Logo
শিরোনাম

অভিবাসীদের জোর করে যেন ফেরত পাঠানো না হয়: পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী

প্রকাশিত:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২ | ৫৮জন দেখেছেন
Image

কোনো পরিস্থিতিতে যাতে অভিবাসীদের জোর করে ফেরত পাঠানো না হয় সে বিষয়ে ট্রানজিট এবং গন্তব্যের দেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানিয়েছে বাংলাদেশ।

শুক্রবার (২০ মে) জাতিসংঘ সদর দপ্তরে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক অভিবাসন পর্যালোচনা ফোরামের (আইএমআরএফ) সাধারণ বিতর্ক পর্বে এ আহ্বান জানান পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম।

তিনি বলেন, সঙ্কটময় পরিস্থিতিতে আটকাপড়া অভিবাসীদের অভিবাসন যাত্রার সময় জীবন বাঁচাতে এবং ঝুঁকি ও ক্ষয়ক্ষতি কমাতে অবশ্যই বিশ্বব্যাপী প্রচেষ্টা বাড়াতে হবে।

জলবায়ুজনিত অভিবাসনকে একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হিসেবে তুলে ধরে তিনি বলেন, সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতা বৃদ্ধি, নদী ভাঙন বা খরার কারণে লাখ লাখ বাস্তচ্যুত মানুষের দুর্দশা নিয়ে বিশ্ববাসীর ভাবতে হবে। একইসঙ্গে বিষয়টিকে অভিবাসন ও জলবায়ু পরিবর্তন- এই উভয় আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে রাখতে হবে।

এ সময় প্রতিমন্ত্রী সমুদ্রে দুর্দশায় পতিত অভিবাসীদের অনুসন্ধান ও উদ্ধারের জন্য আইএমআরএফ সদস্য রাষ্ট্রগুলোর যে বাধ্যবাধকতা রয়েছে তা পূরণ করার ওপর গুরুত্বারোপ করেন। সাধারণ বিতর্কে শাহরিয়ার আলম উল্লেখ করেন, আমাদের নৌবাহিনী আমাদের সমুদ্র উপকূল থেকে মিয়ানমারের জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের উদ্ধার করেছে।

সাধারণ বিতর্ক পর্বে সভাপতিত্ব করেন জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা।

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মাইগ্রেশন রিভিউ ফোরামে বাংলাদেশের একটি উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন। তিনি ডোমিনিকার পরিকল্পনা, অর্থনৈতিক উন্নয়ন, জলবায়ু স্থিতিস্থাপকতা, টেকসই উন্নয়ন ও নবায়নযোগ্য শক্তি মন্ত্রী ড. ভিন্স হেন্ডারসন এবং ইউরোপীয় কমিশনের স্বরাষ্ট্র বিষয়ক কমিশনার মিসেস ইলভা জোহানসনের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক করেন। এসব বৈঠকে প্রতিমন্ত্রী ২০২৩-২৫ মেয়াদের জন্য মানবাধিকার কাউন্সিল নির্বাচনে বাংলাদেশের প্রার্থীতাসহ পারস্পরিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন।

আন্তর্জাতিক অভিবাসন বিষয়ক একটি অগ্রগতি ঘোষণা গ্রহণের মাধ্যমে আজ আইএমআরএফ বৈঠক শেষ হবে।


আরও খবর

ওয়ালটনে চাকরির সুযোগ

সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২




সংক্ষিপ্ত বিশ্ব সংবাদ: ২৪ জুন ২০২২

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৪ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৩ জুলাই ২০২২ | ২৬জন দেখেছেন
Image

আমাদের চারপাশে অসংখ্য ঘটনা ঘটছে প্রতিদিনই। এর মধ্যে হয়তো আলোচনায় আসে হাতেগোনা কিছু। তবে সময় ও পরিস্থিতির পরিপ্রেক্ষিতে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে ওঠে বেশকিছু বিষয়। এগুলো জানা না থাকলে অনেক ক্ষেত্রেই পিছিয়ে পড়তে হয়। এ কারণে বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে ঘটে যাওয়া নানা ঘটনা থেকে সংক্ষেপে গুরুত্বপূর্ণ কিছু সংবাদ থাকছে জাগো নিউজের পাঠকদের জন্য-

