Logo
শিরোনাম

ঝটপট আমের মোরব্বা তৈরির রেসিপি

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৩ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ৪২জন দেখেছেন
Image

আমের মোরব্বা খেতে কে না পছন্দ করেন! বাজারে এখন কাঁচা আম বেশ সহজলভ্য। তাই এখনই সেরা সময় আমের মোরব্বা তৈরি করে বছরব্যাপী সংরক্ষণ করার।

ঘরেই খুব সহজে তৈরি করা যায় আমের মোরব্বা। তাও আবার কয়েকটি উপকরণ দিয়েই। জেনে নিন মোরব্বা তৈরির সবচেয়ে সহজ রেসিপি-

jagonews24

উপকরণ

১. বড় কাঁচা আম ১৫টি
২. চিনি ২ কেজি
৩. ফিটকিরি গুঁড়া ১ চা চামচ
৪. পানি পরিমাণমতো
৫. তেজপাতা ২টিৎ
৬. এলাচ ১ টুকরা
৭. চুন ভেজানো আধা চা চামচ ও
৮. লবণ স্বাদমতো।

jagonews24

পদ্ধতি

প্রথমে আম ধুয়ে খোসা ছাড়িয়ে নিন। তারপর আম ২ টুকরা করে কেটে নিন। আঁটি ফেলে আম পানিতে ভিজিয়ে রাখুন। কাঁটা চামচ দিয়ে আমগুলো ভালো করে কেচে নিন। এরপর আমগুলো আবার পরিষ্কার পানিতে রাখুন।

এভাবে ঘণ্টাখানেক পরপর ২-৩ বার পানি বদলে নিন। পরিষ্কার পানিতে চুন ও ফিটকিরি গুনিয়ে নিতে হবে। চুন ও ফিটকিরি গোলানো পানিতে ৩ ঘণ্টা ডুবিয়ে রাখুন আম।

jagonews24

এবার পানি থেকে আমগুলো তুলে ফুটানো পানিতে জ্বালিয়ে পানি ঝরিয়ে রাখুন। অন্যদিকে চিনিতে পরিমাণমতো পানি দিয়ে সিরা তৈরি করুন।

সিরায় আমসহ সব কিছু দিয়ে জ্বাল দিতে থাকুন। চিনি থেকে পানি শুকিয়ে আমের গায়ে আঁঠালোভাব এলে নামিয়ে ঠান্ডা করে পরিবেশন করুন আমের মোরব্বা। ফ্রিজে রেখে বেশ কিছুদিন সংরক্ষণ করতে পারবেন এই মোরব্বা।


আরও খবর

কাঁচা কাঁঠালের কাবাব

শুক্রবার ২০ মে ২০22




কারওয়ান বাজারে গাড়িচাপায় পাঠাও চালকের মৃত্যু

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১২ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ | ৩৪জন দেখেছেন
Image

রাজধানীর কারওয়ান বাজারে সড়ক দুর্ঘটনায় হাফিজুর রহমান (২৬) নামে এক পাঠাও চালক নিহত হয়েছেন। তবে কোন গাড়ির সঙ্গে দুর্ঘটনা ঘটেছে তা জানাতে পারেনি পুলিশ।

বুধবার (১১ মে) সন্ধ্যা সোয়া ৭টার দিকে কারওয়ান বাজারের সোনারগাঁও ক্রসিংয়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে। হাফিজুর রহমান বাড়ি বাগেরহাটের মোল্লার হাটে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে তেজগাঁও থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সালেকিন মিত্তাল তৌফিক বলেন, নিহত হফিজুর পাঠাও চালক। কারওয়ান বাজারের সোনারগাঁও মোড়ের সামনে একটি বড় গাড়ি তার মোটরসাইকেলকে চাপা দেয়। ঘটনাস্থলেই হাফিজুরের মৃত্যু হয়। তিনি যাত্রী নিয়ে ফার্মগেটের দিকে যাচ্ছিল। চাপা দেওয়া গাড়িটি চিহ্নিত করা যায়নি। মোটরসাইকেলে থাকা আরোহী গুরুতর আহত হয়েছেন। তার পা ভেঙে গেছে।


