Logo
শিরোনাম

ইভিএম নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যে চাপ অনুভব করছি না: সিইসি

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১০ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ৫৪জন দেখেছেন
Image

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেছেন, ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যে আমরা কোনো চাপ অনুভব করছি না। তিনি প্রধানমন্ত্রী না কি আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে ইভিএমের মাধ্যমে ভোট নেওয়ার কথা বলেছেন বিষয়টি স্পট নয়। দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন কোন পদ্ধতিতে হবে সেই বিষয়ে নির্বাচন কমিশন সিদ্ধান্ত নেবো।

মঙ্গলবার (১০ মে) ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রমকে সামনে রেখে প্রশিক্ষকদের প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এমন কথা বলেন সিইসি।

তিনি বলেন, যত্নসহকারে ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রম পরিচালনা করবেন। এতে জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) পাওয়া জন্য মানুষের উৎসাহ আছে। কিন্তু ভোটের মাঠে কেনো মানুষ যায় না? এমন প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, এ প্রশ্নের উত্তর আমি দেবো না। আমাদের দায়িত্ব ভোটার তালিকা প্রণয়ন করা। আমাদের কর্মীরা ভোটার তালিকা প্রণয়ন করতে মাঠে যাবে। আপনি যেই প্রশ্নটা করেছেন, সেই প্রশ্নের কোনো মন্তব্যই আমি করবো না।

ইভিএম নিয়ে রাজনৈতিক দলগুলো মধ্যে যে আলোচনা হচ্ছে— সেটি নিয়ে কী করবেন? এমন প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, সেটি নিয়ে পত্রিকায় আসছে এবং আমাদের বক্তব্যগুলো আপনাদের জানানো হয়েছে। নির্বাচন অনুষ্ঠান করার দায়িত্ব আমাদের। হয়তো আপনারা বলতে পারেন যে প্রধানমন্ত্রী একটি বক্তব্য দিয়েছেন এবং বিভিন্নজন থেকে বক্তব্য আসতে পারে। এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, নাকি আওয়ামী লীগের সভানেত্রী বলেছেন বিষয়টি এখনো স্পষ্ট নয়। আওয়ামী লীগের সভানেত্রী বলা, বিএনপির প্রধান বলা, জাসদের আব্দুর রব বলা এগুলো ভিন্ন কথা।

jagonews24

আর সব থেকে কথা যেটি স্পষ্ট করে বলতে চাচ্ছি, অনেকে ইচ্ছা পোষণ করতে পারেন, সদিচ্ছা ব্যক্ত করতে পারেন আর ইভিএমে ভোট দেওয়ার বিষয়ে আমরা এখনো কোনো চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিতে পারিনি। এরই মধ্যে আমরা অনেকগুলো সভা করেছি, আগামীতে আরও সভা হবে। তারপর সিদ্ধান্ত হবে। ভোট স্বাধীনভাবে আমরা পরিচালনা করবো যতদূর সম্ভব। এটা আমাদের এখতিয়ারভুক্ত, পদ্ধতিও আমাদের এখতিয়ারভুক্ত।

আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সিদ্ধান্ত আমাদের ওপরেই থাকবে। মতামত আমরা বিবেচনায় নিতে পারি। আপনিও মতামত দিতে পারেন, রাস্তায় কেউ মতামত দিতে পারেন, রাজনৈতিক দলগুলো মতামত দিতে পারবেন। আল্টিমেটলি আমরা পর্যালোচনা করে ভোট কোন পদ্ধতি ও কেমন হবে সিদ্ধান্ত নেবো। সেটি আমাদের বিষয়। এ বিষয়ে আমরা স্বাধীন।

তিনি বলেন, সব আসনে ইভিএমে ভোট করার মতো এখন আমাদের সামর্থ নেই। ৩০০ আসনের বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত আমরা এখনো নেইনি। ভোট ব্যালটে হবে না ইভিএমে, কতটি আসনে ইভিএমে হবে এ বিষয়ে কমিশন এখনো কোনো সিদ্ধান্ত নেয়নি। এটি পর্যালোচনাধীন রয়েছে।

এরআগে প্রশিক্ষণ কর্মশালায় অংশ নেওয়া কর্মকর্তাদের শুদ্ধ ও সঠিকভাবে ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রম পরিচালনার নির্দেশনা দিয়ে সিইসি বলেন, শুদ্ধ ও সঠিক ভোটার তালিকা ছাড়া প্রতিনিধিত্বমূলক সরকার গঠন সম্ভব নয়।

