Logo
শিরোনাম

ডেসটিনির ৪৬ জনকে ২৩০০ কোটি টাকা জরিমানা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১২ মে ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২ | ৩০৪জন দেখেছেন
Image

গ্রাহকের অর্থ আত্মসাৎ ও অর্থপাচারের মামলায় ডেসটিনি গ্রুপের প্রেসিডেন্ট হারুন-অর-রশিদ ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক রফিকুল আমীনসহ ৪৬ জনের বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। কারাদণ্ডের পাশাপাশি তাদের মোট দুই হাজার ৩০০ কোটি টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এছাড়া এই প্রতিষ্ঠানের যত সম্পত্তি ক্রোক ও ফ্রিজ করা হয়েছিল তা রাষ্ট্রের অনুকূলে বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১২ মে) ঢাকার চতুর্থ বিশেষ জজ আদালতের বিচারক শেখ নাজমুল আলম এ রায় ঘোষণা করেন।

একইসঙ্গে এ সম্পত্তি বিনিয়োগকারীদের নিকটে বণ্টনের জন্য ছয় সদস্যের কমিটি গঠন করা হয়েছে। এ কমিটিতে সুপ্রিম কোর্টের সাবেক বিচারপতিকে প্রধান ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের রেজিস্ট্রারকে সদস্য সচিব করা হয়েছে। এছাড়া কমিটিতে অর্থ মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব, সমবায় মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব, পুলিশের ডিআইজি ও চার্টার একাউনটেন্টকে সদস্য করা হয়েছে। এ কমিটি ডেসটিনির সব সম্পত্তি সমন্বয় করে তা বিনিয়োগকারীদের মধ্যে বণ্টন করবে।

দুদকের আইনজীবী মীর আহম্মদ আলী সালাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

যার যে কারাদণ্ড ও জরিমানা
রায়ে ডেসটিনি ২০০০ লিমিটেডের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ হোসেনের ১০ বছরের কারাদণ্ড, ৫০ লাখ টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও এক বছরের কারাদণ্ড, ডেসটিনির উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালক গোফরানুল হক, সাঈদ-উর-রহমান, পরিচালক মেজবাহ উদ্দিনের ১০ বছর করে কারাদণ্ড, এক কোটি ৮০ লাখ টাকা জরিমানা অনাদায়ে দুই বছর ছয় মাসের কারাদণ্ড, সৈয়দ সাজ্জাদ হোসেনের নয় বছরের কারাদণ্ড, ৩০ কোটি টাকা জরিমানা অনাদায়ে দুই বছরের কারাদণ্ড, ইরফান আহমেদ, ফারাহ দীবা, জমশেদ আরা চৌধুরী, শেখ তৈয়বুর রহমান ও নেপাল চন্দ্র বিশ্বাসের আট বছর করে কারাদণ্ড, ৪০ কোটি টাকা জরিমানা অনাদায়ে দুই বছর কারাদণ্ড, জাকির হোসেন, আজাদ রহমান, আকবর হোসেন সুমন ও সুমন আলী খানের নয় বছর করে কারাদণ্ড, ১২৫ কোটি টাকা জরিমানা অনাদায়ে দুই বছর ছয় মাস কারাদণ্ড, আবুল কালাম আজাদ, সাইফুল ইসলাম রুবেল, শিরীন আকতার, রফিকুল ইসলাম সরকার, মো. মজিবুর রহমান, লে. কর্নেল (অব.) মো. দিদারুল আলমের আট বছর করে কারাদণ্ড, ১২৫ কোটি টাকা জরিমানা অনাদায়ে দুই বছর ছয় মাস কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