টেসলার দেউলিয়া হওয়ার আশঙ্কা, উদ্বেগ ইলন মাস্কের

চলমান অর্থনৈতিক স্থবিরতার মধ্যে চরম বিপাকে পড়েছে বিশ্বের শীর্ষ ধনী ইলন মাস্কের গাড়ি নির্মাণ প্রতিষ্ঠান টেসলা। নতুন কারখানায় বিলিয়ন বিলিয়ন ডলার ক্ষতি, সরবরাহ সংকট ও করোনার লকডাউন এর অন্যতম কারণ। এমন পরিস্থিতিতে কোম্পানিটির দেউলিয়া হওয়া নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন মাস্ক।

পদ্মা সেতু উদ্বোধনের আঁচ কলকাতায়

২৫ জুন সকালে বহুল প্রত্যাশিত পদ্মা সেতু উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এই সেতু নিয়ে বাংলাদেশে উচ্ছ্বাস-উদ্দীপনা বিরাজ করছে। চারদিকেই সাজসাজ রব। তবে ভারতের পশ্চিমবঙ্গেও এর আঁচ পড়েছে। প্রধানমন্ত্রীর ছবি দিয়ে টানানো হয়েছে উদ্বোধনের বিজ্ঞাপন। পার্ক সার্কাস, এলগিন রোড, ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালসহ কলকাতার মোট আটটি জায়গায় পদ্মাসেতুর উদ্বোধনের ডিজিটাল ও ফ্লেক্সের বিজ্ঞাপন দেখা গেছে।

মাত্র আড়াই মাসের গ্যাস রয়েছে জার্মানির, বড় বিপদের হাতছানি

রাশিয়া গ্যাস সরবরাহ কমিয়ে দেওয়ায় বড় সংকটের মুখে জার্মানি। মাত্র আড়াই মাস চলার মতো গ্যাসের মজুত রয়েছে তাদের হাতে। ফলে নতুন সরবরাহ না পেলে খুব শিগগির বড় বিপদে পড়তে চলেছে জার্মানরা। দেশটিতে গ্যাসের দাম দুই-তিনগুণ বেড়ে যেতে পারে। এমনকি প্রয়োজনে গ্যাস রেশনিংয়ের পথে হাঁটতে হতে পারে জার্মান সরকারকে।

আফগানিস্তানে ফের ভূমিকম্প, নিহত ৫

মাত্র দুদিন আগে আফগানিস্তানের যে এলাকায় শক্তিশালী ভূমিকম্পে হাজারখানেক লোক প্রাণ হারিয়েছিলেন, ঠিক সেই এলাকার কাছেই আবারও ভূকম্পন আঘাত হেনেছে। এতে এখন পর্যন্ত পাঁচ জন মারা যাওয়ার খবর পাওয়া গেছে বলে নিশ্চিত করেছেন এক জ্যেষ্ঠ আফগান কর্মকর্তা।

চীনে তৃতীয় তলা থেকে ইলেকট্রিক গাড়ি পড়ে নিহত ২

চীনের সাংহাইয়ে একটি ভবনের তৃতীয় তলা থেকে একটি ইলেক্ট্রিক গাড়ি পড়ে গিয়ে দুইজন নিহত হয়েছেন। গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান এনআইও জানিয়েছে, সাংহাইয়ে তাদের সদর দপ্তরের তৃতীয় তলা থেকে গাড়িটি নিচে পড়ে যায়। এতেই ঘটে দুর্ঘটনা। নিহতরা হলেন, এনআইও কোম্পানির একজন কর্মী ও এর একজন শেয়ার কোম্পানির এক ব্যক্তি। স্থানীয় সময় বুধবার(২২ জুন) বিকাল ৫টা ২০ মিনিটে দুর্ঘটনাটি ঘটে।

