Logo
শিরোনাম

মালদ্বীপে স্ট্রোকে বাংলাদেশির মৃত্যু

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৬ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২ | ৫৯জন দেখেছেন
Image

মালদ্বীপে স্ট্রোক করে মো. শাহজাহান নামে এক বাংলাদেশির মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার (১৬ জুন) দুপুর ১২টার দিকে দেশটির ইন্দিরা গান্ধী মেমোরিয়াল হাসপাতালে মারা যান তিনি।

প্রবাসী বাংলাদেশিরা জানান, শাহজাহান অনিয়মিত অবস্থায় মালদ্বীপে কাজ করতেন। আজ হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে তার মালিকই দেশটির ইন্দিরা গান্ধী মেমোরিয়াল হাসপাতালে নিয়ে যায়। পরে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, শাহজাহানের দেশের বাড়ি কুমিল্লা জেলা, বুড়িচং উপজেলা আকাবপুর। তার মৃত্যুতে দেশটির বাংলাদেশ কমিউনিটিসহ পরিবারে শোকের ছায়া নেমে এসেছে।


আরও খবর



পদ্মা সেতুতে পিকআপে যেতে পারবে মোটরসাইকেল, তবে...

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৮ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২ | ২৮জন দেখেছেন
Image

নিরাপত্তা বিবেচনায় পদ্মা সেতুতে যান চলাচলের দ্বিতীয় দিন ভোর ৬টা থেকে বন্ধ রয়েছে মোটরসাইকেল চলাচল। আজ তৃতীয় দিনেও একই চিত্র বহাল রয়েছে। তবে পণ্য হিসেবে পিকআপে করে মোটরসাইকেল সেতু পারাপার করা যাবে বলে। এক্ষেত্রে কোনো যাত্রী থাকতে পারবে না সেসব মোটরসাইকেলের সঙ্গে। পদ্মা সেতুর মাওয়া টোল প্লাজায় দায়িত্বরত বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলীয় তোফাজ্জল হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, মোটরসাইকেল যদি পণ্য হিসেবে পিকআপে করে ঢেকে নিয়ে যায় তাহলে যেতে পারবে। কিন্তু যাত্রী বা আরোহীসহ মোটরসাইকেল নিয়ে পিকআপ যেতে পারবে না। কারণ মোটরসাইকেল ও আরোহীরা একসঙ্গে পিকআপে গেলে তারা সেতুতে নামতে পারে। দেখা গেলো ৫-৬ জন মিলে মোটরসাইকেল নামিয়ে সেতুতে চালাবে। এই আশংকায় আমরা যাত্রী ও মোটরসাইকেল একসঙ্গে পার হতে দিচ্ছি না। মোটরসাইকেলের যাত্রীরা আলাদা যাবে পিকআপে শুধু মোটরসাইকেল পার হতে পারবে। সেভাবে যেতে দেওয়া হচ্ছে।

পদ্মা সেতুতে পিকআপে যেতে পারবে মোটরসাইকেল, তবে...

তিনি আরো বলেন, টোল আদায় কার্যক্রম আজ সুষ্ঠু সুন্দরভাবে চলছে। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতিও ভালো, কোনো যানজট নেই। দ্বিতীয় দিনেও প্রায় দুই কোটি টাকার মতো টোল আদায় হয়েছে। গাড়ির সংখ্যা ছিলো সাড়ে ১৫হাজার।

এদিকে যান চলাচল চালুর তৃতীয় দিনে পদ্মা সেতুতে আজ চাপ অনেকাংশে কম। এতে ব্যক্তিগত, পণ্যবাহী ও গণপরিবহনসহ অন্যান্য গাড়ি স্বাচ্ছন্দ্যে সহজেই নির্ধারিত টোল দিয়ে সেতু পার হতে পারছে। শৃঙ্খলা রক্ষায় কাজ করছে পুলিশ ও সেনাবাহিনী।

পদ্মা সেতুতে পিকআপে যেতে পারবে মোটরসাইকেল, তবে...

