Logo
শিরোনাম

ছাত্রলীগ নেতা সাঈদী রিমান্ডে, জোবায়েরের জামিন

প্রকাশিত:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২ | ৪০জন দেখেছেন
Image

অস্ত্র আইনে করা মামলায় ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি দেলোয়ার হোসেন সাঈদীর দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

শুক্রবার (২০ মে) তাকে আদালতে হাজির করে পুলিশ। এরপর সবুজবাগ থানায় অস্ত্র, মাদক ও সরকারি কাজে বাধা দেওয়ার ঘটনায় পৃথক তিন মামলায় পাঁচ দিন করে ১৫ দিনের রিমান্ডে নিতে আবেদন করে পুলিশ। অপরদিকে তার আইনজীবী রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিনের আবেদন করেন। উভয় পক্ষের শুনানি শেষে ঢাকার মেট্রোপলিট ম্যাজিস্ট্রেট মোহনা আলমগীর অস্ত্র মামলায় তার দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। এছাড়া মাদক মামলায় রিমান্ড নামঞ্জুর ও সরকারি কাজে বাধা দেওয়ার মামলায় জামিন মঞ্জুর করেন আদালত।

এদিকে, সরকারি কাজে বাধা দেওয়ার অভিযোগে করা মামলায় ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. জোবায়ের আহাম্মেদের জামিন মঞ্জুর করেছেন আদালত। শুক্রবার ঢাকার মেট্রোপলিট ম্যাজিস্ট্রেট মোহনা আলমগীরের আদালত শুনানি শেষে এ জামিন মঞ্জুর করেন।

এদিন জোবায়েরকে সরকারি কাজে বাধা দেওয়ার অভিযোগে করা মামলায় পাঁচ দিনের রিমান্ডে নিতে আবেদন করে পুলিশ। অন্যদিকে আসামিপক্ষ জামিন চেয়ে আবেদন করেন। উভয় পক্ষের শুনানি শেষে আদালত রিমান্ড আবেদন নাকচ করে জামিন মঞ্জুর করেন।

এর আগে বৃহস্পতিবার রাতে মাদক, অস্ত্র ও সরকারি কাজে বাধা দেওয়ার অভিযোগে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি দেলোয়ার হোসেন সাঈদীর বিরুদ্ধে পৃথক তিনটি মামলা করে র‌্যাব। এছাড়া ঢাকা মহানগর দক্ষিণ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. জোবায়ের আহাম্মেদের বিরুদ্ধে সরকারি কাজে বাধা দেওয়ার অভিযোগে অরেকটি মামলা করে র‌্যাব।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর নাম ভাঙিয়ে কিছু লোক চাঁদাবাজি করে আসছেন- এমন অভিযোগের ভিত্তিতে গত ১৮ মে দিনগত রাত ৩টায় রাজধানীর সবুজবাগে অভিযান চালায় র‌্যাব। এসময় ছাত্রলীগ নেতা সাঈদীকে আটক করা হয়। তার কাছ থেকে একটি বিদেশি পিস্তল, একটি ম্যাগজিন, দুই রাউন্ড গুলি ও ৫৭৮ পিস ইয়াবা জব্দ করা হয়। এরপর সাঈদীকে নিয়ে অভিযানে নামে র‌্যাব। অভিযান শেষে র‌্যাব সদস্যরা রাস্তায় বের হলে ছাত্রলীগ নেতা জোবায়ের আহাম্মেদের নেতৃত্বে ১৫০-২০০ জন সাঈদীকে ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেন।

তখন র‌্যাবের আভিযানিক দল আত্মরক্ষার্থে ও সরকারি দায়িত্ব পালনের জন্য জোবায়ের আহাম্মেদকে গ্রেফতার করলে অন্যরা ছত্রভঙ্গ হয় যায়। তবে সেসময় র‌্যাবের দুই সদস্য আহত হন। তাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়।


আরও খবর



‘সেদিন পদ্মা সেতু থাকলে আজ আমার মা বেঁচে থাকতো’

