Logo
শিরোনাম

দ্বিতীয় ধাপে আজ বসছেন ৪ লাখ ৬৬ হাজার পরীক্ষার্থী

প্রকাশিত:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২ | ৮৩জন দেখেছেন
Image

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৪৫ হাজার সহকারী শিক্ষক নিয়োগে দ্বিতীয় ধাপের লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে আজ শুক্রবার (২০ মে)। এদিন আবেদনকারীরা নিজ নিজ জেলায় বেলা ১১টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত এক ঘণ্টার এ পরীক্ষায় অংশ নেবেন। দ্বিতীয় ধাপে পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ৪ লাখ ৬৬ হাজার ১০০ জন।

দ্বিতীয় ধাপে শুক্রবার দেশের ২৯ জেলায় প্রাথমিকে সহকারী শিক্ষক নিয়োগের লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। এরমধ্যে সাতটি জেলার সবকটি উপজেলায় এবং ২২টি জেলার আংশিক উপজেলার প্রার্থীরা এ পরীক্ষায় অংশ নেবেন। তবে বন্যার মতো প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে পিছিয়েছে সিলেট জেলার পরীক্ষা। এ জেলার পরীক্ষা হবে ৩ জুন।

এবার তিন ধাপে শিক্ষক নিয়োগের লিখিত পরীক্ষা হচ্ছে। তৃতীয় ধাপের পরীক্ষা হবে ৩ জুন।

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর জানিয়েছে, পরীক্ষা কেন্দ্রে কোনো বই, উত্তরপত্র, নোট বা অন্য কোনো কাগজপত্র, ক্যালকুলেটর, মোবাইল, ভ্যানিটি ব্যাগ, পার্স, হাতঘড়ি বা ঘড়িজাতীয় বস্তু, ইলেকট্রনিক হাতঘড়ি বা যেকোনো ধরনের ইলেকট্রনিক ডিভাইস, কমিউনিকেটিভ ডিভাইস বা এ জাতীয় বস্তু সঙ্গে নিয়ে প্রবেশ করা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ।

যদি কোনো পরীক্ষার্থী উল্লিখিত দ্রব্যাদি সঙ্গে নিয়ে পরীক্ষা কেন্দ্রে প্রবেশ করে তবে তাকে তাৎক্ষণিক বহিষ্কারসহ সংশ্লিষ্টের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ৪৫ হাজার পদের জন্য আবেদন করেছেন ১৩ লাখ ৯ হাজার ৪৬১ জন।

দ্বিতীয় ধাপে যেসব জেলা ও উপজেলায় পরীক্ষা:

দ্বিতীয় ধাপে রাজশাহী, খুলনা, ফরিদপুর, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, চাঁদপুর, বরিশাল, সিলেট ও রংপুর জেলার সব উপজেলায় পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

এছাড়া, কয়েকটি জেলার নির্দিষ্ট কিছু উপজেলায়ও পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। সেগুলো হলো- নওগাঁ জেলার সদর, নিয়ামতপুর, পত্নীতলা, রানীনগর, পোরশা, সাপাহার উপজেলা; নাটের জেলার বাগাতিপাড়া, বড়াইগ্রাম, গুরুদাশপুর, লালপুর; সিরাজগঞ্জ জেলার রায়গঞ্জ, শাহজাদপুর, সদর ও তাড়াশ উপজেলা; কুষ্টিয়া জেলার খোকসা, সদর ও মিরপুর; ঝিনাইদহ জেলার হরিণাকুন্ডু, সদর, কালিগঞ্জ; যশোর জেলার অভয়নগর, চৌগাছা, সদর, বাঘেরপাড়া উপজেলা; সাতক্ষীরা জেলার সদর, দেবহাটা, কলারোয়া, কালিগঞ্জ উপজেলা; বাগেরহাট জেলার মোল্লারহাট, মোংলা, মোড়লগঞ্জ, কচুয়া, শরণখোলা উপজেলা; জামালপুর জেলার সদর, মাদারগঞ্জ, মেলান্দহ; ময়মনসিংহ জেলার মুক্তাগাছা, সদর, নান্দাইল, ফুলপুর, তারাকান্দা, ত্রিশাল উপজেলা; নেত্রকোনা জেলার খালিয়াজুড়ী, মদন, মোহনগঞ্জ, সদর, পূর্বধলা উপজেলা; কিশোরগঞ্জ জেলার সদর কুলিয়াচর, মিঠামইন, নিকলী, পাকুন্দিয়া ও তাড়াইল।

