Logo
শিরোনাম

মাটি খুঁড়তেই কলস ও মুড়ির টিনে মিললো ৩৩ লাখ টাকা

প্রকাশিত:রবিবার ০১ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ১৭০জন দেখেছেন
Image

ইলেকট্রনিক সামগ্রী সরবরাহের কথা বলে প্রায় কোটি টাকা নিয়ে উধাও ফারুক হোসেন (৩০) নামের এক প্রতারক যুবকের স্ত্রীকে গ্রেফতারের পর কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত। গ্রেফতার নারীর নাম নুরজাহান।

রোববার (১ মে) চট্টগ্রাম মহানগর হাকিম আদালতে ওই নারীকে হাজির করা হলে বিচারক তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

এর আগে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গতকাল শনিবার (৩০ এপ্রিল) পাবনার সদর থানাধীন রাধানগর যোগীপাড়া মাঠপাড়া এলাকার একটি বাড়িতে পুলিশ অভিযান চালিয়ে ওই নারীকে গ্রেফতার করে। এসময় বাসায় মাটির নিচে পুঁতে রাখা অবস্থায় দুটি কলসি ও একটি মুড়ির টিনের কৌটার ভেতর থেকে নগদ ৩২ লাখ ৮৯ হাজার টাকা উদ্ধার করে পুলিশ।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতার নুরজাহান জানিয়েছেন, এসব টাকা তার স্বামীর আত্মসাৎ করা।

কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহেদুল কবীর জাগো নিউজকে ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, চট্টগ্রামের বিভিন্ন দোকানে ইলেকট্রনিক সামগ্রী সরবরাহের কথা বলে প্রায় কোটি টাকা নিয়ে গা ঢাকা দেন ফারুক হোসেন। তিনি নগরীর জুবিলী রোড, আমতল, নন্দনকানন এলাকার বেশ কয়েকজন ব্যবসায়ীর কাছ থেকে ওয়ালটনের এলইডি এক্সেসরিজ (ওয়ালটন সেইফ ইমার্জেন্সি বাল্ব, এল ই ডি বাল্ব, টেপ, নেট ফ্যান, সিলিং ফ্যান, চার্জার ফ্যান, ডিবি বক্স, সারফেস প্যানেল লাইট) সরবরাহের কথা বলে বিপুল পরিমাণ টাকা আত্মসাৎ করে।

এরই একপর্যায়ে গত ২২ এপ্রিল তার বিরুদ্ধে কোতোয়ালি থানায় মামলা করেন ওয়ালটন হাইটেক ইন্ডাস্ট্রিজ পিএলসি প্রতিষ্ঠানের রিজিওনাল সেলস ম্যানেজার মোহাম্মদ নবী আলম।

এরপরই পুলিশ অভিযান চালিয়ে পাবনা থেকে ফারুকের স্ত্রী নুরজাহানকে গ্রেফতার করে। মামলায় তিনি আসামি না হলেও তার হেফাজতে টাকা পাওয়ায় তাকে গ্রেফতার করা হয়। মামলার একমাত্র আসামি পলাতক ফারুক পাবনা সদর থানাধীন নিয়ামতুল্লাহপুর গ্রামের নজরুল ইসলামের ছেলে বলে জানা গেছে।


আরও খবর



আফগানিস্তানে বোরকা ছাড়া নারীদের বাইরে বেরোনো নিষিদ্ধ

প্রকাশিত:শনিবার ০৭ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ | ৪১জন দেখেছেন
Image

আফগানিস্তানে বোরকা ছাড়া নারীদের বাইরে বেরোনো নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে শাসকগোষ্ঠী তালেবান। শনিবার (৭ মে) তালেবানের প্রধান হাইবাতুল্লাহ আখুনজাদা এক ডিক্রিতে এ নির্দেশ দিয়েছেন। খবর রয়টার্সের।

বিস্তারিত আসছে...