ইসি সচিব মো. হুমায়ুন কবীর খোন্দকারের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত প্রশিক্ষণ কর্মশালায় চার নির্বাচন কমিশনার, ইসির অতিরিক্ত সচিব অশোক কুমার দেবনাথসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

সম্প্রতি ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনা আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে দলের নেতাদের নির্দেশ দিয়েছেন। দলের কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে তিনি ইঙ্গিত দিয়েছেন, আগামী সংসদ নির্বাচনে ভোট হবে ইভিএমে।


আরও খবর



বাঁচতে চান শিক্ষক মেহেদী হাসান

প্রকাশিত:রবিবার ০৮ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১৮ মে ২০২২ | ৩৩জন দেখেছেন
Image

বরিশালের মেহেদী হাসান জুয়েল, বয়স মাত্র ৩৩ বছর। কিন্তু এ বয়সেই শরীরে ধরা পড়েছে জটিল সমস্যা। অকেজো হয়ে পড়েছে দুটি কিডনিই। চিকিৎসাও শুরু হয়েছে। কিন্তু কিডনির সমস্যা নিয়ে ভোগা জুয়েল অনিশ্চয়তায় পড়েছেন চিকিৎসাব্যয় বহন করা নিয়ে। এখনো বাঁচার স্বপ্ন দেখেন, কিন্তু তার সেই স্বপ্ন ফিকে হয়ে যায় চিকিৎসাব্যয় বহনের দুশ্চিন্তায়। কোনো উপায় না পেয়ে সাহায্যের জন্য হাত পেতেছেন পরিবারের সদস্যরা।

স্বজনরা জানিয়েছেন, কাছে জানা গেছে, জুয়েলকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) ভর্তি করা হয়েছে। তাকে সুস্থ করতে অনেক টাকা প্রয়োজন। ঢাকা কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করেন তিনি। স্নাতক ও স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করেন মোহাম্মদপুর কেন্দ্রীয় কলেজ থেকে। এরপর বরিশালের বাকেরগঞ্জে একটি অটিজম বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক হিসেবে চাকরি পান। পিতৃহারা জুয়েল পরিবারের বড় সন্তান হওয়ায় দায়িত্ব কাধে তুলে নেন। এরপরই অন্ধকার নামে তার জীবনে।

স্বজনরা জানান, মানবিক মেহেদী ছাত্রজীবন থেকেই পরোপকারী। ভাগ্যের নির্মম পরিহাসে তার জীবনই এখন শঙ্কায়। কয়েকদিন আগেও জানতেন না কী অপেক্ষা করছে তার জীবনে। রক্তের ক্রিয়েটিনিন পরীক্ষা করতে গিয়েই পেয়ে যান দুঃসংবাদ। বিকল হয়ে পড়েছে দুটি কিডনিই। চিকিৎসকদের পরামর্শে প্রাথমিকভাবে তার ডায়ালাইসিস শুরু হয়েছে। কিডনি প্রতিস্থাপনও করতে হতে পারে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।

কিডনি ডায়ালাইসিস অত্যন্ত ব্যয়বহুল হওয়ায় মেহেদীর পরিবারের পক্ষে তা বহন করা সম্ভব নয়। শেষ পর্যন্ত বাধ্য হয়ে মানুষের কাছে হাত পেতেছে মেহেদীর পরিবার। বাঁচার আকুতি জানিয়ে সবার কাছে সহযোগিতা চেয়েছেন মেহেদী। সবার সহযোগিতা পেলে আবারও স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসার স্বপ্ন দেখেন তিনি।

মেহেদীকে সাহায্য পাঠানোর ঠিকানা

মো. মেহেদী হাসান
ইসলামী ব্যাংক এজেন্ট ব্যাংকিং: ২০৫০৭৭৭০২০০৮১৫২১৮
ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লি.
বিকাশ: ০১৭৫৪৭৬৭৯৮২


আরও খবর



নরম্যান ক্যাম্পবেল এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ড পেলেন ডা. সোহেল

প্রকাশিত:সোমবার ১৬ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ৩৩জন দেখেছেন
Image

উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে কাজ করা সংস্থা ও ব্যক্তিদের সম্মাননা জানায় ‘ওয়ার্ল্ড হাইপারটেনশন লিগ’ (ডাব্লিউএইচএল)। প্রতিবছর বিশ্ব উচ্চ রক্তচাপ দিবস উপলক্ষে এ সম্মাননা জানানো হয়।

এবার ‘নরম্যান ক্যাম্পবেল এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ড’ পেয়েছেন অধ্যাপক ডা. সোহেল রেজা চৌধুরী। বাংলাদেশের ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশন হাসপাতাল অ্যান্ড রিসার্চ ইনস্টিটিউটের রোগতত্ত্ব ও গবেষণা বিভাগের প্রধান তিনি।

উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে অবদান রাখায় তাকে এই বিশেষ সম্মাননা দেওয়া হয়। এর আগে অধ্যাপক সোহেল রেজা তামাক নিয়ন্ত্রণে অবদানের জন্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া অঞ্চলের রিজিওনাল ডিরেক্টর’স স্পেশাল রিকগনিশন লাভ করেছিলেন।

সম্মাননা পদকের নাম ঘোষণার পর এক প্রতিক্রিয়ায় ডা. সোহেল রেজা বলেন, যে কোনো প্রাপ্তি মানুষকে অনুপ্রেরণা যোগায়। আমি মনে করি আমার এখনও অনেক কাজ বাকি। ওয়ার্ল্ড হাইপারটেনশন লিগ আমাকে সম্মানিত করেছে। আশা করি আগামীতে এই অর্জন কাজে প্রভাব ফেলবে।

তিনি আরও বলেন, উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে আমাদের কাজ করতে হবে। শুধু ওষুধ সেবন সমস্যা সমাধানের জন্য যথেষ্ট নয়। সচেতনতা গড়ে তুলতে হবে মানুষ যাতে লাইফ স্টাইলে পরিবর্তন নিয়ে আসে। পরিমিত খাবার গ্রহণ, শারীরিক ব্যায়াম ও ওজন নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ সম্ভব।

ডা. সোহেল রেজা চৌধুরীর প্রত্যক্ষ তত্ত্বাবধানে ন্যাশনাল হার্ট ফাউন্ডেশন অব বাংলাদেশে তামাক নিবারণ কেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে। রোগীদের তামাক ছাড়তে আগ্রহী করে তুলতে চিকিৎসক ও নার্সদের জন্য প্রশিক্ষণ কর্মসূচি পরিচালনা করেছেন তিনি। এছাড়া বিভিন্ন সময়ে জাতীয় পর্যায়ে পরিচালিত তামাক নিয়ন্ত্রণ বিষয়ক নানা গবেষণা ও সমীক্ষা কার্যক্রমে সক্রিয় ভূমিকা পালন করেছেন।


আরও খবর



চট্টগ্রাম বন্দরে আরও ২ গ্যান্ট্রি ক্রেন, গতি বাড়বে কাজে

প্রকাশিত:রবিবার ০৮ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ | ৩৮জন দেখেছেন
Image

দেশের প্রধান সমুদ্রবন্দর চট্টগ্রামে কনটেইনার ওঠানামার সরঞ্জামের বহরে যুক্ত হলো আরও দুটি কী গ্যান্ট্রি ক্রেন (কিউজিসি) ও তিনটি রাবার টায়ার গ্যান্ট্রি (আরটিজি)।

শনিবার (৭ মে) চট্টগ্রাম বন্দরের নিউমুরিং কন্টেইনার টার্মিনালের (এনসিটি) ৫নং বার্থে ভিড়েছে এসব যন্ত্রবাহী জাহাজ। বন্দর সংশ্লিষ্টরা বলছেন, নতুন যন্ত্রপাতি সংযোজনের ফলে বন্দরের অপারেশনাল কাজে গতি বাড়বে।

বন্দর কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, চীনের সাংহাই বন্দর থেকে দুটি কিউজিসি ও তিনটি আরটিজি নিয়ে আসা ‘জেন হুয়া-১২’ নামের জাহাজটি গত ৫মে (বৃহস্পতিবার) বন্দরের বহির্নোঙরে ভিড়ে। পরে শনিবার দুইটি শক্তিশালী টাগবোটের সহায়তায় ভারী যন্ত্রপাতিবাহী জাহাজটিকে এনসিটির বার্থে ভেড়ানো হয়।