এছাড়াও ড. এম হায়দারুজ্জামানের ছয় বছরের কারাদণ্ড, ১০ কোটি টাকা জরিমানা অনাদায়ে এক বছর ছয় মাসের কারাদণ্ড, মোহাম্মদ জয়নাল আবেদীনের ছয় বছরের কারাদণ্ড, পাঁচ কোটি টাকা জরিমানা অনাদায়ে এক বছরের কারাদণ্ড, কাজী মো. ফজলুল করিমের পাঁচ বছরের কারাদণ্ড, ৫০ লাখ টাকা জরিমানা অনাদায়ে এক বছরের কারাদণ্ড, মোল্লা আল আমীনের আট বছরের কারাদণ্ড, ১০ লাখ টাকা জরিমানা অনাদায়ে ছয় মাসের কারাদণ্ড, শফিউল ইসলামের সাত বছরের কারাদণ্ড, ১০ কোটি টাকা জরিমানা অনাদায়ে এক বছর ছয় মাসের কারাদণ্ড, জিয়াউল হক মোল্লা, খন্দকার কবিরুল ইসলাম, মো. ফিরোজ আলমের পাঁচ বছর করে কারাদণ্ড, ১০ লাখ টাকা জরিমানা অনাদায়ে এক বছরের কারাদণ্ড, ওমর ফারুকের পাঁচ বছরের কারাদণ্ড, ২৫ লাখ টাকা জরিমানা অনাদায়ে এক বছরের কারাদণ্ড, সুনীল বরণ কর্মকার ওরফে এসবি কর্মকারের আট বছরের কারাদণ্ড, পাঁচ কোটি টাকা জরিমানা অনাদায়ে দুই বছরের কারাদণ্ড, ফরিদ আকতারের আট বছরের কারাদণ্ড, দুই কোটি ৫০ লাখ টাকা জরিমানা অনাদায়ে দুই বছরের কারাদণ্ড, এস সহিদুজ্জামান চয়নের আট বছরের কারাদণ্ড, ১৫ কোটি টাকা জরিমানা অনাদায়ে দুই বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

অন্য আসামিদের মধ্যে আবদুর রহমান তপন ও মো. শফিকুল হকের সাত বছর করে কারাদণ্ড, এককোটি টাকা জরিমানা অনাদায়ে এক বছরের কারাদণ্ড, মেজর (অব.) সাকিবুজ্জামান খান ও জেসমিন আক্তার মিলনের পাঁচ বছর করে কারাদণ্ড, এক কোটি টাকা জরিমানা অনাদায়ে এক বছরের কারাদণ্ড, এসএম আহসানুল কবির, এএইচএম আতাউর রহমান রেজার আট বছর করে কারাদণ্ড, ১০ কোটি টাকা জরিমানা অনাদায়ে দুই বছরের কারাদণ্ড, গোলাম কিবরিয়া মিল্টনের আট বছরের কারাদণ্ড, পাঁচ কোটি টাকা জরিমানা অনাদায়ে দুই বছরের কারাদণ্ড, মো. আতিকুর রহমানের সাত বছরের কারাদণ্ড, পাঁচ কোটি টাকা জরিমানা অনাদায়ে দুই বছরের কারাদণ্ড, খন্দকার বেনজীর আহমেদ, একেএম সফিউল্লাহ, শাহ আলম, মো. দেলোয়ার হোসেনের সাত বছর করে কারাদণ্ড, এক কোটি টাকা জরিমানা অনাদায়ে এক বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

মামলায় ডেসটিনির এমডি রফিকুল আমীনসহ মোট আসামি ৪৬ জন । তাদের মধ্যে জামিনে রয়েছেন লে. কর্নেল (অব.) মো. দিদারুল আলম, লে. জেনারেল (অব.) হারুন-অর-রশিদ, মিসেস জেসমিন আক্তার (মিলন), জিয়াউল হক মোল্লা ও সাইফুল ইসলাম রুবেল। কারাগারে আছেন এমডি রফিকুল আমীন ও প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান মোহাম্মদ হোসেন। অন্য ৩৯ আসামি পলাতক।

অর্থ আত্মসাৎ ও অর্থপাচারের অভিযোগে দুদকের তৎকালীন উপ-পরিচালক মো. মোজাহার আলী সরদার ও সহকারী পরিচালক মো. তৌফিকুল ইসলাম ২০১২ সালের ৩১ জুলাই রাজধানীর কলাবাগান থানায় মানি লন্ডারিং আইনে পৃথক দুটি মামলা করেছিলেন।

