Logo
শিরোনাম

খালি চোখেই দৃশ্যমান ‘বিশাল’ ব্যাকটেরিয়ার সন্ধান

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৪ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ আগস্ট ২০২২ | ৫৯জন দেখেছেন
Image

ক্যারিবীয় দ্বীপপুঞ্জের অগভীর জলাভূমিতে এমন এক ধরনের ব্যাকটেরিয়ার সন্ধান পেয়েছেন বিজ্ঞানীরা, যা খালি চোখেই দেখা যায়। শুধু দেখা যায় বললে এর ‘বিশালাকার’ সম্পর্কে ধারণা করা কঠিন। বিজ্ঞানীদের মতে, অন্য ব্যাকটেরিয়াদের সামনে নতুন প্রজাতিটি আমাদের সামনে মাউন্ট এভারেস্টের সমান উচ্চতার কোনো মানুষ হাজির হওয়ার মতো। এ কারণেই নতুন ব্যাকটেরিয়াটিকে ‘ব্যাকটেরিয়াদের এভারেস্ট’ বলে ডাকা হচ্ছে।

স্কাই নিউজের খবর অনুসারে, থিওমার্গারিটা ম্যাগনিফিকা নামে নতুন ব্যাকটেরিয়াটি পাওয়া গেছে ক্যারিবীয় অঞ্চলের অগভীর ম্যানগ্রোভ জলাভূমিতে। এককোষী প্রাণীটির দৈর্ঘ্য প্রায় দুই সেন্টিমিটার এবং এর শরীর ছোট ঝিল্লি দিয়ে আবৃত। ফলে ব্যাকটেরিয়ার জন্য ঠিক কী কী সম্ভব, তা নতুন করে সংজ্ঞায়িত করছেন বিজ্ঞানীরা।

সামুদ্রিক জীববিজ্ঞানী জিন-মেরি ভল্যান্ড বলেন, এর আকার নিয়মিত ব্যাকটেরিয়ার চেয়ে হাজার গুণ বড়। এই ব্যাকটেরিয়া আবিষ্কার মাউন্ট এভারেস্টের মতো লম্বা মানুষের মুখোমুখি হওয়ার মতো ব্যাপার।

jagonews24

জানা যায়, ইউনিভার্সিটি ডেস অ্যান্টিলেসের মাইক্রোবায়োলজিস্ট এবং গবেষক অলিভিয়ার গ্রোস গুয়াদেলুপে নামে একটি ক্যারিবীয় দ্বীপপুঞ্জের বেশ কয়েকটি এলাকায় সালফার-সমৃদ্ধ সামুদ্রিক পানিতে বিশালাকার ব্যাকটেরিয়াগুলো খুঁজে পান।

তিনি বলেন, ২০০৯ সালে আমি একটি ম্যানগ্রোভ গাছের ডুবে যাওয়া পাতার সঙ্গে লম্বা সাদা তন্তু লেগে থাকতে দেখি। আমার কাছে তন্তুগুলো কৌতূহলোদ্দীপক মনে হওয়ায় সেগুলো বিশ্লেষণের জন্য ল্যাবে নিয়ে আসি।

এ গবেষকের কথায়, গুয়াদেলুপের ম্যানগ্রোভ জলাভূমিতে এত বড় ব্যাকটেরিয়া পাওয়া আমার জন্য খুবই আশ্চর্যজনক ঘটনা ছিল।

jagonews24

একটি গড়পরতা ব্যাকটেরিয়ার দৈর্ঘ্য এক থেকে পাঁচ মাইক্রোমিটারের মধ্যে (০.০০১ মিলিমিটার) হয়। কিন্তু এই প্রজাতিটি ১০ হাজার মাইক্রোমিটারের (এক ইঞ্চির চার-দশমাংশ বা এক সেন্টিমিটার), কয়েকটি তার চেয়েও দ্বিগুণ লম্বা।

এতদিন পর্যন্ত পরিচিত সবচেয়ে বড় ব্যাকটেরিয়ার দৈর্ঘ্য ছিল প্রায় ৭৫০ মাইক্রোমিটার।