বন্দর সূত্রে জানা গেছে, ২০০৫ সালে চট্টগ্রাম বন্দরের চিটাগাং কন্টেইনার টার্মিনালে (সিসিটি) প্রথম গ্যান্ট্রি ক্রেন যুক্ত হয়। এরপর ২০১৭ ও ২০১৮ সালে এনসিটিতে গ্যান্ট্রি ক্রেন (চলন্ত কপিকল) সংযুক্ত করা হয়।

বর্তমানে বন্দরের সিসিটিতে চারটি ও এনসিটিতে ১০টি কিউজিসি রয়েছে। নতুন আসা কিউজিসি দুটি এনসিটির ৫নং বার্থে বসানো হবে। এছাড়া বন্দরের অপারেশনাল কাজে ৩৯টি আরটিজি রয়েছে। নতুন তিনটি আরটিজি রেফার ইয়ার্ডে কন্টেইনার অপারেশনে যুক্ত হতে পারে বলে জানা গেছে।

বন্দর সচিব মো. ওমর ফারুক জানান, চীনে তৈরি অত্যাধুনিক দুইটি কিউজিসি ও তিনটি আরটিজি বন্দরে এসে পৌঁছেছে। এগুলো এনসিটিতে আনলোড হবে। এরপর ফিটিং, ট্রায়াল শেষে যত দ্রুত সম্ভব কিউজিসিগুলো অপারেশনে (কাজে) ব্যবহার করা হবে।

তিনি বলেন, এসব যন্ত্রপাতি সংযোজনের কারণে বন্দরের কন্টেইনার হ্যান্ডলিংয়ে (ওঠানামা করানো) আরও গতি আসবে। এতে চট্টগ্রাম বন্দরে জাহাজের অবস্থানকাল কমে আসবে বলে আশা করেন তিনি।


আরও খবর



বিশ্বব্যাপী খাদ্য-জ্বালানি সংকটের সতর্কতায় জি-৭

প্রকাশিত:শনিবার ১৪ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ৩০জন দেখেছেন
Image

ইউক্রেন-রাশিয়ার মধ্যে যুদ্ধ তৃতীয় মাসে গড়িয়েছে। দেশ দুইটির মধ্যে চলছে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ। এতে বিশ্বজুড়ে খাদ্য ও জ্বালানির তীব্র সংকট দেখা দিচ্ছে বলে সতর্ক করেছে জি-৭। এমন পরিস্থিতিতে সবচেয়ে বেশি বেকায়দায় পড়ছে দরিদ্র দেশগুলো। শনিবার (১৪ মে) কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

জি-৭ ভুক্ত দেশের শীর্ষ কূটনীতিকদের নিয়ে বৈঠকের আয়োজন করেন জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী আনালেন বেয়ারবক। এসময় তিনি বলেন, ইউক্রেন ও রাশিয়ার মধ্যে যুদ্ধ বৈশ্বিক সংকট সৃষ্টি করছে।

বেয়ারবক বলেন, ইউক্রেন থেকে খাদ্য সরবরাহ করতে না পারলে বিভিন্ন অঞ্চলের পাঁচ কোটি মানুষ ক্ষুধার ঝুঁকিতে পড়বে, বিশেষ করে আফ্রিকা ও মধ্যপ্রাচ্যর।

জার্মানির বাল্টিক সাগরের উপকূলে তিন দিনের বৈঠক শেষে প্রকাশিত বিবৃতিতে জি-৭ সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণদের আরও মানবিক সহায়তা দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

সংস্থাটি জানায়, ইউক্রেনে রাশিয়া হামলার ফলে গত কয়েক দশকের মধ্যে তীব্র খাদ্য ও জ্বালানি সংকট তৈরি হয়েছে। ফলে দরিদ্র দেশের নাগরিকরা ঝুঁকিতে পড়েছে।

এদিকে ইউক্রেনের সামরিক গোয়েন্দা সংস্থার প্রধান মেজর জেনারেল কিরিলো বুদানোভ বলেছেন, রাশিয়ার সঙ্গে যুদ্ধ আগস্টের মাঝামাঝি সময়ে হয়তো নতুন দিকে মোড় নেবে ও এ বছরের শেষ নাগাদ এর সমাপ্তি ঘটতে পারে। গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে আকস্মিক হামলা চালায় মস্কো।


