Logo
শিরোনাম

দাদিকে ধর্ষণের পর দুই নাতিকে হত্যা, আসামির আমৃত্যু কারাদণ্ড

প্রকাশিত:সোমবার ৩০ মে ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২ | ৩৪০জন দেখেছেন
Image

বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জে দাদিকে ধর্ষণের পর দুই নাতিকে হত্যার ঘটনায় বাচ্চু মৃধা (৫৮) নামের এক আসামির আমৃত্যু কারাদণ্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত। একই সঙ্গে ২০ হাজার টাকা জরিমানা ও অনাদায়ে আরও এক বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

সোমবার (৩০ মে) দুপুরে বাগেরহাট নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২ এর বিচারক মো. নূরে আলম আসামির উপস্থিতিতে এ রায় ঘোষণা করেন।

এ সময় অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় খোকন খানকে বেকসুর খালাস দিয়েছেন আদালত। দণ্ডপ্রাপ্ত বাচ্চু মোরেলগঞ্জ উপজেলার পায়লাতলা এলাকার বাসিন্দা।

মামলায় আসামি পক্ষের আইনজীবী ছিলেন শেখ মনিরুজ্জামান ও রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ছিলেন রনজিৎ কুমার মন্ডল।

মামলা সূত্রে জানা যায়, ২০১৪ সালে ১১ সেপ্টেম্বর রাতে পায়লাতলা গ্রামের ফরহাদ মৃধার বসত ঘরের বারান্দায় দাদির সঙ্গে মিরা-জুল ও রিয়াজুল ঘুমিয়েছিল। রাত ১১টার দিকে বাচ্চু মৃধাসহ কয়েকজন এসে তাদের দাদিকে ধর্ষণ করেন। তাদের ধস্তাধস্তির এক পর্যায়ে বিষয়টি টের পেয়ে মিরা-জুল ও রিয়াজুলের ঘুম ভেঙে যায়। দাদিকে মেরে ফেলছে বলে চিৎকার করে তারা।

তখন তারা মিরা-জুল ও রিয়াজুলকে মেরে বাড়ির পাশে ডোবায় ফেলে দেন। তাদের দাদিকেও মারধর করে ফেলে রেখে চলে যান হত্যাকারীরা। পরদিন হত্যার শিকার দুই শিশুর বাবা লোকমান হোসেন বাবু বাদী হয়ে বাচ্চু মৃধাসহ পাঁচজনের নামে মোরেলগঞ্জ থানায় ধর্ষণ ও হত্যা মামলা করেন।

২০১৫ সালের ১০ জুলাই মোরেলগঞ্জ থানা পুলিশ আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। ২০১৭ সালের ১২ নভেম্বর আসামিদের বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করেন আদালত। ২০ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে আদালত এ রায় ঘোষণা করেন।

এদিকে খোকনকে খালাস দেওয়ায় আদালতের রায়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন মামলার বাদী লোকমান হোসেন বাবু। তিনি বলেন, ‘বাচ্চুর সঙ্গে খোকনও হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত ছিল। খোকনকে কেন আদালত খালাস দিলেন আমি জানি না। খোকনের শাস্তির জন্য উচ্চ আদালতে আপিল করবো।’


আরও খবর



টিভিতে আজকের খেলা

প্রকাশিত:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২ | ৩০জন দেখেছেন
Image

ক্রিকেট
বাংলাদেশ-ওয়েস্ট ইন্ডিজ
প্রথম টি-টোয়েন্টি
রাত ১১.৩০ মিনিট
সরাসরি টি স্পোর্টস