ভল্যান্ডের মতে, নতুন ব্যাকটেরিয়া দেখিয়ে দিয়েছে, পৃথিবীতে কিছু কিছু প্রাণ এখনো কীভাবে আবিষ্কারের অপেক্ষায় রয়েছে। জীবন আকর্ষণীয়, খুব বৈচিত্র্যময় এবং জটিল। তাই কৌতূহলী থাকা ও মন খোলা রাখা জরুরি।


আরও খবর



আবারও কাজে ফিরছেন কাজল

প্রকাশিত:সোমবার ০৮ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ আগস্ট ২০২২ | ২৫জন দেখেছেন
Image

দক্ষিণী জনপ্রিয় অভিনেত্রী কাজল আগারওয়াল। এপ্রিল মাসে পুত্রসন্তানের মা হয়েছেন তিনি। মাতৃত্বের কারণে দীর্ঘদিন সিনেমা থেকে বিরতি নিয়েছিলেন অভিনেত্রী। আবারও তিনি ফিরছেন লাইভ ক্যামেরা অ্যাকশনের জগতে। সম্প্রতি অভিনেত্রী নেহা ধুপিয়ার সঙ্গে সোশ্যাল মিডিয়ার একটি টক শোতে হাজির হয়েছিলেন কাজল। বিভিন্ন বিষয়ে কথোপকথনের সময় কাজল জানান, আগামী ১৩ সেপ্টেম্বর থেকে ‘ইন্ডিয়ান ২’ সিনেমার শুটিং শুরু করবেন তিনি।

‘ইন্ডিয়ান ২’ সিনেমার কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করছেন কমল হাসান। তামিল ইন্ডাস্ট্রির দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বাজেটের আর কমলের সর্বোচ্চ বাজেটের সিনেমা হতে যাচ্ছে এটি। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম বলছে, কাজলকে বিভিন্ন বয়সের চরিত্রে দেখা যাবে এতে। তরুণী থেকে বৃদ্ধা—সব বয়সী চরিত্রেই দেখা যাবে। সিনেমায় রাকুল প্রীত ও প্রিয়া ভবানী শঙ্করও আছেন, তবে মূল নারী চরিত্রে থাকছেন কাজল। ইতিমধ্যে সিনেমার অর্ধেকের বেশি শুটিং হয়ে গেছে। পরিচালনা করছেন শংকর। মাঝে সিনেমার সেটে এক দুর্ঘটনায় হতাহতের কারণে অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ হয়ে গিয়েছিল শুটিং। আবারও শুটিং শুরু করার পরিকল্পনা করেছে প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান।

এক সময় দক্ষিণে সর্বোচ্চ পারিশ্রমিক পাওয়া নায়িকা ছিলেন কাজল। ২০১৭ সালের পর থেকে তার ক্যারিয়ারের গ্রাফটা নামতে শুরু করে। বড় তারকাদের সঙ্গে সিনেমা তেমন ছিল না, যা-ও ছিল সেসবে তার চরিত্রের গুরুত্ব ছিল কম। সর্বশেষ চিরঞ্জীবীর ‘আচার্য’ সিনেমায় তার অভিনীত বেশির ভাগ দৃশ্যই কেটে দেওয়া হয়েছিল। এখন কাজল আগারওয়ালের সিনেমায় ফেরার সহজ রাস্তা হচ্ছে ‘ইন্ডিয়ান ২’। এটি প্যান ইন্ডিয়ান সিনেমা। শঙ্করের পরিচালনায় এই সিনেমার বাজেট বাড়তে বাড়তে প্রায় ৩৫০ কোটিতে পৌঁছে যাচ্ছে। যদি কাজলের চরিত্র শেষমেশ গুরুত্বপূর্ণ থাকে, তার পারফরম্যান্স যদি যথাযথ হয়, তাহলে হয়তো নতুন করে জ্বলে উঠবেন কাজল।