২০১৪ সালের ৪ মে আদালতে অভিযোগপত্র (চার্জশিট) দাখিল করেন মোজাহার আলী সরদার। এতে ডেসটিনির গ্রাহকদের চার হাজার ১১৯ কোটি ২৪ লাখ টাকা আত্মসাৎ করে পাচারের অভিযোগ আনা হয়।

এর মধ্যে ডেসটিনি মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ সোসাইটির মামলায় ৪৬ জন এবং ডেসটিনি ট্রি-প্ল্যানটেশন লিমিটেডে দুর্নীতির মামলায় ১৯ জনকে আসামি করা হয়। দুই মামলায়-ই আসামি হারুন-অর-রশিদ ও রফিকুল আমিন।

মামলার অভিযোগপত্রে বলা হয়, ২০০৮ সাল থেকে মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ প্রজেক্টের নামে ডেসটিনি বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে সংগ্রহ করে এক হাজার ৯০১ কোটি টাকা। সেখান থেকে এক হাজার ৮৬১ কোটি টাকা আত্মসাৎ করা হয় বলে দুদকের অনুসন্ধানে ধরা পড়ে। ওই অর্থ আত্মসাতের ফলে সাড়ে ৮ লাখ বিনিয়োগকারী ক্ষতির মুখে পড়েন।

ডেসটিনি ট্রি-প্ল্যানটেশন প্রজেক্টের মাধ্যমে বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে দুই হাজার ৪৪৫ কোটি টাকা সংগ্রহ করা হয়। এর মধ্যে দুই হাজার ২৫৭ কোটি ৭৮ লাখ ৭৭ হাজার টাকা আত্মসাৎ করা হয়। ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হন সাড়ে ১৭ লাখ বিনিয়োগকারী।

অভিযোগপত্রে আরও বলা হয়, ডেসটিনি গ্রুপের নামে ২৮টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে বেশ কয়েকটি ছিল নামসর্বস্ব। আসামিরা প্রথমে প্রজেক্টের টাকা বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের হিসাবে জমা করতেন। এরপর বিভিন্ন ব্যাংকের হিসাবে তা স্থানান্তর করা হতো। দুদক ৩৪টি ব্যাংকে এমন ৭২২টি হিসাবের সন্ধান পায়, যেগুলো পরে জব্দ করা হয়।


আরও খবর

পতনের মধ্যেই শেয়ারবাজার

সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২




সংঘবদ্ধ ধর্ষণের পর হত্যায় ৩ যুবকের ফাঁসি

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৯ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৩ জুলাই ২০২২ | ৪৫জন দেখেছেন
Image

টাঙ্গাইলে স্কুলছাত্রীকে অপহরণ করে সংঘবদ্ধ ধষর্ণের পর হত্যার দায়ে তিনজনের ফাঁসির আদেশ দিয়েছেন নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল। একই মামলার আরেক আসামিকে খালাস দেওয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (০৯ জুন) দুপুর ১২টার দিকে ট্রাইব্যুনালের বিচারক খালেদা ইয়াসমিন এ রায় ঘোষণা করেন।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- জেলার গোপালপুর উপজেলার ভেঙ্গুলা গ্রামের মৃত নগেন চন্দ্র দাসের ছেলে শ্রীকৃষ্ণ দাস, ধনবাড়ী উপজেলার ইসপিঞ্জাপুর গ্রামের মোশারফ হোসেনের ছেলে সৌরভ আহমেদ হৃদয় ও একই গ্রামের মৃত মজিবর রহমানের ছেলে মিজানুর রহমান। এছাড়া এ মামলায় একই গ্রামের মেহেদী হাসান টিটুকে খালাস দেওয়া হয়েছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন টাঙ্গাইল আদালত পরিদর্শক তানভীর আহমেদ।