একইদিন পরীক্ষা হবে টাঙ্গাইল জেলার কালিহাতি, মধুপুর, মির্জাপুর, নাগরপুর, সফিপুর, বাসাইল উপজেলা; রাজবাড়ি জেলার কালুখালি, গোয়ালন্দ উপজেলা; কুমিল্লা জেলার দেবিদ্বার, হোমনা, লাকসাম, লালমাই, সদর দক্ষিণ, মনোহরগঞ্জ, মুরাদনগর, নাগলকোট, তিতাস উপজেলা; নোয়াখালী জেলার বেগমগঞ্জ, চাটখিল, কোম্পানিগঞ্জ, হাতিয়া উপজেলা; পিরোজপুর জেলার নাজিরপুর, নেছারাবাদ, সদর; পটুয়াখালী জেলার কলাপাড়া, মির্জাগঞ্জ, সদর, রাঙ্গাবালি, দুমকি উপজেলা; সুনামগঞ্জ জেলার দোয়ারাবাজার, জগন্নাথপুর, জামালগঞ্জ, শাল্লা, সদর, তাহিরপুর উপজেলা; হবিগঞ্জ জেলার সদর, লাখাই, মাধবপুর, নবীগঞ্জ, শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা; কুড়িগ্রাম জেলার ফুলবাড়ী, রাজারহাট, রাজিবপুর, রৌমারী, উলিপুর উপজেলা; গাইবান্ধা জেলার সাদুল্যাপুর, ফুলছড়ি, সাঘাটা ও সুন্দরগঞ্জ উপজেলায়ও।

এদিকে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ৪৫ হাজার সহকারী শিক্ষক নিয়োগে প্রথম ধাপের লিখিত পরীক্ষার ফল প্রকাশ হয়েছে গত ১২ মে। এতে ২২ জেলার ৪০ হাজার ৮৬২ জন প্রার্থী মৌখিক পরীক্ষার জন্য নির্বাচিত হয়েছেন বলে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের (ডিপিই) এক বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়েছে। গত ২২ এপ্রিল প্রথম ধাপের লিখিত পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।


আরও খবর

ঢাবি ‘ক’ ইউনিটে সেরা যারা

সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২




হাট-বাজারের সীমানার বাইরে খাসজমিতেও হবে বহুতল মার্কেট

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৭ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 | ৪১জন দেখেছেন
Image

হাট-বাজারের সীমানার বাইরের খাসজমিতে বহুতল মার্কেট নির্মাণ করতে পারবে স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানগুলো। এজন্য একটি নীতিমালা করছে ভূমি মন্ত্রণালয়।

মঙ্গলবার (৭ জুন) মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে এ সংক্রান্ত নীতিমালা করতে আন্তঃমন্ত্রণালয় সভা হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী। মন্ত্রণালয়ের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

ভূমি মন্ত্রণালয় বলছে, হাট-বাজারের সীমানার বাইরে খাসজমিতে মার্কেট নির্মাণ হলে স্থানীয় পর্যায়ে অর্থনৈতিক কার্যক্রম বাড়বে। ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসার এবং কর্মসংস্থান হবে।

এদিকে মন্ত্রণালয়ের মালিকানাধীন বিদ্যমান হাট-বাজারের সীমানার মধ্যে খাসজমিতে বহুতল মার্কেট নির্মাণের জন্য আলাদা নীতিমালা রয়েছে। কিন্তু হাট-বাজারের বাইরের খাসজমিতে মার্কেট নির্মাণে কোনো বিধান নেই।

সিটি করপোরেশন, পৌরসভা, জেলা-উপজেলা ও ইউনিয়ন পরিষদ- এসব স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠান ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসার এবং নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের আয় বাড়াতে হাট-বাজারের পেরিফেরির (সীমানা) বাইরে খাসজমিতে বহুতল মার্কেট নির্মাণে ভূমি মন্ত্রণালয়ের কাছে আবেদন করে।