আরও খবর



নিবন্ধনের পর হজে যেতে না পারলে যেভাবে টাকা ফেরত

প্রকাশিত:বুধবার ১৮ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ১৯জন দেখেছেন
Image

সরকারি ব্যবস্থাপনায় নিবন্ধন করা হজযাত্রীর টাকা ফেরত পাওয়ার উপায় জানিয়েছে সরকার। বুধবার (১৮ মে) জমাকৃত অর্থ উত্তোলন সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে ধর্ম বিষয়ক মন্ত্রণালয়।

এতে বলা হয়, যেসব হজযাত্রী ইতোমধ্যে মারা গেছেন বা অসুস্থ আছেন বা ৬৫ বছরের বেশি বয়সসীমার কারণে এ বছর হজে যেতে পারছেন না তাদের পরিবর্তে প্রতিস্থাপিত ব্যক্তি তার নিবন্ধন বাবদ জমাকৃত অর্থ সমন্বয় করতে পারবেন না। এমন ব্যক্তি বা মৃত হজযাত্রীর ক্ষেত্রে তার প্রতিনিধি নিবন্ধন বাবদ জমাকৃত অর্থ ফেরত পাওয়ার জন্য (ওয়েবসাইটে) www.hajj.gov.bd প্রবেশ করে ‘নিবন্ধন রিফান্ড সিস্টেমে আবেদন করে জমাকৃত অর্থ উত্তোলন বা ফেরত নিতে পারবেন। এক্ষেত্রে প্রতিস্থাপিত হজযাত্রীকে প্যাকেজের সম্পূর্ণ অর্থ পরিশোধ করে নিবন্ধন সম্পন্ন করতে হবে।

চাঁদ দেখা সাপেক্ষে আগামী ৮ জুলাই সৌদি আরবে পবিত্র হজ অনুষ্ঠিত হবে। এবার বাংলাদেশ থেকে ৫৭ হাজার ৫৮৫ জন হজ পালনের সুযোগ পাবেন। এরমধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় চার হাজার জন ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ৫৩ হাজার ৫৮৫ জন হজে যেতে পারবেন।

করোনাভাইরাস মহামারির কারণে সৌদি সরকারের বিধিনিষেধের মুখে গত দুই বছর বাংলাদেশি হজযাত্রীরা হজ পালন করতে পারেননি।

এবার সরকারিভাবে হজে যেতে দুটি প্যাকেজ ঘোষণা করা হয়েছে। প্যাকেজ-১ এর মূল্য পাঁচ লাখ ২৭ হাজার ৩৪০ টাকা এবং প্যাকেজ-২ এর মূল্য চার লাখ ৬২ হাজার ১৫০ টাকা। বেসরকারিভাবে এজেন্সিগুলোর মাধ্যমে হজ পালনে সর্বনিম্ন খরচ হবে চার লাখ ৬৩ হাজার ৭৪৪ টাকা।

চলতি বছর সরকারি ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় হজ পালনের জন্য হজযাত্রী নিবন্ধন শুরু হয়েছে সোমবার (১৬ মে)। নিবন্ধন শেষ হচ্ছে বুধবার (১৮ মে)।


আরও খবর



টিসিবিকে শক্তিশালী করা হচ্ছে: হানিফ

প্রকাশিত:রবিবার ০১ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ৩৬জন দেখেছেন
Image

টিসিবিকে শক্তিশালী করা হচ্ছে জানিয়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও কুষ্টিয়া সদর আসনের এমপি মাহবুবউল আলম হানিফ বলেছেন, টিসিবির মাধ্যমে ন্যায্যমূল্যে নিত্যপণ্য কেনার সুযোগ রাখা হয়েছে। ৫০ লাখের বেশি মানুষ এ সুবিধা পাচ্ছেন। এর আওতা বাড়িয়ে আরো ১ কোটি করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

রোববার (০১ মে) বেলা সাড়ে ১১টায় কুষ্টিয়ায় নিজ বাসভবনে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এসব কথা বলেন তিনি।

তিনি বলেন, নিত্যপণ্যের মূল্য নিয়ন্ত্রণে সরকারের পক্ষ থেকে সবরকম চেষ্টা করা হচ্ছে। কিন্তু অসাধু মজুতদার ব্যবসায়ীরা ঈদের সামনে অধিক মুনাফা করছেন। তবে কঠোর মনিটরিং করা হচ্ছে।