তিনি জানান, ২০২১ সালের ২ আগস্ট টাঙ্গাইলের গোপালপুর উপজেলার জয়নগর গ্রামের খোকন মিয়ার স্কুল পড়ুয়া মেয়ে খোদেজা খাতুন বাড়ি থেকে নানির বাড়ি যাওয়ার উদ্দেশ্যে বের হয়ে নিখোঁজ হয়। পরে তাকে কোথাও না পেয়ে ৪ আগস্ট গোপালপুর থানায় সাধারণ ডায়রি (জিডি) করতে যান খোকন মিয়া। পরে থানা থেকে তাকে জানানো হয় মেয়ের একটি ছবি নিয়ে আসতে হবে।

এ কথা শুনে ছবি আনতে বাড়িতে চলে যান খোদেজার স্বজনরা। ওইদিনই ভূঞাপুর-তারাকান্দি সড়কের ভূঞাপুর যমুনা নদীর পাড়ে বস্তাবন্দি একটি মেয়ের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

ময়নাতদন্তের পর নিহতের কোনো পরিচয় না পাওয়ায় ওইদিনই বেওয়ারিশ হিসেবে মরদেহটি উপজেলার ছাব্বিশা কবরস্থানে দাফন করা হয়। পরে পুলিশের কাছ থেকে খবর পেয়ে ছবি দেখে স্বজনরা উদ্ধার হওয়া মরদেহটি খোদেজার বলে শনাক্ত করেন।

এ ঘটনায় নিহতের বাবা খোকন মিয়া বাদী হয়ে ৬ আগস্ট ভূঞাপুর থানায় অজ্ঞাত ব্যক্তিদের আসামি করে মামলা করেন। পরে মামলাটি পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনে (পিবিআই) হস্তান্তর করা হয়।

তথ্যের ভিত্তিতে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ ও হত্যার সঙ্গে জড়িত শ্রী কৃষ্ণ দাস, সৌরভ আহমেদ হৃদয়, মিজানুর রহমানের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেন তদন্ত কর্মকর্তা। এছাড়া প্রতিবেদনে মেহেদী হাসান টিটুর নাম বাদ দেওয়া হয়। কিন্তু এতে নারাজি দেন বাদীপক্ষ।

আদালত সাক্ষ্য প্রমাণ শেষে তিনজনের ফাঁসির আদেশ দেন। রায় ঘোষণার পর ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত শ্রী কৃষ্ণ দাস, সৌরভ আহমেদ হৃদয় ও মিজানুর রহমানকে জেলা কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেওয়া হয়।


আরও খবর

পতনের মধ্যেই শেয়ারবাজার

সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২




বাংলাদেশ ন্যাপের জাতীয় কাউন্সিল ডিসেম্বরে

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৭ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৩ জুলাই ২০২২ | ৫৩জন দেখেছেন
Image

বাংলাদেশ ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টির (ন্যাপ) জাতীয় কাউন্সিল অধিবেশন আগামী ডিসেম্বরে অনুষ্ঠিত হবে।

শুক্রবার (১৭ জুন) গুলশানে দলটির প্রধান কার্যালয়ে কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

সভায় জাতীয় কাউন্সিল সফল করা লক্ষে দলের মহাসচিবকে আহ্বায়ক করে কাউন্সিল প্রস্তুতি কমিটি গঠন করা হয়েছে। একই সঙ্গে আগামী ২৬ জুলাই দলের ৬৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন ও আগামী আগস্ট মাস থেকে সব জেলা ও মহানগরে দলের সম্মেলন করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

সভায় নেতারা বলেন, জনজীবন যখন দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে জর্জরিত ঠিক সে সময় গ্যাস ও বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধি আগুনে ঘি ঢালা সমান। বর্তমানে বৈশ্বিক পরিস্থিতিতে চরম অসময় যাচ্ছে। মূল্যবৃদ্ধির সময় এটা নয়। যে চেষ্টা হচ্ছে, সেটি আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত সরকারকে বেকায়দায় ফেলার শামিল।