আরও খবর



মানবপাচার ও জিম্মি করে অর্থ আদায়, গ্রেফতার ৫

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ১৭জন দেখেছেন
Image

মানবপাচার ও জিম্মির মাধ্যমে অর্থ আদায় চক্রের পাঁচ হোতাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার (১৯ মে) তাদের একদিনের রিমান্ড দেন আদালত।

গ্রেফতাররা হলেন- মোশায়েদ হাসান (২৬), গোলাম আজম সৈকত (৪২), মেহেদী হাসান শান্ত (২৩), মোহসিন হোসেন (২৬) ও নাইফ উদ্দিন রুদ্র (২০)।

এর বুধবার (১৮ মে) রাজধানীর পল্টন থেকে এই পাঁচজনকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। পরে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করে তথ্য প্রমাণ পাওয়ায় পল্টন থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

পল্টন থানায় গ্রেফতার পাঁচজন এবং সৌদি আরবে অবস্থানরত এই চক্রের আরেক সদস্য মো. নাসির উদ্দিনসহ (৫০) মোট ছয়জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। পরে গ্রেফতারদের সাতদিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হয়। আদালত একদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, পলি আক্তার লিজার স্বামী কামরুল আহসান এবং সঙ্গে আরও পাঁচজনকে কাজের চুক্তিতে সৌদি আরবে পাঠায় ক্রিয়েটিভ ইন্টারন্যাশনাল নামের একটি প্রতিষ্ঠান। যাওয়ার সময় জোর করে তাদের ব্যাগে ৪-৫ কেজি জর্দা দিয়ে দেয় প্রতিষ্ঠানটির লোকজন। কিন্তু সৌদি আরবে যে কোম্পানির জন্য পাঠানো হয়, তারা তাদের রিসিভ করেনি। তবে চক্রের সদস্য মো. নাসির উদ্দিন রিসিভ করে একটি ক্যাম্পে নিয়ে যান।

এরপর দীর্ঘদিন সেই ক্যাম্পে তাদের আটকে রেখে নির্যাতন করা হয়। সেই সঙ্গে দাবি করা হয় মোটা অংকের টাকা। স্বামীকে নির্যাতন থেকে বাঁচাতে কিছু টাকাও দেন পলি আক্তার। পাশাপাশি ওই ক্রিয়েটিভ ইন্টারন্যাশনালের মালিক এবং কর্মকর্তাদের বিষয়টি সমাধানের জন্য জানান। কিন্তু তারা সমাধান না করে উল্টো টাকা না দিলে নির্যাতন চলবে বলে হুমকি দেন।

এরপর র‌্যাব-৩ এ অভিযোগ করেন মামলার বাদী পলি আক্তার। তার অভিযোগের প্রেক্ষিতে র‌্যাব অভিযান চালিয়ে অভিযুক্তদের আটক করে।

এছাড়া সৌদি আরব ক্যাম্পে আটক কামরুল আহসানসহ ১০ জনকে নির্যাতনের ভিডিও স্বজনদের কাছে পাঠিয়েছে চক্রটি। সে ভিডিও জাগো নিউজের হাতে এসেছে।

এ বিষয়ে পল্টন মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সালাহউদ্দীন মিয়া জাগো নিউজকে বলেন, গ্রেফতারদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।


আরও খবর



স্কুলের সামনে থেকে অপহরণ, আড়াই মাসেও মেলেনি সন্ধান

প্রকাশিত:রবিবার ১৫ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ৩০জন দেখেছেন
Image

২৭ ফেব্রুয়ারির ঘটনা। এদিন স্কুলের সামনে থেকে ‘অপহরণ হন’ রিয়া আক্তার (১৫)। বাসায় ফেরার পথে জোরপূর্বক মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে যাওয়া হয় তাকে। এরপর থেকে তার আর কোনো খোঁজ মিলছে না। পুলিশও এ বিষয়ে দিতে পারেনি কোনো তথ্য।

রোববার (১৫ মে) দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে এসব দাবি করেন রিয়ার বাবা শফিকুল ইসলাম। তিনি মেয়ে উদ্ধারে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

শফিকুল ইসলাম বলেন, আমার মেয়ে দক্ষিণখান গার্লস স্কুলের দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী। প্রতিদিনের মতো ২৭ ফেব্রুয়ারি সকালে মেয়ে স্কুলে যায়। কিন্তু স্কুল শেষে অনেক পরও বাসায় না ফেরায়, স্কুলের সামনে গিয়ে জানতে পারি, বেশ কয়েকজন দুর্বৃত্ত মেয়েকে স্কুলের সামনে থেকে জোরপূর্বক মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে গেছে।

তিনি বলেন, এ ঘটনায় ১ মার্চ দক্ষিণখান থানায় মামলা করি। এতদিনেও আমার মেয়ের কোনো সন্ধান পাইনি। থানা পুলিশও মেয়ে সম্পর্কে কোনো তথ্য দিতে বা উদ্ধার করতে পারেনি।

