Logo
শিরোনাম

রদ্রিগোকে ব্রাজিলের ১০ নম্বর জার্সি দিতে চান নেইমার

প্রকাশিত:শনিবার ১৮ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২ | ৬৮জন দেখেছেন
Image

রিয়াল মাদ্রিদ উইঙ্গার রদ্রিগোকে মনে করা হয় ব্রাজিলের আগামী দিনের তারকা। মাত্র ২১ বছর বয়স তার। এরই মধ্যে ব্রাজিলের জার্সিতে ৫টি ম্যাচও খেলে ফেলেছেন তিনি। আশা করা হচ্ছে, তিতের বিশ্বকাপগামী দলের অন্যতম সদস্য হতে যাচ্ছেন সম্ভাবনাময়ী এই তারকা।

চ্যাম্পিয়ন্স লিগের কোয়ার্টার ফাইনালের ফিরতি পর্বে রিয়াল মাদ্রিদের বিদায়ই ঘটে গিয়েছিল প্রায়। সেই ম্যাচে বদলি হিসেবে নেমে হিসাব-কিতাব উল্টে দিয়েছিলেন রদ্রিগো। নিজে দুর্দান্ত গোলই করেননি শুধু, ম্যাচের চারচিত্র বদলে দিয়ে বেনজেমাকে দিয়েও গোল করিয়েছেন। এর ফলেই সেমিফাইনাল খেলেছিল রিয়াল।

সেই রদ্রিগোকে ব্রাজিল জাতীয় ফুটবল দলে নিজের ১০ নাম্বার জার্সিটি দিয়ে দিতে চান নেইমার। রদ্রিগো নিজেই জানিয়েছেন এই তথ্য। রদ্রিগো জানিয়েছেন, নেইমার চান তার ১০ নম্বার জার্সিটা যেন রদ্রিগোই বহন করেন।

নেইমারের মতোই রদ্রিগো তার ক্যারিয়ার শুরু করেছেন ব্রাজিলিয়ান ক্লাব সান্তোসের হয়ে। রিয়াল মাদ্রিদের এই তারকা বলেন, ‘নেইমার আমাকে বলেছেন যে, আমি এরই মধ্যে জাতীয় দল থেকে প্রায় চলে যাওয়ার মুহূর্তে রয়েছি। আশা করি ১০ নাম্বার জার্সিটা হবে তোমার।’

‘আমি আসলে এ কথার জবাবে তাকে কী বলবো বুঝতে পারছি না। তার কথায় আমি বিব্রতবোধ করেছি এবং হাসছি। ওই সময় বুঝতে পারছিলাম না, কী বলবো। আমি শুধু তাকে বলেছি, অবশ্যই তিনি জাতীয় দলের হয়ে আরও খেলবেন। এই মুহূর্তে এই জার্সিটা আমার দরকার নেই। আমার কথা শুনে তিনি হেসে উঠলেন।’

আইকনিক ১০ নাম্বার জার্সিটি ব্রাজিলের হয়ে পরিধান করেছেন পেলে, জিকো, রিভালদো, রোনালদিনহো এবং এরপর নেইমার।

৩০ বছর বয়সী নেইমার এরই মধ্যে ব্রাজিলের হয়ে ৭৪টি গোল করে ফেলেছেন। ব্রাজিলের হয়ে পেলের সর্বোচ্চ ৭৭ গোলের চেয়ে মাত্র ৩ গোল পিছিয়ে রয়েছেন তিনি। এরই মধ্যে অবশ্য বলে দিয়েছেন, কাতার বিশ্বকাপই হবে ব্রাজিলের জার্সিতে তার সর্বশেষ বিশ্বকাপ।

শুধু নেইমারই নন, রদ্রিগো সম্পর্কে মন্তব্য করেছেন আরও অনেকেই। এর মধ্যে রিয়ালের সাবেক কোচ জিনেদিন জিদানও রয়েছেন। রদ্রিগো বলেন, ‘জিদান একদিন মন্তব্য করেছেন, আমিই হবো এক সময় বিশ্বের সেরা ফুটবলার। আনচেলত্তিও (রিয়ালর বর্তমান কোচ) আমার সম্পর্কে বলেছেন। আমি অনুশীলন করে যাচ্ছি এবং চেষ্টা করছি, নিজেকে আরও উন্নত করার। আমি খুবই খুশি।’


