Logo
শিরোনাম

‘শব্দদূষণ মানবাধিকারের স্পষ্ট লঙ্ঘন’

প্রকাশিত:শনিবার ১১ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২ | ৬৬জন দেখেছেন
Image

শব্দদূষণ মানবাধিকারের স্পষ্ট লঙ্ঘন বলে মন্তব্য করেছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মুস্তাফিজুর রহমান। তিনি বলেন, নির্মাণ কাজও শব্দদূষণের জন্য দায়ী। ম্যাস পিপলকে (গণমানুষ) সচেতন করে এবং সব স্টেকহোল্ডারের সঙ্গে সমন্বিত কাজের মাধ্যমে এই সমস্যার সমাধান বলেও জানান তিনি।

শনিবার (১১ জুন) জাগো নিউজের কনফারেন্স রুমে ‘শব্দদূষণের বিরূপ প্রভাব ও প্রতিকার’ শীর্ষক গোলটেবিল বৈঠকে তিনি এসব কথা বলেন।

জাগো নিউজের ডেপুটি এডিটর ড. হারুন রশীদের সঞ্চালনায় বৈঠকে উপস্থিত বিশেষজ্ঞরা শব্দদূষণের বিভিন্ন দিক ও প্রতিকার নিয়ে আলোচনা করেন।

এসময় ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) ট্রাফিক বিভাগের অতিরিক্ত কমিশনার মো. মুনিবুর রহমান বলেন, নিঃসন্দেহে ট্রাফিক পুলিশের সদস্যরা শব্দদূষণে অনেক ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন। উন্নত দেশগুলোতে যারা গণপরিবহন চালান তাদের বেশিরভাগই শিক্ষিত। আমাদের দেশে যারা গণপরিবহন বা সেমি হায়ার লেভেলে যারা গাড়ি চালান তারা একেবারেই কম শিক্ষিত বা অক্ষরজ্ঞানশূন্য। এজন্য তাদের জাজমেন্ট, অ্যাডুকেশন ও সেন্সিবিলিটি লেভেল সম্পর্কে ভেবে দেখা দরকার।

তিনি জানান, রাজধানীতে যানবাহন নিয়ন্ত্রণের টেকনিক্যাল বিষয়গুলো শুধুমাত্র সিটি করপোরেশন দেখে। সার্বিক বিষয়ে ডিএমপির ট্রাফিক বিভাগের সঙ্গে পরামর্শের আহ্বান জানান তিনি। শব্দদূষণ কমাতে ঢাকা শহরে ইউলুপ এবং যানচলাচলের জন্য স্পেস বাড়ানোর ওপর জোর দেন তিনি। একইসঙ্গে রাজধানীতে যথাস্থানে ফুটওভার ব্রিজ নির্মাণের কথা বলেন তিনি।

স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের সভাপতি ও বায়ুমণ্ডলীয় দূষণ অধ্যয়ন কেন্দ্রের (ক্যাপস) প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক অধ্যাপক ড. আহমদ কামরুজ্জামান মজুমদার বলেন, শব্দদূষণ নিরব ঘাতক। আমাদের শহরে নীরব ঘাতকের সরব উপস্থিতি রয়েছে। শব্দদূষণ সবচেয়ে বেশি হয় যানবাহন থেকে। এরপর দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে নির্মাণকাজ। ঢাকা শহরে সবচেয়ে বেশি শব্দদূষণ এলাকার মধ্যে আছে জিরো পয়েন্ট ও পল্টন এলাকা। এছাড়া গুলশান-২ এ দূষণের মাত্রা বেশি।

তিনি বলেন, একটি ভবনের সঙ্গে আরেকটি ভবনের যে দূরত্ব থাকা দরকার ছিল গুলশানে সে দূরত্ব রাখা হয়নি। এছাড়া ইট ও কংক্রিটের পাশাপাশি গ্লাস ব্যবহার করার কারণে এসব জায়গায় অনেক বেশি ইকো (প্রতিধ্বনি) হয়। এছাড়া উচ্চবিত্তের এলাকা হওয়ার কারণে তারা অল্প যানযটেই অস্থির হয়ে পড়েন এবং হর্ন বাজিয়ে থাকেন। এসব কারণে সেখানে শব্দদূষণ বেশি হচ্ছে। সম্মিলিতভাবে পজিটিভ মেন্টালিটি নিয়ে এগিয়ে আসলে শব্দদূষণ কমে যাবে বলে জানান তিনি।