ইলিয়াস আলী গুমের ব্যাপারে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, গুম খুনের রাজনীতি আওয়ামী লীগ করে না। বিএনপির তাদের নেতাদের নিজেরাই খুন করে গুম করার ঘটনা আগেও আছে।


আরও খবর



সরকারি প্রতিষ্ঠানে আউটসোর্সিং প্রথা বাতিলের দাবি

প্রকাশিত:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ১১জন দেখেছেন
Image

বিভিন্ন সরকারি দফতর-অধিদপ্তরে আউটসোর্সিং প্রথা বাতিল করে আউটসোর্সিং কর্মচারীদের রাজস্বখাতে স্থানান্তর ও স্থায়ীকরণের দাবিতে রাজধানীতে মানববন্ধন করেছে স্বাধীনতা আউটসোর্সিং কর্মচারী কল্যাণ পরিষদ।

শুক্রবার (২০ মে) বেলা ১১টার দিকে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

jagonews24

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, দীর্ঘদিন নানা বৈষম্যের শিকার হয়ে আজ আমরা একত্রিত হয়েছি। ডিজিটাল বাংলাদেশে দাস প্রথায় মানব বেচাকেনা— ইতিহাসের ঘৃণ্য এ প্রথা বন্ধ করতে হবে। প্রধানমন্ত্রী ব্যাংক অ্যাকাউন্টে বেতন পরিশোধ করার কথা বললেও ঠিকাদাররা তা করছেন না। বিভিন্ন দপ্তর অধিদপ্তরগুলোতে কখনো কখনো প্রশাসনিক অনুমোদন না থাকায় নানা ধরনের জটিলতায় পড়তে হয় কর্মচারীদের। এর ফলে কয়েক মাস বিনা বেতনেও কাজ করতে হয় আউটসোর্সি কর্মচারীদের। এছাড়া টেন্ডার জটিলতায় অনেকের চাকরি চলে যায়।

এসময় পরিষদের সভাপতি মাহমুদুর রহমান আনিস বলেন, কোনো অপরাধ ছাড়াই কথায় কথায় দক্ষ কর্মীদের চাকরিচ্যুত করা। বিভিন্ন সরকারি দপ্তর এরই মধ্যে অনেকেই ঠিকাদারকে ঘুস না দিতে পারায় বিনা অপরাধে চাকরিচ্যুত হয়েছেন। তাদের চাকরিতে পুনঃবহাল করার অনুরোধ জানাচ্ছি।


আরও খবর



শ্রীলঙ্কাকে বাঁচাতে প্রেসিডেন্টের পদত্যাগ করা উচিত

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১২ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ৩৩জন দেখেছেন
Image

কাগজে-কলমে অন্ততপক্ষে বলা যায় যে, দক্ষিণ এশিয়ার সবচেয়ে ধনী দেশগুলোর মধ্যে একটি ছিল শ্রীলঙ্কা। জাতিসংঘের তালিকা অনুযায়ী, উন্নয়নের দিক থেকে পূর্ব ইউরোপের অনেক দেশেরই সমকক্ষ ছিল এই দ্বীপরাষ্ট্র। কিন্তু কয়েক মাসের ব্যবধানেই দেশটির পুরো চিত্র একেবারেই পাল্টে গেছে।

দুই কোটি ২০ লাখ মানুষের দেশটিতে খাদ্য সংকট সংকট তীব্র আকার ধারণ করেছে। একই সঙ্গে জ্বালানি, ওষুধসহ নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিস হাতের নাগালের বাইরে চলে গেছে। কখনও কখনও দিনে ১৩ ঘণ্টা পর্যন্ত বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ থাকে।

গত দুই মাসে ডলারের বিপরীতে দেশটির মুদ্রা প্রায় অর্ধেক মূল্য হারিয়েছে। বৈদেশিক রিজার্ভ ৫ কোটি ডলারে দাঁড়িয়েছে, ২০১৯ সালে ছিল ৯০০ কোটি ডলার। গত মাসে শ্রীলঙ্কা স্বীকার করেছে যে, তারা আর বিদেশী ঋণ পরিশোধ করতে পারবে না। অর্থাৎ দেশের অর্থনীতি পুরোপুরি ভেঙ্গে পড়েছে।