শফিকুল ইসলাম অভিযোগ করে বলেন, কাজী দুলালের ছেলে মো. সুজন মিয়া আমার মেয়েকে স্কুলে যাওয়া-আসার পথে উত্ত্যক্ত করে আসছিলেন। মেয়ে তার প্রেমে সাড়া না দিলে অপহরণ করবে বলেও হুমকি দেন। প্রত্যক্ষদর্শীদের কাছ থেকে জানতে পারি, সুজন মিয়া সন্ত্রাসীদের নিয়ে মেয়েকে স্কুলের সামনে থেকে অপহরণ করে একটি মাইক্রোবাসে তুলে নিয়ে যায়।

অভিযুক্ত সুজন মিয়ার মোবাইল নম্বর সংগ্রহ করে ফোন করলে তা বন্ধ পাওয়া যায় বলে জানান ওই ছাত্রীর বাবা। একই সঙ্গে ঘটনার পর থেকে সুজনও বাসায় ফেরেনি। তার তিন সন্তানসহ স্ত্রী রয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে মেয়েকে উদ্ধারের ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করেন ভুক্তভোগী পরিবার। এছাড়া অপহরণের সঙ্গে জড়িতদের শাস্তি দাবি করেন।

মামলার বিষয়ে জানতে চাইলে দক্ষিণখান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মামুনুর রহমান জাগো নিউজকে বলেন, মামলা হয়েছে। নাম দিয়েছে আসামিদের। আমরা এখনো তাকে শনাক্ত করতে পারিনি। চেষ্টা চলছে।

কতজন আসামির নামে মামলায় দেওয়া হয়েছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আড়াই মাস আগের মামলা আমার জানা নেই। অফিসে গিয়ে খোঁজ নিয়ে জানতে হবে। মাঠে ও ডিজিটালি সবভাবেই চেষ্টা করছি। আশা করি খুব দ্রুতই আসামিদের খোঁজ পাবো।


আরও খবর



দিনের তাপমাত্রা বাড়তে পারে

প্রকাশিত:সোমবার ১৬ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ২৩জন দেখেছেন
Image

বৃষ্টি কমে যাওয়ায় এরই মধ্যে তাপমাত্রা বেড়ে গিয়ে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে ভ্যাপসা গরম পড়তে শুরু করেছে। আগামী কয়েকদিন এ পরিস্থিতি অব্যাহত থাকতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

সোমবার (১৬ মে) বৃষ্টি আরও কমে গিয়ে দিনের তাপমাত্রা কিছুটা বাড়তে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া বিভাগ।

গতকাল রোববার উত্তরাঞ্চল ছাড়া দেশের অন্যান্য স্থানে হালকা বৃষ্টি হয়েছে। এ দিন সকাল ৬টা থেকে আজ সোমবার সকাল ৬টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘন্টায় সবচেয়ে বেশি ৯২ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায়। এ সময় রাজশাহী, বরিশাল, ময়মনসিংহ ও ঢাকা বিভাগে কোনো বৃষ্টি হয়নি।

রোববার রাজশাহী, ঈশ্বরদী, খুলনা ও মাদারীপুরে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ৩৫ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এ সময় ঢাকায় সর্বোচ্চ ৩৪ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়।

সোমবার সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘন্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাস তুলে ধরে আবহাওয়াবিদ মো. শাহিনুর ইসলাম বলেন, রংপুর, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের অনেক জায়গায়, চট্টগ্রাম বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং রাজশাহী ও ঢাকা বিভাগের দু-এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা বা ঝোড়ো হাওয়ার সঙ্গে বিজলী চমকানোসহ বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে।

এই আবহাওয়াবিদ জানান, দেশের উত্তরাঞ্চলের কোথাও কোথাও মাঝারি থেকে ভারি বৃষ্টিপাত হতে পারে। এছাড়া দেশের অন্যান্য জায়গায় আংশিক মেঘলা আকাশসহ আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে। এ সময়ে সারাদেশে দিনের তাপমাত্রা সামান্য বাড়তে পারে ও রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে।

সোমবার সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত দেশের অভ্যন্তরীণ নদীবন্দরগুলোর জন্য আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, রংপুর, দিনাজপুর, টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহ ও সিলেট অঞ্চলের ওপর দিয়ে পশ্চিম বা উত্তর-পশ্চিম দিক থেকে ঘন্টায় ৪৫ থেকে ৬০ কিলোমিটার বেগে অস্থায়ীভাবে দমকা বা ঝোড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। এসব এলাকার নদীবন্দরগুলোকে এক নম্বর সতর্কতা সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।