এক্ষেত্রে যেসব স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠান বিদ্যমান অকৃষি খাসজমি নীতিমালার আওতায় বাজারমূল্য দিয়ে খাসজমি বন্দোবস্তে সক্ষম নয়, বা প্রত্যাশিত খাসজমি তাদের অনুকূলে দীর্ঘমেয়াদি বন্দোবস্ত দেওয়া সম্ভব নয়, সেসব স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানকে খাসজমিতে মার্কেট নির্মাণের সুযোগ দিতে নীতিমালা তৈরি হচ্ছে।

অংশীজনের মতামত ও প্রয়োজনীয় যাচাইয়ের পর এই নির্দেশাবলী বা নীতিমালা অনুমোদিত হয়ে জারি হলে তিন পার্বত্য জেলা ছাড়া সারাদেশে কার্যকর হবে। তবে তা কেবলমাত্র সংশ্লিষ্ট স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানের নিজ এলাকায় অবস্থিত সরকারি খাসজমির ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে।

এ ক্ষেত্রে ভূমি মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন নিয়ে সরকারি-বেসরকারি অর্থায়ন বা বৈদেশিক সাহায্যে বিভিন্ন প্রকল্পের মাধ্যমে স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠান আধুনিক বহুতলবিশিষ্ট মার্কেট নির্মাণ করতে পারবে। তবে মার্কেট নির্মাণের অর্থায়নের উৎসসহ প্রকল্প প্রস্তাব স্থানীয় সরকার বিভাগের অনুমোদিত হতে হবে। সেই সঙ্গে ভূমি মন্ত্রণালয়ে আবেদনের সঙ্গে এর অনুলিপি জমা দিতে হবে।

এ বিষয়ে সভায় ভূমিমন্ত্রী বলেন, এ ধরনের মার্কেট নির্মাণ হলে তাতে স্থানীয় প্রকৃত ব্যবসায়ীদের অগ্রাধিকার দিতে হবে। নিশ্চিত করতে হবে ব্যবসায়ীদের বিনিয়োগ নিরাপত্তা।

সভায় ভূমি সচিব মো. মোস্তাফিজুর রহমানসহ অর্থ বিভাগ, স্থানীয় সরকার বিভাগ, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়, মহিলা ও শিশুবিষয়ক মন্ত্রণালয়, পার্বত্য চট্টগ্রামবিষয়ক মন্ত্রণালয় এবং ভূমি মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর

ওয়ালটনে চাকরির সুযোগ

সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২




বন্যার্তদের ত্রাণ দিলো জেসিএক্স

প্রকাশিত:শনিবার ২৫ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৩ জুলাই ২০২২ | ২০জন দেখেছেন
Image

ভয়াবহ বন্যার কবলে সিলেট ও সুনামগঞ্জের লাখ লাখ মানুষ। পানিবন্দি এসব মানুষের মাঝে খাবার আর সুপেয় পানির তীব্র সংকট। এমন অবস্থায় বন্যার্ত মানুষের মাঝে খাবার ও বোতলজাত পানি বিতরণ করেছে জেসিএক্স ডেভেলপমেন্ট লিমিটেড।

শনিবার (২৫ জুন) সুনামগঞ্জ জেলার তাহিরপুর উপজেলার প্রত্যন্ত এলাকার বন্যাদুর্গত এক হাজারের বেশি পরিবারের মাঝে চাল, ডাল, লবণ, বিশুদ্ধ পানি ও শুকনো খাবার বিতরণ করা হয়।

ত্রাণ বিতরণ কাজে জেসিএক্স ডেভেলপমেন্ট লিমিটেডের সিনিয়র ম্যানেজার রাশেদুল আমিন সাইফ, ম্যানেজার ওয়াহিদুর রহমান, এক্সিকিউটিভ শেখ সাফিয়াত আহমেদ, আর্কিটেক শান্ত নিয়োজিত ছিলেন।

সামাজিক দায়বদ্ধতা কর্মসূচির (সিএসআর) কর্মসূচির আওতায় জেসিএক্স প্রাকৃতি দুর্যোগের সময় মানুষের পাশে দাঁড়ায়। তারই অংশ হিসেবে এবার সিলেট-সুনামগঞ্জের বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করেছে।


আরও খবর

ওয়ালটনে চাকরির সুযোগ

সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২




ট্রাকের সঙ্গে বাসের ঘর্ষণ, কেটে পড়ে গেলো নারীর হাত

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৬ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ জুলাই ২০২২ | ৪৩জন দেখেছেন
Image

‘যশোর থেকে বাসে ওঠার পর বারবার বলছিলাম বাম সাইডে সিট ফাঁকা আছে, আমি বাম সাইডেই বসবো। কিন্তু বাসের লোক আমাকে বাম সাইডের বদলে ডান সাইডে জোর করে বসায়। এরপরই দ্রুতগতিতে বাসটি চলতে থাকে। পথে কালীগঞ্জে এলে একটি ট্রাককে অতিক্রম করার সময় আমার হাতটি কেটে পড়ে যায়। আমি আর কখনো ডান হাত ফিরে পাবো না।’

এভাবেই কথাগুলো বলতে বলতে হাসপাতালের শয্যায় জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন গৃহবধূ সুফিয়া (৪২)।

বৃহস্পতিবার (১৬ জুন) দুপুর ২টা ৫০ মিনিটে ঝিনাইদহের কালীগঞ্জের মোবারকগঞ্জ চিনিকল এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

আহত সুফিয়ার বাড়ি সাতক্ষীরায়। তিনি বাসযোগে শৈলকুপা উপজেলার হরিহরা গ্রামে মেয়ের বাড়ি বেড়াতে যাচ্ছিলেন। তবে সাতক্ষীরা জেলার কোনো জায়গায় তার বাড়ি এবং শৈলকুপায় কোন আত্মীয়ের বাড়িতে যাচ্ছিলেন তা জানা যায়নি।

jagonews24

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, দুপুর আড়াইটার দিকে গড়াই পরিবহনের একটি যাত্রীবাহী বাস দ্রুতগতিতে যশোর থেকে ঝিনাইদহের দিকে আসছিল। পথে কালীগঞ্জের মোবারকগঞ্জ চিনিকল এলাকায় পৌঁছালে সামনের দিক থেকে আসা একটি ট্রাককে অতিক্রম করছিল। এ সময়ই কাটা পড়ে সুফিয়ার ডান হাত।

ধারণা করা হচ্ছে, সুফিয়া তার ডান হাত জানালার বাইরে বের করে রেখেছিলেন। ট্রাকের ঘর্ষণে তা কেটে পড়ে যায়। কাটা হাতটি রাস্তায় থ্যাঁতলানো অবস্থায় পাওয়া গেছে।

কালীগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার শেখ মামুনুর রশিদ বলেন, ‘ঘটনাস্থলে গিয়ে এক নারীর রক্তমাখা কাটা হাত পেয়েছি। তবে আশপাশের এলাকায় খোঁজ নিয়ে আহত কোনো রোগী পাওয়া যায়নি। পরে জানা যায়, আহত ওই নারীকে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।’

ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক জোবায়দা বলেন, ‘আহত নারীর ডান হাত কেটে পড়ে গেছে। এ কারণে প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়েছে। তার শারীরিক অবস্থাও খুবই খারাপ। তাকে উন্নত চিকিৎসা জন্য ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে রেফার করা হয়েছে।’

ঝিনাইদহ জেলা বাস মিনিবাস মালিক সমিতির পরিচালনা পরিষদের সভাপতি রোকনুজ্জামান রানু জানান, যশোর থেকে আসা গড়াই পরিবহনের মাছরাঙ্গা ট্রাভেলসের একটি গাড়িতে এমন ঘটনা ঘটেছে। আহত নারীকে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।


আরও খবর

ওয়ালটনে চাকরির সুযোগ

সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২




বিমার প্রতি আস্থা ফেরানো প্রধান লক্ষ্য: আইডিআরএ চেয়ারম্যান

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ৩০ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২ | ৩৪জন দেখেছেন
Image

গ্রাহকের স্বার্থ রক্ষার মাধ্যমে বিমার প্রতি মানুষের আস্থা ফেরানোই প্রধান লক্ষ্য হবে বলে জানিয়েছেন বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের (আইডিআরএ) নতুন চেয়ারম্যান মোহাম্মদ জয়নুল বারী।

বৃহস্পতিবার আইডিআরএ কার্যালয়ে ইন্স্যুরেন্স রিপোর্টার্স ফোরামের (আইআরএফ) সদস্যদের সঙ্গে এক সৌজন্য সাক্ষাতে তিনি এ কথা বলেন।