মাওয়া প্রান্তে টোল প্লাজা ও অভিমুখে পদ্মা সেতু উত্তর থানার মোড় থেকে মোটরসাইকেল আরোহীদের সতর্ক করে বিকল্প পথ ব্যবহারের পরামর্শ দিচ্ছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। অনেক মোটরসাইকেল এরপরও টোল প্লাজায় দফায় দফায় আসছে। সেতুতে ছবি তোলা, থামলে ও গাড়ি থেকে নামলে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের বিষয়ে টোলপ্লাজায় মাইকিং ও টহল দিচ্ছে সেনাবাহিনী।

তবে জরুরি প্রয়োজনে সেতু পারাপার হতে আসা মোটরসাইকেল আরোহীরা ভোগান্তি কমাতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের দাবি জানিয়েছে। মুন্সিগঞ্জের মাওয়া প্রান্তে ৫টি বুথ দিয়ে আদায় হচ্ছে টোল।


আরও খবর



কিশোরগঞ্জে মাদক মামলায় একজনের যাবজ্জীবন

প্রকাশিত:রবিবার ০৫ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৭ জুন ২০২২ | ৪৪জন দেখেছেন
Image

কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচরে মাদক মামলায় একজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

রোববার (৫ জুন) বিকেলে কিশোরগঞ্জের তৃতীয় অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক জান্নাতুল ইবনে হক এ রায় দেন। এ সময় আসামি আদালতে অনুপস্থিত ছিলেন।

সাজাপ্রাপ্ত আসামির নাম জীবন (৩৯)। তিনি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ উপজেলার চরচাতলপাড় গ্রামের মৃত মতি মিয়ার ছেলে।

আদালত পরিদর্শক আবুবকর সিদ্দিক জাগো নিউজকে রায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণে জানা গেছে, ২০১৩ সালের ২৬ আগস্ট কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচর উপজেলা থেকে ২০ বোতল ফেনসিডিলসহ মাদক ব্যবসায়ী জীবনকে আটক করেন র্যাব-১৪ ভৈরব ক্যাম্পের সদস্যরা। এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে বিশেষ ক্ষমতা আইনে তার বিরুদ্ধে কুলিয়ার থানায় একটি মামলা করে।
মামলার পর উচ্চ আদালত থেকে জামিন নিয়ে পালিয়ে যান জীবন।

পরে একই বছরের ৪ অক্টোবর আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কুলিয়ারচর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আবুল হাশেম। দীর্ঘ সাক্ষ্যপ্রমাণ শেষে আদালত আজ এ রায় দেন।


আরও খবর



বাসের অগ্রিম টিকিট বিক্রি: গাবতলীতে চাপ নেই যাত্রীদের

প্রকাশিত:শনিবার ২৫ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২ | ৪৯জন দেখেছেন
Image

আর মাত্র দুই সপ্তাহ পর ঈদুল আযহা। শুক্রবার (২৪ জুন) থেকে বাসের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হয়েছে। তবে শনিবার রাজধানীর গবতলীতে বাসের অগ্রিম টিকিট বিক্রিতে ক্রেতাদের চাপ নেই। অনেক কাউন্টারে টিকিট বিক্রেতারা অলস সময় পার করছেন।

শনিবার (২৫ জুন) গাবতলী বাস টার্মিনাল ঘুরে এমন চিত্র দেখা যায়।

গাবতলী বাস টার্মিনালের হানিফ কাউন্টারের টিকিট বিক্রেতা মো. জাকির মোল্লা জাগো নিউজকে বলেন, গতকাল (শুক্রবার) থেকে ঈদের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হয়েছে। ঈদের আগের দিন পর্যন্ত বিশেষ টিকিট বিক্রি করা হবে। অগ্রিম টিকিট বিক্রিতে ক্রেতাদের চাপ নেই। গতকাল থেকে শনিবার সকাল পর্যন্ত গাবতলীতে কয়েকটি টিকিট বিক্রি হয়েছে। আগামী দুই-তিন পর বিশেষ টিকিট বিক্রি বাড়তে পারে।

