Logo
শিরোনাম

‘দুই বন্ধু এক দেশ’ বইয়ের আলোচনা অনুষ্ঠান

প্রকাশিত:শনিবার ১৮ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২ | ৫৪জন দেখেছেন
Image

১৯৭১ সালের ১ আগস্ট নিউইয়র্ক সিটির ম্যাডিসন স্কোয়ার গার্ডেনে পণ্ডিত রবিশংকর ও জর্জ হ্যারিসনের উদ্যোগে আয়োজন করা হয় বিশ্বের প্রথম সেবামূলক কনসার্ট ‘কনসার্ট ফর বাংলাদেশ’।

মহতি এ উদ্যোগের ৫০ বছর পূর্তিতে লেখক-গবেষক আবু সাঈদ ও ভারতীয় বংশোদ্ভূত যুক্তরাজ্যের লেখক-গবেষক প্রিয়জিৎ দেবসরকার লেখেন ‘কনসার্ট ফর বাংলাদেশ: দুই বন্ধু এক দেশ’।

১৭ জুন সন্ধ্যা ৬টায় রাজধানীর কবিতা ক্যাফেতে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক সংগঠন ‘মুক্ত আসর’ বইটি নিয়ে আলোচনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

জর্জ হ্যারিসনের গাওয়া ‘বাংলা দেশ’ গানটির মাধ্যমে অনুষ্ঠান শুরু হয়। সূচনা বক্তব্য দেন স্বপ্ন ’৭১ প্রকাশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা রাজিয়া সুলতানা ঈশিতা। লেখক প্রিয়জিৎ দেবসরকারকে উত্তরীয় ও বিশেষ সম্মাননা স্মারক প্রদান করা হয়।

বাংলাদেশ ইতিহাস অলিম্পিয়াড জাতীয় কমিটির সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ইতিহাসবিদ ড. এ কে এম শাহনাওয়াজের সভাপতিত্বে বইয়ের আলোচনা শুরু হয়।

বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ সিদ্দিকুর রহমান খান বলেন, ‘১১২ পৃষ্ঠার বই হলেও এটি গুরুত্বপূর্ণ। আমি মনে করি, বইয়ের দুই লেখক সুপরিকল্পিতভাবে গ্রন্ধের বিষয়গুলো উপস্থাপনা করেছেন। কনসার্ট ফর বাংলাদেশের আয়োজকদের গভীরভাবে স্মরণ করছি।’

অধ্যাপক এ কে এম শাহনাওয়াজ বলেন, ‘ছোট বইটির প্রতিটি শব্দে একটি দায়িত্বশীলতা রয়েছে। ছোট কিন্তু অনেক বড় একটি ক্যানভাস বইটিতে। আমি পড়েছি এবং বিস্মিত হয়েছি। এটি একটি অনবদ্য সৃষ্টি। আমি এই দুই লেখকের কাছে কৃতজ্ঞ।’

প্রিয়জিৎ দেবসরকার বলেন, ‘বিশ্বের এই প্রথম সেবামূলক কনসার্ট নিয়ে বিভিন্ন প্রবন্ধ-নিবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে। কিন্তু বই আকারে তা প্রকাশিত হয়নি। আমরা বিভিন্ন তথ্য-লেখা সংগ্রহের কাজ শুরু করি। প্রায় তিন বছর পর বইটি আলোর মুখ দেখে। এ বই বিভিন্ন ভাষায় অনূদিত হয়ে বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ুক।’

আবু সাঈদ বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধের বীরত্বগাথা ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য আমরা কাজ করছি। বইটির মাধ্যমে আমরা তা করার চেষ্টা করেছি। বইটি ইংরেজি ও স্প্যানিশ ভাষায় প্রকাশ করে বিশ্বের মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে কাজ করছি।’

অনুষ্ঠানে ‘কনসার্ট ফর বাংলাদেশ’ আয়োজনের সঙ্গে যারা যুক্ত ছিলেন; তাদের কৃতজ্ঞতার সঙ্গে স্মরণ করা হয়। পাঠকপর্বে বক্তব্য রাখেন মুক্ত আসরের উপদেষ্টা ফারাহ দিবা আহমেদ, সাবেক সচিব সাইদুর রহমান, এবিসি রেডিওর নাদিয়া নিতুল ইসলাম, ইশরাত জাহান, কে জামান পূর্ণিমা, দেবব্রত নীল, নিঝুম, পুলক, শিবম প্রমুখ।