কাগজের অভাবে পাকিস্তানে নতুন পাঠ্যবই ছাপা বন্ধ

চলতি বছর আগস্টে পাকিস্তানে শুরু হতে যাচ্ছে নতুন শিক্ষাবর্ষ। তবে এবছর নতুন বই শিক্ষার্থীরা পাবেন কি না তা নিয়ে তৈরি হয়েছে সংশয়। কারণ দেশটিতে কাগজের অভাবে পাঠ্যপুস্তক ছাপা বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ‘অল পাকিস্তান পেপার মার্চেন্ট অ্যাসোসিয়েশন’। কাগজ সংকটের কারণ বৈশ্বিক মুদ্রাস্ফীতি হলেও পাকিস্তানে বর্তমান কাগজের সংকট সরকারের ভুল নীতি ও স্থানীয় কাগজ শিল্পের একচেটিয়া আধিপত্যের কারণে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

ভারতে একদিনে করোনা আক্রান্ত ১৭ হাজার

ভারতে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা নতুন করে বাড়তে শুরু করেছে। বুধবার (২২ জুন) আক্রান্তের সংখ্যা ছিলো ১৩ হাজার। বৃহস্পতিবার (২৩ জুন) সে সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৭ হাজারে। সংক্রমণ রোধে এরই মধ্যে তৎপরতা বাড়িয়েছে কেন্দ্র সরকার।

রাশিয়ায় কার্গো প্লেন বিধ্বস্ত, নিহত ৩

রাশিয়ায় একটি কার্গো প্লেন বিধ্বস্ত হয়ে তিনজন নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। স্থানীয় সময় শুক্রবার (২৪ জুন) সকালে দেশটির রাইয়াজান শহরের কাছে এ দুর্ঘটনা ঘটে বলে জানা গেছে।ইন্টারফ্যাক্সের বরাত দিয়ে রয়টার্স জানিয়েছে, ইলিউশিন আইএল-৭৬ প্লেনটি অবতরণের সময় বিধ্বস্ত হয় এবং এতে আগুন ধরে যায়। ঘটনাস্থলেই তিনজন নিহত হন।

মার্কিন সিনেটে বন্দুক নিয়ন্ত্রণ বিল পাস

কয়েক দশকের মধ্যে প্রথমবারের মতো মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সিনেটে বন্দুক নিয়ন্ত্রণ বিল পাস হয়েছে। ১৫ জন রিপাবলিকান কংগ্রেসের উচ্চকক্ষে ডেমোক্রেটদের সঙ্গে যোগ দেন এই বিল পাসে। বিলের পক্ষে ভোট পড়ে ৬৫টি এবং ৩৩টি পড়ে বিপক্ষে।


আরও খবর



এক পায়ে সাইকেল চালিয়ে স্বপ্নজয়ের পথে রাবির সেই ফাহিমা

প্রকাশিত:শুক্রবার ১০ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২ | ২৯জন দেখেছেন
Image

মনের জোরে এক পায়ে ভর করেই শুরু করেছিলাম পড়াশোনার হাতেখড়ি। আমার প্রতিবন্ধকতা দেখে পাড়া-প্রতিবেশীরা নানাভাবে আঘাত করতো। অনেকে দেখলেই বলতো, ‘তোর তো এক পা নেই, তোর দিয়ে কিছু হবে না’। আমি যখন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি কোচিং করতে আসবো তখন আমার পরিবারকে অনেকেই মানা করেছে। বাবাকে সবাই বলতো, বাইরে পড়াশোনা করতে পাঠালে আমাকে নিয়ে সবাই নিয়ে ঠাট্টা করবে। জীবনে অনেকের অনেক কটু কথা শুনেছি তবুও আমি থেমে থাকিনি। সেগুলোকে পুঁজি করেই আজ আমি বিশ্ববিদ্যালয় অধ্যায়ন করছি।

কথাগুলো বলছিলেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) শিক্ষার্থী ফাহিমা আক্তার খুশি। তার বাম পা অনেকটা ছোট। শুধু ডান পায়ে ভর করে চলাফেরা করতে হয়। শারীরিক প্রতিবন্ধকতা সত্ত্বেও তিনি পড়াশোনা বাদ দেননি।

খুশি বিশ্ববিদ্যালয়ের লোকপ্রশাসন বিভাগের ২০১৯-২০ সেশনের শিক্ষার্থী। থাকেন মন্নুজান হলে। তিনি নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ থানার পানিয়াল পুকুরপাড়া গ্রামের ফজলুল হকের মেয়ে।