বৈঠকে জাগো নিউজের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক কে এম জিয়াউল হক বলেন, শব্দদূষণ নিয়ে আমরা একাধিক সংবাদ প্রকাশ করেছি। পরিবহনের কারণে সবচেয়ে বেশি শব্দদূষণ হচ্ছে। এই দূষণের সবচেয়ে বড় ভুক্তভোগী ট্রাফিক পুলিশ ও শিক্ষার্থীরা। অতিরিক্ত শব্দদূষণের কারণে ট্রাফিক পুলিশে কর্মরতরা ৮ থেকে ১০ ঘণ্টা ডিউটি শেষ করে যখন বাসায় যান, তখন তারা স্বাভাবিক কাজ করতে পারেন না। ট্রাফিক পুলিশ সদস্যদের প্রায় ৬৫ শতাংশের শ্রবণশক্তি কমে গেছে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) হেমাটোলজি বিভাগের অধ্যাপক ডা. মামুন আল মাহতাব স্বপ্নীল বলেন, আমি লিভার বিশেষজ্ঞ, এজন্য সাধারণত লিভারের বাইরে পেটের সমস্যার ক্ষেত্রেও কথা বলি না। তবে আমার কাছে মনে হয়েছে, শব্দদূষণ একটি সর্বজনীন সমস্যা। আমরা আমিত্বে ভুগি। সেখান থেকে বেরিয়ে এসে সর্বজনীনভাবে যেটা ভালো, সেদিকটা দেখতে হবে। আইন প্রণয়ণ করে শব্দদূষণ সমস্যার সমাধান করা সম্ভব না। এ সমস্যা সমাধানে সবার দায়িত্ব ও সচেতনতা গুরুত্বপূর্ণ।

পরিবেশ বাঁচাও আন্দোলনের (পবা) চেয়াম্যান আবু নাসের খান বলেন, শব্দদূষণের সঙ্গে অনেককিছু যুক্ত। আমাদের ইকোসিস্টেমের দিকে চিন্তা করতে হবে। আইন বাস্তবায়নকারীদের মধ্যে সমন্বয় করতে হবে। শব্দদূষণ কমাতে সমন্বিত পরিকল্পনা করার কথা বলেন তিনি।

‘শব্দদূষণ মানবাধিকারের স্পষ্ট লঙ্ঘন’

মনোবিজ্ঞানী নুজহাত ই রহমান বলেন, আমাদের বডি সিস্টেম শব্দকে এক ধরনের বিপদ মনে করে। দীর্ঘসময় ধরে শব্দ মানে যেকোনো সময় বিপদ আসতে পারে। প্রচণ্ড যানজটে আমাদের প্রত্যেকের মধ্যে এক ধরনের হিংস্র অবস্থার সৃষ্টি হচ্ছে।

তিনি বলেন, হর্ন বাজানোর সঙ্গে একজন গাড়িচালকের জীবিকাও জড়িত। কারণ ধীরে গাড়ি চালালে তার আর্থিক ক্ষতি হবে। শব্দদূষণের সমস্যা সমাধানে তিনিও সম্মিলিতভাবে কাজ করার আহ্বান জানান।

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআরটিএ) সহকারী পরিচালক মো. শহীদুল আজম বলেন, হাইড্রোলিক হর্ন ক্ষতিকর এবং দূরপাল্লার রুটের যানবাহনে এ হর্ন বেশি ব্যবহার হয়। আমরা মাঝে মাঝে অভিযান চালিয়ে হাইড্রোলিক হর্ন খুলে নেই। কিছুদিন পর আবারও চালকরা তা ব্যবহার করা শুরু করেন। যেহেতু হাইড্রোলিক হর্ন আমদানির ওপর নিষেধাজ্ঞা নেই, তাই তারা সহজেই তা ব্যব হার করতে পারেন। এটা স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর বলেও তিনি জানান।

বৈঠকে বাংলাদেশ যাত্রী কল্যাণ সমিতির মহাসচিব মোজাম্মেল হক চৌধুরী বলেন, আমি যাত্রীদের অধিকার নিয়ে কাজ করছি, তবে শব্দদূষণ নিয়ে কাজ করা হয়নি। শব্দদূষণে রাস্তার আশপাশের দোকানদাররাও বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন। এ অবস্থায় জাগো নিউজের এ আয়োজনকে তিনি সাধুবাদ জানান। এ অবস্থার পরিবর্তন না হওয়া পর্যন্ত এ নিয়ে কাজ করার জন্য সবার প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

বৈঠকের শুরুতেই শব্দদূষণ নিয়ে গবেষণামূলক প্রতিবেদন থেকে তথ্য-উপাত্ত উপস্থাপন করেন জাগো নিউজের নিজস্ব প্রতিবেদক তৌহিদুজ্জামান তন্ময়।