প্রকাশিত:শনিবার ২৫ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২ | ২২জন দেখেছেন
Image

সেদিন যদি পদ্মা সেতু থাকতো তাহলে আমার মা বেঁচে যেতো। আজ মা নেই কিন্তু পদ্মা সেতু হয়েছে। মা হারানোর শোক নিয়েই স্বপ্নের পদ্মা সেতু উদ্বোধনের জনসভায় এসেছি।

কান্নাজড়িত কণ্ঠে কথাগুলো বলছিলেন সাতক্ষীরা থেকে পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান দেখতে আসা দেব কুমার মণ্ডল। তবে তিনি ছবি তুলতে রাজি হননি।

দেব কুমারের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, কয়েক বছর আগের ঘটনা। ঘটনার দিন তার মা খুব অসুস্থ ছিলেন। উন্নত চিকিৎসার জন্য অ্যাম্বুলেন্সে করে ঢাকায় নিয়ে যাচ্ছিলেন। ফেরিঘাটে মাকে নিয়ে ফেরির জন্য অপেক্ষা করছিলেন। কিন্তু ফেরি পেতে অনেক দেরি হয়ে যায়। ততক্ষণে তার মা মারা যান।

River-2

শনিবার (২৫ জুন) দেশের বহুল প্রত্যাশিত পদ্মা সেতুর উদ্বোধন করা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সেতুর উদ্বোধন করেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠান দেখতে লঞ্চ, ইঞ্জিনচালিত ট্রলার, বাস, মাইক্রোবাস, পিকআপ, ট্রাক ও মোটরসাইকেলে করে দূর-দূরান্ত থেকে ছুটে আসেন লাখ লাখ মানুষ। ভাঙ্গা-মাদারীপুরের মহাসড়কের শিবচর মুন্সিবাজার এলাকায় দীর্ঘ ৮ থেকে ১০ কিলোমিটার যানজটের সৃষ্টি হয়।

যশোর থেকে আসা রেজাউল করিম, ফরিদপুর থেকে আসা মো. সাইদুজ্জামান জাগো নিউজকে বলেন, আমাদের অঞ্চলে বিভিন্ন কৃষিপণ্য উৎপাদন হয়। যাতায়াত ব্যবস্থা ভালো না হওয়ার কারণে এতদিন ন্যায্যমূল্য পেতাম না। এখন পদ্মা সেতু হয়েছে। আমরা এখন কৃষিপণ্যের ন্যায্যমূল্য পাবো। পদ্মা নদীতে সেতু নির্মাণ করে দেওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ ও অভিনন্দন জানান তারা।

২০০১ সালের ৪ জুলাই স্বপ্নের পদ্মা সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ২০১৪ সালের নভেম্বরে নির্মাণকাজ শুরু হয়। দুই স্তরবিশিষ্ট স্টিল ও কংক্রিট নির্মিত ট্রাসের এ সেতুর ওপরের স্তরে চার লেনের সড়ক পথ এবং নিচের স্তরে একটি একক রেলপথ রয়েছে।

River-2

পদ্মা-ব্রহ্মপুত্র-মেঘনা নদীর অববাহিকায় ৪২টি পিলার ও ১৫০ মিটার দৈর্ঘ্যের ৪১টি স্প্যানের মাধ্যমে মূল অবকাঠামো তৈরি করা হয়। সেতুটির দৈর্ঘ্য ৬.১৫০ কিলোমিটার এবং প্রস্থ ১৮.১০ মিটার।

পদ্মা সেতু নির্মাণে খরচ হয়েছে ৩০ হাজার কোটি টাকা। এসব খরচের মধ্যে রয়েছে সেতুর অবকাঠামো তৈরি, নদী শাসন, সংযোগ সড়ক, ভূমি অধিগ্রহণ, পুনর্বাসন ও পরিবেশ, বেতন-ভাতা ইত্যাদি।