দুই ভাই ও এক বোনের মধ্যে খুশি সবার ছোট। গ্রামের স্কুল থেকে এসএসসি ও কিশোরগঞ্জ মহিলা কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করেন। অনেক প্রতিকূলতা পার হয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে পর্যন্ত আসতে হয়েছে তাকে।

ফাহিমা আক্তার খুশি জাগো নিউজকে বলেন, ‘আমার এক পা ছোট, স্বাভাবিকভাবে হাঁটতে পারি না। তাই বলে কি আমি স্বপ্ন দেখতে পারবো না? আমিই একদিন দেশকে নেতৃত্ব দেবো।’

এক পা দিয়ে বেশি চলাফেরা করলে প্রায় সময় অসুস্থ হয়ে পড়েন খুশি। তার এ সমস্যার কথা জানিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. গোলাম সাব্বির বরাবর একটি আবেদন করেছিলেন। তার শারীরিক সমস্যার কথা চিন্তা করে উপাচার্য তার নিজস্ব অর্থায়নে গত ২৭ ফেব্রুয়ারি একটি বাইসাইকেল কিনে খুশিকে উপহার দিয়েছিলেন।

বাইসাইকেল পেয়ে তার বিশ্ববিদ্যালয় জীবন কেমন যাচ্ছে জানতে চাইলে খুশি জাগো নিউজকে বলেন, ‘সাইকেল পেয়ে আমার চলাচল কিছুটা সহজ হয়েছে। যখন সাইকেল ছিল না তখন হেঁটে হেঁটে ক্লাস করতে আমার খুব পরিশ্রম হতো। মাঝে মাঝে পায়ের ব্যথায় শরীরে জ্বর আসতো। পায়ের ব্যথার কারণে রাতে পড়াশোনা ঠিকমতো হতো না। সাইকেল পাওয়ার পর থেকে আমার ক্লাস মিস হচ্ছে না এবং অসুস্থ কম হচ্ছি। সময়মতো ক্লাসে যেতে পারছি। এমনকী সাইকেল চালিয়ে রাতেও লাইব্রেরিতে যেতে পারছি।’

Fahima-2

এক পায়ে সাইকেল চালাতে সমস্যা হয় কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘মাঝে মাঝে সমস্যা হয়। বিভাগে ক্লাসের চাপ যখন বেশি থাকে তখন সাইকেল চালিয়ে সবগুলো ক্লাস করতে হয়। তখন মাঝে মাঝে পায়ে ব্যথা চলে আসে। ক্যাম্পাসে যেভাবে যানবাহন চলাফেরা করে তাতে ভয়ে থাকি কখন না জানি অ্যাকসিডেন্ট করে ফেলি।’

খুশির পরিবারের আর্থিক অবস্থা ভালো নয়। বাবা ফজলুল হকের বয়স হয়ে যাওয়ায় ঠিকমতো কাজ করতে পারেন না। কিছু জমি বর্গা দেওয়া আছে। তা থেকে যা আসে তা দিয়েই কোনোমতে সংসার চলছে। দুই ভাই বিয়ে করে আলাদা সংসার করছেন। পরিবারের খোঁজ নেন না।

আগে একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে মাসিক দুই হাজার টাকা বৃত্তি পেতেন খুশি। তবে সেটিও এখন বন্ধ রয়েছে। বর্তমানে বিভাগের এক বড় ভাই তাকে আর্থিকভাবে সহযোগিতা করছেন।

ফাহিমা আক্তার খুশি জাগো নিউজকে বলেন, ‘বর্তমানে আর্থিকভাবে খুব কষ্টে আছি। পরিবার থেকে তেমন টাকা-পয়সা দিতে পারছে না। আমি রাজশাহীর বিভিন্ন জায়গায় টিউশন খুঁজেও পাচ্ছি না। যখনই একটি টিউশন পাই তখন আমার প্রতিবন্ধকতার কথা জানতে পেরে না করে দেন। আমার পা ছোট, এটা কি আমার অপরাধ?’