আরও খবর



পাহাড়ি ঢলে ডুবলো উঁচু এলাকার ধান, ভেসে গেলো ১৫ বাড়ি

প্রকাশিত:শনিবার ১৪ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ৩০জন দেখেছেন
Image

ঢলের পানিতে সুনামগঞ্জের করচার হাওরের উঁচু এলাকার পাকা ধান ডুবে গেছে। বানের তোড়ে ভেসে গেছে ১৫টি বসতবাড়ি। শুক্রবার (১৩ মে) বিকেলে গজারিয়া রাবারড্যামের পাশের সড়কের দুটি অংশ ভেঙে এ বিপর্যয় দেখা দেয়।

শনিবার (১৪ মে) বেলা ১১টায় বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) সাদি-উর-রহিম জাদিদ বসতভিটা হারানো পরিবারসহ ক্ষতিগ্রস্ত ৫০ পরিবারকে সরকারের পক্ষ থেকে খাদ্য সহায়তা দিয়েছেন।

jagonews24

সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, সুনামগঞ্জ সদর ও বিশ্বম্ভরপুর উপজেলার পাঁচ ইউনিয়নের কৃষকের প্রায় আট হাজার হেক্টর জমি রয়েছে করচার হাওরে। হাওরের প্রায় সাত হাজার হেক্টর জমির ধান কাটা শেষ হয়েছে সপ্তাহখানেক আগেই। কিন্তু উঁচু এলাকার জমির ধান এখনো রয়েই গেছে।

এসব জমিতে বিআর ২৯ জাতের ধানের আবাদ বেশি হয়েছে। ফলনও ভালো ছিল। কিন্তু বৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলে সুরমা এবং চলতি নদীর পানি বাড়ায় গজারিয়া রাবারড্যামের পাশের সড়কের দুটি অংশ ভেঙে পানিতে ভাদেরটেক গ্রামের আব্দুস ছাত্তার, আবুল হোসেন, ফয়জুর রহমান, আলম মিয়া, দয়াল মিয়া, তৈয়বুর মিয়া, মোহন মিয়া, শওকত আলী. মতি মিয়া, মঞ্জুর আলী, নুরুল ইসলাম, জয়নাল আবেদীন, মুজারা খাতুন, জরিনা খাতুন ও হিবজুর রহমানের বসতভিটা ভেসে গেছে।

jagonews24

বসতভিটা হারানো আব্দুস ছাত্তার জাগো নিউজকে বলেন, অনেক কষ্ট করে ঘর তৈরি করেছিলাম। কিন্তু পাহাড়ি ঢলে আমার ঘর ভাসিয়ে নিয়ে গেছে।

বসতভিটা হারানো মোহন মিয়া জাগো নিউজকে বলেন, চোখের পলকে সব কিছু হারিয়ে ফেললাম। এখন ছেলে মেয়ে নিয়ে সেতুর ওপর অবস্থান করছি।

jagonews24

ফসল হারানো কৃষক সুবাহান মিয়া জাগো নিউজকে বলেন, দ্রুত বেগে পানি ঢুকে করচার হাওরের উঁচু এলাকার ফসলি জমির বেশিরভাগই ডুবে গেছে। হাওরপাড়ের সলুকাবাদ, পলাশ ও গৌররং ইউনিয়নের ২৬ গ্রামের কৃষকের পাকা ধান ডুবেছে।

ফসল হারানো কৃষক লেবু মিয়া জাগো নিউজকে বলেন, করচার হাওরের উঁচু এলাকার কৃষকরা ধান কাটতে শ্রমিক সংগ্রহে সহযোগিতা পেলেই নিমজ্জিত অনেক পাকা ধান কেটে আনা সম্ভব।

jagonews24

ইউএনও সাদি-উর-রহিম জাদিদ জাগো নিউজকে বলেন, গজারিয়া রাবারড্যামের পাশের সড়কের দুটি অংশ পানির চাপ সামলাতে না পেরে ভেঙেছে। কিছু পরিবারের বসতভিটা ভেসে গেছে। সরকারের পক্ষ থেকে আমরা তাদের সহযোগিতা করেছি। পাকা ধান কেটে আনতেও কৃষি অফিস সহযোগিতা করছে।


আরও খবর