ক্ষমতার অপব্যবহারসহ নানা অনিয়মের অভিযোগ মাথায় নিয়ে আইডিআরএ’র চেয়ারম্যান পদ থেকে ড. এম মোশাররফ হোসেন পদত্যাগ করলে ১৫ জুন বিমা খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থাটির চেয়ারম্যান হিসেবে সাবেক সচিব মোহাম্মদ জয়নুল বারীকে নিয়োগ দেয় সরকার।

আইডিআরএ’র চেয়ারম্যানের দায়িত্ব নেওয়ার পর বৃহস্পতিবার তিনি প্রথমবার সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন।

সাক্ষাতে সাংবাদিকদের পক্ষ থেকে প্রশ্ন করা হয়- একটি অস্বাভাবিক পরিস্থিতিতে আপনি আইডিআরএ চেয়ারম্যানের দায়িত্ব নিয়েছেন, এ খাতের প্রতি মানুষের আস্থা সংকটও রয়েছে। এ পরিস্থিতিতে বিমা খাতের উন্নয়নে আপনার পরিকল্পনা কি?

এর উত্তরে মোহাম্মদ জয়নুল বারী বলেন, পলিসিহোল্ডারদের (গ্রাহক) স্বার্থ দেখা আমার প্রথম কাজ। এর মাধ্যমে আস্থা ফিরে আসবে। মানুষ যদি বিমা করে তার সুফলটা পায়, তাহলে একজনের দেখাদেখি আরও ১০ জন আসবে। আর একজন যদি প্রতারিত হয় বা বঞ্চিত হয়, তাহলে ওইটা আরও ১০ জনকে নিরুৎসাহিত করবে। সে কারণে তাদের (গ্রাহক) স্বার্থ আমাদের দেখতে হবে এবং তাদের বোঝাতে হবে আমরা তাদের স্বার্থ দেখছি।

‘এর একটি হবে ডিজিটালাইজেশন। ব্যাংকে আপনি আজকে টাকা জমা দিলে, বুঝেন আপনার টাকা জমা হয়েছে। আপনি এসএমএস পান, ব্যাংক স্টেটমেন্ট নিয়ে দেখতে পারেন। অনলাইনে আপনি দেখতে পারেন আপনার ব্যাংক অ্যাকাউন্টের কি অবস্থা। এ রকম বিমাখাতেও আমরা ডিজিটালাইজেশন করতে চাই। এ কাজ এরই মধ্যে শুরু হয়েছে। শুরুতে এটা সীমিত আছে। আমরা চাইবো ব্যাংকিং সিস্টেমের মতো একটা অনলাইন সিস্টেমের দিকে যেতে।’

বিমাখাতের ওপর সাধারণ মানুষের আস্থা সংকট ও বিশ্বাসের অভাব আছে বলে স্বীকার করেন আইডিআরএ’র নতুন চেয়ারম্যান জয়নুল বারী।

তিনি বলেন, এখানে (বিমাখাত) ইমেজ সংকট আছে এবং ট্রাস্টের অভাব আছে। আস্থার অভাব থাকলে মানুষ এই সেক্টরের দিকে আসবে না। সরকার এই সেক্টরের উন্নয়নের জন্য আইডিআরএ করেছে। এই সেক্টরের উন্নয়নের জন্য কী কী করতে হবে, আমাদের বিমা উন্নয়ন পলিসিটা কী সেগুলো নিয়ে দেখছি।

‘আমরা প্রত্যাশা করি আগামী দুই-তিন মাসের মধ্যে তিন বছর মেয়াদি একটি পরিকল্পনা করবো। এর মধ্যে বিভিন্ন মেয়াদের কাজ থাকবে। কোনটা করতে এক মাস, কোনটা করতে ছয় মাস, আবার কোনটা করতে এক বছর সময় লাগবে। এ রকম একটা পরিকল্পনা করবো আমরা, এ উদ্যোগ নিয়েছি।’

জয়নুল বারী আরও বলেন, কমপ্লায়েন্সের একটা বিষয় আছে। অনেক কিছু আমরা করেছি, কিন্তু কমপ্লায়েন্স নেই। সেগুলো আমরা পর্যায়ক্রমে কমপ্লায়েন্স করবো। সেটা করা হবে সবাইকে নিয়ে, যারা আমাদের মেইন স্টেকহোল্ডার আছেন। নিয়ন্ত্রণ মানে এই না আমরা সবকিছু চাপিয়ে দেবো। সবাইকে নিয়ে সবার সমস্যা, সুবিধা-অসুবিধা নিয়ে কাজ করবো।