বাংলাদেশ ন্যাপ চেয়ারম্যান জেবেল রহমান গানির সভাপতিত্বে ও মহাসচিব এম. গোলাম মোস্তফা ভুঁইয়ার সঞ্চালনায় সভায় বক্তব্য রাখেন- দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য মুনির এনায়েত মল্লিক, ব্যারিস্টার মশিউর রহমান গানি, ভাইস চেয়ারম্যান স্বপন কুমার সাহা, যুগ্ম মহাসচিব মো. নুরুল আমান চৌধুরী, আতিকুর রহমান, মো. মহসীন ভুঁইয়া, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. কামাল ভুঁইয়া, মিতা রহমান, সম্পাদক মণ্ডলীর সদস্য মো. আমজাদ হোসেন, কেন্দ্রীয় নেতা শফিকুল আলম শাহিন, বাদল দাস, কাকলি রহমান প্রমুখ।


আরও খবর



টিএমএস পদে চাকরি দেবে আবুল খায়ের টোব্যাকো

প্রকাশিত:শুক্রবার ০১ জুলাই ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২ | ৩৪জন দেখেছেন
Image

আবুল খায়ের টোব্যাকো কোম্পানি লিমিটেডে ‘ট্রেড মার্কেটিং সুপারভাইজার (টিএমএস)’ পদে জনবল নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহীরা আগামী ২১ জুলাই পর্যন্ত সাক্ষাৎকারে অংশ নিতে পারবেন।

প্রতিষ্ঠানের নাম: আবুল খায়ের টোব্যাকো কোম্পানি লিমিটেড
বিভাগের নাম: মার্কেটিং বিভাগ

পদের নাম: ট্রেড মার্কেটিং সুপারভাইজার (টিএমএস)
পদসংখ্যা: নির্ধারিত নয়
শিক্ষাগত যোগ্যতা: স্নাতক/সমমান
অভিজ্ঞতা: অভিজ্ঞদের অগ্রাধিকার
বেতন: ২২,০০০-২৬,০০০ টাকা

চাকরির ধরন: ফুল টাইম
প্রার্থীর ধরন: পুরুষ
বয়স: ৩২ বছর
কর্মস্থল: যে কোনো স্থান

আবেদনের ঠিকানা: আগ্রহীরা www.jobs.bdjobs.com এর মাধ্যমে সাক্ষাৎকারের সময়সূচি জানতে পারবেন।

সাক্ষাৎকারের শেষ সময়: ২১ জুলাই ২০২২

সূত্র: বিডিজবস ডটকম


আরও খবর

পতনের মধ্যেই শেয়ারবাজার

সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২




রবি’র শুভেচ্ছাদূত হলেন তামিম ইকবাল

প্রকাশিত:রবিবার ০৫ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ জুলাই ২০২২ | ৬১জন দেখেছেন
Image

 

আগামী দুই বছরের জন্য শীর্ষস্থানীয় ডিজিটাল সেবা প্রদানকারী কোম্পানি রবি’র শুভেচ্ছাদূত হিসেবে যোগ দিলেন জাতীয় ক্রিকেট দলের ওয়ানডে অধিনায়ক তামিম ইকবাল। রোববার (৫ জুন) রবি কর্পোরেট অফিসে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেওয়া হয়।

নেটওয়ার্ক সক্ষমতা, ডিজিটাল উদ্ভাবন এবং গ্রাহকদের জীবনে নতুন ডিজিটাল অভিজ্ঞতা নিশ্চিত করতে রবি’র বিভিন্ন উদ্যোগের প্রচারে কাজ করবেন তামিম। এছাড়া তিনি রবি’র টেলিভিশন বিজ্ঞাপন, গ্রাহকদের সাথে সাক্ষাৎ ও শুভেচ্ছা বিনিময় অনুষ্ঠানসহ বিভিন্ন কার্যক্রমে অংশ নেবেন।