পরিবার নিয়ে পাবনা নিজ বাড়িতে ঈদ করবেন বেসরকারি চাকরিজীবী সাজ্জাদ সরকার। এজন্য আগেই গাবতলী থেকে টিকিট কিনেছেন তিনি। সাজ্জাদ বলেন, আগামী ৭ জুলাই পরিবার নিয়ে বাড়ি যাবো। ঝামেলা এড়াতে আগেই টিকিট কিনলাম। তবে স্বাভাবিক সময়ের চাইতে টিকিটের দাম কিছুটা বেশি নেওয়া হয়েছে।

HANIF-2.jpg

শুক্রবার ঈদের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হলেও এ পর্যন্ত পাঁচটি টিকিট বিক্রি করেছে দক্ষিণাঞ্চলে চলাচল করা শ্যামলী পরিবহন। এ পরিবহনটির কাউন্টারম্যান ইমরান জাগো নিউজকে বলেন, এখনো তেমনভাবে অগ্রিম টিকিট কেনা শুরু হয়নি। গতকাল (শুক্রবার) কয়েকটি টিকিট বিক্রি হয়েছে। তবে আজ শনিবার দুপুর ১২টা পর্যন্ত একটি টিকিটও বিক্রি হয়নি।

গাবতলী বাস টার্মিনাল ঘুরে দেখা যায়, বেশির ভাগ কাউন্টারে এখনো ঈদের অগ্রিম টিকিট বিক্রি শুরু হয়নি। যাত্রীর চাপ না থাকায় অনেক আরও দুই থেকে তিনদিন পর তারা ঈদের বিশেষ টিকিট বিক্রির সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এসব কাউন্টারে স্বাভাবিক সময়ের মতো কম সংখ্যক গাড়ি ছাড়ছে। দূরপাল্লা রোডে ছেড়ে যাওয়া অধিকাংশ গাড়িতে সিট খালি রেখে যাত্রা করছে বলে দাবি মালিকদের।


আরও খবর



যে কারণে বিশ্বের সবচেয়ে দ্রুত বর্ধনশীল অর্থনীতির দেশ হচ্ছে ভারত

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৭ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৩ জুলাই ২০২২ | ৪০জন দেখেছেন
Image

ভারতের অর্থনৈতিক রূপান্তরে একটি মহাকাব্যিক গুণ রয়েছে, যা ১৯ শতকের আমেরিকার কথাই মনে করিয়ে দেয়।দেশটিতে একটি বড় একক জাতীয় বাজার তৈরি করা হচ্ছে। এতে কোম্পানিগুলোর কার্যক্রম বেড়ে চলেছে। একটি সম্ভাবনাময় নতুন ভোক্তা শ্রেণি প্রসারিত হচ্ছে ও নতুন প্রযুক্তিতে সাম্রাজ্য গড়ে উঠছে। বিনিয়োগে আগ্রহী হয়ে উঠছে ধনীরা।

২০১৪ সালে ভারতের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ক্ষমতা গ্রহণ করেন। তখনই ভারত বিশ্বের ১০তম অর্থনীতির দেশে পরিণত হয়। পরবর্তী সাত বছরে দেশটির অর্থনীতি ৪০ শতাংশ বেড়েছে। ভারতের চেয়ে ভালো করেছে চীন। কারণ একই সময়ে চীনের অর্থনীতি সম্প্রসারিত হয়েছে ৫৩ শতাংশ। বড় দেশগুলোর মধ্যে আট শতাংশ প্রবৃদ্ধিই হবে সবচেয়ে বেশি। আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল জানিয়েছে, ২০২৭ সালের মধ্যে ভারত হবে বিশ্বের পঞ্চম অর্থনীতির দেশ। শেয়ারবাজারের হিসাবের দিক দিয়ে ভারতের অবস্থান যুক্তরাষ্ট্র, চীন ও জাপানের পরেই। স্টার্ট আপের দিক থেকে ভারতে অবস্থান তৃতীয়। এর পরেই রয়েছে ভরত ও চীনের অবস্থান।