আলোচনা ও পাঠকের প্রশ্নোত্তর শেষে সংগীত পরিবেশন করেন নজরুলসংগীত শিল্পী উম্মে রুমা ট্রফি ও মুক্ত আসরের সাংস্কৃতিক সম্পাদক শায়লা রহমান।

সঞ্চালনা করেন মুক্ত আসরের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক আয়শা জাহান নূপুর ও শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক নাফিজা রহমান মৌ। বইটি প্রকাশিত হয় স্বপ্ন ’৭১ প্রকাশন থেকে। মূল্য ২৮০ টাকা। অনুষ্ঠানের সহ-আয়োজক স্বপ্ন ’৭১ ও ম্যাগাজিন ‘বইচারিতা’।


আরও খবর

জাহিদ নয়নের দুটি কবিতা

সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২




সিঙ্গাপুরে অসময়ে ডেঙ্গুর প্রকোপ বিশ্বের জন্য অশনিসংকেত

প্রকাশিত:শুক্রবার ১০ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৩ জুলাই ২০২২ | ৫২জন দেখেছেন
Image

সিঙ্গাপুরে প্রায় প্রতিবছরই একটি নির্দিষ্ট মৌসুমে ডেঙ্গুর প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়। তবে এ বছর সেই সময়ের অনেক আগেই শুরু হয়েছে এডিস মশার প্রকোপ। তার চেয়েও আশঙ্কা কথা, মৌসুম শুরুর আগেই গত বছরের তুলনায় দ্বিগুণের বেশি মানুষ ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছেন সেখানে। ফলে কিছুদিন পরে কী পরিস্থিতি হবে, তা রীতিমতো ভয় জাগাতে শুরু করেছে সিঙ্গাপুরে।

সিএনএনের খবর অনুসারে, দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার ছোট্ট দেশটিতে ২০২১ সাল জুড়ে মোট ৫ হাজার ২৫২ জন ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত হয়েছিল। কিন্তু চলতি বছরে এরই মধ্যে ১১ হাজারের বেশি মানুষ এতে আক্রান্ত হয়েছেন।

বিশেষজ্ঞরা সতর্ক করে বলেছেন, এই পরিস্থিতি শুধু সিঙ্গাপুরের জন্য নয়, গোটা বিশ্বের জন্যই দুশ্চিন্তার বিষয়। কারণ জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে আগামী বছরগুলোতে এ ধরনের রোগের প্রাদুর্ভাব আরও নিয়মিত হয়ে উঠতে পারে।

ডেঙ্গু কোনো ছোটোখাটো রোগ নয়। এতে ফ্লুর মতো উপসর্গ, যেমন- তীব্র জ্বর, মাথাব্যথা এবং শরীরে ব্যথা দেখা দেয়। গুরুতর অবস্থায় রক্তপাত, শ্বাসকষ্ট, অঙ্গহানি, এমনকি মৃত্যুও ঘটতে পারে।

jagonews24

সিঙ্গাপুরের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ডেসমন্ড ট্যান বলেছেন, দেশে ডেঙ্গুর সংক্রমণ দ্রুত বাড়ছে। এটি নিয়ন্ত্রণ এখন জরুরি পর্যায়ে চলে গেছে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সাম্প্রতিক বিরূপ আবহাওয়ার কারণে সিঙ্গাপুরে ডেঙ্গু পরিস্থিতি বেশি খারাপ হয়েছে। তাদের সমস্যাটি অন্যদের জন্যেও সতর্কসংকেত হতে পারে। কারণ, আরও অনেকে দেশ দীর্ঘায়িত উষ্ণ আবহাওয়া ও বজ্রবৃষ্টির সম্মুখীন হয়, যা মশা এবং ভাইরাস উভয়কেই ছড়াতে সহায়তা করে।

গত জানুয়ারি মাসে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) একটি বৈশ্বিক ডেঙ্গু প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এটি এখন ১০০টিরও বেশি দেশে আঞ্চলিক রোগের রূপ নিয়েছে। গত ৫০ বছরে সংক্রমণ ৩০ গুণ বেড়েছে। ডেঙ্গু এখন নতুন নতুন এলাকায় ছড়ানোর সঙ্গে কেবল রোগীর সংখ্যাই বাড়ছে না, বিস্ফোরক আকারে প্রাদুর্ভাবও ঘটছে।