এমন অবস্থায় অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে সাধারণ মানুষ। প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র না পেয়ে তাদের মনে ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়েছে। আর এই ক্ষোভ এখন তীব্র বিক্ষোভ আর সংঘাতে রূপ নিয়েছে। যার ফলে ইতোমধ্যেই প্রধানমন্ত্রীর পদ থেকে সরে দাঁড়াতে বাধ্য হয়েছেন মাহিন্দা রাজাপাকসে। এমনকি প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপাকসে এবং তার মন্ত্রিসভাও নড়বড়ে হয়ে গেছে।

গত কয়েকদিন ধরে বিক্ষাভ আরও তীব্র আকার ধারণ করেছে। এরই মধ্যে আগুন লাগানো হয়েছে অর্ধশতাধিক নেতার বাড়িগাড়িতে। একরাতেই বিক্ষোভের আগুনে পুড়েছে শ্রীলঙ্কার অন্তত ৩৩ সংসদ সদস্যের বাসভবন। গত সোমবার (৯ মে) রাতে শাসক দলীয় নেতাদের অন্তত ৩৩টি বাড়িতে অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে। নেতাদের সঙ্গে যোগসূত্র রয়েছে অভিযোগে বেশ কিছু বেসরকারি সম্পত্তিতেও হামলা চালানো হয়েছে। দ্বীপরাষ্ট্রটিতে বেছে বেছে ক্ষমতাধর ব্যক্তিদের বাড়ি-গাড়িতে হামলা চালাচ্ছে ক্রুদ্ধ জনতা।

সদ্য পদত্যাগকারী লঙ্কান প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দা রাজাপাকসের মেদামুলনায় অবস্থিত পৈতৃক বাড়ি এবং কুরুনেগালায় অবস্থিত বাসভবনেও আগুন দেয় বিক্ষোভকারীরা। রাজনৈতিক নেতাদের পাশাপাশি হামলার শিকার হচ্ছেন সরকারি কর্মকর্তারাও। এরই মধ্যে লঙ্কান পুলিশের সিনিয়র ডেপুটি ইন্সপেক্টর জেনারেল (এসডিআইজি) দেশবন্ধু টেন্নাকুনকে মারধরের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়।

এদিকে চলতি সপ্তাহেই নতুন মন্ত্রিসভা গঠন করতে যাচ্ছেন শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট গোতাবায়ে রাজাপাকসে। এসময় তিনি নতুন প্রধানমন্ত্রীও নিয়োগ দেবেন। চলমান সহিংস আন্দোলনের জের ধরে প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগ করার পর স্বয়ংক্রিয়ভাবেই দেশটির মন্ত্রিসভা ভেঙে পড়ে।

শ্রীলঙ্কাকে এই দিন কেনো দেখতে হলো? এই প্রশ্নের উত্তর পেতে ২০১৯ সালের শেষের দিকে ফিরে তাকাতে হবে। সে সময় ইস্টার সানডেতে ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলার পরেও ঘুরে দাঁড়াতে সক্ষম হয় দেশটি। তিনটি গির্জা এবং তিনটি বিলাসবহুল হোটেলে হামলা চালানো হয়। এতে আড়াই শতাধিক মানুষ নিহত হয়। ওই হামলার কারণে পর্যটন খাত কিছুটা গতি হারায়। দেশটির অন্যতম আয়ের উৎসই এই পর্যটন খাত। হামলার আগের মাসেও যেখানে ২ লাখ ৪৪ হাজার পর্যটক দেশটিতে ভ্রমণ করেছে সেখানে ওই হামলার পর এই সংখ্যা ৩৮ হাজারে এসে দাঁড়ায়।

এরপর আবার করোনা মহামারির কারণে পর্যটন খাতে আরও বড় ধাক্কা আসে। আন্তর্জাতিক ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞার কারণে দুই বছর ধরে দেশটিতে বিদেশি পর্যটকদের আনাগোনা একেবারেই বন্ধ হয়ে যায়।