যদিও এই পরিসংখ্যানের পিছনে রয়েছে উত্থান-পতন ও তিক্ত বিতর্ক। ২০১৬ সালে নরেন্দ্র মোদী সরকার উচ্চ মূল্যের ব্যাংক নোট বাতিলের সিদ্ধান্ত নেয়। পরের নয় মাসে প্রবৃদ্ধি কমে ১০ থেকে পাঁচ শতাংশ। এতে ২০১৮ সালে দেশটির অর্থনীতিতে নেতিবাচক প্রভাব পড়ে। ২০২০ সালের প্রথম দিকে লকডাউনের ফলে জিডিপি সাময়িকভাবে এক চতুর্থাংশ কমে যায়।

তবে মহামারির প্রকোপ এখন তুলনামূলকভাবে অনেক কমেছে। বেশ কয়েকটি বিষয় দেশটির অর্থনীতিকে এগিয়ে নিতে সহায়তা করবে। সেগুলো হলো- একটি একক জাতীয় বাজারের গঠন, নবায়নযোগ্য শক্তিরভিত্তিতে শিল্পের বিকাশ, চীন থেকে সরবরাহ অন্যদিকে চলে যাওয়া ও লাখ লাখ মানুষের জন্য একটি উচ্চ-প্রযুক্তিগত সুরক্ষা ব্যবস্থা।

ভারতের নতুন বৃদ্ধির প্যাটার্নের প্রথম ও সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ স্তম্ভ হলো একটি একক জাতীয় বাজারের উত্থান, যেখানে সংস্থাগুলো ও গ্রাহকরা আধুনিক আর্থিক ব্যবস্থা ব্যবহার করে। নগদ অর্থকে কেন্দ্র করে মূলত দেশটির ব্যবসা-বাণিজ্যের ব্যাপক প্রসার ঘটেছে। এ প্রক্রিয়ায় দেশটির দুই-তৃতীয়াংশ উৎপাদন হতো। কর্মসংস্থানে অবদান ছিল ৮৭ শতাংশ। কিন্তু মোদী ক্ষমতায় আসার এগেই এ সবখাতে অনেক সংস্কার হয়। তবে তিনি এসে এ সংস্কারকে ত্বরান্বিত করেছেন।

অর্থনীতিতে অবকাঠমো একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। ২০১৪ সালে পর দেশটির জাতীয় হাইওয়ে নেটওয়ার্ক ৫০ শতাংশ বেড়েছে, প্লেনে অভ্যন্তরীণ যাত্রীর সংখ্যা বেড়ে দ্বিগুণ হয়েছে। মোবাইল ফোনভিত্তিক স্টেশনের সংখ্যা তিনগুণ বেড়েছে। ওয়াল স্ট্রিট প্রাইভেট-ইকুইটি সংস্থাগুলো ভারতজুড়ে নেটওয়ার্ক তৈরি করতে প্রতিযোগিতা করছে।

দেশজুড়ে এরই মধ্যে একটি একক জাতীয় ডিজিটাল অবকাঠামো ব্যবস্থা গড়ে তোলা হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে ব্যাংক অ্যাকাউন্টের জন্য সব ভারতীয়র জন্য বায়োমেট্রিক ব্যবস্থা, ইউপিআই নামে জাতীয় পরিশোধ ব্যবস্থা, দূর করা হয়েছে ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রতিবন্ধকতা। ফলে দিন দিন বাণিজ্যিক কার্যক্রম প্রসারিত হচ্ছে। আধুনিক ব্যাকিং ব্যবস্থার ব্যবহারও বেড়েছে উল্লেখযোগ্য হারে। বর্তমান ব্যবস্থায় কর ফাঁকি দেশটিতে খুবই কঠিন।

