Logo
শিরোনাম

নেতাকর্মীদের ওপর হামলার প্রতিবাদে বিএনপির বিক্ষোভ

প্রকাশিত:শনিবার ১৪ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ৩৮জন দেখেছেন
Image

রাজধানীসহ সারাদেশে নেতাকর্মীদের ওপর হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ করছে বিএনপি। ঢাকা জেলা বিএনপির উদ্যোগে এই বিক্ষোভ কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হচ্ছে।

শনিবার (১৪ মে) সকাল ১০টায় জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে আনুষ্ঠানিকভাবে এই বিক্ষোভ কর্মসূচি শুরু হয়।

সকাল ১০টায় বিক্ষোভ কর্মসূচি শুরু হওয়ার কথা থাকলেও ৯টা থেকেই দলটির নেতাকর্মীরা খণ্ড খণ্ড মিছিল নিয়ে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে জড়ো হতে থাকেন। ঢাকা জেলার বিভিন্ন থানা ও ওয়ার্ড বিএনপি এবং দলটির অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা এতে অংশ নেন।

বিক্ষোভ সমাবেশে সভাপতিত্ব করছেন ঢাকা জেলা বিএনপির সভাপতি ডা. দেওয়ান মো. সালাউদ্দিন। ঢাকা জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক খন্দকার আবু আশফাকের সঞ্চালনায় বিক্ষোভ সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন দলটির ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন।

এর আগে গত ১২ মে ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ বিএনপির উদ্যোগে বিক্ষোভ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

গত মঙ্গলবার (১০ মে) নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক যৌথ সভা শেষে সংবাদ সম্মেলনে দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন। একই প্রতিবাদে সারাদেশে বিক্ষোভ সমাবেশ করবে বিএনপি।


আরও খবর



‘অপরাধ সংঘটনে অবৈধ জ্যামার ও বুস্টার বিক্রি করতেন তারা’

প্রকাশিত:রবিবার ১৫ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ | ৪৮জন দেখেছেন
Image

রাজধানীর মোহাম্মদপুর থেকে বিপুল পরিমাণ অবৈধ জ্যামার, রিপিটার ও নেটওয়ার্ক বুস্টারসহ গ্রেফতার দুজন অপরাধ সংঘটনে এসব বিক্রি করতেন বলে জানিয়েছে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)।

রোববার (১৫ মে) রাজধানীর কারওয়ান বাজারে র‍্যাবের মিডিয়া সেন্টারে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে র‍্যাব-৩ এর অধিনায়ক লে. কর্নেল আরিফ মহিউদ্দিন আহমেদ এ তথ্য জানিয়েছেন।

এর আগে, গোয়েন্দা সংবাদের ভিত্তিতে মোহাম্মদপুর থেকে মো. আবু নোমান ও সোহেল রানা নামের দুজনকে গ্রেফতার করে র‍্যাব।

এ বিষয়ে লে. কর্নেল আরিফ মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন, রোববার দিনগত রাত ১২টা ৪৫ মিনিটে র‍্যাব-৩ এর একটি দল ও বিটিআরসির প্রতিনিধি মিলে মোহাম্মদপুরে অভিযান চালিয়ে অবৈধ জ্যামার ও নেটওয়ার্ক বুস্টার বিক্রয়কারী চক্রের দুজনকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হই। তারা দীর্ঘদিন ধরে মোহাম্মদপুর এলাকায় বিনা অনুমতিতে এগুলো বিক্রয় করে আসছিল।

তিনি আরও বলেন, এ সময় তাদের কাছ থেকে চারটি মোবাইল নেটওয়ার্ক জ্যামার, ২৪টি জ্যামার অ্যান্টেনা, চারটি এসি অ্যাডাপ্টার, তিনটি পাওয়ার ক্যাবল, তিনটি মোবাইল নেটওয়ার্ক বুস্টার, নয়টি বুস্টারের আউটডোর অ্যান্টেনা, ২৬টি বুস্টারের ইনডোর অ্যান্টেনা, ৩৭টি বুস্টার ক্যাবল ও একটি ল্যাপটপ উদ্ধার করা হয়।