ইংল্যান্ড-ভারত
পঞ্চম টেস্ট, দ্বিতীয় দিন
বিকেল ৩.৩০ মিনিট
সরাসরি সনি সিক্স

ফুটবল
বিপিএল
বসুন্ধরা কিংস-মোহামেডান
বিকেল ৪.০০টা
সরাসরি টি স্পোর্টস

টেনিস
উইম্বলডন
বিকেল ৪.০০টা
সরাসরি স্টার স্পোর্টস সিলেক্ট ১ ও ২


আরও খবর



শরীয়তপুর সাংবাদিক সমিতির সভাপতি বেনজির সম্পাদক আজম

প্রকাশিত:শুক্রবার ১০ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৩ জুলাই ২০২২ | ৬৭জন দেখেছেন
Image

শরীয়তপুর সাংবাদিক সমিতি ঢাকার সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন বাংলাভিশনের বেনজির আহমেদ ও সাধারণ সম্পাদক আমার সংবাদের আসাদুজ্জামান আজম।

শুক্রবার (১০ জুন) রাজধানীর সেগুনবাগিচার এক রেস্তোরাঁয় ২০২২-২০২৩ মেয়াদের এ কমিটি গঠন করা হয়।

সমিতির সহ-সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন রোজিনা ইসলাম (প্রথম আলো), রেজাউল হক রেজা (আনন্দ আলো), মনির হোসেন (দৈনিক নয়া দিগন্ত), শাহাদাৎ হোসেন শাহীন (দৈনিক গণমুক্তি) ও সৈয়দ আবদুল গাফফার তপন (ইন্ডিপেন্ডেন্ট টেলিভিশন)।

যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন ফারহানা যুথী (ডিবিসি) ও এফ রহমান রূপক (দৈনিক গণমুক্তি)। এছাড়া সাংগঠনিক সম্পাদক ওবায়দুল্লাহ মামুন (সময় টেলিভিশন), সহ-সাংগঠনিক মাহবুব আলম (ডেইলি সান), জামাল উদ্দিন (বাংলাভিশন), দপ্তর সম্পাদক মাহমুদুল হাসান (আমার সংবাদ), সমাজকল্যাণ সম্পাদক খলিলুর রহমান জুয়েল (এটিএন বাংলা), প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক জাফর আহমেদ (ডেইলি বাংলাদেশ), ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক রাজিবুল ইসলাম (নাগরিক টেলিভিশন), আইন সম্পাদক এমরুল হাসান বাপ্পী (ডেইলি স্টার), নারীবিষয়ক সম্পাদক জাকিয়া আহমেদ (দৈনিক বাংলা)।

কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন মোজাম্মেল হক চঞ্চল (দৈনিক যুগান্তর), আতাউর রহমান (দৈনিক সমকাল) আব্দুস সালাম (প্রথম আলো), মহসিন ব্যাপারী (বাসস), হাবিবুর রহমান পলাশ (দৈনিক দেশ রূপান্তর), মহিউদ্দিন তুষার (দৈনিক গণমুক্তি)। অর্থবিষয়ক সম্পাদক এবং তথ্য ও প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক পদ দুটি শূন্য রাখা হয়েছে।

সমিতির সাবেক সভাপতি মোজাম্মেল হক চঞ্চলের (দৈনিক যুগান্তরে জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক) সভাপতিত্বে সভা সঞ্চালনা করেন সাধারণ সম্পাদক (দৈনিক সমকালের জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক) আতাউর রহমান। সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পানিসম্পদ উপমন্ত্রী এ কে এম এনামুল হক শামীম। বিশেষ অতিথি ছিলেন পপুলার লাইফ ইন্স্যুরেন্সের এমডি বিএম ইউসুফ আলী।


আরও খবর



কেন্দ্রীয়ভাবে ডিজিটাল পশুহাট চালুর উদ্যোগ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৮ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২ | ২৭জন দেখেছেন
Image

পবিত্র ঈদুল আজহায় বিভিন্ন হাট ঘুরে পছন্দের পশু কেনা চিরায়ত এক ঐতিহ্য। এখন এই হাটে লেগেছে আধুনিকতার ছোঁয়া। অনলাইন প্ল্যাটফর্মের মাধ্যমে খামার থেকেই লাখো পশু বিক্রি করছেন ব্যাপারীরা। ঘরে বসে পছন্দের পশু কিনতে পারছেন ক্রেতারা। আধুনিক এই ব্যবস্থাপনার নাম ‘ডিজিটাল পশুহাট’।