তিনি আরও বলেন, নিয়ন্ত্রণ করতে গিয়ে যাতে উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত না হয়, সেটা আমাদের দেখতে হবে। একটা প্রাইভেট সেক্টর তো প্রফিটের জন্য কাজ করে। প্রাইভেট সেক্টর এবং গভমেন্ট সেক্টরের উদ্দেশ্য এক থাকে না। সুতরাং প্রাইভেট সেক্টরের বিষয়টিও আমাদের দেখতে হবে।

সৌজন্য সাক্ষাতে আইডিআরএ’র সদস্য মো. দলিল উদ্দিন, নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র এস এম শাকিল আখতার, আইআরএফ সভাপতি গোলাম মওলা, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক মাসুদ মিয়া উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর

ওয়ালটনে চাকরির সুযোগ

সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২




বোমা মেরে হত্যায় একজনের যাবজ্জীবন

প্রকাশিত:রবিবার ০৫ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ জুলাই ২০২২ | ২৯জন দেখেছেন
Image

খুলনার দৌলতপুরের মিজানুর রহমান খান বাবলু হত্যা মামলায় এক আসামির যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একইসঙ্গে তাকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও ৬ মাসের সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

এ মামলার অন্য ৫ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় তাদের খালাস প্রদান করা হয়েছে।

রোববার (৫ জুন) খুলনার অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক এসএম আশিকুর রহমান এ রায় ঘোষণা করেন। রায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ওই আদালতের রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী কাজী সাব্বির আহমেদ।

সাজাপ্রাপ্ত আসামি সিরাজুল ইসলাম মামুন দৌলতপুরের পাবলা মধ্যপাড়া এলাকার আব্দুল মান্নানের ছেলে।

আদালত সূত্র জানায়, ২০০৫ সালের ২৩ অক্টবর রাত ৮টার দিকে মিজানুর রহমান খান বাবলুসহ আরও কয়েজন দৌলতপুর থানা এলাকার এ এস ট্রেডার্স নামে একটি গ্যাসের দোকানে বসে আড্ডা দিচ্ছিলেন। এ সময় কয়েকজন দুর্বৃত্ত ওই দোকানকে লক্ষ্য করে বোমা নিক্ষেপ করে। বোমার আঘাতে বাবলুর বুক ক্ষত বিক্ষত হয়। এসময় আরও কয়েকজন আঘাতপ্রাপ্ত হয়।

মারাত্মক আহত অবস্থায় বাবলুকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপতালে চিকিৎসার জন্য নেওয়া হলে সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ব্যাপরে নিহতের বড় ভাই আশরাফ আলী খান বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামিদের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেন।

পুলিশ এ হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে দৌলতপুর থানা এলাকার পাবলা মধ্যপাড়া এলাকার আব্দুল মান্নানের ছেলে সিরাজুল ইসলাম মামুনকে গ্রেফতার করে। আদালতে ১৬৪ ধারায় এ হত্যাকাণ্ডে নিজের সম্পৃক্ততার কথা ও ৮ জন আসামির নাম উল্লেখ করে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি প্রদান করেন।

এ মামলায় অন্যান্য আসমিরা হলেন- আশরাফুজ্জামান আরিফ ওরফে তিলা অরিফ, এস এম আবু সাইদ, মো. তৌহিদুজ্জামান তৌহিদ, মিজান, আশরাফুজ্জামান বাবু ওরফে কমান্ডার বাবু, রেজাউল ইসলাম ওরফে আলম ওরফে শহীদ, শাহাদাৎ হোসেন ওরফে লিটন ওরফে খোড়া লিটন ও মো. শাহিন বিশ্বাস ওরফে শাহীন ওরফে ভাগিনা শাহীন। এদের মধ্যে কয়েকজন আসামি মারা গেছেন।

২০০৬ সালের ৫ মে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা নগর গোয়েন্দা শাখার পুলিশ পরিদর্শক চিত্তরঞ্জন পাল উল্লিখিত আসামিদের নাম উল্লেখ করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। পূর্ব শত্রুতার জের ধরে এ হত্যাকাণ্ড সংঘটিত হয় বলে অভিযোগপত্র থেকে জানা গেছে।


আরও খবর

ওয়ালটনে চাকরির সুযোগ

সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২