রবির সাথে নতুন পথ চলার বিষয়ে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে তামিম বলেন, ‘হোক ব্যাটিং, বোলিং, ফিল্ডিং অথবা গ্রাহকের জীবনকে সহজ করে তোলার মত সমাধান মার্কেটে নিয়ে আসা; ডিজিটাল স্পেস ও ক্রিকেটকে একই সুতোয় বেঁধে রেখেছে উদ্ভাবনী চিন্তাধারা। তাই দেশজুড়ে শীর্ষস্থানীয় উদ্ভাবনী ব্র্যান্ড রবি’র নেটওয়ার্কের সক্ষমতা এবং ডিজিটাল দক্ষতার প্রচারে কাজ করার সুযোগ পেয়ে আমি অত্যন্ত আনন্দিত।’

রবির চিফ কমার্শিয়াল অফিসার শিহাব আহমেদ বলেন, ‘আজ আমরা দেশের ৯৮ দশমিক ২ শতাংশ জনগণের কাছে আমাদের ফোরজি নেটওয়ার্ক পৌঁছে দিতে সক্ষম হয়েছি। ২০১৯ সাল থেকে দেশে সর্বাধিক সংখ্যক নেটওয়ার্ক টাওয়ার স্থাপন করার মাধ্যমে এই সফলতা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছি আমরা। সম্প্রতি স্পেকট্রাম নিলামের পর নেটওয়ার্ক সাইটে গ্রাহক প্রতি সর্বোচ্চ স্পেকট্রাম বরাদ্দের লক্ষ্যে রবি সম্পূর্ণ প্রস্তুত। এর ফলে গ্রাহকদের জীবনে নতুন ডিজিটাল অভিজ্ঞতা প্রদানে আমাদের প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নে ক্ষেত্রে আমরা আরও একধাপ এগিয়ে গেছি। আমরা নিশ্চিত, এই পর্যায়ে রবি’র ডিজিটাল অগ্রযাত্রায় তামিমের সম্পৃক্ততা আমাদের উদ্ভাবনী উদ্যোগগুলোকে আরও গ্রাহকবান্ধব করে তুলবে।’

jagonews24

রবি’র ভারপ্রাপ্ত প্রধান নির্বাহী এম. রিয়াজ রশীদ বলেন, ‘বিশ্বের অন্যতম সেরা ওপেনিং ব্যাটার তামিম আমাদের সাথে যুক্ত হওয়ায় আমরা সত্যিই গর্বিত। তামিম যখনই মাঠে নামেন, শৈল্পিকভাবে সম্ভাবনাগুলো বাস্তবে পরিণত হয়। আমরা বিশ্বাস করি, তার শৈল্পিক খেলার অনন্য আবেদনের সাথে গ্রাহকদের জন্য সর্বোত্তম ডিজিটাল নেটওয়ার্ক নিশ্চিত করার যে লক্ষ্য নিয়ে রবি কাজ করে যাচ্ছে তার সাথে সম্পূর্ণ সামঞ্জস্যপূর্ণ। আমি নিশ্চিত তামিম ও রবি’র এই ওপেনিং জুটি ভবিষ্যতের স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ায় একটি শক্ত ভিত্তি হিসেবে কাজ করবে।’

২০০৭ সালে অভিষেক হওয়া তামিম ইকবাল খান বর্তমানে একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বাংলাদেশের জাতীয় দলের অধিনায়ক। তিনি ডিসেম্বর ২০১০ থেকে সেপ্টেম্বর ২০১১ পর্যন্ত জাতীয় দলের সহ-অধিনায়ক হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন।

২০২১ সালে প্রথম বাংলাদেশি খেলোয়াড় হিসেবে একদিনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ৫০টি হাফ-সেঞ্চুরির মাইলফলক অর্জন করেছিলেন তিনি। বর্তমানে তিনি সর্বকালের সেরা বাংলাদেশি ব্যাটসম্যানদের একজন হিসাবে বিবেচিত।

২০১১ সালে তিনি উইজডেন ক্রিকেটার্স অ্যালমেনাকের বর্ষসেরা চার ক্রিকেটারের একজন এবং উইজডেনের বর্ষসেরা টেস্ট খেলোয়াড় হিসাবে নির্বাচিত হন। ক্রিকেটের তিন সংস্করণেই সেঞ্চুরি করা তিনি একমাত্র বাংলাদেশি ব্যাটার। তামিম আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে ২৫টি সেঞ্চুরিসহ সব ধরনের ক্রিকেট মিলিয়ে বাংলাদেশের পক্ষে সর্বোচ্চ সেঞ্চুরি করেছেন।