২০২০ সালের ঈদুল আজহার সময় দেশে ডিজিটাল হাটের আনুষ্ঠানিক বিকাশ ঘটে। গত বছর এই হাট জনপ্রিয়তা বা মানুষের আস্থা বাড়ে। ফলে ২০২০ সালের তুলনায় ২০২১ সালে চারগুণের বেশি পশু বিক্রি হয়েছিল। এবার আসন্ন ঈদুল আজহা উপলক্ষে ডিজিটাল হাটের প্রস্তুতি চলছে। সংশ্লিষ্টদের ধারণ, ডিজিটাল হাটের প্রতি মানুষের আগ্রহ আরও বাড়ছে। গত বছরের তুলনায় এবার আট থেকে ১০ গুণ বেশি পশু অনলাইনে বেচাকেনার সম্ভাবনা রয়েছে। চাঁদ দেখা সাপেক্ষে আগামী ১০ জুলাই দেশে ঈদুল আজহা অনুষ্ঠিত হবে।

এবার কোরবানির পশু বিক্রির জন্য অনলাইন প্ল্যাটফর্ম ‘ডিজিটাল হাট’র আয়োজনের প্রস্তুতি নিচ্ছে সরকারের বাণিজ্য মন্ত্রণালয়, আইসিটি বিভাগের এটুআই, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়, একশপ, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি), বাংলাদেশ ডেইরি ফার্মার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিডিএফএ) ও ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ই-ক্যাব)। সম্প্রতি এই বিষয়ে আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠক হয়েছে। গত বছর ই-ক্যাব, বিডিএফএ ও ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন পৃথকভাবে ‘ডিএনসিসি ডিজিটাল হাট’র আয়োজন করেছিল। এবার পশুহাটের পুরো কার্যক্রম পরিচালনা করবে সরকার।

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, সম্প্রতি ঈদুল আজহা উপলক্ষে প্রস্তুতিমূলক আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৈঠকে দেশের সব সিটি করপোরেশন, পৌরসভা ভিত্তিক অনলাইনে গবাদিপশু বিক্রি করতে বিভাগীয় কমিশনারদের মাধ্যমে জেলা প্রশাসন এবং উপজেলা প্রশাসনকে নির্দেশনা দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। এছাড়া অনলাইনে পশুর ছবি আপলোড করার আগে গবাদিপশুর স্বাস্থ্য সনদ নিতে হবে। এটি দেবেন সংশ্লিষ্ট ভেটেরিনারি সার্জনেরা। প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর অনলাইনে গবাদিপশু বিক্রির জন্য খামারিদের সংশ্লিষ্ট অনলাইন প্ল্যাটফর্মের সঙ্গে সংযোগে সহযোগিতা করবে এবং আপলোড করার ক্ষেত্রে মালিকের নাম, ঠিকানা, মোবাইল নম্বর, গবাদিপশুর বয়স, ওজন, মূল্য ও ছবি দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। আগামী ৩ জুলাই ডিজিটাল হাটের আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু হবে।