কাজল অভিনীত তামিল ‘করুঙ্গাপিয়াম’ ও ‘গোস্টি’ এবং হিন্দি ‘উমা’ সিনেমা মুক্তির অপেক্ষায় আছে। যদিও সিনেমাগুলোর কোনোটাই বড় বাজেটের নয়। কাজল আগারওয়াল অভিনীত সর্বশেষ মুক্তিপ্রাপ্ত সিনেমা ‘হে সিনমিকা’। তামিল ভাষার এই সিনেমায় কাজল ছাড়া অভিনয় করছেন দুলকার সালমান ও অদিতি রাও হায়দারি।


আরও খবর

ক্যারিয়ার নিয়ে যা বললেন মিম

রবিবার ১৪ আগস্ট ২০২২




সংসার করবেন না স্ত্রী, হতাশায় ঘরে কবর খুঁড়লেন স্বামী

প্রকাশিত:শুক্রবার ২২ জুলাই 20২২ | হালনাগাদ:শনিবার ১৩ আগস্ট ২০২২ | জন দেখেছেন
Image

পারিবারিক কলহের জেরে আলাদা থাকছেন স্বামী-স্ত্রী। স্ত্রীকে ঘরে ফেরাতে একাধিকবার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়েছেন স্বামী জাফর। অবশেষে হতাশায় নিজ ঘরে কবর খুঁড়েছেন তিনি।

এমনই ঘটনা ঘটেছে বরগুনা সদর উপজেলার আয়লা ইউনিয়নের কদমতলা এলাকায়। খবর পেয়ে শুক্রবার (২২ জুলাই) বিকেল ৫টার দিকে গ্রামপুলিশ ও স্থানীয় জনতা কবর খোঁড়া বন্ধ করান।

চাঞ্চল্য এ ঘটনায় আশপাশের গ্রামের মানুষ ওই বাড়িতে ভিড় করছেন।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে আয়লা ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের গ্রামপুলিশ সাইফুল ইসলাম জাগো নিউজকে জানান, প্রায় এক যুগের সংসার জাফর ও হাজেরার। তাদের দাম্পত্য জীবনে প্রায়ই কলহ হতো। বর্তমানে বিষয়টি নিয়ে ইউনিয়ন পরিষদে সালিশ চলমান। তারা দুজনই এক মাস ধরে আলাদা থাকছেন। স্ত্রীকে ফেরাতে ব্যর্থ হয়ে নিজ ঘরে কবর খুঁড়েছেন জাফর। সংবাদ পেয়ে তিনি দ্রুত ছুটে গিয়ে তাকে কবর খোঁড়া থেকে বিরত রাখেন এবং বিষয়টি পুলিশকে জানান।

এ বিষয়ে জাফর গাজী জাগো নিউজকে জানান, ১৩ বছর আগে ঢাকায় হাজেরার সঙ্গে তার বিয়ে হয়। বিয়ের পর থেকেই হাজেরা তার কথার অবাধ্য। পরে বরগুনায় গ্রামে বসবাস শুরু করলেও স্ত্রী শুধরে যাননি। এনিয়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা একাধিক সালিশ করলেও হাজেরা তা মানছেন না। সবশেষ ২২ জুন তার সঙ্গে রাগ করে হাজেো তার নিজ চায়ের দোকানে বসবাস শুরু করেন। তাকে দোকান থেকে ঘরে ফেরত আনার একাধিক চেষ্টায় ব্যর্থ হন। তাই হতাশায় নিজের কবর নিজেই খোঁড়েন তিনি।

তবে স্বামী জাফরকে নিয়েও বিস্তর অভিযোগ রয়েছে হাজেরার। তিনি জাগো নিউজকে জানান, ১৩ বছর আগে বিয়ের সময় তার সঙ্গে প্রতারণা করেছেন জাফর গাজী। জাফরের আগের স্ত্রীকে তালাক না দিয়েই মিথ্যা তালাকনামা তৈরি করে তা দেখিয়ে বিয়ে করেন তাকে। এসব নিয়ে ঝগড়া ও ঝামেলা শুরু হলে তারা ঢাকা থেকে গ্রামে চলে আসেন।

তিনি বলেন, জাফর গাজী সংসারে অমনোযোগী। এজন্য প্রায়ই ঝগড়া হয়। ২২ জুন তাকে ঘর থেকে বের করে দেন। এরপর থেকে তিনি দোকানের মধ্যে আলাদা থাকা শুরু করেন। জাফরের সঙ্গে ফের সংসার জীবন শুরু করতে কোনোমতেই রাজি নন হাজেরা।

এ বিষয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য কাজি মোখলেচুর রহমান জানান, মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে জাফর যাতে কোনো অঘটন না ঘটাতে পারেন সেজন্য ঘর থেকে তাকে কদমতলা বাজারে নিয়ে আসা হয়েছে। পুলিশকে খবর দেওয়া হয়েছে। তারা পরবর্তী পদক্ষেপ নেবেন।

বরগুনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলী আহম্মেদ জাগো নিউজকে জানান, ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। বিষয়টি আইনগতভাবে দেখা হবে।


আরও খবর



৩০ মিনিটের পথ যেতে পৌনে দুই ঘণ্টা

প্রকাশিত:রবিবার ৩১ জুলাই ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ১৪ আগস্ট ২০২২ | ১৪জন দেখেছেন
Image

মিরপুরের কাজীপাড়া থেকে গুলিস্তানের দূরত্ব প্রায় ১২ কিলোমিটার। স্বাভাবিক সময়ে এ পথে বাসে যেতে সর্বোচ্চ ৩০ মিনিট সময় লাগে। কিন্তু আজ (রোববার) একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের চাকরিজীবী ইকরাম হোসেনের সময় লেগেছে এক ঘণ্টা ৪৫মিনিট। তিনি সকাল ১০টা কাজীপাড়া থেকে শিকড় পরিবহনের একটি বাসে উঠে দুপুরে পৌনে ১টায় গুলিস্তানে পৌঁছান।

ইকরাম হোসেনে বলেন, অন্যান্য দিন এই পথটুকু পাড়ি দিতে সর্বোচ্চ ৩০ মিনিট সময় লাগে। কিন্তু আজ রোববার সপ্তাহের প্রথম কর্মদিবস হওয়ায় তিনগুণের বেশি সময় লেগেছে। এতে বাস যাত্রীদের চরম ভোগান্তি পোহাতে হয়েছে।

jagonews24

বেলা সাড়ে ১১টায় মালিবাগ থেকে বিমানবন্দরগামী একটি বাসে উঠেন মাসুদ হোসেন। দুপুর সোয়া ১২টার দিকে বাসটি বাড্ডা পার হয়। এর মধ্যে বাড্ডা লিংক রোডে যানজটে আটকে থাকা অবস্থায় মাসুদ হোসেন বলেন, এই পথটুকু আসতে ৪৫মিনিট সময় লেগেছে। বাকি পথ যেতে কত সময় লাগে, তার ঠিক নেই। তবে গরমে যানজটের এ ভোগান্তি সব যাত্রীদের ক্লান্ত করে দিচ্ছে।

মহাখালীর তিতুমীর কলেজ থেকে বাড্ডা লিংক রোডের দূরত্ব প্রায় আড়াই কিলোমিটার। বেলা পৌনে ১১টায় সরেজমিনে দেখা যায়, এই পথে তীব্র যানজট তৈরি হয়েছে। এর মধ্যে তিতুমীর কলেজ থেকে মহাখালী ক্যানসার হাসপাতাল পর্যন্ত গাড়ির চাপ বেশি ছিল। আর গুলশান-১ নম্বর এলাকায় রাস্তায় খোঁড়াখুঁড়ির কাজ চলায় যানজট ছিল। সোয়া ১১টা থেকে বিকেল ৩টা পর্যন্ত বাড্ডায় বিমানবন্দর ও রামপুরাগামী সড়কে তীব্র যানজট দেখা যায়।

jagonews24

বিজয় সরণী থেকে আগারগাঁও, জাহাঙ্গীরগেট, সাতরাস্তা এবং কারওয়ান বাজার- এ চারটি পৃথক রাস্তার উভয় পাশে যানবাহনের তীব্র চাপ রয়েছে। এর মধ্যে ভিআইপি মুভমেন্ট থাকায় চাপ আরও বেড়েছে। বিজয় সরণী দিয়ে একটি যাত্রীবাহী বাসকে পার হতে ৪৫মিনিট থেকে এক ঘণ্টা পর্যন্ত সময় লাগছে। এছাড়া দুপুর ১টার দিকে শাহবাগ, সায়েন্সল্যাব ও পান্থপথ এলাকায় যানজট ছিল।

অন্যদিকে, মহাখালী থেকে নাবিস্কো, তেজগাঁও সাত রাস্তা এবং মগবাজার এলাকায় যানজট দেখা যায়। বিজয় সরণী উড়াল সড়কের পূর্ব অংশ তথা তেজগাঁও এবং সাত রাস্তায় যানজট বেশি ছিল। মগবাজারে যানজট থাকলেও উড়াল সড়কে যান চলাচল স্বাভাবিক ছিল। এছাড়া কাকরাইল, মৎস ভবন এলাকায় তেমন যানজট ছিল না।


আরও খবর



অফিসের সময় কমবে নাকি বাসা থেকে, সিদ্ধান্ত শিগগির

প্রকাশিত:সোমবার ১৮ জুলাই ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৯ আগস্ট ২০২২ | ৩৮জন দেখেছেন
Image

বিদ্যুৎ সাশ্রয়ে অফিসের সময় কমানো হবে নাকি বাসা থেকে করা হবে এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত দ্রুতই নিতে যাচ্ছে সরকার।

সোমবার (১৮ জুলাই) সচিবালয়ে সাংবাদিকদের এ কথা জানান জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন।

তিনি বলেন, অফিসের সময় কমানো হতে পারে। অথবা হতে পারে ওয়ার্কফ্রম হোম। অফিসে যতটুকু না করলেই নয় এমনভাবে বিদ্যুৎ ব্যবহারের বিষয়টি চিন্তা করছি। সপ্তাহ খানেকের মধ্যে জানাবো। মানুষের কষ্ট যাতে না হয় সেটা বিবেচনায় রেখে সিদ্ধান্ত নেবো।

বিষয়টি এখনো আলোচনার পর্যায়ে রয়েছে বলে জানান প্রতিমন্ত্রী। তিনি বলেন, কেউ বলছে অফিস সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৩টা বা ৪টা পর্যন্ত করতে। তবে এটা এখনও চূড়ান্ত হয়নি।

ফরহাদ হোসেন বলেন, প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে এ নিয়ে আলোচনা চলছে। যেটা করলে ভালো হয় সেটাই হবে। প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে সিদ্ধান্ত নেবো আমরা। সব বিষয় বিশ্লেষণ করে সঠিক কাজটি করার চেষ্টা করবো।


আরও খবর



‘ইউক্রেন-রাশিয়ার যুদ্ধের প্রভাব মোকাবিলায় সরকার সতর্ক রয়েছে’

প্রকাশিত:বুধবার ২৭ জুলাই ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১২ আগস্ট ২০২২ | ১০জন দেখেছেন
Image

ইউক্রেন-রাশিয়ার যুদ্ধের কারণে বিশ্বব্যাপী যে সংকট তৈরি হয়েছে তার প্রভাব মোকাবিলায় সরকার সতর্ক অবস্থানে রয়েছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সরকারমন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম।

বুধবার (২৭ জুলাই) রাজধানীর একটি হোটেলে অ্যাকশন এইড বাংলাদেশ ও সাউথ এশিয়ান নেটওয়ার্ক অন ইকনোমিক মডেলিং আয়োজিত ‘যুব জনগোষ্ঠীর আর্থ-সামাজিক ঝুঁকি: উন্নয়ন নীতি এবং বরাদ্দ পরিকল্পনা’ শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা জানান।