তিনি বলেন, ‘জানি না আমার পরবর্তী ক্যাম্পাস জীবন কীভাবে চলবে। তবে আমি হাল ছাড়বো না। আমি আত্মনির্ভরশীল হতে চাই। আমি প্রতিবন্ধী, কিন্তু সমাজের প্রতিবন্ধী হয়ে থাকতে চাই না।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়াশোনা শেষ করে উচ্চপদস্থ কোনো সরকারি চাকরি করতে চান অদম্য এ মেধাবী।

খুশির বাবা ফজলুল হক জাগো নিউজকে বলেন, ‘মেয়েকে নিয়ে আমি গর্ববোধ করি। আমার খুশি এখন বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ে। তার এ সফলতা অন্য প্রতিবন্ধীদের এগিয়ে নিয়ে যাবে বলে আশা করি।’

লোকপ্রশাসন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক সপ্নীল রহমান জাগো নিউজকে বলেন, সাইকেলটি পাওয়ার পর থেকে সে খুব সহজে ক্লাস এবং বিভাগের সেমিনার লাইব্রেরিতে পড়ালেখা করতে পারে। এতে তার ক্লাসের পারফরম্যান্স আগের চাইতে অনেক উন্নত হয়েছে। সে যদি সবার থেকে এ ধরনের সহযোগিতা পায় তাহলে সে অনেক ভালো ফলাফল করবে বলে আমি আশাবাদী।

উপাচার্য অধ্যাপক ড. গোলাম সাব্বির সাত্তার জাগো নিউজকে বলেন, ছাত্র উপদেষ্টার কাছ থেকে খুশির প্রতিবন্ধকতার কথা জানতে পেরে খুশিকে একটি সাইকেল কিনে দেই। এখন বিকেলে হাঁটতে বের হলে যখন খুশিকে সাইকেল চালাতে দেখি তখন নিজের মধ্যে একটা ভালো লাগা কাজ করে। সে পড়াশোনাও ভালোভাবে চালিয়ে যাচ্ছে।


আরও খবর

ওয়ালটনে চাকরির সুযোগ

সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২




ত্রাণের জন্য হাহাকার, মানুষের প্রতি খেয়াল নেই সরকারের: নুর

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ৩০ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২ | ৩৬জন দেখেছেন
Image

গণঅধিকার পরিষদের সদস্য সচিব ও ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নুর বলেছেন, ত্রাণের জন্য হাহাকার, খাবারের জন্য হাহাকার করছে মানুষ। সেদিকে সরকারের কোনো খেয়াল নেই। গণমাধ্যমসহ সবকিছুকে পদ্মা সেতু নিয়ে ব্যস্ত রেখেছে সরকার।

বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) সকালে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে গণঅধিকার পরিষদ আয়োজিত ‘বন্যা, খরা ও পরিবেশ বিপর্যয় রোধে সরকারের ব্যর্থতা ও উদাসিনতার’ প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশে এ কথা বলেন তিনি।

নুরুল হক নুর বলেন, মানুষ খাবারের জন্য হাহাকার করছে, সেদিকে সরকার কর্ণপাত না করে গণমাধ্যমসহ সব কিছুকে ব্যস্ত রেখেছে পদ্মা সেতু নিয়ে। আমরা বারবার বলেছি, অবশ্যই পদ্মা সেতু আমাদের গর্বের প্রতীক। আমরা অবশ্যই পদ্মা সেতুর পক্ষে। কিন্তু এটা নিয়ে সরকার এত অতিকথন করেছে, যা নিয়ে দেশের মানুষ বিরক্ত হচ্ছে।

তিনি বলেন, আপনারা দেখেছেন দুই মাস ধরে টাকা-পয়সা খরচ করে প্রস্তুতি নিয়ে, কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়, সরকারি অফিসকে নির্দেশনা দিয়ে তারা ১০ লাখ মানুষকে নিয়ে একটা মহোৎসব করতে চেয়েছিল। কিন্তু দুর্ভাগ্য সেখানে ১ লাখ লোকও হয়নি। এ সরকারকে জনগণ প্রত্যাখ্যান করেছে, তাদের উপস্থিতি এ জানান দেয়।

এ সময় প্রতিবাদ সমাবেশে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, গণঅধিকার পরিষদের সদস্য যুগ্ম-আহ্বায়ক রাশেদ খানসহ অন্য নেতারা উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