ডব্লিউএইচও’র তথ্যমতে, ২০১৯ সালে বিশ্বে রেকর্ড ৫২ লাখ ডেঙ্গু রোগী শনাক্ত হয়েছিল। ওই বছর এশিয়াজুড়ে প্রাদুর্ভাবের কারণে হাজার হাজার মানুষ মারা যায়। ফিলিপাইনে ডেঙ্গুতে শত শত প্রাণহানি হয়, আরও লক্ষাধিক মানুষ ঝুঁকিতে পড়ে। দেশটি এটিকে জাতীয় মহামারি ঘোষণা করেছিল। একই সময় বাংলাদেশের হাসপাতালগুলোতে রোগীদের উপচেপড়া ভিড় লক্ষ্য করা যায়। আর আফগানিস্তানে প্রথমবারের মতো ডেঙ্গুর সংক্রমণ রেকর্ড করা হয়।

এর পরের বছরই সিঙ্গাপুরের ইতিহাসে ভয়াবহতম প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়। ২০২০ সালে নগররাষ্ট্রটিতে ৩৫ হাজার ৩১৫ জন এ রোগে আক্রান্ত হন, মারা যান অন্তত ২৮ জন।

এ বছর সিঙ্গাপুরে এখন পর্যন্ত মাত্র একজন ডেঙ্গুতে মারা গেলেও আক্রান্তের সংখ্যা বাড়তে থাকায় স্থানীয় কর্তৃপক্ষ কোনো ঝুঁকি নিতে চায় না। সিঙ্গাপুর স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্র বলেন, এ বছর ২৮ মে পর্যন্ত প্রায় ১১ হাজার ৬৭০ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছেন, এদের মধ্যে প্রায় ১০ শতাংশ রোগীকে হাসপাতালে ভর্তি করতে হয়েছে।

jagonews24

তবে সর্বোচ্চ সংক্রমণের মৌসুম মাত্র শুরু হওয়ায় বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এ বছর সিঙ্গাপুরে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যায় নতুন রেকর্ড গড়ার আশঙ্কা রয়েছে।

ডিউক-এনইউএস মেডিকেল স্কুলের সিনিয়র রিসার্চ ফেলো এবং উদীয়মান সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ রুক্লান্তি ডি আলউইসের মতে, সিঙ্গাপুরে ডেঙ্গুর প্রকোপ বৃদ্ধির পেছনে সাম্প্রতিক উষ্ণ ও আর্দ্র আবহাওয়ার পাশাপাশি নতুন শক্তিশালী ভাইরাস স্ট্রেইনের (ধরন) মতো একাধিক কারণ থাকতে পারে। তবে পরিস্থিতি সবচেয়ে খারাপ করেছে জলবায়ু পরিবর্তন।

তিনি বলেন, অতীতের ভবিষ্যদ্বাণীমূলক মডেলগুলো দেখিয়েছে, জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে বৈশ্বিক উষ্ণায়ন শেষ পর্যন্ত ভৌগলিক এলাকা বাড়িয়ে দেবে (যেখানে মশার বংশবৃদ্ধি হয়), সেইসঙ্গে ডেঙ্গু সংক্রমণের মৌসুমগুলোকেও দীর্ঘায়িত করবে।


আরও খবর



‌‘বিব্রত না করা’র প্রতিশ্রুতি দিয়ে নেতাদের জামিন চায় হেফাজত

প্রকাশিত:বুধবার ২৯ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৩ জুলাই ২০২২ | ২৩জন দেখেছেন
Image

২০১৩ সালে মতিঝিলের শাপলা চত্ত্বর ও ২০১৬ সালে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় নাশকতার ঘটনায় করা মামলা থেকে হেফাজতে ইসলামের নেতাকর্মীদের নাম প্রত্যাহার না করাকে দুর্ভাগ্যজনক বলে মন্তব্য করেছে সংগঠনটি।

মঙ্গলবার (২৮ জুন) স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে দেওয়া চিঠিতে এই আক্ষেপের কথা জানিয়েছে সংগঠনটি।

পাশাপাশি গত বছর স্বাধীনতা দিবসে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সফরকে কেন্দ্র করে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় সহিংসতার ঘটনায় কারাগারে থাকা হেফাজত নেতাদের মুক্তিসহ ৬টি দাবি তোলা হয়েছে চিঠিতে।