আরও খবর



ফরিদপুরের সেই বরকতের জামিন ঠেকাতে রাষ্ট্রপক্ষের আপিল

প্রকাশিত:বুধবার ১১ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১৮ মে ২০২২ | ৪৩জন দেখেছেন
Image

ফরিদপুর শহর আওয়ামী লীগের বহিষ্কৃত সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ হোসেন ওরফে বরকতের হাইকোর্টের দেওয়া জামিন স্থগিত চেয়ে আপিল বিভাগে আবেদন করেছে রাষ্ট্রপক্ষ। ৫০ লাখ টাকা চাঁদাবাজির অভিযোগে করা মামলায় তার এ জামিন দেন হাইকোর্ট।

সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের সংশ্লিষ্ট শাখায় এই আপিল আবেদন করা হয়েছে। বুধবার (১১ মে) জাগো নিউজকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক।

এর আগে গত ২৮ এপ্রিল হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ বরকতের অন্তবর্তীকালীন জামিন মঞ্জুর করে সে বিষয়ে রুল জারি করেছিলেন। ওই জামিন আদেশ স্থগিত চেয়ে আপিল বিভাগে আবেদন করে রাষ্ট্রপক্ষ।

চাঁদাবাজির অভিযোগে ২০২০ সালের ১২ জুন মামলা করেন ফরিদপুরের ব্যবসায়ী ও কোতোয়ালি থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শামসুল আলম চৌধুরী।

মামলার অভিযোগে বলা হয়, ৫০ লাখ টাকা চাঁদা না দেওয়ায় ২০১৯ সালের ২২ ডিসেম্বর রাতে বরকত-রুবেলের নেতৃত্বে ১৫-২০ জন সন্ত্রাসী তার প্রতিষ্ঠানে হামলা চালান। সন্ত্রাসীরা তাকে, তার ছেলে এবং গাড়িচালককে মারধর করে সোয়া পাঁচ লাখ টাকা ছিনিয়ে নেন।

এর আগে ফরিদপুর শহরের গোলচামট এলাকায় সুবল চন্দ্রের বাড়িতে হামলার অভিযোগে শহরের বিভিন্ন স্থান থেকে সাজ্জাদ, রুবেলসহ নয়জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। ২০২০ সালের ৭ জুন তাদের গ্রেফতার করা হয়।

পরে সিআইডি পরিদর্শক এস এম মিরাজ আল মাহমুদ অর্থপাচারের অভিযোগে একই বছরের ২৬ জুন রাজধানীর কাফরুল থানায় মামলা করেন। মানি লন্ডারিংয়ের ওই মামলায় দুই ভাইয়ের বিরুদ্ধে আনুমানিক দুই হাজার কোটি টাকার সম্পদ অবৈধ উপায়ে উপার্জন ও পাচারের অভিযোগ আনা হয়। আলোচিত দুই হাজার কোটি টাকা পাচার মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামি ও সাবেক এলজিআরডি মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেনের ছোট ভাই খন্দকার মোহতেশাম হোসেন  বাবরকে চলতি বছরের ৭ মার্চ গ্রেফতার  করে পুলিশ।

চাঁদাবাজির এ মামলায় বরকতকে ২০২০ সালের জুন মাসে শ্যোন অ্যারেস্ট করা হয়। পরে নিম্ন আদালতে জামিন খারিজের পর সাজ্জাদ হোসেন বরকত হাইকোর্টে জামিন আবেদন করেন।

মামলায় অভিযোগ থেকে আইনজীবীরা জানান, ব্যবসায়ী ও কোতোয়ালি থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শামসুল আলম চৌধুরীর কাছে ৫০ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন দুই ভাই। চাঁদা দিতে না চাইলে ২০১৯ সালের ২২ ডিসেম্বর রাতে বরকত-রুবেলের নেতৃত্বে হাতুড়ি বাহিনীর ১৫-২০ জন সন্ত্রাসী তার প্রতিষ্ঠানে হামলা চালান। সন্ত্রাসীরা তাকে, তার ছেলেকে এবং গাড়িচালককে মারধর করে সোয়া পাঁচ লাখ টাকা ছিনিয়ে নেন। ঘটনার প্রায় এক বছর পর গত বছরের ১২ জুন এ ঘটনায় মামলা করেন শামসুল আলম।


আরও খবর