কিউএস র‍্যাংকিং: সেরা ৮০০-তে নেই বাংলাদেশের কোনো বিশ্ববিদ্যালয়

প্রকাশিত:শনিবার ১১ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৩ জুলাই ২০২২ | ৬৫জন দেখেছেন
Image

যুক্তরাজ্যভিত্তিক শিক্ষা ও গবেষণা সংস্থা কোয়াককোয়ারেলি সায়মন্ডসের (কিউএস) বিশ্বসেরা ৮০০ বিশ্ববিদ্যালয়ের তালিকায় ঠাঁই পায়নি বাংলাদেশের কোনো বিশ্ববিদ্যালয়। র‍্যাংকিংয়ে টানা পঞ্চমবারের মতো ৮০১ থেকে ১০০০তম অবস্থানে রয়েছে উচ্চশিক্ষায় দেশসেরা দুই প্রতিষ্ঠান- ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) ও বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট)।

গত বুধবার (৮ জুন) প্রকাশিত ‘কিউএস ওয়ার্ল্ড ইউনিভার্সিটি র‍্যাংকিংস ২০২৩: টপ গ্লোবাল ইউনিভার্সিটিস’ শীর্ষক ইনডেক্স থেকে এসব তথ্য উঠে এসেছে।

সর্বশেষ এই র‍্যাংকিংয়ে গতবারের মতো এবারও ১০০১ থেকে ১২০০তম তালিকায় রয়েছে দেশের বেসরকারি দুই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান- ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয় ও নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়।

বিশ্বব্যাপী বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর র‍্যাংকিং মূল্যায়নকারী প্রতিষ্ঠান কিউএস তাদের এই র‍্যাংকিংয়ে সেরা ৫০০ এর পরে থাকা বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর সুনির্দিষ্ট কোনো অবস্থান প্রকাশ করে না। এ কারণে র‍্যাংকিংয়ে ঢাবি ও বুয়েটের অবস্থান সুনির্দিষ্ট নয়। অর্থাৎ এই দুটি বিশ্ববিদ্যালয় র‍্যাংকিংয়ের সেরা ১০০০ এর শেষ ২০০তে অবস্থান করছে।

এর আগে, কিউএসের ২০১৯, ২০২০, ২০২১ ও ২০২২ সালের প্রকাশিত র‍্যাংকিংয়ে ঢাবি ও বুয়েটের অবস্থান ছিল ৮০১ থেকে ১০০০ এর মধ্যে। ২০১৮ সালে বাংলাদেশ থেকে শুধু ঢাবি (৭০১-৭৫০তম) এই র‍্যাংকিংয়ে স্থান পায়।

jagonews24

কিউএসের এবারের র‍্যাংকিংয়ে বিশ্বের ১ হাজার ৪০০ বিশ্ববিদ্যালয়কে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। র‍্যাংকিংয়ে গত ১০ বছরের মতো এবারও প্রথম স্থানে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের ম্যাসাচুসেটস ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি (এমআইটি), দ্বিতীয় অবস্থানে যুক্তরাজ্যের কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় এবং তৃতীয় যুক্তরাষ্ট্রের স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়। এছাড়া চতুর্থ ও পঞ্চম অবস্থানে আছে যথাক্রমে যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় ও যুক্তরাষ্ট্রের হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়।

র‍্যাংকিংয়ে পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতের ৪৪টি ও পাকিস্তানের ১৩টি বিশ্ববিদ্যালয় স্থান পেয়েছে। এর মধ্যে ভারতের নয়টি ও পাকিস্তানের তিনটি বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে বিশ্বসেরা ৪০০ এর মধ্যে। এবার ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অব সাইন্সের অবস্থান ১৫৫তম, গতবার যেটি ১৮৬তম ছিল।

কিউএস ২০০৪ থেকে ২০০৯ সাল পর্যন্ত যুক্তরাজ্যভিত্তিক শিক্ষা সাময়িকী টাইমস হায়ার এডুকেশনের সঙ্গে যৌথভাবে সেরা বিশ্ববিদ্যালয়ের র‍্যাংকিং প্রকাশ করে। এরপর ২০১০ সালে আলাদা হয়ে এককভাবেই র‍্যাংকিং প্রকাশ করে আসছে সংস্থাটি।

