূপ প্রভাব ফেলবে। গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধি জনজীবনে মূল্যস্ফীতির চাপ বৃদ্ধির পাশাপশি সামগ্রিক ব্যয় অসহনীয়ভাবে বেড়ে যাবে। জনজীবনে দুর্গতির মাত্রা চরম পর্যায়ে উপনীত হবে। এই দাম বৃদ্ধিতে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম হু হু করে বাড়তে থাকে। মধ্যম ও নিম্ন আয়ের মানুষ ভয়ানক দুর্ভোগের মধ্যে পড়বে।

মির্জা ফখরুল বলেন, আসলে গণবিরোধী আওয়ামী সরকার জনগণের সঙ্গে চরম শত্রুতা শুরু করেছে। যেখানে জনগণের স্বার্থ নিহিত সেখানেই সরকার অনাচার চালাচ্ছে। চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডের অগ্নিকাণ্ডে নিহতদের জন্য গোটা জাতি যখন শোক করছে ঠিক এই মুহূর্তে গ্যাসের দাম বৃদ্ধি চরম অরাজকতার শামিল। এখন জনগণের বিরুদ্ধে আওয়ামী সরকারের প্রতিহিংসা হিংসার রূপ ধারণ করেছে।

তিনি আরও বলেন, ক্ষমতাসীনরা জনগণের টাকা লুটপাট করে আগের মতোই বিদেশে পাচার করে এখন ভর্তুকি কমাতে গ্যাসের দাম বৃদ্ধি করা হয়েছে। এতে জনগণের পকেট কাটা থামবে না বরং আরও বৃদ্ধি পাবে। এই দাম বৃদ্ধির দুর্বিষহ প্রভাব অর্থনীতির সব খাতে পড়বে। ভোটারবিহীন সরকারের জনগণের কাছে দায়বদ্ধতা নেই বলেই জনস্বার্থকে উপেক্ষা করে গ্যাসের মূল্য অস্বাভাবিক হারে বৃদ্ধি করা হয়েছে। এমনিতেই বর্তমানে চাল, ডাল, আটা, চিনি, ভোজ্যতেলের দাম কয়েকগুণ বৃদ্ধিতে স্বল্প আয়ের মানুষের জীবন এখন ত্রাহি-ত্রাহি অবস্থা। তারা সংসার চালাতে হিমশিম খাচ্ছে। গ্যাসের দাম বৃদ্ধি, কৃষি, শিল্পে ও বিদ্যুৎসহ নানা সেক্টরে নেতিবাচক প্রভাব পড়বে এবং প্রয়োজনীয় জিনিসের দাম লাগামহীনভাবে বাড়বে।

আওয়ামী লীগ সরকার ঐতিহ্যগতভাবে হিংসা ও মিথ্যার চর্চা করে। এরা আইনের শাসনকে কবরে পাঠিয়েছে। মানুষের ভোটাধিকার কেড়ে নিয়ে এরা অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের গ্যারান্টি তথা নির্দলীয় ও নিরপেক্ষ সরকার ব্যবস্থা বাতিল করেছে। সেই কারণেই গণবিরোধী সিদ্ধান্ত নিতে তারা পিছপা হয় না। যার চরম বহিঃপ্রকাশ দেখা গেলো আজকে গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধিতে, যোগ করেন মির্জা ফখরুল।


আরও খবর



১১ হাজার কেভির বিদ্যুতের তারে স্পর্শে প্রাণ গেলো রাজমিস্ত্রির

প্রকাশিত:শনিবার ২৫ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৩ জুলাই ২০২২ | ৪০জন দেখেছেন
Image

বগুড়ার আদমদীঘিতে বিদ্যুতায়িত হয়ে শিমুল হোসেন (৩২) নামের এক নির্মাণশ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে।

শনিবার (২৫ জুন) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে মুরইল বাজার এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত শিমুল উপজেলার ডহরপুর গ্রামের আবু বক্করের ছেলে।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, সকালে উপজেলার নশরতপুর ইউপির সাঁকোয়া গ্রামের বাসিন্দা ও ইতালি প্রবাসী আব্দুর রশিদ বাবুর মুরইল বাজারে নির্মাণাধীন ভবনের তৃতীয় তলায় রাজমিস্ত্রির কাজ করছিলেন শিমুল হোসেন। তিনি স্টিলের ফিতা দিয়ে মাপজোখ করছিলেন। এ সময় ভবন ঘেঁষে যাওয়া ১১ হাজার কেভি বিদ্যুতের তারে স্পর্শ লেগে তিনি বিদ্যুতায়িত হন।

স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেন। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা কবেন।

এ বিষয়ে ভবনের মালিকের ভাই নুর মোহাম্মদ জানান, দুর্ঘটনার জন্য এক লাখ টাকা এবং মিলাদ মাহফিলের জন্য ২০ হাজার টাকা নিহত ব্যক্তির পরিবারের সদস্যদের দেওয়া হয়েছে।

আদমদীঘি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রেজাউল করিম রেজা বলেন, এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা করা হয়েছে। পরিবার থেকে কোনো অভিযোগ না থাকায় ময়নাতদন্ত ছাড়াই মরদেহ হস্তান্তর করা হয়েছে।


আরও খবর