আরও খবর



ডেসটিনির ৪৫ জনের সাজা: দুদক ও হারুনের আপিল শুনানি হবে একসঙ্গে

প্রকাশিত:সোমবার ১৩ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৩ জুলাই ২০২২ | ৩৫জন দেখেছেন
Image

অর্থ আত্মসাৎ ও পাচারের মামলায় চার বছরের সাজাপ্রাপ্ত ডেসটিনি গ্রুপের চেয়ারম্যান সাবেক সেনাপ্রধান হারুন-অর-রশিদসহ ৪৫ জনকে বিচারিক আদালতের দেওয়া সাজা বাড়ানোর জন্যে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) করা আপিল শুনানির জন্যে গ্রহণ করেছেন হাইকোর্ট। এছাড়া নিম্ন আদালতের দেওয়া কারাদণ্ড এড়াতে সাবেক সেনাপ্রধান হারুন-অর-রশিদের করা আবেদন শুনানির জন্য গত ৯ জুন গ্রহণ করেছিলেন হাইকোর্ট।

এখন পৃথক দুই আবেদন একসঙ্গে শুনানির আদেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।

বিষয়টি রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একেএম আমিন উদ্দিন মানিক জাগো নিউজকে নিশ্চিত করেছেন।

সোমবার (১২ জুন) হাইকোর্টের বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কাজী মো. ইজারুল হক আকন্দের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এই আদেশ দেন।

আদালতে আজ দুদকের আপিলের পক্ষে শুনানি করেন দুদকের জ্যেষ্ঠ আইনজীবী মো. খুরশীদ আলম খান। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একেএম আমিন উদ্দিন মানিক।

দুদকের জ্যেষ্ঠ আইনজীবী মো. খুরশীদ আলম খান বলেন, কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক রফিকুল আমীনকে দেওয়া হয়েছে ১২ বছরের দণ্ড। বাকিদের বিভিন্ন মেয়াদে কম দণ্ড দেওয়া হয়েছে। অথচ এটা হলো অর্গানাইজড ক্রাইম। এখানে কম বেশি দেওয়ার সুযোগ নেই। তাই রফিকুল আমীন ছাড়া বাকি ৪৫ কজনের দণ্ড বাড়ানোর জন্যে আপিল আবেদন করা হয়েছিল হাইকোর্টে। হারুন অর-রশিদের চার বছরের দণ্ড থেকে খালাস চেয়ে করা আপিল ও আমাদের পক্ষ থেকে ৪৫ জনের দণ্ড বাড়ানোর (দুদকের করা আপিল) ওই আবেদন শুনানি নিয়ে দুটি আপিল একত্রে শুনানির জন্যে রেখেছেন আদালত।

এর আগে আত্মসাৎ ও অর্থপাচারের মামলায় চার বছরের দণ্ড থেকে খালাস চেয়ে হাইকোর্টে আপিল করেন হারুন-অর-রশিদ। গত বৃহস্পতিবার (৯ জুন) হারুন-অর-রশীদের আপিল শুনানির জন্য গ্রহণ করে আদেশ দেন হাইকোর্ট। তবে তার জামিন চেয়ে করা আবেদন খারিজ করেছেন উচ্চ আদালত।

এর পরে গত ১২ জুন ৪৫ জনকে বিচারিক আদালতের দেওয়া সাজা বাড়ানোর নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় আপিল করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

গত ১২ মে বিচারিক আদালতে এ মামলার রায় হয়। তাতে ব্যবস্থাপনা পরিচালক রফিকুল আমীনসহ ৪৬ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড ও তাদের মোট ২ হাজার ৩০০ কোটি টাকা জরিমানা করা হয়। এর মধ্যে হারুন-অর-রশীদকে দেওয়া হয় চার বছরের কারাদণ্ড ও সাড়ে ৩ কোটি টাকা জরিমানা করা হয়। অনাদায়ে ছয় মাস কারাদণ্ড। এ রায়ের বিরুদ্ধে ও জামিন চেয়ে হাইকোর্টে আপিল করেছেন তিনি। বাকিদের আপিলের খবর পাওয়া যায়নি।