কিউএসের প্রকাশিত সেরা বিশ্ববিদ্যালয়ের তালিকা বিশ্বব্যাপী সবচেয়ে গ্রহণযোগ্য র‍্যাংকিংগুলোর একটি। অ্যাকাডেমিক খ্যাতি, চাকরির বাজারে সুনাম, শিক্ষক-শিক্ষার্থী অনুপাত, শিক্ষকপ্রতি গবেষণ মানপত্র (Citation), আন্তর্জাতিক শিক্ষক ও শিক্ষার্থী অনুপাত, আন্তর্জাতিক গবেষণা নেটওয়ার্ক ও কর্মসংস্থান এই আটটি সূচকে বিশ্ববিদ্যালয়ের সামগ্রিক মান নিরূপণ করে কিউএস।

প্রতিটি সূচকে ১০০ নম্বর থাকে। সব সূচকের যোগফলের গড়ের ভিত্তিতে সামগ্রিক স্কোর নির্ধারিত হয়। তবে র‍্যাংকিংয়ে থাকা বাংলাদেশের চার বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনোটিরই সামগ্রিক স্কোর উল্লেখ করেনি কিউএস।


আরও খবর

ঢাবি ‘ক’ ইউনিটে সেরা যারা

সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২




সেন্টমার্টিনে পর্যটক কমানো কোনো প্রতিকার নয়, দাবি টোয়াবের

প্রকাশিত:শনিবার ১১ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ জুলাই ২০২২ | ৩১জন দেখেছেন
Image

পর্যটক আগমন সীমিতকরণ কোন প্রতিকার নয় বরং সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা ও মনিটরিংয়ের মাধ্যমে সেন্টমার্টিন দ্বীপকে আরও পর্যটকবান্ধব করে দেশের পর্যটন শিল্পের উন্নয়ন ও সেখানের স্থানীয় অধিবাসীদের শিক্ষা এবং অর্থনৈতিক উন্নয়নের মাধ্যমে সমৃদ্ধ জীবনমান গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখা সম্ভব বলে জানিয়েছে ট্যুর অপারেটরস এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (টোয়াব)।

পর্যটন শিল্পের উন্নয়নের স্বার্থে সেন্টমার্টিন ভ্রমণ সীমিত না করে বরং জীব-বৈচিত্র্য ও প্রাকৃতিক পরিবেশ অক্ষুণ্ণ রেখে দেশী-বিদেশী পর্যটকদের ভ্রমণ নিশ্চিতে অন্তত ৫ হাজার পর্যটক যেন যেতে পারে সেই ব্যবস্থা রেখে নীতিমালা প্রণয়ন করারও জোর দাবি জানান সংগঠনটির নেতারা।

শনিবার (১১ জুন) দুপুর ১২ টায় রাজধানীর শাহবাগে ঢাকা ক্লাবের স্যামসাং সেন্টারের তৃতীয় তলায় ‘পর্যটন বাঁচান, সেন্টমার্টিন বাঁচান’ শিরোনামে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তাঁরা।

অনুষ্ঠানে টোয়াবের সভাপতি শিবলুল আজম কোরেশী বলেন, বাংলাদেশের পর্যটনে আজ ক্রান্তিকাল চলতেছে। নানা অজুহাতে পর্যটন শিল্পকে বাঁধা দিতেই নতুন ধরনের পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে। সেন্টমার্টিনে পর্যটক শিল্পের বিকাশের কারণে কিছু সমস্যা হচ্ছে। তবে সেটাকে বাধাগ্রস্ত না করে সঠিক পরিকল্পনা নেওয়া উচিত।

সংবাদ সম্মেলনে এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন হোটেল ওনার্স এসোসিয়েশন অব সেন্টমার্টিন (হোস্ট) এর সাধারণ সম্পাদক আবু জাফর পাটোয়ারী, সী ক্রুজ অপারেটর ওনার্স এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (স্কোয়াব) সাধারণ সম্পাদক হোসাইন ইসলাম বাহাদুর, টোয়াবের প্রথম সহ-সভাপতি প্রফেসার এম. এ. রউফ, টোয়াবের পরিচালক-সদস্য ও ট্যুরিজম স্টেকহোল্ডাররা।


আরও খবর

ওয়ালটনে চাকরির সুযোগ

সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২