Logo
শিরোনাম

নিউইয়র্কে ছিনতাইকারীর ধাক্কায় ট্রেনের নিচে বাংলাদেশি শিক্ষার্থী

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৩ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ৪৭জন দেখেছেন
Image

নিউইয়র্কের ব্রুকলিনে বাংলাদেশি হান্টার কলেজের শিক্ষার্থী জিনাত হোসেনকে (২৪) সাবওয়ে ট্রেন লাইনে ধাক্কা মেরে ফেলে দেয় ছিনতাইকারীরা। ট্রেনের চাকায় কাটা পড়ে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। স্থানীয় সময় বুধবার (১১ মে) রাত ৯টায় এ ঘটনা ঘটে।

নিহত কলেজছাত্রী নিউইয়র্কে ব্রহত্তর কুমিল্লা সমিতির সভাপতি ডা. এনামুল হকের শালিকার মেয়ে বলে জানা গেছে। জিনাত বাবা-মাসহ নিউইয়র্কের ব্রুকলিনে বসবাস করতেন। তার বাড়ি কুমিল্লার দাউদকান্দির জগতপুর গ্রামে। বাবার নাম আমির হোসেন।

জিনাতের খালু ডা. এনামুল হক জানান, জিনাত হোসেন ২০১৫ সালে বাবা-মার সঙ্গে নিউইয়র্কে আসে। ম্যানহাটনের হান্টার কলেজের ক্লাস শেষ করে বাসায় ফেরার পথে দুর্ঘটনা ঘটে। পুলিশ আমাদের জানিয়েছে ব্রুকলিনের ইউটিকা স্টেশন থেকে জিনাতের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এখনো ঘটনার বিস্তারিত কিছুই জানাতে পারেননি তারা।

ব্রুকলিনে নিউইয়র্ক পুলিশ বাংলাদেশি কমিউনিটিকে জানিয়েছে, ট্রেন স্টেশনে ছিনতাইকারীরা জিনাতের ব্যাগ ছিনিয়ে নেওয়ার সময় ছিটকে পড়ে ট্রেনে লাইনে কাটা পড়ে মৃত্যু হয়। ঘটনার তদন্ত চলছে। তদন্ত শেষে পরিবারের কাছে মরদেহ হস্তান্তর করা হবে।

একমাত্র মেয়েকে হারিয়ে শোকে মুহ্যমান জিনাতের বাবা-মা। শোকে স্তব্ধ হওয় উঠেছে নিউইয়র্কে বাংলাদেশি কমিউনিটি।


আরও খবর



সবাইকে সাশ্রয়ী হতে বললেন বাণিজ্যমন্ত্রী

প্রকাশিত:সোমবার ১৬ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১৮ মে ২০২২ | ২৭জন দেখেছেন
Image

রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ দীর্ঘ হলে সামনে সমস্যা আসতে পারে এমন আশঙ্কা প্রকাশ করে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেছেন, সবাইকে যার যার জায়গা থেকে সাশ্রয়ী ও সতর্ক হতে হবে।

সোমবার (১৬ মে) সচিবালয়ের গণমাধ্যম কেন্দ্রে বাংলাদেশ সেক্রেটারিয়েট রিপোর্টার্স ফোরাম (বিএসআরএফ) আয়োজিত এক সংলাপে এ কথা বলেন তিনি।

বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ আমাদের খাদ্যপণ্যের ওপর অনেকটা প্রভাব ফেলেছে। সেজন্য সবাইকে সাশ্রয়ী হতে হবে। সামনের দিকে কিছুটা সংকট রয়েছে। ভয় পাওয়ার কিছু নেই। শ্রীলঙ্কার অবস্থা দেখে অনেক রাজনীতিবিদ প্রচার করছে (আমাদেরও) সে অবস্থা হতে পারে। শ্রীলঙ্কার মতো অবস্থা বাংলাদেশের কখনো হবে না। আমরা নিজেরাই শ্রীলঙ্কাকে ঋণ দিয়েছি।’

মন্ত্রীর এই বক্তব্যের প্রেক্ষিতে সাংবাদিকদের পক্ষ থেকে প্রশ্ন করা হয়- আপনি সাশ্রয়ী হতে বলছেন। তাহলে আপনি কি ভোগ্য পণ্যের দাম বেড়ে যাওয়ায় আশঙ্কা করছেন? বিষয়টি কি আপনি ভোক্তাদের ভোগ কমানোর জন্য বলছেন, নাকি ব্যবসায়ীদের জন্য বলেছেন?

এর উত্তরে টিপু মুনশি বলেন, ‘দেখেন বিষয়টি সামগ্রিক। আমি কনজামশন ভোক্তাদের জন্য... তেলের দাম যদি বেড়ে যায়, গ্যাসের দাম সাধারণ ভোক্তাদের কাছে যায় না। তবে তার আল্টিমেট একটা ইমপ্যাক্ট আছে। আপনারা জানেন তেলের দাম এখন ১১৩ ডলার, যেটা ৬০-৬৫ ডলার ছিলো। ইমপ্যাক্ট তো সবার কাছে পড়বে। এই কথা বলেছি সবাইকে।’

তিনি আরও বলেন, ‘ভোক্তা হোক, সরকার হোক, সাংবাদিক হোক, আমি, ব্যবসায়ী বা মন্ত্রী সবাইকে কিন্তু সমানভাবে চিন্তা করতে হবে। যুদ্ধটা শোভন নয়। গ্লোবাল ইমপ্যাক্ট পড়তে শুরু করেছে। জাহাজের ভাড়া বাড়তে শুরু করেছে। সরকার নিজেরাই বাইরে যাওয়া রেস্ট্রিক্টেড (সীমিত) করে দিয়েছে।’

‘যে মানুষটা ৫ লিটার বা ১০ লিটার তেল বা ডাল কিনতো তাকে তো চিন্তা করতে হবে। আমরা সবাই জানি যখন বিপদ বা ক্রাইসিস হয় তখন কোথাও না কোথাও আমরা বাজেট কাটছাঁট করে চলি। যুদ্ধ যদি লম্বা হয়, সমস্যা আসবে। আমরা যে যেখানে আছি, সেখান থেকেই যেন সাশ্রয়ী হই, সতর্ক হই।’

সাংবাদিকদের আরেক প্রশ্নের উত্তরে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘তেল-চিনি ডালসহ বিভিন্ন পণ্য আমদানির ওপর নির্ভরশীল। ৯০ শতাংশ আমদানি করে চাহিদা পূরণ করতে হয়। আন্তর্জাতিক বাজারের দাম বাড়লে দেশের কিছু করার থাকে না। এ কয়েকটি পণ্য বেসরকারি সেক্টর আমদানি করে চাহিদা পূরণ করছে।’

‘সরকার একটি অভিন্ন মূল্য পদ্ধতি অনুযায়ী কয়েকটি পণ্যের দাম নির্ধারণ করে। বিশেষ করে আমদানি মূল্য, ট্যাক্স, জাহাজ ভাড়া ও লাভসহ হিসাব বিবেচনায় নিয়ে একটি দাম নির্ধারণ করা হয়।’

‘কৃষক পর্যায়ে প্রতি কেজি পেঁয়াজের উৎপাদন খরচ ১৮-২০ থেকে টাকা পড়ে। কৃষক প্রতি কেজি পেঁয়াজ ২৫ টাকা ও ভোক্তা পর্যায়ে ৪৫ টাকা হলে সমস্যা হবে না। কৃষক ২৫ টাকার কমে দাম পেলে উৎপাদনে আগ্রহী হবে না।’

‘ঢাকার মানুষ ৪৫ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ কিনবে- এটা আমিও চাই, এটা অস্বাভাবিক না। যদি পেঁয়াজের দাম ৫০ টাকা বা তার বেশি হয় তাহলে মনে করবো বাজার....। ২৫ টাকা কেজিতে পেঁয়াজের দাম কৃষক পেলে লোকসান হবে না। আর কৃষক পেঁয়াজ উৎপাদনে আগ্রহ হারাবে না। পেঁয়াজ আমদানির অনুমোদন কৃষি মন্ত্রণালয় থেকে দেওয়া হয়। বৃহত্তর কৃষকদের স্বার্থের কথা বিবেচনা করে সরকার পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ রেখেছে।’

‘রমজানে ভোগ্যপণ্যের দাম যেন বাড়তে না পারে সে জন্য ব্যবসায়ীদের ওপর বিশ্বাস করা হয়েছিল। কিন্তু রমজান শেষ হওয়ার ১০ দিন আগেই বাজার থেকে সয়াবিন সরিয়ে নেওয়া হয়, রমজান শেষে দাম বাড়ার আশায়। তাদেরকে বিশ্বাস করা ভুল ছিল আর আমাদের সিদ্ধান্তও ভুল ছিল। আমরা যদি রমজানের মাঝামাঝি একটা দাম নির্ধারণ করে দিতাম তাহলে এটা হতো না।’

গম রপ্তানির বিষয়ে ভারতের নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি তুলে ধরে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, ‘ডলারের তুলনায় টাকার মান কমে গেছে। এখন এক ডলার সমান ৯২, ৯৩ টাকা, যা আগে ছিল ৮৪ টাকা। এই সময় ভারত ঘোষণা দিয়েছে তারা গম রপ্তানি বন্ধ রাখবে। তবে আশার কথা তারা বলেছে প্রতিবেশী দেশগুলোর খুব বেশি প্রয়োজন হলে তারা কনসিডার করবে। আমরা নেগোসিয়েশন অব্যাহত রেখেছি।’

পাশাপাশি ইউক্রেনসহ বিকল্প পাঁচটি উৎস থেকে গম আমদানির চেষ্টা করা হচ্ছে বলেও জানান মন্ত্রী।

এ সময় বাণিজ্যমন্ত্রী রপ্তানি আয় নিয়ে সন্তোষ প্রকাশ করে বলেন, ‘এবার আমাদের ৪-৫টি আইটেমের রপ্তানি আয় বিলিয়ন ডলার অতিক্রম করবে। যেগুলো কোনো দিন বিলিয়ন ডলার অতিক্রম করতে পারেনি।’

তিনি আরও বলেন, ‘এই মুহূর্তে গার্মেন্টস সেক্টর খুব ভালো অবস্থানে রয়েছে। বর্তমানে গার্মেন্টসে চার মিলিয়ন মানুষের কর্মসংস্থান আছে। এক-দেড় বছরের মধ্যে গার্মেন্টসে পাঁচ মিলিয়ন মানুষের কর্মসংস্থান হবে। অর্থাৎ গার্মেন্টসে ১০ লাখ মানুষের কর্মসংস্থান বাড়বে।’

বিএসআরএফ সভাপতি তপন বিশ্বাসের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মাসউদুল হক।


আরও খবর



কাতারে খুলনা বিভাগীয় কমিউনিটির আহ্বায়ক কমিটি গঠন

প্রকাশিত:বুধবার ১১ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১৮ মে ২০২২ | ৪৪জন দেখেছেন
Image

কাতারে বসবাসরত খুলনা বিভাগের প্রায় ১০ হাজার প্রবাসীর মধ্যে পারস্পরিক যোগাযোগ ও সেতুবন্ধন তৈরির লক্ষ্যে ‘খুলনা বিভাগীয় কমিউনিটি অব কাতার’-এর ১৩ সদস্যর আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে।

স্থানীয় সময় সোমবার (৯ মে) রাতে দেশটির রাজধানী দোহা আল সাদ কাশ্মির প্যালেস রেস্টুরেন্টে কমিটি গঠন শেষে সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

সংগঠনের আহ্বায়ক মো. শফিউর রহমান তপনের সভাপতিত্বে এবং যুগ্ম সদস্য সচিব রেজওয়ান বিশ্বাস নিলয়ের পরিচালনায় এ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

আহ্বায়ক কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন, আহ্বায়ক মো. শফিউর রহমান তপন, যুগ্ম আহ্বায়ক ইঞ্জিনিয়ার মফিজুর রহমান, যুগ্ম আহ্বায়ক খালিদ হোসেন, যুগ্ম আহ্বায়ক ইঞ্জিনিয়ার জাকারিয়া ফেরদৌস, সদস্য সচিব ইঞ্জিনিয়ার জাহাঙ্গীর আলম, যুগ্ম সদস্য সচিব রেজওয়ান বিশ্বাস নিলয়।

এছাড়া কার্যনির্বাহী সদস্যরা হলেন, মো. জামাল উদ্দিন, ইঞ্জিনিয়ার ইয়ারুল ইসলাম, ইঞ্জিনিয়ার শামসুজ্জামান লালটু, ইঞ্জিনিয়ার মাসুদুর রহমান রুপক, ইঞ্জিনিয়ার কবিরুল আলম পাভেল, গোলাম কিবরিয়া ও মাগফুর রহমান।


আরও খবর



প্রবাসে নিঃসঙ্গ ঈদ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৩ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ৫৪জন দেখেছেন
Image

‘ঈদ মানে আনন্দ, ঈদ মানে খুশি’ এ কথাটি প্রচলিত থাকলেও প্রবাসীদের ক্ষেত্রে তা একেবারেই ভিন্ন। বিশেষ করে গ্রিসে ঈদের আমেজ নেই বললেই চলে। কারণ একদিকে স্বজন ও পরিবারবিহীন ঈদ অন্যদিকে অনিয়মিতদের ধরপাকড় ও বিতাড়িত করার আতঙ্ক। সব মিলিয়ে হতাশা আর নিঃসঙ্গতায় দিনটি কেটেছে গ্রিস প্রবাসীদের।

প্রতি বছরে ঈদ আসলেই ১৫ থেকে ২০ দিন আগেই উদযাপনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়। নতুন জামা-কাপড় কেনা হয়। বিভিন্ন জায়গায় ঘুরতে যাওয়ার পরিকল্পনা করা হয়। ঈদের দিন ফজরের আজানের পর দলবেঁধে ছোটাছুটি করে গোসল সেরে সেমাই খেয়ে নতুন জামা-কাপড় পরে ঈদগাহ মাঠে গিয়ে সবাই একত্রে নামাজ আদায় করা হয়। এসব এখন আমাদের শুধুই স্মৃতি। প্রবাস জীবনে একের পর এক ঈদ আসে যায়, নিঃসঙ্গতার সঙ্গে।

প্রবাসে পরিবার-পরিজন ছাড়া দীর্ঘ এক মাস সিয়াম সাধনার পর এবার ৩য় বারের মতো ঈদ উদযাপন করছি। এখানে ঈদের কোনো আমেজ নেই। আরব দেশে ঈদে প্রবাসীদের ছুটি থাকলেও ইউরোপে কোনো ছুটি নেই। কাজের ফাঁকেই আমাদের ঈদ।

তবে এ বছর মে দিবসে ছুটি থাকায় অধিকাংশ প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। এ কারণে সবাই একসাথে ঈদের জামাতে নামাজ আদায় করার সুযোগ পেয়েছেন। এথেন্সে এবার খোলা মাঠে ঈদ জামাতের অনুমতি দেয়নি সরকার। তবে সরকারি জামে মসজিদ, আবু হুরায়রা মসজিদ, দারুল ইসলাম জামে মসজিদ, আল জব্বার মসজিদ, আল ফালাহ মসজিদ, দারুল আমান মসজিদ, মসজিদে জান্নাত, মসজিদে হজরত আয়েশা রাঃ, বায়তুল আমান জামে মসজিদ, মসজিদে হজরত উমর রাঃ, বাবরি মসজিদসহ বিভিন্ন মসজিদে ৪-৫ জামাতে নামাজ আদায় করেছেন বাংলাদেশিসহ বিভিন্ন দেশি মুসলমানরা।

এথেন্স সরকারি জামে মসজিদ ও মাঠে বিপুল সংখ্যক মুসলমান অভিবাসী জামাতে অংশ নেন। মাঠে বিভিন্ন দেশি নারী ও কিশোরীরা অংশগ্রহণ করেন। তবে গত ২-৩ দিন ধরে ফের ধরপাকড় শুরু হওয়ায় অনেকটা আতঙ্কে ঈদের জামাতে অংশ নিয়েছেন অনিয়মিতরা।

প্রাচীন সভ্যতার দেশ গ্রিসে বর্তমানে মানবেতর জীবনযাপন করছেন অনিয়মিত বাংলাদেশি অভিবাসীরা। এথেন্সে প্রতিনিয়তই চলছে অনিয়মিতদের ধরপাকড়। অনিয়মিত অভিবাসীদের নিজ দেশে ফেরত পাঠাতেও তোড়জোড় শুরু করেছে সরকার। প্রাচীন সভ্যতার পিঠস্থান খ্যাত এই দেশে বাংলাদেশিরা প্রতিনিয়তই বর্ণ-বৈষম্যের শিকার হচ্ছেন।

jagonews24

গ্রিসে বসবাস করেন প্রায় ৩০ হাজারেরও বেশি বাংলাদেশি। গ্রিক সরকারের পরিসংখ্যান অনুযায়ী বৈধ অনুমতি নিয়ে দেশটিতে বসবাস করা বাংলাদেশিদের সংখ্যা প্রায় সাড়ে ১২ হাজার। এর বাইরে অনেকে রয়েছেন যাদের বসবাসের অনুমতি নেই বা আশ্রয় আবেদন বাতিল হয়েছে। এমনকি অনেকেই এখনো আশ্রয় আবেদনের সুযোগ পাননি।

গ্রিসের পশ্চিম মানোলাদায় বাস করেন উল্লেখযোগ্য সংখ্যক বাংলাদেশি শ্রমিক। তারা মূলত গ্রিক কৃষিখামারের সঙ্গে জড়িত। স্ট্রবেরি ও জয়তুন, মাল্টাসহ কৃষির বিভিন্ন খামারেই তাদের কাজ। গ্রিসে বসবাসরত শ্রমিকগণ গ্রিস ও বাংলাদেশের অর্থনীতিতে ভূমিকা রাখছেন। এমনকি করোনা মহামারির মধ্যেও তারা কঠোর পরিশ্রম করে গ্রিসের কৃষিতে অবদান রাখছেন।

এছাড়া রাজধানী এথেন্সেও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে কর্মরত রয়েছেন বাংলাদেশি শ্রমিকরা। এদিকে গেলো বছরের ডিসেম্বরে একটি চার্টার্ড ফ্লাইটে গ্রিস থেকে ১৯ জন বাংলাদেশিকে ঢাকায় ফেরত পাঠানো হয়। এরপর গত ফেব্রুয়ারি মাসে বাংলাদেশ ও গ্রিসের মধ্যে জনশক্তি রপ্তানি সংক্রান্ত বিষয়ে সমঝোতা স্মারক সই হয়েছে।

এ চুক্তিতে রয়েছে নতুন জনশক্তি রপ্তানি ও অনিয়মিতদের বৈধ করণের কথা। চুক্তির পর অভিবাসীদের মনে কিছুটা স্বস্তি ফিরেছিল, তারা ভেবেছিল হয়তো আর ফেরত পাঠানো হবে না। কিন্তু চুক্তির পরও গেলো মার্চ মাসে ৭ বাংলাদেশিকে ফেরত পাঠানোর ঘটনায় আতঙ্কে রয়েছেন অনিয়মিতরা।

করোনা মহামারির দীর্ঘ ২ বছর পর এবারের রমজান মাসে বাংলাদেশি মুসলমানদের ব্যাপক তৎপরতা দেখা যায়। বিভিন্ন সংগঠন ও ব্যক্তি উদ্যোগে আয়োজন করা হয় ঈফতার মাহফিল এতে দলমত নির্বিশেষে উপস্থিত হন প্রবাসী বাংলাদেশিরা। বাংলাদেশ কমিউনিটিসহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত হন মাহফিলে।

তবে এদের এখানে বসবাসের অনুমতি রয়েছে আবার অনেকেই স্থায়ী বসবাস করছেন। কিন্তু পুলিশি আতঙ্কে সিংহভাগ অনিয়মিত বাংলাদেশিরা গ্রাম এলাকায় বা আড়ালেই রয়েছেন। তাদের মধ্যে নেই কোনো ঈদের আমেজ। হতাশায় দিন কাটছে অনিয়মিত বাংলাদেশিদের।

ঈদের দিন মন খারাপ হয়ে যায়। সকাল বেলা ঘুম থেকে উঠে কাউকে খুঁজে পাওয়া যায় না। তখন মনে পড়ে যায় চিরচেনা গ্রামে ঈদ উদযাপনের স্মৃতিগুলো। পরিবার আর আত্মীয় স্বজনবিহীন বিদেশের মাটিতে এভাবেই ঈদ কাটে নীরবে নিভৃতে। যাইহোক সবাইকে ঈদের শুভেচ্ছা। ঈদ মোবারক।


আরও খবর



আ’লীগের সম্পাদকমণ্ডলীর সভা ১০ মে

প্রকাশিত:রবিবার ০৮ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১৮ মে ২০২২ | ৫০জন দেখেছেন
Image

আওয়ামী লীগের সম্পাদকমণ্ডলীর সভা হবে মঙ্গলবার (১০ মে)। রোববার দলটির দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, মঙ্গলবার বেলা ১১টায় রাজধানীর বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এ সভা হবে। এতে সভাপতিত্ব করবেন দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

জানা গেছে, ৭ মে আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সংসদের সভার সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে কর্মপরিকল্পনা তৈরি ও নেতাদের মধ্যে কর্মবণ্টন এবং বিভিন্ন উপ-কমিটি হবে এই সভায়।


আরও খবর



চাকরি পুনর্বহাল চেয়ে দুদকের শরীফের রিটের শুনানি আজ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ১৭জন দেখেছেন
Image

চাকরি ফিরে পেতে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চাকরিচ্যুত উপ-সহকারী পরিচালক মো. শরীফ উদ্দিনের করা রিটের ওপর শুনানি আজ।

বৃহস্পতিবার (১৯ মে) হাইকোর্টের বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কাজী মো. ইজারুল হক আকন্দের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চে এ বিষয়ে শুনানি অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।

এর আগে, গত ১১ এপ্রিল প্রাথমিক শুনানি শেষে এ বিষয়ে পরবর্তী শুনানির জন্যে বৃহস্পতিবার দিন ধার্য করেন হাইকোর্ট।

ওই দিন একই বেঞ্চে রিটের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী অ্যাডভোকেট মো. সালাহ উদ্দীন দোলন। আর রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক ও সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল আন্না খানম কলী। অপরদিকে, দুদকের পক্ষে ছিলেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী মো. খুরশীদ আলম খান।

এরও আগে, গত ১৩ মার্চ শরীফের চাকরিতে পুনর্বহাল দাবিতে রিট আবেদন করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী মিয়া মোহাম্মদ ইশতিয়াক। রিটে দুদকের সচিব ও চেয়ারম্যান এবং আইন ও জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সচিবকে বিবাদী করা হয়।

এ বিষয়ে আইনজীবী ইশতিয়াক বলেন, রিটে দুদকের ৫৪(২) ধারা কেন আইনগত কর্তৃত্ব বহির্ভূত হবে না ও শরীফ উদ্দিনের চাকরি কেন পুনর্বহাল হবে না এই মর্মে রুল জারির আর্জি জানানো হয়েছে।

এর আগে চাকরিতে পুনর্বহালের জন্য দুদকে রিভিউ আবেদন করেছিলেন শরীফ উদ্দিন। ২৭ ফেব্রুয়ারি দুদকের চেয়ারম্যান বরাবর তিনি এ আবেদন করেন।

গত ১৬ ফেব্রুয়ারি দুদকের ৫৪(২) ধারায় চাকরিচ্যুত করা হয় শরীফ উদ্দিনকে। তখন দুদক চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মঈনউদ্দীন আবদুল্লাহের সই করা আদেশে বলা হয়, দুর্নীতি দমন কমিশন (কর্মচারী) বিধিমালা- ২০০৮ এর বিধি ৫৪ (২) তে প্রদত্ত ক্ষমতাবলে মো. শরীফ উদ্দিন (উপ-সহকারী পরিচালক) দুদক, সমন্বিত জেলা কার্যক্রম, পটুয়াখালীকে চাকরি থেকে অপসারণ করা হলো।

এরপর এ ঘটনার প্রতিবাদে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় দুদকের প্রধান কার্যালয়ের সামনে মানববন্ধন করেন শরীফ উদ্দিনের সহকর্মীরা। পরে তারা ৫৪(২) ধারা বাতিলের দাবিতে দুদক সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশন গঠন করেন।

এছাড়া শরীফ উদ্দিনকে অপসারণ করায় হাইকোর্টে চিঠি ও রিট করেন সুপ্রিম কোর্টের ১০ আইনজীবী।

এর আগে, চট্টগ্রাম দুদক কার্যালয়ে দায়িত্ব পালনকালে ২০২১ সালের ১৬ জুন ভোটার তালিকায় রোহিঙ্গাদের অবৈধভাবে অন্তর্ভুক্তের অভিযোগে নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিবালয়ের পরিচালকসহ ইসির চার কর্মকর্তা-কর্মচারীর বিরুদ্ধে মামলা করেছিলেন শরীফ উদ্দিন।

একই বছর চট্টগ্রাম-কক্সবাজার হাইওয়ে সংলগ্ন কলাতলী বাইপাস রোড এলাকায় পিবিআই অফিস তৈরির জন্য এক একর জমি অধিগ্রহণে জালিয়াতির ঘটনা উঠে আসে শরীফ উদ্দিনের তদন্তে।

এছাড়া কক্সবাজারের মেগা উন্নয়ন প্রকল্পগুলোর জমি অধিগ্রহণের দুর্নীতিতে জড়িত বেশ কয়েকজন প্রভাবশালী সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী ও রাজনৈতিক নেতার বিরুদ্ধে মামলাও করেন শরীফ উদ্দিন। এ ঘটনায় কয়েকজনকে গ্রেফতার করা হয়।

এরপর চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালসহ স্বাস্থ্যখাতের অনিয়ম-দুর্নীতির তদন্তে নামে দুদক। তখন নানা অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকায় বেশ কয়েকজনকে গ্রেফতার ও দুদকের পক্ষে বেশ কয়েকটি মামলা করেছিলেন শরীফ উদ্দিন।


আরও খবর