সর্বশেষ প্রেসিডেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ২০১৯ সালে। সে সময় স্টার সানডের হামলাকে কেন্দ্র করে শ্রীলঙ্কানরা এমন একজন ব্যক্তিকে প্রেসিডেন্ট হিসেবে বেছে নিয়েছিলেন যিনি নিরাপত্তা ব্যবস্থাকে কঠোর হাতে দমন করবেন বলে ধারণা করা হয়েছিল।

গোতাবায়া রাজপাকসে নির্বাচনে জয়ী হয়ে ক্ষমতা গ্রহণ করেন। এর এক বছর আগেই তিনি এক প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রধান হিসেবে ২৬ বছরের গৃহযুদ্ধের অবসান ঘটাতে সক্ষম হন। ফলে দেশে তার বেশ জনপ্রিয়তা ছিল।

প্রেসিডেন্ট হওয়ার পর গোতাবায়া তার বড় ভাই মাহিন্দা রাজাপাকসেকে দেশের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দেন। মাহিন্দা রাজাপাকসে এর আগে ২০০৫ সাল থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত দেশটির প্রেসিডেন্ট হিসেবে ক্ষমতায় ছিলেন।

শুধু বড় ভাইকেই নয় রাজপাকসে পরিবারের অনেককেই সরকারের বিভিন্ন পদে বসান গোতাবায়া।

কিন্তু সরকারের বিভিন্ন পদে থেকে রাজাপাকসেরা বেশ কিছু ভুল পদক্ষেপ নিয়েছেন। দেশটিতে মূল্য সংযোজন কর ১৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৮ শতাংশ করা হয় এবং অন্যান্য শুল্ক বাতিল করা হয়।

মহামারির কারণে একদিকে পর্যটন খাতে ধস নামে অন্যদিকে সরকারি রাজস্ব কমে যায় এবং বৈদেশিক মুদ্রার প্রবাহও মারাত্মকভাবে হ্রাস প্রায়। তার ওপরে ঋণের বোধা শ্রীলঙ্কাকে আরও জর্জরিত করে ফেলে। সবকিছু মিলিয়ে অর্থনীতির ধস ঠেকানো সম্ভব হয়নি। এখন নতুন করে বৈদেশিক ঋণ পাওয়ার পথও বন্ধ হয়ে গেছে।

দেশজুড়ে জনমনে রাজাপাকসে পরিবার নিয়ে যে ক্ষোভের জন্ম হয়েছে তা থামাতে এখন মাহিন্দার পর গোতাবায়ে রাজাপাকসেকেও ক্ষমতা থেকে সরে দাঁড়াতে হবে। কারণ দীর্ঘদিন ধরেই তার পদত্যাগের দাবিতে বিক্ষোভ চলছে।

আর এই মুহূর্তে বিরোধীদেরও উচিত জনগণের চাওয়া-পাওয়াকে রাজনীতির ঊর্ধ্বে রাখা এবং শ্রীলঙ্কাকে এর দুর্দশা থেকে বের করে আনার কিছু দায়িত্বও তাদের নেওয়া উচিত। এই মুহূর্তে সবকিছুতেই কালো ছায়া নেমে এসেছে বলে মনে হতে পারে, তবে ভোটাররা সেই রাজনীতিবিদদেরই পুরস্কৃত করবেন যারা বর্তমান অচলাবস্থা থেকে বেরিয়ে আসার পথ খুঁজে পাবেন। আপাতদৃষ্টিতে বলা যায় দীর্ঘদিনের গৃহযুদ্ধের অবসান ঘটিয়েই রাজাপাকসেরা প্রথমে জনপ্রিয়তা অর্জন করেছিলেন। কিন্তু নিজের হাতেই তারা সেই জনপ্রিয়তা নষ্ট করেছেন। এবার দেশের অন্যান্য রাজনীতিবিদদেরও এই অন্ধকার থেকে বেরিয়ে আসার জন্য জনগণকে সহায়তা করতে হবে, তাদের পাশে দাঁড়াতে হবে। নিজেদের দেশ রক্ষার জন্যই তাদের এখন সব স্বার্থ ত্যাগ করে এগিয়ে আসতে হবে।

সূত্র: দ্য ইকোনমিস্ট, ডেইলি মিরর


আরও খবর