গোলটেবিল বৈঠকটি জাগো নিউজের ফেসবুক পেজ ও ইউটিব চ্যানেলে সরাসরি সম্প্রচার করা হয়েছে। আয়োজনের সহযোগিতায় ছিল দেশীয় ব্র্যান্ড ‘দুরন্ত বাইসাইকেল’। শব্দদূষণের বিরুদ্ধে তারা সম্প্রতি ‘শব্দত্রাস’ শিরোনামে সচেতনতামূলক প্রচারণা শুরু করেছে।


আরও খবর



রাবির কোনো শিক্ষার্থীর মৃত্যু হলে পরিবার পাবে ২ লাখ টাকা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৮ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২ | ৩৫জন দেখেছেন
Image

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) নিয়মিত সব শিক্ষার্থীকে স্বাস্থ্য ও জীবন বিমার আওতায় আনা হচ্ছে। বছরে এককালীন ২৫০ টাকার বিনিময়ে ১ জুলাই থেকে তালিকাভুক্ত যে কোনো হাসপাতালে চিকিৎসা নেওয়ার সুযোগ পাবেন তারা। কোনো শিক্ষার্থীর মৃত্যু হলে তার পরিবার পাবেন ২ লাখ টাকা।

মঙ্গলবার (২৮ জুন) দুপুর ১২টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ তাজউদ্দীন আহমেদ সিনেট ভবনে স্বাস্থ্য ও জীবন বিমা প্রকল্প সংক্রান্ত অনুষ্ঠানে এসব তথ্য জানানো হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. গোলাম সাব্বির সাত্তারের সভাপতিত্বে এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন উপ-উপাচার্য, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের বিভিন্ন কর্মকর্তা, বিভিন্ন বিভাগের সভাপতি ও শিক্ষক-শিক্ষার্থী এবং জেনিথ ইসলামী লাইফ ইনস্যুরেন্স লিমিটেডের কর্মকর্তা।

অনুষ্ঠানে বলা হয়েছে, রাবিতে অধ্যয়নরত নিয়মিত শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য ও জীবন বিমা প্রকল্পটি ১ জুলাই থেকে শুরু হবে। এর জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের নিয়মিত সব শিক্ষার্থীকে বাৎসরিক প্রিমিয়াম ২৫০ টাকা ভর্তি ফির সঙ্গে দিতে হবে।

বিমার আওতায় একজন শিক্ষার্থী হাসপাতালে ভর্তিকালীন চিকিৎসার ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ৮০ হাজার টাকার সুযোগ সুবিধা পাবেন। এ টাকা প্রতি তিন মাস পরপর বছরে চারবার পেতে পারেন। কোনো শিক্ষার্থীর মৃত্যু হলে তার অভিভাবক ২ লাখ টাকা পাবেন।

এছাড়া বহির্বিভাগের চিকিৎসার ক্ষেত্রে একজন শিক্ষার্থী বছরে ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত পাবেন। একদিনের বিল হলেও ২০ হাজার টাকা পাবেন। আবার প্রতিমাসে বা একাধিকবার কনসালটেন্সি ফি, মেডিকেল ফি, প্যাথলজি ফি ইত্যাদি বাবদও এ অর্থ নিতে পারবেন। কোনো সদস্যের মৃত্যু হলে অথবা পড়াশোনা শেষ হলে জীবন বিমার আওতা থেকে সমাপ্তি ঘটবে।

বিমা প্রকল্পে অংশ নিতে সব নিয়মিত শিক্ষার্থীদের ডাচ-বাংলা মোবাইল ব্যাংকিং রকেট অ্যাকাউন্ট বা ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে। অনলাইন পদ্ধতিতে বিমা দাবির প্রক্রিয়াটি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে পাওয়া যাবে।

প্রকল্পটি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ও জেনিথ ইসলামী লাইফ ইনস্যুরেন্স লিমিটেড যৌথভাবে পরিচালনা করবে।


আরও খবর



তাপমাত্রা আরও বাড়তে পারে

প্রকাশিত:সোমবার ০৬ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ৩০ জুন ২০২২ | ৩৩জন দেখেছেন
Image

গত কয়েকদিনে সারাদেশে বৃষ্টির প্রবণতা অনেকটাই কমে গেছে। আজও (সোমবার) এ অবস্থা অব্যাহত থাকতে পারে। তাই এ সময়ে দিনের তাপমাত্রা আরও বাড়ার পূর্বাভাস দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর।