ডিজিটাল হাট: করোনাভাইরাসের কারণে ২০২০ এবং ২০২১ সালে পশুর হাট ডিজিটাল পদ্ধতিতে করতে গুরুত্ব দিয়েছে সরকার। সে অনুযায়ী এবার কেন্দ্রীভাবে ‘ডিজিটাল পশুহাট’ চায় সরকার। এ জন্য digitalhaat.gov.bd ওয়েবসাইট চালু করেছে আইসিটি বিভাগ। এই ওয়েবসাইটে ‘নিরাপদ থাকাটাই জরুরি এখন, হাটে না গিয়েও হাট যখন তখন’, ‘এক ক্লিকে হাট থেকে হাতে’, ‘ডিজিটাল হাট থেকে দেশের যে কোনো প্রান্ত থেকে কিনতে পারেন পছন্দের কোরবানির পশু’- এমন স্লোগানে প্রচারণা চালানো হচ্ছে। এই ওয়েবসাইট ঘেটে দেখা যায়, এরইমধ্যে এই ওয়েবসাইটে দেশের বিভিন্ন এলাকার ৬৩টি পশুর খামার যুক্ত হয়েছে। পশুর ক্যাটাগরিতে গরু, ছাগল, ভেড়া, দুম্বা, উট, মহিষ রাখা হয়েছে। ক্রেতাদের যে পশু পছন্দ, ক্যাটাগরিতে ক্লিক করলেই বিস্তারিত তথ্য পাচ্ছেন।

গরু ক্যাটাগরিতে (দেশি ষাঁড়) ৮১৬ কেজি ওজনের একটি গরুর ছবি দিয়েছে ঢাকার ধামরাইয়ের বরাকৈর কুল্লার এসএস এগ্রো কমপ্লেক্স লিমিটেড। গরুটির দাম চাওয়া হয়েছে চার লাখ ৮৯ হাজার ৬০০ টাকা (একদাম)। সেখানে লেখা, ‘নিজস্ব খামারে সম্পূর্ণ স্বাভাবিক নিয়মে ধানের কুড়া, গমের ভুসি, অ্যাংকর ডালের ভুসি, ছোলার ভুসি, ঘাস, ও খড় খাওয়ানো হয়। কোনো ধরনের মোটাতাজাকরণের ওষুধ বা ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা হয় না। এমনকি মোটাতাজাকরণে কোনো ধরনের ফিড খাওয়ানো হয় না। অর্থ্যাৎ সম্পূর্ণ প্রাকৃতিক খাবার খাওয়ানো হয়।’

ই-ক্যাবের মহাব্যবস্থাপক (জিএম) জাহাঙ্গীর আলম শোভন জাগো নিউজকে বলেন, ডিজিটাল গরুর হাট সবার জন্যই উন্মুক্ত একটা প্ল্যাটফর্ম। বিডিএফএ’র অধীনে দেশব্যাপী অনেক উদ্যোক্তা রয়েছেন। এই প্রান্তিক খামারিদের আমরা ‘ডিএনসিসি ডিজিটাল হাটে’ যুক্ত করছিলাম। এবার সরকার কেন্দ্রীভাবে ডিজিটাল হাটের আয়োজন করেছে। এখানে লেনদেন পদ্ধতি খুবই স্বচ্ছ, প্রতারণার সুযোগ নেই। ভবিষ্যতে এই হাটের আরও প্রসার ঘটবে।

তিনি বলেন, এবার ই-ক্যাব ডিজিটাল হাটের সঙ্গে সম্পৃক্ত হবে। প্রান্তিক খামারিদের সমন্বয়ের কাজটা করবে ই-ক্যাব। এ ছাড়া স্লটারিং সেবা (জবাই ও মাংস প্রক্রিয়াকরণ) চালু করার প্রস্তুতি নিচ্ছে ই-ক্যাব।

জানতে চাইলে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, করোনা মহামারির কারণে সরকার অনলাইনে গবাদিপশুর ক্রয়-বিক্রয়ে গুরুত্ব দিচ্ছে। ডিজিটাল হাট বাস্তবায়নে সরকারের অন্যান্য সংস্থার সঙ্গে কাজ করছে ডিএনসিসি। এর মাধ্যমে ডিজিটাল বাংলাদেশে অনলাইনে ক্রয়-বিক্রয় আরও গুরুত্ব পাবে। মানুষের সময় বাঁচবে এবং করোনার বিস্তার রোধ হবে।