২০১২ সালের ৩১ জুলাই দুদকের উপ-পরিচালক মো. মোজাহার আলী সরদার ও সহকারী পরিচালক মো. তৌফিকুল ইসলাম রাজধানীর কলাবাগান থানায় ডেসিটিনির কর্তব্যরত অন্যদের বিরুদ্ধে ডেসটিনি মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ সোসাইটি এবং ডেসটিনি ট্রি প্লান্টেশন প্রজেক্টের অর্থ আত্মসাতের দুটি মামলা করেন।

তদন্ত শেষে ২০১৪ সালের ৫ মে দুদক আদালতে উভয় মামলার অভিযোগপত্র দেওয়া হয়। এর মধ্যে ডেসটিনি মাল্টিপারপাস কো-অপারেটিভ সোসাইটির মামলায় ৪৬ জন এবং ডেসটিনি ট্রি প্ল্যানটেশন লিমিটেডে দুর্নীতির মামলার ১৯ জনকে আসামি করা হয়। হারুন-অর-রশিদ ও রফিকুল আমিন দুই মামলাতেই আসামি।

বিচারিক আদালতের দেওয়া রায়ে রফিকুল আমিনকে ১২ বছর কারাদণ্ড এবং ২০০ কোটি টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও ৩ বছরের সাজা দেওয়া হয়েছে। বাকিদের বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দেওয়া হয়। ৪৬ আসামির মধ্যে ৩৯ জন আসামি পলাতক। পলাতকদের বিষয়ে গত ৯ জুন গ্রেফতারি পরোয়ানা ও রেড অ্যালার্ট জারির নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট।


আরও খবর



প্রতিবন্ধীদের ভাতা ন্যূনতম ২ হাজার টাকা করার দাবি

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৬ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২ | ৪০জন দেখেছেন
Image

২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেটে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের ভাতা ন্যূনতম দুই হাজার টাকা করার দাবি জানিয়েছেন প্রতিবন্ধীদের অধিকার নিয়ে কাজ করা ছয়টি সংগঠনের নেতাকর্মীরা। পাশাপাশি এবারের বাজেটে শতভাগ প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তি, ভাতা, চাকরিতে নিয়োগ এবং কর্মসংস্থান নিশ্চিত করার জন্য বিশেষ নীতিমালা প্রণয়নের দাবি জানানো হয়।

বৃহস্পতিবার (১৬ জুন) সকালে রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবের আব্দুস সালাম হলে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব দাবি জানান তারা।

এ সময় বক্তারা বলেন, ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেটে মন্ত্রণালয়ভিত্তিক প্রতিবন্ধী ব্যক্তি সংবেদনশীল বাজেটের প্রতিফলন নেই। দেশের ইতিহাসের সবচেয়ে বেশি প্রতিবন্ধী ব্যক্তিবান্ধব সরকারের কাছে এমন বাজেট হতাশাজনক।

প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের সংগঠনগুলোর পক্ষে বি-স্ক্যান ও পিএনএসপির সাধারণ সম্পাদক সালমা সালমা মাহবুব লিখিত বক্তব্যে বলেন, বাজেট মানে সংখ্যাগত বা পরিসংখ্যানগত তথ্য বা তত্ত্বের আড়ম্বরতা নয়। একটি বাজেট হচ্ছে সরকারের অর্থনৈতিক দর্শনের প্রতিবিম্ব। ২০১৮ সালে প্রতিবন্ধী ব্যক্তি ভাতা ৭৫০ টাকা করার সময় মাথাপিছু গড় আয় ছিল ১ হাজার ৭৫১ ডলার এবং ৭৫০ টাকায় ২০ কেজি মোটা চাল পাওয়া যেত। ২০২২ সালে যখন ভাতা বাড়িয়ে ৮৫০ টাকা করা হচ্ছে তখন মাথাপিছু আয় ২ হাজার ৮২৪ ডলার এবং ৮৫০ টাকায় ১৭ কেজি মোটা চাল পাওয়া যায়। অথচ সরকার ২০১৫ সালে জাতীয় সামাজিক সুরক্ষা কৌশলপত্রে ২০২০ সালের মধ্যে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের ভাতা ১ হাজার ৫০০ টাকা করার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল। অন্যদিকে সরকারের অষ্টম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনায় ২০২৫ সালের মধ্যে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের ভাতা ৩ হাজার টাকায় উন্নীত করার প্রতিশ্রুতি রয়েছে। যেখানে আগের প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী ১ হাজার ৫০০ টাকা ভাতা পূরণের কোনো লক্ষণই দেখা গেলো না, সেখানে আগামী তিন বছরে এ ভাতা ৩ হাজার টাকায় উন্নীত করা হবে কি না তা আমরা জানি না।