‘গ্রেফতার নোমানের আইটি স্টল.কম.বিডি নামে ই-কমার্স ওয়েবসাইট ও ফেসবুক পেইজ রয়েছে। এছাড়া নোমানের সহযোগী সোহেল রানার সোআইএম বিডি নামে ই-কমার্স ওয়েবসাইট ও ফেসবুক পেইজ রয়েছে।’

‘অপরাধ সংঘটনে অবৈধ জ্যামার ও বুস্টার বিক্রি করতেন তারা’

‘এসব ই-কমার্স ওয়েবসাইট ও ফেসবুক পেইজের মাধ্যমে তারা আইপি ক্যামেরা, ডিজিটাল ক্যামেরা ও ইলেকট্রনিক যন্ত্রাংশের পাশাপাশি উচ্চমূল্যে বিভিন্ন ব্যক্তির নিকট জ্যামার ও নেটওয়ার্ক বুস্টারসহ এর যন্ত্রাংশ লাইসেন্স ব্যতীত অবৈধভাবে বিক্রি করতো।’

এসব যন্ত্রাংশের কার্যকারিতা নিয়ে কর্নেল আরিফ বলেন, জ্যামার ও নেটওয়ার্ক বুস্টার টুজি, থ্রিজি ও ফোরজি মোবাইল নেটওয়ার্কের কার্যক্ষমতাকে প্রভাবিত করতে সক্ষম। এগুলোর ক্রেতা ছিল বিভিন্ন বহুতল ভবনের বাসিন্দা ও মসজিদ কর্তৃপক্ষ। এছাড়াও বিভিন্ন অপরাধীরা অপরাধ করার উদ্দেশ্যে উচ্চমূল্যে এসব অবৈধ ডিভাইস ক্রয় করে থাকে।

অধিক মুনাফা লাভের আশায় অপরাধীরা এগুলো কেনা-বেচা করে জানিয়ে তিনি বলেন, বৈধ আমদানিকারকের মাধ্যমে অধিক পরিবহন মূল্য পরিশোধ করে বৈধ মালামালের আড়ালে তারা এসব যন্ত্র নিয়ে আসে।

‘জিজ্ঞাসাবাদে আমরা তাদের উদ্দেশ্য জানতে চেয়েছিলাম। তবে এখনো আমরা সব প্রশ্নের সদুত্তর পাইনি। আমরা ধারণা করছি, আমাদের দেশের স্থিতিশীল পরিবেশ নষ্ট করার জন্য এসবের ব্যবহার হতে পারে।’

‘অপরাধ সংঘটনে অবৈধ জ্যামার ও বুস্টার বিক্রি করতেন তারা’

যারা ডিভাইস গুলো কিনেছে তাদের বিষয়ে জানতে পেরেছেন কিনা এমন প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, যারা ২০০টি ডিভাইস কিনেছে তাদের সম্পূর্ণ লিস্ট না পেলেও আমরা অনেকের নাম পেয়েছি। অনেক দোকান ও গুরুত্বপূর্ণ মানুষের তালিকা পেয়েছি। এ নিয়ে আমাদের আরও সাড়াশি অভিযান চলবে।

তিনি জানান, ফ্রিকুয়েন্সি জ্যামারগুলো তারা ২০ হাজার টাকায় কিনে ২৮ থেকে ৩০ হাজার টাকায় বিক্রি করতো। এছাড়াও ৯ হাজার টাকা দামের ডিভাইসও তাদের কাছে পাওয়া গেছে।

গ্রেফতার সোহেল রানার বিরুদ্ধে চট্টগ্রাম ও খুলনা জেলায় দুটি চেক জালিয়াতির মামলা রয়েছে বলেও জানালেন র‍্যাবের এই কর্মকর্তা।