বাংলাদেশের অর্থ বিভাগের সঙ্গে সেতু বিভাগের চুক্তি অনুযায়ী, সেতু নির্মাণে ২৯ হাজার ৮৯৩ কোটি টাকা ঋণ দেয় সরকার। ১ শতাংশ সুদ হারে ৩৫ বছরের মধ্যে সেটি পরিশোধ করবে সেতু কর্তৃপক্ষ।

৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার স্বপ্নের কাঠামো নির্মাণের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কনস্ট্রাকশন কোম্পানি লিমিটেড।


আরও খবর



মানবতাবিরোধী অপরাধ: হবিগঞ্জের শফিউদ্দিনসহ ৫ জনের রায় ৩০ জুন

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৮ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২ | ২৪জন দেখেছেন
Image

একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধের সময় সংঘটিত হত্যা, গণহত্যা ও ধর্ষণসহ মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে করা মামলায় হবিগঞ্জের লাখাইয়ের মো. শফি উদ্দিনসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে রায় ঘোষণার জন্য আগামী ৩০ জুন দিন ঠিক করেছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যাল।

মামলার অন্য আসামিরা হলেন- মো. তাজুল ইসলাম, মো. জাহেদ মিয়া, ছালেক মিয়া ও সাব্বির আহমেদ।

মঙ্গলবার (২৮ জুন) ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান বিচারপতি মো. শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বাধীন তিন সদস্যদের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল এ দিন নির্ধারণ করেন।

এর আগে গত ১৭ মে প্রসিকিউশন ও আসামিপক্ষের যুক্তিতর্ক শুনানির পর এর ট্রাইব্যুনাল রায়ের জন্য অপেক্ষায় রেখেছিলেন।

ওইদিন আদালত রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন প্রসিকিউটর সুলতান মাহমুদ সিমন। আসামিপক্ষে শুনানি করেন আব্দুস সাত্তার পালোয়ান, গাজী তামিম।

প্রসিকিউটর সিমন সেদিন বলেন, আসামিদের বিরুদ্ধে দুটি অভিযোগে প্রসিকিউশন যথাযথভাবে সাক্ষ্য-প্রমাণ তুলে ধরেছে। অভিযোগ দুটি প্রমাণ করতে পেরেছি বলে মনে করি। আশা করছি আসামিদের সর্বোচ্চ শাস্তি হবে।

তবে আসামিপক্ষের আইনজীবী গাজী তামিমের দাবি, অভিযোগ প্রমাণ করতে প্রসিকিউশন ব্যর্থ হয়েছে। আসামিরা খালাস পাবেন।

২০১৮ সালের ২১ মার্চ এ মামলায় পাঁচজনের বিরুদ্ধে তদন্ত শেষ করে প্রসিকিউশনে প্রতিবেদন দাখিল করে তদন্ত সংস্থা। যাচাই-বাছাই শেষে আসামিদের বিরুদ্ধে দুটি অভিযোগ আনতে ট্রাইব্যুনালে আনুষ্ঠানিক অভিযোগপত্র দাখিল করে প্রসিকিউশন।

এরপর পাঁচ আসামির বিরুদ্ধে লুটপাট, অগ্নিসংযোগ, অপহরণ, আটক, নির্যাতন ও হত্যার মতো বিভিন্ন মানবতাবিরোধী অপরাধের দুটি অভিযোগ গঠন করে বিচার শুরু করেন ট্রাইব্যুনাল।


আরও খবর



ধামরাইয়ে ৪০০ বছরের ঐতিহ্যবাহী রথযাত্রা উৎসব

প্রকাশিত:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২ | ২৬জন দেখেছেন
Image

ঢাকার ধামরাইয়ে ভারতীয় উপমহাদেশের ঐতিহ্যবাহী হিন্দু সম্প্রদায়ের ৪০০ বছরের পুরোনো ঐতিহ্যবাহী শ্রী শ্রী যশো মাধবের রথযাত্রা ও মাসব্যাপী মেলা শুরু হয়েছে।