এই বিষয়ে জানতে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব মুহাম্মদ ইয়ামিন চৌধুরীর মুঠোফোনে একাধিকবার কল দিয়েও তাকে পাওয়া যায়নি। তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা বলেন, প্রতিটি উপজেলায় অনলাইন প্ল্যাটফর্ম চালু করা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট উপজেলা ভেটেরিনারি সার্জনরা গবাদিপশু অনলাইনে আপলোডের আগে স্বাস্থ্য সনদ দেবে। এ ছাড়া অনলাইন প্ল্যাটফর্মের সঙ্গে খামারিদের সংযুক্ত করা এবং ওজন অনুযায়ী পশুর দাম নির্ধারণের বিষয়ে স্থানীয় প্রাণিসম্পদ দপ্তর ব্যবস্থা নেবে। এজন্য খামারিদের ডাটাবেজ তৈরি করেছে সংশ্লিষ্ট প্রাণিসম্পদ দপ্তর। খামারিরা যাতে অনলাইনে তাদের গবাদিপশু সহজে বিক্রি করতে পারেন সেজন্য সব ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।


আরও খবর



কায়সার হামিদের ভাই ববি হামিদ আর নেই

প্রকাশিত:বুধবার ১৫ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ৩০ জুন ২০২২ | ৩৬জন দেখেছেন
Image

সাবেক তারকা ফুটবলার কায়সার হামিদের ভাই ও দাবাড়ু রানী হামিদের ছেলে শাহজাহান হামিদ (ববি হামিদ) আর নেই। বুধবার সকালে মারা গেছেন সাবেক এই হ্যান্ডবল ও ফুটবল খেলোয়াড় (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

অনেক দিন ধরে মস্তিষ্কের ক্যানসারে ভুগছিলেন। দেশ-বিদেশে চিকিৎসাও নিয়েছিলেন তিনি। কিছুদিন আগে তার চিকিৎসার জন্য অনুদান দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। কোন কিছুতেই বাাঁচানো গেল না ববি হামিদ নামে পরিচিত এই ক্রীড়াবিদকে।

মৃত্যুর আগে তিনি রাজধানীর সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীনা ছিলেন। বয়স হয়েছিল ৫৯ বছর। আজ বাদ আসর বনানী ডিওএইচএস মসজিদে জানাজা হবে ববি হামিদের। এরপর সন্ধ্যায় বাংলাদেশ সেনাবাহিনী কবরস্থানে দাফন করা হবে তাকে।

ববি দেশের সর্বোচ্চ পর্যায়ে ফুটবল খেলেছেন। নব্বইয়ের দশকের শুরুতে খেলেছেন ঐতিহ্যবাহী ওয়ারী ক্লাবে। জাতীয় ফুটবল দলে কখনো ডাক না পেলেও হ্যান্ডবলে জাতীয় দলে খেলেছেন। ফুটবলের পাশাপাশি তুখোড় হ্যান্ডবল খেলোয়াড় ছিলেন তিনি। ক্লাব পর্যায়ে খেলেছেন ব্রাদার্স ইউনিয়নের হয়ে।

ববি হামিদের বাবা কর্নেল এমএ হামিদ বাংলাদেশ হ্যান্ডবল ফেডারেশনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি। এক সময় জাতীয় ক্রীড়া পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ছিলেন। মা রানী হামিদ দেশের দাবার রানী হিসেবে পরিচিত।

আন্তর্জাতিক এই মহিলা মাস্টার ৮০ বছর বয়সেও খেলে চেলেছেন দাবা। একই পরিবার থেকে তিনজনের জাতীয় ক্রীড়া পুরস্কার পাওয়ার ঘটনাও অনন্য। এই পরিবার থেকে জাতীয় ক্রীড়া পুরস্কার পেয়েছেন কর্নেল হামিদ, রানী হামিদ ও কায়সার হামিদ।


আরও খবর



স্বপ্নের সেতু দিয়ে জাজিরার পথে প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:শনিবার ২৫ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৩ জুলাই ২০২২ | ২৭জন দেখেছেন
Image