আরও খবর



হঠাৎ বেড়েছে ডিমের দাম

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১২ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১৮ মে ২০২২ | ২৭জন দেখেছেন
Image

অশনির প্রভাবে কয়েকদিন বৃষ্টি। তাতেই বাজারে বেড়ে গেছে ডিমের দাম। এখন খুচরা পর্যায়ে ফার্মের মুরগির ডিমের ডজন ১২০ টাকা। যা দুদিন আগেও ১১০ টাকা ছিল।

পাইকারি ডিম ব্যবসায়ীরা বলছেন, বৃষ্টির কারণে ডিমের সরবরাহ কম। এ কারণে দাম বেড়েছে। বৃষ্টি হলে বাজারে ডিমের চাহিদাও বাড়ে বলে জানান তারা।

এদিকে নিত্যদিনের খাদ্যতালিকার অন্যতম অনুষঙ্গ ডিমের দাম বাড়ায় অসন্তোষ জানিয়েছেন ক্রেতারা। রামপুরা বাজারে ফরিদা ইয়াসমিন নামের এক ক্রেতা বলেন, ‘কম দামে এটিই খাওয়া যায়। তাও আবার বেড়ে গেল।’

এদিকে মুরগির ডিমের দাম বাড়ায় অস্বাভাবিক বেড়ে গেছে হাঁসের ডিমের দামও। বাজারে হাঁসের একেকটি ডিম বিক্রি হচ্ছে সাড়ে ১৫ থেকে ১৬ টাকায়। প্রতি হালি ৬৫ টাকা আর ডজন বিক্রি হচ্ছে ১৮০ টাকায়।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, দেশে প্রতিদিন মুরগি, হাঁস, কবুতর ও কোয়েলের প্রায় পৌনে পাঁচ কোটি ডিম উৎপাদন হয়। পৃথক হিসাবে, কেবল মুরগির ডিম উৎপাদন হয় সাড়ে তিন থেকে চার কোটি। হাঁসের ডিমের সুনির্দিষ্ট তথ্য নেই। তবে করোনার পর থেকে এ উৎপাদন অনেক কমেছে বলে দারি খামারিদের। তারা বলছেন, করোনার সময় লোকসানে প্রচুর খামার বন্ধ হয়ে গেছে।

মালিবাগ কাঁচাবাজারের বিক্রেতা বাবুল মিয়া বলেন, দুদিনে দাম বেড়ে গেল ডিমের। পাওয়া যাচ্ছে না। আমরা কী করবো? পাইকারি বিক্রেতার একদাম-এককথা। নিলে নেন, না নিলে নাই।

সেগুনবাগিচা বাজারে দীর্ঘদিন ডিম বিক্রি করেন সালাম মিয়া। তিনি বলেন, সাধারণত শীতকালে ডিমের চাহিদা বাড়ায় দাম বাড়ে। এ কারণেই কিন্তু এখন দাম বাড়াটা স্বাভাবিক নয়। এ সময় সাধারণত পর্যাপ্ত ডিম থাকে।

অন্যদিকে করোনাকালে বিধিনিষেধের ফলে একদিকে নিম্নবিত্ত, মধ্যবিত্ত, দিনমজুর ও গরিব মানুষের বড় একটি অংশের আয় কমেছে। চাল, ভোজ্যতেল, গ্যাস-পানিসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসের দাম লাগামহীন। এর মধ্যে ডিমের মূল্যবৃদ্ধি প্রভাব ফেলছে দরিদ্র মানুষের জীবনে।

এদিকে তেজগাঁও ডিমের আড়তের কয়েকজন ব্যবসায়ী বলেন, বৃষ্টি হলে ডিমের চাহিদা বাড়ে। মানুষ বাজারে কম যায়। ডিম খায় বেশি। এখন চাহিদার তুলনায় উৎপাদন কম। সে কারণে দাম বেশি।

এখন ডিমের দাম কেন বেড়েছে, এমন প্রশ্নের জবাবে বাংলাদেশ এগ প্রডিউসার অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি তাহের আহমেদ সিদ্দিকী বলেন, দেশের খামারিরা চাহিদা অনুযায়ী ডিম উৎপাদনে সক্ষমতা অর্জন করেছে। কিন্তু এ খাতটি নানা সংকটে ভুগছে। বর্তমানে করোনা এ খাতকে একেবারে ধ্বংস করে দিচ্ছে। অনেক খামার বন্ধ। সে কারণে চাহিদা অনুয়ায়ী উৎপাদন হচ্ছে না।

ডিমের দাম বাড়ার বিষয়টি দেখা গেছে ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) দৈনন্দিন বাজরের চিত্রেও। সংস্থাটির তথ্য বলছে, এক মাসের ব্যবধানে প্রায় ১২ শতাংশ দাম বেড়েছে ডিমের। বর্তমানে সর্বনিম্ন ১০৫ থেকে সর্বোচ্চ ১২৬ টাকায় বিক্রি হচ্ছে ডিমের ডজন।


আরও খবর



ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় শিশুকে মেয়াদোত্তীর্ণ ইনজেকশন পুশের অভিযোগ

প্রকাশিত:সোমবার ০৯ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১৮ মে ২০২২ | ৪৫জন দেখেছেন
Image

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে শিশুকে মেয়াদোত্তীর্ণ ইনজেকশন পুশের অভিযোগ তুলে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে লাইভ করেছেন এক বাবা। তবে বিষয়টি অস্বীকার করেছে উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ।

২১ মিনিটের ওই লাইভ ভিডিওতে দেখা যায়, এক ব্যক্তি সিপ্রোফ্লক্সাসিন জাতীয় একটি ইনজেকশনের ভায়াল হাতে নিয়ে সেটির গায়ে লেখা উৎপাদন ও মেয়াদোত্তীর্ণের তারিখ দেখান। যাতে মেয়াদোত্তীর্ণের তারিখ লেখা ডিসেম্বর, ২০২১। এই বিষয়ে উপস্থিত নার্সদের জিজ্ঞাসা করলেও তারা কোনো উত্তর দেননি। কর্তব্যরত নার্সের কক্ষে গিয়েও কয়েকটি মেয়াদোত্তীর্ণ ইনজেকশনের ভায়াল দেখা যায়। ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে সমালোচনার ঝড় ওঠে। বিষয়টির প্রতিবাদ জানিয়ে অনেকে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিচ্ছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেলো, ফেসবুকে লাইভ করা ব্যক্তির নাম শাহিনুর ইসলাম। তার বাড়ি উপজেলার আকবপুরে। তিনি জাগো নিউজকে বলেন, আমার এক বছরের শিশু সন্তান আরিয়ান ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়। তাই গত ৫ মে নবীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে তাকে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাই। সেখানে গিয়ে সিট পাওয়া যায়নি। বারান্দায় থাকা শিশুটিকে নার্স ভেতর থেকে এনে একটি ইনজেকশন পুশ করে। ভায়াল থেকে প্রায় ৮০ শতাংশ ইনজেকশন আমার শিশুর শরীরে প্রয়োগ করা হয়। সামান্য ইনজেকশন ভায়ালে থাকায় তা আমি হাতে নিই। ভায়ালটি হাতে নিয়ে দেখলাম, তার মেয়াদ গত ডিসেম্বর মাসে শেষ হয়ে গেছে। নার্স ও অন্যান্যদের এই বিষয়ে জিজ্ঞাস করলে কেউ কোনো প্রতিক্রিয়া দেখাননি। বাধ্য হয়ে আমি ফেসবুক লাইভে বিষয়টি তুলে ধরেছি।

তিনি আরও বলেন, এই লাইভ করায় উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা উল্টো আমাকে মামলায় ফাঁসানোর হুমকি দিয়েছেন। তাহলে অভিযোগ কার কাছে দেবো?

এ বিষয়ে নবীনগর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. হাবিবুর রহমান জাগো নিউজকে বলেন, আমরা কোনো মেয়াদোত্তীর্ণ ইনজেকশন ব্যবহার করিনি। তিনি উল্টো প্রশ্ন রেখে বলেন, মেয়াদোত্তীর্ণ ইনজেকশন পুশ করা হয়েছে তার কি কোনো ভিডিও আছে? কেউ তো লিখিত অভিযোগ দেননি।

সোমবার (৯ মে) রাত ৮টার দিকে নবীনগর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) একরামুল সিদ্দিক জাগো নিউজকে বলেন, এরইমধ্যে বিষয়টি আমি জেনেছি। আমি উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার সঙ্গে কথা বলেছি। পাশাপাশি ঘটনাটি জেলা প্রশাসককে অবগত করেছি। অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে আমার পক্ষ থেকে বিষয়টি দেখা হবে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ভারপ্রাপ্ত সিভিল সার্জন ডা. মাহমুদুল হাসান জাগো নিউজকে বলেন, ভিডিওটি আমার নজরে আসেনি। এই সংক্রান্ত বিষয়ে কেউ আমাকে জানায়নি বা লিখিত অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


আরও খবর



ছোট যে তিন সুরা নিরাপত্তার জন্য যথেষ্ট

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৭ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ২৯জন দেখেছেন
Image

হজরত আবদুল্লাহ ইবনে খুবাইব রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেছেন, আমরা এক বৃষ্টির রাতে প্রচন্ড অন্ধকারে নবিজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের খোঁজে বের হলাম। যেন তিনি আমাদের নিয়ে নামাজ আদায় করেন। আমরা তাকে খুঁজে পেলাম। তিনি বললেন, ’বলো।’ আমি কিছু বললাম না। তিনি আবার বললেন, ’বলো।’ আমি কিছু বললাম না। তিনি আবারও বললেন, ’বলো।’ আমি বললাম, কী বলব?

তিনি বললেন, তুমি সন্ধ্যায় ও সকালে তিনবার করে পড়বে- قُلْ هُوَ اللَّهُ أحَدٌ (সুরা ইখলাস) এবং মুয়াওয়িযাতাইন (সুরা ফালাক ও সুরা নাস)। তাহলে এটি সব (ক্ষতিকর) বস্তু থেকে তোমার জন্য যথেষ্ট হবে।’ (তিরমিজি, আবু দাউদ)

ছোট ছোট তিনটি সুরা। নবিজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সকাল-সন্ধ্যায় আমল করতেন। তাঁর সঙ্গীদের আমল করার তাগিদ দিতেন। যেন দুনিয়ার যাবতীয় ক্ষতিকর সব জিনিস থেকে হেফাজত থাকেন। এটি একটি সুন্নাত আমল। যা মানুষকে সব ক্ষতি থেকে হেফাজত করবে। হাদিসের একাধিক বর্ণনা থেকে আরও প্রমাণিত যে-

১. হজরত উকবা ইবনে আমের রাদিয়াল্লাহু আনহু বলেন, ‘আমাকে নবিজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম প্রত্যেক (ফরজ) নামাজের পর তিন কুল (এই তিন সুরা) পড়ার নির্দেশ দিয়েছেন।’ (আবু দাউদ)

২. হজরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা বর্ণনা করেছেন, নবিজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম প্রতিরাতে যখন বিছানায় যেতেন; তখন (মোনাজাতের সময় হাত তোলার মতো করে) দুই হাত মেলাতেন । এরপর হাতের উপর- قُلْ هُوَ الله أحد (সুরা ইখলাস), قل أعوذ برب الفلق (সুরা ফালাক) ও قل أعُوذُ بِرَبّ الناس (সুরা নাস) পাঠ করতেন। এরপর হাতে ফুঁ দিতেন। এরপর দুই হাত দিয়ে শরীরের যতটুকু অংশে সম্ভব হাত বুলিয়ে নিতেন। মাথা, চেহারা এবং শরীরের উপরের ভাগ থেকে শুরু করতেন। এভাবে (পুর্ণ কাজটি) তিনি তিনবার করতেন।’ (মুসনাদে আহমাদ, বুখারি)

৩. হজরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা আরও বর্ণনা করেছেন, নবিজী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম যখন অসুস্থ হতেন, তখন তিন কুল পড়ে (হাতে) ফুঁ দিতেন এবং (নিজের শরীরে) হাত বুলাতেন। যখন তিনি অন্তিম শয্যায় শায়িত ছিলেন, তখন আমি তিন কুল পড়ে ফুঁ দিতাম এবং তার হাতে হাত বুলাতাম।’ (বুখারি)

মুমিন মুসলমানের উচিত, সুন্নাতের অনুসরণে সকাল-সন্ধ্যায় তিন কুল পড়ে আমল করা। যাবতীয় ক্ষতি ও অনিষ্টতা থেকে হেফাজত থাকা।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে তিন কুলের যথাযথ আমল করার তাওফিক দান করুন। হাদিসের উপর আমল করার তাওফিক দান করুন। আমিন।


আরও খবর



আমিরাতের লিগেও দল কিনলো শাহরুখের নাইট রাইডার্স

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৩ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১৮ মে ২০২২ | ৩৩জন দেখেছেন
Image

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (আইপিএল) ও ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (সিপিএল) ক্রিকেটের পর এবার আরব আমিরাতের টি-টোয়েন্টি লিগেও দল কিনলো বলিউড সুপারস্টার শাহরুখ খানের নাইট রাইডার্স গ্রুপ। আমিরাতের লিগে আবুধাবি ফ্র্যাঞ্চাইজি পরিচালনা করবেন তারা।

আইপিএল, সিপিএল ছাড়াও যুক্তরাষ্ট্রের টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট মেজর লিগ ক্রিকেটেও (এমএলসি) দল কেনা আছে শাহরুখের নাইট রাইডার্সের। তাই সবমিলিয়ে নাইট রাইডার্স গ্রুপের মালিকানাধীন চতুর্থ দল এটি। যুক্তরাষ্ট্রে একটি স্টেডিয়াম বানানোর পরিকল্পনাও রয়েছে তাদের।

আমিরাতের লিগে দল কেনার বিবৃতিতে শাহরুখ বলেছেন, 'গত কয়েক বছর ধরেই আমি নাইট রাইডার্স ব্র্যান্ডকে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে দিচ্ছি। আমিরাতের টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটের সম্ভাবনা কাছ থেকে পর্যবেক্ষণ করেছি আমরা। এই লিগের অংশ হতে পেরে আমরা রোমাঞ্চিত। এটি সফল হবে নিশ্চিত।'

নাইট রাইডার্সের আগেই আমিরাতের লিগের অন্য পাঁচ দলের মালিকানা নিশ্চিত হয়েছে। ভারতের আদানি গ্রুপ, ক্যাপ্রি গ্লোবাল, রিলায়েন্স স্ট্র্যাটেজিক বিজনেস ভেঞ্চার লিমিটেড ও জিএমআর গ্রুপ এবং ইংল্যান্ডের ল্যান্সার ক্যাপিট্যাল কিনেছে বাকি পাঁচ দলের মালিকানা।

প্রতি বছর ফেব্রুয়ারি-মার্চের মধ্যে মধ্যে ৩৪ ম্যাচেই এই লিগ। তবে চলতি বছর জুনে এর প্রথম আসর আয়োজন করতে চায় আয়োজকরা। আগামী ২৯ মে আইপিএল শেষ হওয়ার পরপরই আমিরাতে বসতে পারে টি-টোয়েন্টির নতুন লিগের মেলা।


আরও খবর