এতে বলা হয়, ‘আমরা কথা দিচ্ছি, জামিন-পরবর্তী তারা এমন কোনো কর্মকাণ্ডে জড়িত হবে না, যাতে রাষ্ট্র ও সরকারের জন্য বিব্রতকর পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়।’

মঙ্গলবার হেফাজতে ইসলামের মহাসচিব মাওলানা সাজিদুর রহমানের নেতৃত্বে ছয় সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল বিকেলে সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খানের সঙ্গে দেখা করেন। বৈঠকে সংগঠনের নায়েবে আমির মাওলানা মুহাম্মদ ইয়াহইয়া ও ফোরকান উল্লাহ খলিল, সাংগঠনিক সম্পাদক মীর ইদ্রিস, ঢাকা মহানগর সভাপতি আবদুল কাইয়ুম সোবহানী, সাধারণ সম্পাদক কেফায়েত উল্লাহ আজহারী উপস্থিত ছিলেন।

প্রায় এক ঘণ্টা বৈঠক শেষে সাজিদুর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, তারা কারাবন্দি আলেমদের মুক্তিসহ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে পাঁচ দফা দাবি জানিয়েছেন।

জানা গেছে, আগামী ঈদুল আযহার আগে হেফাজতের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলায় আটককৃত আলেম-উলামা ও হেফাজত নেতাকর্মীদের মুক্তি দেওয়ার দাবি মন্ত্রীকে জানানো হয়েছে। এসময় বন্দি আলেমদের অনেকে গুরুতর অসুস্থ হয়ে হুইলচেয়ারে আদালতে আসার বিষয়টি উল্লেখ করা হয়। এছাড়া আলেম-উলামাদের অনেকে গ্রেফতার থাকায় তাদের পরিবার ও প্রতিষ্ঠানের দুরাবস্থার বিষয়টিও মন্ত্রীকে জানানো হয়।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খানকে দেওয়া চিঠিতে বলা হয়-

গণকমিশন নামে একটি ভুঁইফোড় সংগঠন দেশের ১১৬ আলেম ও ১০০০ হাজার মাদরাসার নামের লিস্ট তৈরি করেছে। তারা এটির নাম দিয়েছে ‌‌‘শ্বেতপত্র’। এরই মধ্যে তারা এই শ্বেতপত্র দুর্নীতি দমন কমিশনেও জমা দিয়েছে। আমরা স্পষ্ট বলতে চাই এটি দেশের আলেম-ওলামা ও মসজিদ মাদরাসার বিরুদ্ধে ভয়ঙ্কর ষড়যন্ত্রের অংশ। তারা কথিত শ্বেতপত্রে দেশের প্রায় সব মাদরাসাকে জঙ্গিবাদের সঙ্গে যুক্ত করেছে।

চিঠিতে তারা বলেন- আমরা দাবি জানাচ্ছি, অবিলম্বে কথিত এই শ্বেতপত্র বাজেয়াপ্ত করতে হবে। এবং গণকমিশন নামের কথিত এই সংগঠনের লোকদের আইনের আওতায় আনতে হবে। তারা শান্ত পরিস্থিতিকে অশান্ত করার চক্রান্ত করছে।

এতে আরও বলা হয়, শাইখুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী রহ.-এর সময় থেকে বারবার বলা হয়েছে হেফাজত নেতাকর্মীদের নামে দায়েরকৃত ২০১৩ ও ২০১৬ সালের মামলাগুলো প্রত্যাহার করে নেওয়া হবে। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনক বিষয় হচ্ছে তার একটিও প্রত্যাহার করা হয়নি। বরং গত বছর যেসব আলেম-ওলামাদের গ্রেপ্তার করা হয়, তাদের প্রায় সবাইকেই ২০১৩ ও ২০১৬ সালের মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। উপরন্তু ২০২১ সালে নতুন আরও অনেক মামলা দেওয়া হয়েছে। পূর্ব প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী সব মামলা দ্রুত প্রত্যাহারের ব্যবস্থা করুন।

চিঠিতে আরও বলা হয়, সম্প্রতি ভারতের ক্ষমতাসীন দল বিজেপির দুই নেতা মানবতার মুক্তির দূত হজরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ও উম্মুল মুমিনীন হজরত আয়িশা (রা.) সম্পর্কে চরম অবমাননাকর বক্তব্য দিয়েছেন। এই ঘটনায় পুরো মুসলিম বিশ্ব প্রতিবাদে সোচ্চার হয়েছে। বাংলাদেশের নবিপ্রেমিরাও প্রতিবাদ জানিয়েছেন। আমরা আপনার মাধ্যমে সরকার প্রধান, প্রধানমন্ত্রীর কাছে দাবি জানাচ্ছি, যেন এই ঘটনায় ভারতীয় হাইকমিশনারকে ডেকে রাষ্ট্রীয়ভাবে প্রতিবাদ জানানো হয়।

আরও বলা হয়, শিক্ষা আইন-২০২২ -এর খসড়া চূড়ান্ত করতে যাচ্ছে সরকার। এই শিক্ষা আইনে যেহেতু কওমি মাদরাসাসহ সব ধরনের শিক্ষার বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে, তাই আমাদের দাবি হচ্ছে, খসড়া কমিটিতে কওমি মাদরাসার ওলামায়ে কেরামের প্রতিনিধিত্ব যেন থাকে।

বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন এমন একজন নেতা জানান, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল তাদের বলেছেন আপনাদের কয়েকজন নেতা কারাগারে অসুস্থ হওয়ার বিষয়টি আমরা জানতে পেরেছি। সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে আলাপ করে আমি বিষয়টিতে দ্রুত ব্যবস্থা নেবো। এছাড়া গণকমিশনের শ্বেতপত্র বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এর কোনো কার্যকারিতা নেই এবং এটা আর অগ্রসর না হওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।


আরও খবর



এমপি বাহারকে নির্বাচনী এলাকা ছাড়তে বললো ইসি

প্রকাশিত:বুধবার ০৮ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২ | ৫১জন দেখেছেন
Image

কুমিল্লা-৬ (সদর) সংসদ সদস্য হাজী আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহারকে সিটি করপোরেশনের নির্বাচনী এলাকা ছাড়তে চিঠি দিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

বুধবার (৮ জুন) নির্বাচন কমিশন থেকে এ চিঠি দেওয়া হয়। সন্ধ্যায় কুমিল্লা সিটি করপোরেশন (কুসিক) নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার শাহেদুন্নবী চৌধুরী জাগো নিউজকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

গত ৬ জুন নির্বাচন কমিশনে একটি লিখিত অভিযোগ জমা দেন স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী মনিরুল হক সাক্কু। তিনি এমপি বাহাউদ্দিন বাহারের বিরুদ্ধে আচরণ-বিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ আনেন।

অভিযোগে বলা হয়, বাহাউদ্দিন বাহার কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগ কার্যালয়ে মহানগর ও আদর্শ সদর উপজেলার আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের নিয়ে নির্বাচনী সভা করেছেন। এছাড়া তিনি বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের সদস্যদের সঙ্গে নির্বাচন সংক্রান্ত সভা করছেন, যা নির্বাচনী আইনের লঙ্ঘন।

সাক্কু আরও অভিযোগ করেন, এমপি বাহার সদর দক্ষিণ ও লালমাই এলাকার আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের নিয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণের বিষয়ে বিভিন্ন দিকনির্দেশনামূলক সভা করছেন। এতে নির্বাচনের শান্তি-শৃঙ্খলা ব্যাহত হচ্ছে।

অভিযোগে তিনি সংসদ সদস্যকে নিজ এলাকায় অবস্থানের পাশাপাশি এ ধরনের সভায় অংশগ্রহণ থেকে বিরত রাখতে নির্বাচন কমিশনকে ব্যবস্থা নেওয়ার আহ্বান জানান।


আরও খবর



হবিগঞ্জে হাওরে ডুবে শিশুর মৃত্যু

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৪ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২ | ৩৭জন দেখেছেন
Image

হবিগঞ্জের লাখাইয়ে হাওরে ডুবে সানজিদা আক্তার নামে পাঁচ বছরের এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৪ জুন) বেলা সাড়ে ১১টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। সানজিদা উপজেলার কাচেরহাটি এলাকার মেহেদী হাসানের মেয়ে।