মন্ত্রী বলেন, ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধের কারণে বিশ্বের প্রায় সব দেশই কৃচ্ছ্রতা নীতি অনসরণ করছে। জ্বালানি সংকট, খাদ্য দ্রব্যের মূল্যবৃদ্ধিসহ আমদানি-রপ্তানির ওপর প্রভাব পড়েছে। আর এটা শুধু বাংলাদেশে নয় পুরো বিশ্বে। শুধু টাকার মান কমেছে এটি সঠিক নয়। ইউরো, ইয়েন ও রুপীসহ অনেক দেশের মুদ্রার মান কমেছে।

তিনি জানান, সব দেশের সরকারই একটি লক্ষ্যমাত্রা পূরণের জন্য পলিসি গ্রহণ করে কাজ করে। পৃথিবীর কোনো দেশই গৃহীত পলিসি শতভাগ বাস্তবায়ন করতে পারে না। সম্ভবও নয়। পরিবর্তন একদিনে আসে না। চোখের পলকে দেশকে পরিবর্তন করা সম্ভব নয়। বিশ্বের কোনো দেশই পারেনি। সময়ের ব্যবধানে ধীরে ধীরে একটি দেশ উন্নয়নের লক্ষ্যে পৌঁছে।

মো. তাজুল ইসলাম বলেন, ২০৪১ সালের মধ্যে দেশকে উন্নত-সমৃদ্ধ দেশে রূপান্তরিত করতে হলে যুব সমাজকে অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড অন্তর্ভুক্ত করতে হবে। যুবারা দেশের শক্তি। আগামীর উন্নত বাংলাদেশ বিনির্মাণের স্বপ্নের সারথি। তাদের অংশগ্রহণ দেশকে নির্দিষ্ট লক্ষ্যে পৌঁছাতে সহজ করে দেবে। এজন্য সরকারের পাশাপাশি বেসরকারি খাতে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী ক্ষমতায় এসে বাংলাদেশকে কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে নিতে পথ নকশা তৈরি করেছেন এবং সে অনুযায়ী কাজ করে চলেছেন। দেশে অনেক উন্নয়ন হয়েছে, সাফল্যের গল্প আছে। এগুলো অস্বীকার করার কোনো সুযোগ নেই। সমালোচনা থাকবেই। কোনো দেশের সরকার সমালোচনার ঊর্ধ্বে নয়।

এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমাদের সাফল্য নেই এ কথা ঠিক নয়। এক সময় দেশে মানুষ অনাহারে থাকতো। এখন কিন্তু সেই পরিস্থিতি নেই। অর্থনৈতিক অবস্থার অনেক পরিবর্তন এসেছে। খাদ্য ঘাটতি দূর করে বিদ্যুৎ উৎপাদন বৃদ্ধি, শিক্ষা, স্বাস্থ্য যোগাযোগ, অবকাঠামো উন্নয়নসহ কৃষি, শিল্প কলকারখানা, কর্মসংস্থান সৃষ্টি সকল খাতে সমান গুরুত্ব দিয়ে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে।

স্থানীয় সরকার মন্ত্রী বলেন, দেশে একটা সময় রাস্তাঘাটে চলাচল করা যেত না। নারীরা রাতের বেলা বের হতে পারতো না। মানুষের মধ্যে সবসময় এক ধরনের আতঙ্ক বিরাজ করতো। সন্ত্রাসী ও গুন্ডাবাহিনীকে লালন পালন করা হয়েছে। কিন্তু এখন আর সেই সময় নেই। দেশের মানুষ নির্বিঘ্নে চলাফেরা করতে পারছে।

নারীরা রাতের বেলা ঘোরাফেরা করছে নিরাপদে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কঠোর অবস্থানের কারণে দেশের মানুষ শান্তিতে বসবাস করতে পারছেন। দেশের মানুষকে সুখে এবং নিরাপদে রাখায় সরকারের মূল লক্ষ্য বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

অ্যাকশন এইড বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর ফারাহ কবিরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যক্ষ ও সাউথ এশিয়ান নেটওয়ার্ক অন ইকনোমিক মডেলিংয়ের নির্বাহী পরিচালক ড. সেলিম রায়হান, ঢাবি অর্থনীতির বিভাগের প্রভাষক শাকিল আহমেদ।


আরও খবর