সালমা মাহবুব আরও বলেন, সরকার ‘অসচ্ছল প্রতিবন্ধী ভাতা’ নামটি সংস্কার করে ‘প্রতিবন্ধী ব্যক্তি ভাতা’ করলেও সরকারি নথিতে তা বাস্তবায়নের কোনো লক্ষণ নেই। এছাড়া ‘সামাজিক সুরক্ষায় একজনকে একটির বেশি সুবিধা দেওয়া যাবে না’ নীতির কারণে অনেক প্রতিবন্ধী ব্যক্তি শিক্ষা উপবৃত্তি বা ভাতা যে কোনো একটি পান, যা চরম বৈষম্যমূলক। তিন বছর ধরে প্রতিবন্ধী শিক্ষা উপবৃত্তির বরাদ্দ ও উপকারভোগীর সংখ্যা একই স্থানে থেমে রয়েছে। গুরুতর প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের মধ্যে যাদের ব্যক্তিগত সহায়তাকারীর প্রয়োজন তাদের অমানবিক জীবনযাপন করতে হচ্ছে। তাই তাদের অতিরিক্ত খরচ বিবেচনা করে ব্যক্তিগত সহায়তাকারি ভাতা প্রণয়নের আহ্বান জানাচ্ছি।

করোনা পরিস্থিতি ও জি২পি পদ্ধতি চালু করার দুই বছর পেরিয়ে গেলেও ভাতা পেতে দীর্ঘসূত্রিতা এখনো কাটেনি জানিয়ে সালমা মাহবুব বলেন, সাধারণ নাগরিকেরা প্রত্যাশা করে সরকার হবে গরিবের। অথচ আমরা দেখতে পাচ্ছি, সামাজিক সুরক্ষাখাত থেকে সরকারি কর্মচারীদের পেনশন, জাতীয় সঞ্চয়পত্রের সুদ এবং এমনকি প্রণোদনার অর্থও দেওয়া হলেও বঞ্চিত হচ্ছেন প্রান্তিক, দরিদ্র প্রতিবন্ধী ব্যক্তিরা। তাহলে প্রশ্ন এসেই যায় যে, সামাজিক সুরক্ষা খাত কি আসলেই শুধু দরিদ্রদের জন্য? সরকার দেশের ১ কোটি পরিবারকে ফ্যামিলি কার্ড দিচ্ছে। কিন্তু এ কার্যক্রমে প্রতিবন্ধী ব্যক্তি বা তার পরিবারের যুক্ত হওয়ার কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি। এমনকি বাংলাদেশ ব্যাংক তাদের ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তাদের তথ্যভাণ্ডারে নারী ও পুরুষ উদ্যোক্তাদের তথ্য রাখলেও প্রতিবন্ধী উদ্যোক্তাদের কোনো তথ্য নেই।

এ সময় চলতি ২০২২-২৩ বাজেটে জাতীয় সংসদের বিবেচনার জন্য ১২টি দাবি তুলে ধরেন সালমা মাহবুব।

দাবিগুলো হলো: ১। ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেটেই প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের ভাতা ন্যূনতম ২,০০০ (দুই হাজার) টাকা করতে হবে।

২। ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেটেই শতভাগ প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের শিক্ষা উপবৃত্তি ও প্রতিবন্ধী ব্যক্তি ভাতা, উভয়ই নিশ্চিত করতে বরাদ্দ বৃদ্ধি করতে হবে।

৩। অবিলম্বে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া প্রতিশ্রুতি- প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের চাকরিতে নিয়োগ এবং কর্মসংস্থান নিশ্চিতকরণে বিশেষ নীতিমালা প্রণয়ন করতে হবে।

৪। সরকারি-বেসরকারি সব সেবার তথ্যভাণ্ডারে প্রতিবন্ধিতা বিভাজিত তথ্য রাখতে হবে।

৫। প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের প্রবেশগম্যতা নিশ্চিতে সুনির্দিষ্ট বাজেট বরাদ্দ করতে হবে।