স্থানীয়রা জানান, মঙ্গলবার সকালে সানজিদা আক্তার খেলাধুলার এক পর্যায়ে বাড়ির পার্শ্ববর্তী হাওরের পানিতে পড়ে যায়। পরিবারের লোকজন অনেক খোঁজাখুঁজির পর তার দেহ পানিতে ভাসতে দেখেন। তাকে উদ্ধার করে সদর আধুনিক হাসপাতালে নিয়ে গেলে জরুরি বিভাগের চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

হবিগঞ্জ সদর হাসপাতালের চিকিৎসক মেহেদী হাসান তার মৃত্যুর বিষয়টি জাগো নিউজকে নিশ্চিত করেছেন।।


আরও খবর



সীতাকুণ্ডে বিস্ফোরণ: হতাহতদের ক্ষতিপূরণ চেয়ে লিগ্যাল নোটিশ

প্রকাশিত:বুধবার ০৮ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৩ জুলাই ২০২২ | ৪২জন দেখেছেন
Image

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে বিএম কনটেইনার ডিপোতে আগুনে পুড়ে ৪৪ জনের মর্মান্তিক মৃত্যুর বিচারবিভাগীয় তদন্ত এবং হতাহতদের ক্ষতিপূরণ দিতে সরকারের সংশ্লিষ্টদের প্রতি লিগ্যাল নোটিশ পাঠানো হয়েছে। নোটিশে নিহতদের পরিবারকে ২ কোটি টাকা করে এবং আহতদের পরিবারকে ৫০ লাখ টাকা করে দেওয়ার কথা উল্লেখ করা হয়েছে।

বুধবার (৮ জুন) জনস্বার্থে ল’ অ্যান্ড লাইফ ফাউন্ডেশনের পক্ষে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার মো. হুমায়ুন কবির পল্লব এই লিগ্যাল নোটিশ পাঠান।

নোটিশে শিল্প ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব, ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের মহা পরিচালকসহ সংশ্লিষ্ট ৯ জনকে বিবাদী করা হয়েছে।

আইনজীবী ব্যারিস্টার মো. হুমায়ুন কবির পল্লব নোটিশ পাঠানোর বিষয়টি জাগো নিউজকে নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, এ বিষয়ে কর্তৃপক্ষ যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ না করলে আমরা রিট আবেদন করবো।

শনিবার (৪ জুন) রাত সাড়ে ৯টার দিকে চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে বিএম কনটেইনার ডিপোতে আগুন লাগে। রাত ১০টার পর আগুনের খবর ছড়িয়ে পড়ে। রাত ১২টার পর থেকে মৃতের খবর আসতে থাকে। সময় যত গড়াতে থাকে, মৃতের সংখ্যাও তত বাড়তে থাকে।

সীতাকুণ্ডের বিএম কনটেইনার ডিপোতে ভয়াবহ বিস্ফোরণে নিহতের প্রকৃত সংখ্যা নিয়ে বিভ্রান্তি তৈরি হয়। ঘটনার পর এ নিয়ে দায়িত্বপ্রাপ্ত তিন প্রতিষ্ঠান চার রকম তথ্য দেয়। রোববার (৫ জুন) রাতে দেওয়া তথ্য পরদিন সকালে সংশোধন করে চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন।

রোববার বিকেল ৫টায় চট্টগ্রামের সিভিল সার্জন ডা. ইলিয়াস চৌধুরী জানান, মৃতের সংখ্যা ৪৯ জন। এরপর সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় জেলা প্রশাসক মমিনুর রহমান জানান, মৃতের সংখ্যা ৪৬ জন। এরও পরে, রাত ৯টায় জেলা প্রশাসনের নোটিশ বোর্ডেও জানানো হয় মৃতের সংখ্যা ৪৬।

কিন্তু সোমবার (৬ জুন) দুপুরে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম আহসান জানান, মৃতের সংখ্যা ৪১ জন।

তবে এর আগেই সোমবার সকালে জেলা প্রশাসন নোটিশ বোর্ড সংশোধন করে মৃতের সংখ্যা ৪১ জন বলে জানায়।

এদিকে এ দুর্ঘটনায় মঙ্গলবার আরও দুইজনের মরদেহ উদ্ধার করা হলে মৃতের সংখ্যা দাঁড়ায় ৪৩ জনে। এছাড়া চমেকে আজ দগ্ধ আরও একজনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মৃতের সখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ৪৪ জনে।


আরও খবর