এ বিষয়গুলো ভারতের অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ পরিবর্তন আনতে যাচ্ছে। উচ্চ উৎপাদনশীল সংস্থাগুলোর জন্য সহায়ক ভূমিকা পালন করছে। ডিজিটাল পরিষেবার অর্থ হলো বেশিরভাগ লোকের ব্যবহার আনুষ্ঠানিক অর্থনীতিতে দক্ষতার সঙ্গে ঘটেছে। আধুনিক ব্যাকিং ব্যবস্থার কারণে উৎপাদন বেড়েছে।

তবে ভারতের এ লক্ষ্যের ক্ষেত্রে অর্থনৈতিক স্থবিরতা মূল সমস্য। ভারত তার চলতি হিসাবের ঘাটতি মেটাতে মূলধনের প্রবাহের ওপর নির্ভরশীল। দেশটিতে জ্বালানি তেলের ব্যবহার বেড়েছে, যার প্রায় পুরোটাই আমদানি করা হয়। সুদের হার ও পণ্যের দাম বাড়লে অর্থনীতিতে অস্থিরতা তৈরি হয়। ভারতে এরই মধ্যে সুদের হার বাড়ার পাশাপাশি দেখা দিয়েছে উচ্চ মূল্যস্ফীতি।

তাছাড়া মোদী সরকারের নীতি নিয়েও অনেক ঝুঁকি তেরি হয়েছে। দেশটিতে ধর্মীয় সহিংসতা নিত্য দিনের ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছে। সাম্প্রতিক ঘটনাগুলো ভারতের জন্য খুবই হতাশাজনক। বিশ্বের বিভিন্ন দেশ বিশেষ করে আরব রাষ্ট্রগুলো ভারতের বিরুদ্ধে তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছে।


আরও খবর



খাদ্য মন্ত্রণালয়ে নতুন সচিবের যোগদান

প্রকাশিত:বুধবার ০৮ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৭ জুন ২০২২ | ৪৫জন দেখেছেন
Image

খাদ্য মন্ত্রণালয়ের নতুন সচিব হিসেবে যোগদান করেছেন মো. ইসমাইল হোসেন। বুধবার (৮ জুন) দুপুরে তিনি মন্ত্রণালয়ে পৌঁছালে খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার তাকে অভ্যর্থনা জানান। খাদ্য মন্ত্রণালয়ের বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

পরে মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে এক পরিচিতি সভায় খাদ্যমন্ত্রী নতুন সচিবকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, নতুন সচিব তার মেধা, প্রজ্ঞা, বুদ্ধি, বিবেচনাবোধ দিয়ে আন্তরিকতা ও দক্ষতার সাথে সরকারের ভিশন অর্জনে কাজ করবেন।

সদ্য বিদায়ী সচিব মোছাম্মাৎ নাজমানারা খানুম বলেন, খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে সবাইকে নিয়ে কাজ করেছি। করোনাকালে চ্যালেঞ্জ ছিলো খাদ্য নিয়ে, সেই চ্যালেঞ্জ সকলকে সাথে নিয়েই মোকাবিলা করেছি।

নতুন খাদ্য সচিব ইসমাইল হোসেন বলেন, আমি সততা নিষ্ঠা ও আন্তরিকতার সাথে অর্পিত দায়িত্ব পালন করবো। টিমওয়ার্কের মাধ্যমে মন্ত্রণালয়ের কাজে গতিশীলতা আনতে সচেষ্ট থাকবো।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পরামর্শক্রমে সরকারের অগ্রাধিকারভুক্ত কর্মসূচি বাস্তবায়নে সর্বোচ্চ প্রচেষ্টা গ্রহণের অঙ্গীকারের কথাও জানান তিনি।

এসময় খাদ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. সাখাওয়াত হোসেন, নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান মো. আব্দুল কাইউম সরকার ও অতিরিক্ত সচিব (প্রশাসন) মো. শেখ মজিবুর রহমানসহ মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর