Logo
শিরোনাম

অফিসার পদে চাকরি দেবে আড়ং

প্রকাশিত:বুধবার ১৫ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ আগস্ট ২০২২ | ২৯জন দেখেছেন
Image

পোশাক প্রস্তুতকারক ও বিপণন প্রতিষ্ঠান আড়ংয়ে ‘অ্যাসোসিয়েট অফিসার’ পদে জনবল নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহীরা আগামী ২৩ জুন পর্যন্ত আবেদন করতে পারবেন।

প্রতিষ্ঠানের নাম: আড়ং
বিভাগের নাম: ইনবাউন্ড অপারেশনস, ই-কমার্স

পদের নাম: অ্যাসোসিয়েট অফিসার
পদসংখ্যা: নির্ধারিত নয়
শিক্ষাগত যোগ্যতা: স্নাতক
অভিজ্ঞতা: ০১ বছর
বেতন: আলোচনা সাপেক্ষে

চাকরির ধরন: ফুল টাইম
প্রার্থীর ধরন: নারী-পুরুষ
বয়স: নির্ধারিত নয়
কর্মস্থল: ঢাকা

আবেদনের নিয়ম: আগ্রহীরা [email protected] এই ঠিকানায় সিভি পাঠাতে পারবেন অথবা jobs.bdjobs.com এর মাধ্যমে আবেদন করতে পারবেন।

আবেদনের শেষ সময়: ২৩ জুন ২০২২

সূত্র: বিডিজবস ডটকম


আরও খবর



ময়মনসিংহ বিভাগের সদরদপ্তর স্থাপনে ১২২৪ কোটি টাকা অনুমোদন

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০২ আগস্ট 2০২2 | হালনাগাদ:রবিবার ১৪ আগস্ট ২০২২ | ২০জন দেখেছেন
Image

নবগঠিত ময়মনসিংহ বিভাগের বিভাগীয় সদরদপ্তর স্থাপনে প্রস্তাবিত ভূমির অধিগ্রহণ, ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপূরণ দেওয়া ও পুনর্বাসনের জন্য ১ হাজার ২২৪ কোটি ৮১ লাখ টাকা অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার (২ আগস্ট) রাজধানীর শেরে বাংলা নগরের এনইসি সম্মেলনকক্ষে অনুষ্ঠিত বৈঠকে এ অনুমোদন দেওয়া হয়। এনইসি সম্মেলন কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত এ সভায় গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি সভাপতিত্বে করেন প্রধানমন্ত্রী ও একনেক চেয়ারপারসন শেখ হাসিনা। এতে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য ও সচিবরা অংশ নেন। সভা শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম।

এ সময় পরিকল্পনা সচিব মামুন-আল রশীদ, ভৌত অবকাঠামো বিভাগের সদস্য সত্যজিৎ কর্মকার, তথ্য ও ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব ড. শাহনাজ আরেফিন এবং আইএমইডির সচিব আবু হেনা মোরশেদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

ব্রিফংয়ে জানানো হয়, নবগঠিত ময়মনসিংহ বিভাগের বিভাগীয় সদরদপ্তর স্থাপনে প্রস্তাবিত ভূমির অধিগ্রহণ, ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপূরণ দেওয়া ও পুনর্বাসন এবং আধুনিকায়নের জন্য ১ হাজার ২২৪ কোটি ৮১ লাখ টাকা অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এটাসহ একনেক সভায় মোট সাত প্রকল্পের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। সাত প্রকল্পের মোট ব্যয় ২ হাজার ৭ কোটি ৫৭ লাখ টাকা। এর মধ্যে বৈদেশিক ঋণ ১২২ কোটি ৭৬ লাখ টাকা। বাকি টাকার মধ্যে সরকারি তহবিল থেকে ১ হাজার ৮৩১ কোটি ৪০ লাখ টাকা, বাস্তবায়নকারী সংস্থা থেকে ৫৩ কোটি ৪১ লাখ টাকা এবং বৈদেশিক ঋণ সহায়তা থেকে ১২২ কোটি ৭৬ লাখ টাকা ব্যয় করা হবে।

অঞ্চলভিত্তিক জলবায়ু সহনশীল জাত উদ্ভাবন ও ফসলের উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি করতে বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিনা) উন্নত গ্রিনহাউজ স্থাপন করবে। এছাড়া বিনার প্রধান কার্যালয়ের গবেষণাগারগুলোতে আধুনিক যন্ত্রপাতি সংযোজনসহ র্যাপিড জেনারেশন অ্যাডভান্স টেকনোলজি স্থাপন করা হবে। এজন্য বিনার গবেষণা কার্যক্রম শক্তিশালীকরণ প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। জানুয়ারি ২০২২ থেকে ডিসেম্বর ২০২৬ মেয়াদে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হবে।

প্রকল্প এলাকা:
বিনার ১৫টি কেন্দ্রের মাধ্যমে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হবে।

প্রধান কার্যক্রমগুলো:
বিনার প্রধান কার্যালয়ে ৫০০ বর্গমিটার জেনারেশন অ্যাডভান্স টেকনোলজি স্থাপন, ২১০ বর্গমিটার রেইন আউট শেল্টার, ৫০ বর্গমিটার গ্রোথ চেম্বারসহ প্রয়োজনীয় গবেষণা অবকাঠামো নির্মাণ। মাঠ ও উদ্যানতাত্ত্বিক ফসলের ২৫টি উচ্চফলনশীল জাত এবং ১৫টি প্রযুক্তি উদ্ভাবন করা। দেশের বিভিন্ন কৃষি অঞ্চলে ১৪টি ‘বিনা কৃষি ভিলেজ’ স্থাপন। কৃষকপর্যায়ে ৩৫০০ টন প্রজনন ও মানসম্মত বীজ উৎপাদন, ক্রয়, সংরক্ষণ ও বিতরণ। মাঠপর্যায়ে ৭৪২টি এডাপটিভ ট্রায়াল এবং জাত/প্রযুক্তি বিস্তারে ২৫ হাজার প্রদর্শনী স্থাপন করা হবে।

এছাড়া ৩৫০টি জার্মপ্লাজম সংরক্ষণ, মূল্যায়ন, বৈশিষ্ট্যায়ন ও ব্যবহার করে জাত উদ্ভাবন। ১৪৮টি খামার যন্ত্রপাতি, ৪৩২টি গবেষণা যন্ত্রপাতি, ৪০টি তথ্য ও টেলিযোগাযোগ যন্ত্রপাতি, ১৩০টি কম্পিউটার ও আনুষঙ্গিক যন্ত্রপাতি, ৩৬টি অফিস সরঞ্জাম, ৬২টি বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম, ৫২১টি আসবাবপত্র, দুটি পিকআপ ও ৮টি মোটরসাইকেল কেনা হবে। ১৫ জন বিজ্ঞানীর দেশের অভ্যন্তরে উচ্চশিক্ষা (পিএইচডি), ৬০ জন বিজ্ঞানীর বৈদেশিক প্রশিক্ষণ, ১৫০ জন বিজ্ঞানী ও ২৮০ জন কর্মকর্তার স্থানীয় প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হবে। মাঠপর্যায়ের ২ হাজার জন কৃষি কর্মকর্তা, ১ হাজার ৫০০ জন উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা এবং ১৫ হাজার কৃষককে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে।

দেশের সাতটি সিটি করপোরেশন ও ৩৭টি জেলা পর্যায়ে প্রথম শ্রেণির পৌরসভায় আধুনিক যন্ত্রপাতি বিশেষত ৮১টি হুইল লোডার, ২৪টি ব্যাকহো লোডার এবং ৬৪টি এসফল্ট রোলার কেনা হবে। এতে মোট ব্যয় হবে ১৫০ কোটি ৬২ লাখ টাকা। ‘প্রকিউরমেন্ট অব মেশিনারিজ অ্যান্ড ইক্যুইপমেন্ট ফ্রম বেলারুশ ফর সিলেকটেড মিউনিসিপলিটিস’জুলাই ২০২২ হতে জুন ২০২৩ মেয়াদে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে। মঙ্গলবার প্রকল্পটি একনেক সভায় অনুমোদন দেওয়া হয়।

প্রকল্পের উদ্দেশ্য:
যন্ত্রপাতি ও সরঞ্জাম সংগ্রহের মাধ্যমে দেশের সাতটি সিটি করপোরেশন ও ৩৭টি জেলা পর্যায়ে প্রথম শ্রেণির পৌরসভাসমূহের উন্নয়ন কার্যক্রমের সক্ষমতা বাড়ানো, সিটি করপোরেশন ও পৌরসভাসমূহের টেকনিশিয়ান ও চালকদের যথাযথ প্রশিক্ষণ দেওয়া, মেশিনারিজ এবং ইক্যুইপমেন্ট সংগ্রহের মাধ্যমে সিটি করপোরেশন ও পৌরসভাসমূহের বর্জ্য ব্যবস্থাপনায় দক্ষতা বাড়ানো, সিটি করপোরেশন ও পৌরসভাসমূহের ড্রেন মানসম্মতভাবে পরিষ্কার রাখা এবং রাস্তা বা কালভার্ট যান চলাচলের উপযোগীকরণের মাধ্যমে নাগরিক সেবা বাড়ানো।

অন্যান্য প্রকল্পগুলো হচ্ছে— কক্সবাজার জেলার বাংলাদেশ-মিয়ানমারে সীমান্ত নিরাপত্তা উন্নত করার জন্য উখিয়া ও টেকনাফ উপজেলায় নাফ নদী বরাবর পোল্ডারগুলোর (৬৭/এ, ৬৭, ৬৭বি এবং ৬৮) পুনর্বাসন প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ২২৭ কোটি টাকা। উত্তরা লেক উন্নয়ন প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ৫৩ কোটি ৪১ লাখ টাকা। ঢাকা কেন্দ্রীয় মাদকাসক্তি নিরাময় কেন্দ্র সম্প্রসারণ ও আধুনিকীকরণ প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ১৬২ কোটি ৩৪ লাখ টাকা। কারা প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, রাজশাহী প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ২৫ কোটি ৩৬ লাখ টাকা।

এছাড়া ঢাকা মেট্রোপলিটন এলাকায় টেলিটকের নেটওয়ার্ক বাণিজ্যিকভাবে ফাইভ-জি প্রযুক্তি চালুকরণ প্রকল্প ২৩৬ কোটি ৫৪ লাখ টাকা ব্যয়ের প্রস্তাব একনেক সভায় উপস্থাপন করা হলে ডলার সাশ্রয়ে আপাতত তা স্থগিত করা হয়েছে।


আরও খবর



রাজধানীতে মাদকবিরোধী অভিযানে গ্রেফতার ৫৩

প্রকাশিত:বুধবার ০৩ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ১৪ আগস্ট ২০২২ | ১৩জন দেখেছেন
Image

রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় মাদকবিরোধী অভিযান পরিচালনা করে মাদক বিক্রি ও সেবনের অভিযোগে ৫৩ জনকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) এর বিভিন্ন অপরাধ ও গোয়েন্দা বিভাগ।

এ সময় তাদের কাছ থেকে ১৩ হাজার ৩৪০ পিস ইয়াবা, ৫৮ গ্রাম হেরোইন ও ১৯ কেজি ৯৫০ গ্রাম গাঁজা উদ্ধার করা হয়।

মঙ্গলবার (২ আগস্ট) ভোর ৬টা থেকে বুধবার (৩ আগস্ট) ভোর ৬টা পর্যন্ত রাজধানীর বিভিন্ন থানা এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে ৩৮টি মামলা রুজু হয়েছে।


আরও খবর



স্ত্রী-শ্যালিকাকে ভারতের যৌনপল্লীতে বিক্রি, গ্রেফতার ৪

প্রকাশিত:বুধবার ১০ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১০ আগস্ট ২০২২ | জন দেখেছেন
Image

বিয়ের পর নারীর কাছে সবচেয়ে নির্ভরতার জায়গা হয় স্বামীর ঠিকানা। তবে সেই ঠিকানা নির্ভরতার হয়ে ওঠেনি জরিনার (ছদ্দনাম)। বিয়ের কয়েকদিন যেতে না যেতেই স্বামী তাকে পাচার করেন ভারতে। শুধু তাই নয় জরিনার বোনকেও টাকার লোভে পাচার করেন ভারতে। অভিযুক্ত স্বামীর নাম ইউসুফ।

ভারতে নারী পাচারকারী চক্রের মূল হোতাসহ সহায়তাকারী ৪ সদস্যকে গ্রেফতারের পর এমন চাঞ্চল্যকর তথ্য জানিয়েছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি)।

গ্রেফতাররা হলেন- রানা আহমেদ, মো. সুজন মিয়া, মো. সাহাবুদ্দীন ও নাইমুর রহমান ওরফে সাগর।

মঙ্গলবার (৯ আগস্ট) রাতে ঝিনাইদহ ও চুয়াডাঙ্গায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

বুধবার (১০ আগস্ট) দুপুরে সিআইডি কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সিআইডির মানবপাচার প্রতিরোধ ইউনিটের বিশেষ পুলিশ সুপার মো. নজরুল ইসলাম এ তথ্য জানান।

jagonews24

তিনি বলেন, গত বছরের ৪ মে ঝিনাইদহের মহেশপুরের বাঘাডাঙ্গা সীমান্ত দিয়ে ইউসুফ তার স্ত্রী ও শ্যালিকাকে ভারতে পাচার করেন। সেখানে ইউসুফের সহযোগীরা তাদের যৌনপল্লীতে বিক্রি করে দেন। সেখানে যৌন নির্যাতনের শিকার হন ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ের ওই দুই বোন। পরে তারা কৌশলে যৌনপল্লী থেকে পালিয়ে ভারতীয় পুলিশের সহায়তায় এ বছরের ২২ মার্চ দেশে ফিরে আসেন।

পরে তাদের বাবা মামলা করেন এবং আদালতে জবানবন্দি দেন। সেই তথ্যের ভিত্তিতে পুলিশ ইউসুফকে আগেই গ্রেফতার করে।

জবানবন্দিতে ওই দুই নারী জানান, বছর দুই আগে তারা গাজীপুরের শ্রীপুরের একটি কারখানায় কাজ নেন। সেখানে থাকার সময় বড় বোনের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলেন ইউসুফ, পরে বিয়েও করেন।

গত বছর বেশি বেতনে চাকরির কথা বলে ইউসুফ তার স্ত্রী ও শ্যালিকাকে ভারতের নারী পাচারকারীদের কাছে বিক্রি করে দেন।

ওই দুই নারী বলেন, ইউসুফ যে নারী পাচারে জড়িত, নিজেরা বিপদে পড়ার আগে সেটা তারা বুঝতে পারেননি।

বিশেষ পুলিশ সুপার মো. নজরুল ইসলাম আরও বলেন, সংসার করা ইউসুফের উদ্দেশ্য ছিল না। ভারতে পাচার করার জন্যই তিনি বিয়ে করেন। নতুন যে চারজন গ্রেফতার হয়েছেন, তাদের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা তদন্তাধীন। এই চক্রের দেশি-বিদেশি সদস্যদের তথ্য সংগ্রহের কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে।


আরও খবর



রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ফের দুর্বৃত্তের গুলিতে যুবক খুন

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০২ আগস্ট 2০২2 | হালনাগাদ:শনিবার ১৩ আগস্ট ২০২২ | জন দেখেছেন
Image

কক্সবাজারের উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ফের দুর্বৃত্তের গুলিতে নুরুল আমিন (২৬) নামে এক রোহিঙ্গা যুবক খুন হয়েছেন। সোমবার (১ আগস্ট) রাতে কুতুপালংয়ের ৪নং রোহিঙ্গা ক্যাম্প মধুরছড়া এলাকায় এই ঘটনা ঘটে।

উখিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ মোহাম্মদ আলী তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, নুরুল আমিন ক্যাম্পে বেসরকারি সংস্থা ‘কারিতাসে’ স্বেচ্ছাসেবক হিসেবে কাজ করতেন। এনজিও সংস্থায় স্বেচ্ছাসেবী হিসেবে কাজ করা নিয়ে রোহিঙ্গাদের একটি গ্রুপের রোষাণলে পড়েন তিনি। তাকে একদল রোহিঙ্গা দুর্বৃত্ত গুলি করে পালিয়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

তিনি আরো বলেন, নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। ঘটনার সঙ্গে জড়িত কাউকে এখনো চিহ্নিত করা সম্ভব হয়নি।


আরও খবর



বদলে যাচ্ছে কাতার বিশ্বকাপের সূচি!

প্রকাশিত:বুধবার ১০ আগস্ট ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ১৪ আগস্ট ২০২২ | ১০জন দেখেছেন
Image

ফিফা ফুটবল বিশ্বকাপ শুরুর বাকি আছে তিন মাসের কিছু বেশি সময়। কাতারে আগামী ২১ নভেম্বর থেকে শুরু হওয়ার কথা রয়েছে বিশ্বকাপের ২২তম আসরের। এর মধ্যেই খবর এলো, একদিন এগিয়ে আনা হতে পারে কাতার বিশ্বকাপের সূচি।

আর্জেন্টাইন সংবাদমাধ্যম দিয়ারিও ওলে'র প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে এ খবর। বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে যেনো স্বাগতিক কাতার মাঠে থাকে- তা নিশ্চিত করতে এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হচ্ছে বলে জানানো হয়েছে ওলে'র প্রতিবেদনে।

বিস্তারিত আসছে...


আরও খবর