শুক্রবার (১ জুলাই) এ যাত্রা শুরু হয়। আগামী ৯ জুলাই উল্টো রথ টানের মধ্যে দিয়ে যাত্রা শেষ হবে এ যাত্রা। তবে এ উপলক্ষে আয়োজিত মেলা চলবে পুরো জুলাই মাস ধরে।

ঢাকাস্থ ভারতীয় হাইকমিশন থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানা গেছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, প্রায় ৪০০ বছরের পুরনো ধামরাইয়ের এ রথযাত্রা। এটি মাধববাড়ি মন্দির থেকে গোপ নগর মন্দির পর্যন্ত ৫০০ মিটার বিস্তৃত। ১৯৫০ সাল থেকে সাহা পরিবারের কুমুদিনী ট্রাস্ট এই ঐতিহ্যকে বাঁচিয়ে রেখেছে।

jagonews24

১৯৭১ সালে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী এই রথ ধ্বংস করে দেয়। কিন্তু ১২ বছর আগে ভারত সরকারের সহযোগিতায় রথটি পুনর্নির্মিত হয়।

করোনা মহামারির জন্য গত দুবছর রথযাত্রা বন্ধ থাকায় এবার ধামরাইয়ে জমকালো অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। রথযাত্রার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শাসসুল আলম, বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতের হাইকমিশনার শ্রী বিক্রম কে দোরাইস্বামী, ঢাকা- ২০ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা বেনজীর আহমদ, ঢাকা জেলার পুলিশ সুপার মো. মারুফ হোসেন সরদার ও ধামরাই পৌরসভার মেয়র গোলাম কবির মোল্লা প্রমুখ। অনুষ্ঠানে ঢাকাস্থ রুশ দূতাবাসের ডেপুটি চিফ অব মিশনও অংশ নেন।

এবারের রথযাত্রায় যেকোনো অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিভিন্ন সংস্থা তৎপর রয়েছে।


আরও খবর



তামিমের দেড়শ ছাড়ানো ইনিংসের পর এবাদতের ৩ উইকেট

প্রকাশিত:রবিবার ১২ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৩ জুলাই ২০২২ | ৪৫জন দেখেছেন
Image

সফরের একমাত্র প্রস্তুতি ম্যাচে ব্যাটিংয়ে আলো ছড়িয়েছেন বাঁহাতি ওপেনার তামিম ইকবাল। পরে ফিল্ডিংয়ে নেমে বল হাতে উজ্জ্বল ডানহাতি পেসার এবাদত হোসেন। বাকিরা অবশ্য তেমন সুবিধা করতে পারেননি। সবমিলিয়ে মিশ্রভাবে চলছে টাইগারদের প্রস্তুতি।

কুলিজ ক্রিকেট গ্রাউন্ডে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট বোর্ড প্রেসিডেন্ট একাদশের বিপক্ষে তিন দিনের প্রস্তুতি ম্যাচের দ্বিতীয় দিন শেষে প্রথম ইনিংসে ১০৯ রানে এগিয়ে রয়েছে বাংলাদেশ। নিজেদের প্রথম ইনিংসে ৬৬ ওভার খেলে ৪ উইকেট হারিয়ে ২০১ রান করে ফেলেছে স্বাগতিকরা।

ম্যাচের প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশের পক্ষে বলতে গেলে একাই শেষ পর্যন্ত লড়েছেন তামিম ইকবাল। ১৬২ রানের দুর্দান্ত এক ইনিংস খেলে অপরাজিত থাকেন তিনি। এছাড়া হাফসেঞ্চুরি পেয়েছেন নাজমুল হোসেন শান্ত। বাকিদের কেউই নিজেদের সেভাবে মেলে ধরতে পারেননি।

শেষ পর্যন্ত ৯৭ ওভারে ৭ উইকেটে ৩১০ রান তুলে ইনিংস ঘোষণা করে বাংলাদেশ। ম্যাচের প্রথম দিন শেষে ৮২.৫ ওভার শেষে ৬ উইকেটে ২৭৪ রান ছিল টাইগারদের। তামিমের সঙ্গে দ্বিতীয় উইকেটে ১৪০ রানের জুটি গড়ে শান্ত আউট হন ৯৯ বলে ৫৪ রান করে।

এছাড়া মাহমুদুল জয় ০, মুমিনুল হক ০, ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক লিটন দাস ৪ ও মেহেদি হাসান মিরাজ আউট হন ৭ রান করে। ইয়াসির আলি রাব্বি ১১ রান নিয়ে আহত অবসরে যান। দিনের খেলা শেষে তামিমের সঙ্গে অপরাজিত ছিলেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। ৬ রান নিয়ে খেলতে নেমে তিনি ১৯ করে আউট হন।

নুরুল হাসান সোহানের ব্যাট থেকে আসে ৩৫ রান। একের পর এক সঙ্গী হারালেও শেষ পর্যন্ত অপরাজিত থেকে যান তামিম। ২৮৭ বলে ২১ বাউন্ডারি আর ১ ছক্কায় ১৬২ রানের ঝকঝকে এক ইনিংস বেরিয়ে আসে বাঁহাতি এই ওপেনারের উইলো থেকে।যা বাংলাদেশকে ৩০০ পার করিয়ে দেয়।

এরপর বোলিংয়ে নেমে শুরুতে তেমন সুবিধা করতে পারেনি বাংলাদেশ। প্রেসিডেন্টস একাদশের দুই ওপেনার জেরেমি সোলোজানো ও ত্যাজনারায়ন চন্দরপল গড়েন ১০৯ রানের জুটি। শিবনারায়ন চন্দরপলের ছেলে ত্যাজনারায়নকে (৫৯) ফিরিয়ে জুটি ভাঙেন রেজাউর রহমান রাজা।

পরে নতুন স্পেলে ঘুরে দাঁড়ান এবাদত। ইনিংসের ৪৭তম ওভারে পরপর দুই বলে টেভিন ইমলাচ ও অ্যালিক অ্যাথানাজকে লেগ বিফোরের ফাঁদে ফেলেন তিনি। চার ওভার পর রস্টোন চেজকে লিটন দাসের হাতে ক্যাচে পরিণত করেন এবাদত। তবে সোলোজানো শেষ পর্যন্ত অপরাজিত রয়েছেন ৮৩ রানে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

বাংলাদেশ ১ম ইনিংস: ৯৭ ওভারে ৩১০/৭ ইনিংস ঘোষণা (তামিম ১৬২*, জয় ০, শান্ত ৫৪, মুমিনুল ০, লিটন ৪*, ইয়াসির আহত অবসর ১১, সোহান ৩৫, মিরাজ ৭, মোসাদ্দেক ১৯, রেজাউর ০*; ম‍্যাকসুইন ১৪-১-৫৭-১, লুইস ১৫-৩-৪৭-২, মিন্ডলে ১০-৪-২২-১, আর্চিবল্ড ১০-১-৩২-০, চার্লস ১৮-৪-৫৭-১, চেইস ৪-১-১৭-০, ওয়ারিক‍্যান ১৭-৭-৩৪-১ ক্যারিয়াহ ৯-০-৩১-১)

ক্রিকেট ওয়েস্ট ইন্ডিজ প্রেসিডেন্ট একাদশ ১ম ইনিংস: ৬৬ ওভারে ২০১/৪ (চন্দরপল ৫৯, সলোজানো ৮৩*, ইমলাক ২৭, এথেনাজে ০, চেইস ৬, ক‍্যারিয়াহ ২১*; ইবাদত ১২-০-৫১-৩, খালেদ ১২-৩-৩১-০, রেজাউর ১৩-১-৪৭-১, মিরাজ ১৩-৫-২৫-০, তাইজুল ১১-৩-৩৬-০, মোসাদ্দেক ৪-১-৬-০, শান্ত ১-০-৩-০)


আরও খবর



পদ্মা সেতু বন্যা মোকাবিলায় সহায়তা করবে: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ৩০ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২ | ৩২জন দেখেছেন
Image

বন্যাদুর্গত সিলেট অঞ্চলে ত্রাণ ও পুনর্বাসনে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আগামীতে দেশের দক্ষিণাঞ্চলে বন্যার আশঙ্কা রয়েছে। দক্ষিণাঞ্চলে বন্যা আসে ভাদ্র মাসের দিকে। সরকার সেই বন্যা মোকাবিলায় প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছে। এই বন্যাও আমরা মোকাবিলা করতে পারবো। পদ্মা সেতু এই বন্যা মোকাবিলায় সহায়তা করবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।

বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) জাতীয় সংসদে বাজেট অধিবেশনের সমাপনী ভাষণে তিনি এসব কথা বলেন। স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অধিবেশনে তিনি বলেন, সিলেট বিভাগ ও নেত্রকোণা জেলায় বন্যার ক্ষতি কাটিয়ে ওঠার চেষ্টা চলছে। এরই মধ্যে ক্ষতিগ্রস্তদের প্রয়োজনীয় ত্রাণ দেওয়া হয়েছে। চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে। পুনর্বাসন কাজও চলছে।

পদ্মা সেতু নির্মাণে উন্নয়নের স্বর্ণ দুয়ার উন্মোচিত হয়েছে উল্লেখ করে সরকার প্রধান বলেন, পদ্মা সেতুর ব্যয় নিয়ে অনেকে প্রশ্ন তুলেছেন। কিন্তু বাস্তবতা পর্যালোচনা করলে দেখা যায়, এই ব্যয় তুলনামূলক বেশি নয়। ১৯৯৭ সালে আমি যখন জাপান গিয়েছিলাম, তখন পদ্মা সেতু ও রূপসা নির্মাণের বিষয়ে আলোচনা করি। ওই সময়ে রূপসা সেতু নির্মাণ হলেও পদ্মা সেতু হয়নি। পরে ফের ক্ষমতায় আসলে এই সেতু নির্মাণের উদ্যোগ নেই।

তিনি বলেন, বিশ্ব ব্যাংক পদ্মা সেতুতে অর্থায়ন থেকে সরে গেলে আমরা নিজস্ব অর্থায়নে এই সেতু নির্মাণের সিদ্ধান্ত নিয়েছিলাম। সংসদে এই ঘোষণা দেওয়ার পর জনগণের ব্যাপক সাড়া পাই সর্বশেষ সেতু নির্মাণে সফল হয়েছি। এই সেতুতে দেশের দক্ষিণাঞ্চলের ২১ জেলার যোগাযোগ ব্যবস্থার পরিবর্তন হবে। দেশের অর্থনীতিতে বড়ধরনের ইতিবাচক প্রভাব ফেলবে। এদেশ এগিয়ে যাচ্ছে এগিয়ে যাবে।

সংসদের বাজেট অধিবেশন প্রাণবন্ত ছিল বলে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এই অধিবেশনে বিরোধী দলকে যথেষ্ট সুযোগ দিয়েছেন। বিশেষ করে বিএনপি নেতারা বক্তব্য দেওয়ার সুযোগ পেয়েছেন। ইচ্ছেমতো তারা কথা বলার সুযোগ পেয়েছেন। আর আমাদের যারা অফিসিয়াল বিরোধী দল তারাও আলোচনার করেছেন। অধিবেশনে ২২৮ জন সংসদ সদস্য বাজেট আলোচনায় অংশ নিয়েছেন। ৩৮ ঘণ্টা ৫৭ মিনিট আলোচনা হয়েছে। আলোচনায় অংশ নেওয়ার জন্য বিরোধী দলীয় নেতাসহ সকল সংসদ সদস্যকে ধন্যবাদ জানান তিনি।

এ সময় তিনি পদ্মা সেতু ব্যয় সংক্রান্ত সবধরনের তথ্য তুলে ধরেন। কেন এত ব্যয় হয়েছে তারও তথ্য-উপাত্ত তুলে ধরেন।


আরও খবর