মুন্সিগঞ্জের মাওয়া প্রান্তে ফলক উন্মোচনের পর স্বপ্নের পদ্মা সেতু দিয়ে শরীয়তপুরের জাজিরার পথে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সেখানেও পদ্মা সেতুর ফলক উন্মোচনের পাশাপাশি মোনাজাতে অংশ নেবেন তিনি।

শনিবার (২৫ জুন) বেলা ১১টা ৫৮ মিনিটে মাওয়া প্রান্তে পদ্মা সেতুর ফলক উন্মোচন করেন প্রধানমন্ত্রী। দুপুর ১২টা ০৬ মিনিটে সেতু দিয়ে প্রধানমন্ত্রীর গাড়িবহর জাজিরার অভিমুখে রওনা হয়। এর আগে বেলা ১১টা ৪৮ মিনিটে নিজ হাতে নির্ধারিত টোল দেন প্রধানমন্ত্রী।

জাজিরা প্রান্তে গিয়ে ফলক উন্মোচন ও মোনাজাতের পর মাদারীপুরের বাংলাবাজার ঘাটে আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় অংশ নেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসনিা। সেখানে বক্তব্য দেবেন তিনি।

এর আগে হেলিকপ্টারযোগে সকাল ১০টায় মুন্সিগঞ্জের দোগাছি পদ্মা সেতু সার্ভিস এরিয়া-১ এ পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী। সেখান থেকে পদ্মা সেতুর উত্তর থানা সংলগ্ন মাঠে আয়োজিত সুধী সমাবেশে উপস্থিত হয়ে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন। সমাবেশে অংশ নেন সাড়ে ৩ হাজার সুধীজন। যাদের মধ্যে ছিলেন বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত, বিশিষ্ট নাগরিক ও সাংবাদিকরা। সমাবেশ শেষে প্রধানমন্ত্রী মাওয়া প্রান্তে পদ্মা সেতুর ফলক উন্মোচন করেন। পরে মোনাজাতে অংশ নেন তিনি।

রোববার (২৬ জুন) ভোর ৬টা থেকে পদ্মা সেতু দিয়ে যান চলাচল শুরু হবে। ২০০১ সালের ৪ জুলাই স্বপ্নের পদ্মা সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ২০১৪ সালের নভেম্বরে নির্মাণকাজ শুরু হয়। দুই স্তরবিশিষ্ট স্টিল ও কংক্রিট নির্মিত ট্রাসের এ সেতুর ওপরের স্তরে চার লেনের সড়কপথ এবং নিচের স্তরে একটি একক রেলপথ রয়েছে।

পদ্মা-ব্রহ্মপুত্র-মেঘনা নদীর অববাহিকায় ৪২টি পিলার ও ১৫০ মিটার দৈর্ঘ্যের ৪১টি স্প্যানের মাধ্যমে মূল অবকাঠামো তৈরি করা হয়। সেতুটির দৈর্ঘ্য ৬.১৫০ কিলোমিটার এবং প্রস্থ ১৮.১০ মিটার।

পদ্মা সেতু নির্মাণে খরচ হয়েছে ৩০ হাজার কোটি টাকা। এসব খরচের মধ্যে রয়েছে সেতুর অবকাঠামো তৈরি, নদী শাসন, সংযোগ সড়ক, ভূমি অধিগ্রহণ, পুনর্বাসন ও পরিবেশ, বেতন-ভাতা ইত্যাদি।

বাংলাদেশের অর্থ বিভাগের সঙ্গে সেতু বিভাগের চুক্তি অনুযায়ী, সেতু নির্মাণে ২৯ হাজার ৮৯৩ কোটি টাকা ঋণ দেয় সরকার। ১ শতাংশ সুদ হারে ৩৫ বছরের মধ্যে সেটি পরিশোধ করবে সেতু কর্তৃপক্ষ।

৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার স্বপ্নের কাঠামো নির্মাণের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কনস্ট্রাকশন কোম্পানি লিমিটেড।


আরও খবর