৬। মন্ত্রণালয়ভিত্তিক প্রতিবন্ধী ব্যক্তি সংবেদনশীল বাজেট বাস্তবায়নে বরাদ্দ দিতে হবে।

৭। নিউরো ডেভেলপমেন্টাল প্রতিবন্ধী সুরক্ষা ট্রাস্ট (এনডিডি ট্রাস্ট), জাতীয় প্রতিবন্ধী উন্নয়ন ফাউন্ডেশন (জেপিইউএফ) ও শারীরিক প্রতিবন্ধী সুরক্ষা ট্রাস্টে মাধ্যমে গুরুতর প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের জন্য ব্যক্তিগত সহায়তাকারী (পরিচর্যাকারী/ব্যক্তিগত সহায়ক) ভাতা চালু করতে হবে।

৮। প্রতিবন্ধী ব্যক্তির করমুক্ত আয়সীমা ৪ লাখ ৫০ হাজার টাকা থেকে ৬ লাখ টাকায় উন্নীত করতে হবে।

৯। কর্মস্থলে ঝুঁকি বিমার গাইডলাইনে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের অগ্রাধিকার নিশ্চিত করতে হবে।

১০। প্রতিবন্ধী ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের জন্য নতুন প্রকল্প চালু করতে হবে।

১১। ভালো ফলাফল করে উচ্চশিক্ষায় উত্তীর্ণ প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের ৩ বছরের জন্য বেকারভাতা চালু করতে হবে।

১২। অবিলম্বে প্রতিবন্ধী ব্যক্তি উন্নয়ন অধিদপ্তর বাস্তবায়ন করে প্রতিবন্ধী ব্যক্তি সংগঠন ও অভিভাবক সংগঠনের কার্যক্রমকে বেগবান করতে এবং প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের আরও সংগঠিত করতে সংগঠনগুলোর প্রতিটি কার্যক্রমের ব্যাপকতা অনুযায়ী সরকারি তহবিল থেকে প্রতি বছর ১০ লাখ টাকা পর্যন্ত অনুদান দিতে হবে।

সংবাদ সম্মেলনে আরও বক্তব্য দেন এবিএফের প্রতিষ্ঠাতা ও জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি মহুয়াপাল, ডিসিএফের সভাপতি হারুনউর রশীদ, নির্বাহী পরিচালক নাসরিন জাহান, ডিডিপির সভাপতি জাকির হোসেন প্রমুখ।


আরও খবর



হাওরে ঘুরতে গিয়ে ট্রলার থেকে নিখোঁজ ছাত্রলীগ নেতা

প্রকাশিত:বুধবার ১৫ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ জুলাই ২০২২ | ৩৩জন দেখেছেন
Image

কিশোরগঞ্জের ইটনা-মিঠামইন হাওরে বন্ধুদের সঙ্গে ঘুরতে গিয়ে ট্রলার থেকে নিখোঁজ হয়েছেন মো. হাবিবুল্লাহ হাবিব (২৮) নামের এক ছাত্রলীগ নেতা।

মঙ্গলবার (১৪ জুন) সন্ধ্যায় হাওর থেকে ফেরার পথে এ ঘটনা ঘটে। নিখোঁজ হাবিব সদর উপজেলা মারিয়া ইউনিয়নের মারিয়া গ্রামের হাজী ইদ্রিস আলীর ছেলে এবং ইউনিয়ন ছাত্রলীগের আহ্বায়ক। তিনি ওয়ালী নেওয়াজ খান কলেজের স্নাতক বর্ষের ছাত্র।

স্বজনরা জানান, মঙ্গলবার সকালে ৯ বন্ধুকে নিয়ে ইটনা-মিঠামইন হাওরের অলওয়েদার সড়কে ঘুরতে যান হাবিব। হাওর ভ্রমণ শেষে সন্ধ্যায় ইঞ্জিনচালিত ট্রলারে করিমগঞ্জ উপজেলার বালিখলা ঘাটে ফেরার পথে কোনো এক যায়গায় তিনি নৌকা থেকে পড়ে যান।

তার বন্ধুরা জানান, বালিখলা ঘাটে আসার পর তাকে পাওয়া যায়নি। খবর পেয়ে রাতেই কিশোরগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের একটি ডুবুরি দল হাওরে গেছে।

মারিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মুজিবুর রহমান হলুদ জাগো নিউজকে বলেন, ‘হাবিব মারিয়া ইউনিয়ন ছাত্রলীগের আহ্বায়ক। হাওর থেকে ফেরার সময় প্রচণ্ড বাতাসের সময় ঝাঁকুনিতে সে হয় তো নৌকা থেকে পড়ে গেছে বলে তার বন্ধুরা আমাকে জানিয়েছে।’

কিশোরগঞ্জ ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন কর্মকর্তা আবুজর গিফারী জাগো নিউজকে বলেন, ‘রাতেই একটি ডুবুরি দলকে হাওরে পাঠানো হয়েছে। তবে হাবিব হাওরের কোন অংশে পড়ে নিখোঁজ হয়েছেন জানা যায়নি। তাই বুধবার সকাল থেকে তাকে উদ্ধারে অভিযান চালানো হবে।’


আরও খবর



চাকরির সুযোগ দিচ্ছে স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক

প্রকাশিত:রবিবার ০৩ জুলাই ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২ | ২৩জন দেখেছেন
Image

স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক লিমিটেডে ‘হেড অব প্রকিউরমেন্ট’ পদে জনবল নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহীরা আগামী ১৬ জুলাই পর্যন্ত আবেদন করতে পারবেন।

প্রতিষ্ঠানের নাম: স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক লিমিটেড

পদের নাম: হেড অব প্রকিউরমেন্ট
পদসংখ্যা: ০১ জন
শিক্ষাগত যোগ্যতা: স্নাতকোত্তর
অভিজ্ঞতা: ১০ বছর
বেতন: আলোচনা সাপেক্ষে

চাকরির ধরন: ফুল টাইম
প্রার্থীর ধরন: নারী-পুরুষ
বয়স: নির্ধারিত নয়
কর্মস্থল: ঢাকা

আবেদনের নিয়ম: আগ্রহীরা jobs.bdjobs.com এর মাধ্যমে আবেদন করতে পারবেন।

আবেদনের শেষ সময়: ১৬ জুলাই ২০২২

সূত্র: বিডিজবস ডটকম


আরও খবর



ঈদের পর একমাসের মধ্যে বিএনপিকে সুসংগঠিত করবো: সাক্কু

প্রকাশিত:শনিবার ২৫ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৩ জুলাই ২০২২ | ৪২জন দেখেছেন
Image

আসন্ন ঈদুল আজহার পর একমাসের মধ্যে কুমিল্লা মহানগর বিএনপিকে সুসংগঠিত করার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের (কুসিক) দুইবারের সাবেক মেয়র মনিরুল হক সাক্কু।

শনিবার (২৫ জুন) বিকেলে সাবেক নৌপরিবহনমন্ত্রী কর্নেল আকবর হোসেনের (বীর প্রতীক) ১৬তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে নগরীর নানুয়া দিঘীরপাড়ে নিজ বাসভবনে আয়োজিত দোয়া মাহফিলে দেওয়া বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

সাক্কু বলেন, কোরবানির ঈদের পর এক মাসের মধ্যে কুমিল্লা মহানগর বিএনপিকে সুসংগঠিত করা হবে। আমি বিএনপিকে ছাড়িনি, বিএনপিও আমাকে ছাড়েনি। বিএনপিতে আমার অবদান কেউই অস্বীকার করবে না। আমি একমাস কাজ করলে বিএনপি আগের থেকে অনেক বেশি শক্তিশালী হয়ে উঠবে।

jagonews24

তিনি আরও বলেন, আমি এমপি বাহার সাহেবের মতো রাঘব বোয়ালের সঙ্গে লড়াই করেছি। ভয় পাইনি, আমি ভয় পাইও না। যদি দেশে ইলেকশন (নির্বাচন) হয় তবে আমি বাহারের বিপক্ষে এমপি পদেও লড়াই করবো। আমি ডরানোর লোক না।

এসময় কুমিল্লা মহানগর এবং দক্ষিণ জেলা বিএনপি ও এর অঙ্গসংগঠনের কয়েকশো নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন। পরে মরহুম কর্নেল আকবর হোসেনের রুহের মাগফিরাত কামনা করে মোনাজাত করা হয়। আকবর হোসেন মনিরুল হক সাক্কুর ফুফাতো ভাই ছিলেন।


আরও খবর