আরও খবর

পতনের মধ্যেই শেয়ারবাজার

সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২




রাষ্ট্রপতির ছেলের চালককে মারধর, জবি ছাত্রলীগকর্মীর বিরুদ্ধে মামলা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৮ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২ | ৩৪জন দেখেছেন
Image

তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে রাষ্ট্রপতির ছেলের গাড়ির চালককে মারধরের ঘটনায় কৌশিক সরকার সাম্য নামে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের এক কর্মীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে। কৌশিক সঙ্গীত বিভাগের ২০১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী।

সোমবার (২৭ জুন) ওয়ারী থানায় বাদী হয়ে এ মামলা দায়ের করেন ভুক্তভোগী চালক নজরুল ইসলাম। তিনি রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদের ছেলে রিয়াদ আহমেদ তুষারের গাড়ির চালক বলে জানান ওয়ারী থানা পুলিশ।

ওয়ারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কবীর হোসেন হাওলাদার মামলার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, সোমবার ওয়ারীর জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম হলের কাছে গাড়িতে চালক থাকার সময় আসামি সাইড দিতে বলে। পরে তুচ্ছ ঘটনায় চালককে মারধর করা হয়।

তিনি জানান, এরপর তাকে নজরুল ইসলাম হলে ধরে নিয়ে গিয়ে মারধর করা হয়। এছাড়া প্রাণনাশের হুমকি দেওয়া হয়। এই অভিযোগ করে চালক নজরুল ইসলাম বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেছেন। একজনের নাম উল্লেখসহ আরও কয়েকজনকে অজ্ঞাতনামা করে আসামি করা হয়েছে। তবে এ মামলায় এখনো পর্যন্ত কেউ গ্রেফতার হয়নি। মামলা নং ২৫, ২৭/৪/২২ বলে থানা থেকে জানা যায়।

এছাড়া ঘটনার বিষয়ে ওয়ারী থানার ফাঁড়ির পুলিশের উপ-পরিদর্শক জহির হোসেন বলেন, তুচ্ছ ঘটনায় চালককে মারধর করা হয়। বাদী খুব ভয় পেয়ে যান। এমনভাবে মারতে থাকে যেন আর বাঁচবেন না বলে আমাদের কাছে ভীতি প্রকাশ করেন। তিনি রাষ্ট্রপতির ছেলে রিয়াদ আহমেদ তুষারের গাড়ির চালক বলে আমাদের জানায়।

তবে অভিযুক্ত ছাত্রলীগের কেউ নয় বলে জানান শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আক্তার হোসেন। তিনি বলেন, কৌশিক সরকার সাম্য নামের ওই ছেলে ছাত্রলীগের কোনো কর্মী না। সে গত কয়েকটি কোনো অনুষ্ঠানে আসেনি। পদ্মা সেতুর উদ্বোধন, ধানমন্ডি ৩২ এ ফুল দেওয়ার প্রোগ্রামসহ কোনো জায়গায় ছিল না। তবে কোনো শিক্ষার্থী যদি আমার সঙ্গে ছবি তুলতে আসে মানা করা যায় না। সে যদি আসামি হয় তাহলে ছাত্রলীগ এর দায়ভার নেবে না।

এদিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. মোস্তফা কামাল বলেন, ঘটনার বিষয়ে ওয়ারী থানা থেকে শুনেছি। গাড়ির চালক রাষ্ট্রপতির ছেলের ড্রাইভার বলে থানা জানিয়েছে।

এর আগে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ওপর হামলার ঘটনায় ২০১৯ সালের ৭ নভেম্বর কৌশিক সরকার সাম্যকে সাময়িক বহিষ্কার করে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।


আরও খবর

পতনের মধ্যেই শেয়ারবাজার

সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২