সোমবার (৬ জুন) আবহাওয়ার নিয়মিত বুলেটিনে এ তথ্য জানা গেছে।

বৃষ্টি কমে যাওয়ায় ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে গরমে কষ্ট পাচ্ছে মানুষ। বৃষ্টি কমে গেলেও থাকছে মেঘের আনাগোনা। তাই বাতাসে আর্দ্রতা বেড়ে যাওয়ায় বাড়ছে অস্বস্তিকর গরম।

রোববার সকাল ৬টা থেকে আজ সকাল ৬টা পর্যন্ত রংপুর, সিলেট ও ময়মনসিংহ বিভাগে বৃষ্টি হয়েছে। এ সময় সবচেয়ে বেশি ১১৩ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে কুড়িগ্রামের রাজারহাটে। একই সময় রাজশাহী, খুলনা ও বরিশাল বিভাগে তেমন কোনো বৃষ্টি হয়নি।

ঢাকা বিভাগের মধ্যে শুধু নিকলীতে ৫৫ মিলিমিটার, চট্টগ্রাম বিভাগের মধ্যে ফেনীতে পাঁচ মিলিমিটার, হাতিয়ায় তিন মিলিমিটার ও কক্সবাজারে দুই মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে।

রোববার দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩৬ দশমিক চার ডিগ্রি সেলসিয়াস ছিলো যশোরে। ঢাকায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিলো ৩৫ দশমিক এক ডিগ্রি সেলসিয়াস।

আবহাওয়াবিদ কে এম নাজমুল হক জানান, মৌসুমি বায়ু বাংলাদেশের ওপর মোটামুটি সক্রিয় এবং এটি উত্তর বঙ্গোপসাগরে দুর্বল থেকে মাঝারি অবস্থায় রয়েছে।

তিনি বলেন, আগামী ২৪ ঘণ্টায় রংপুর, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের অনেক জায়গায়, ঢাকা ও চট্টগ্রাম বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং রাজশাহী, খুলনা ও বরিশাল বিভাগের দু-এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে দেশের উত্তরাঞ্চলের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারি থেকে অতি ভারি বৃষ্টি হতে পারে।

এ সময় সারাদেশে দিনের তাপমাত্রা সামান্য বাড়তে পারে এবং রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে বলেও জানান এই আবহাওয়াবিদ।

সোমবার সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত দেশের অভ্যন্তরীণ নদীবন্দরগুলোর জন্য আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, রংপুর, দিনাজপুর, পাবনা, বগুড়া, ময়মনসিংহ এবং সিলেট অঞ্চলের ওপর দিয়ে পশ্চিম বা উত্তর-পশ্চিম দিক থেকে ঘন্টায় ৪৫ থেকে ৬০ কিলোমিটার বেগে বৃষ্টি বা বজ্রবৃষ্টিসহ অস্থায়ীভাবে দমকা বা ঝোড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে। এসব এলাকার নদীবন্দরসমূহকে এক নম্বর নৌ হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।


আরও খবর



খালেদা জিয়ার আরোগ্য কামনায় দোয়া মাহফিল

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ৩০ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২ | ৩২জন দেখেছেন
Image

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ দলের অসুস্থ নেতাকর্মীদের আরোগ্য কামনায় দোয়া ও মিলাদ মাহফিল করেছে অপরাজেয় বাংলাদেশ নামের একটি সংগঠন।

বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) বাদ আসর রাজধানীর শেওড়াপাড়ায় অনুষ্ঠিত এই দোয়া মাহফিলে প্রধান অতিথি ছিলেন বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুল্লাহ।

অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ওলামা দলের কেন্দ্রীয় সদস্য সচিব অধ্যক্ষ নজরুল ইসলাম তালুকদার, মৎস্যজীবী দলের কেন্দ্রীয় নেতা হাজী মনির হোসেন, ইসমাইল হোসেন সিরাজী, তাবারক হোসেন, সালাম সরকার, জিয়া নাগরিক ফোরামের মিয়া মোহাম্মদ আনোয়ার, কৃষক দলের কাদের সিদ্দিকী, কাফরুল থানা বিএনপির গোলাম রব্বানী প্রমুখ।

দোয়া মাহফিলের আগে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুল্লাহ বলেন, রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত মামলায় খালেদা জিয়াকে অবৈধভাবে সাজা দিয়ে কারাবন্দি রাখা হয়েছে।

আলোচনা শেষে খালেদা জিয়া, তারেক রহমান, মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীসহ অসুস্থ সব নেতাকর্মীর আরোগ্য কামনায় বিশেষ মোনাজাত পরিচালনা করেন অধ্যক্ষ নজরুল ইসলাম তালুকদার।


আরও খবর



শিক্ষাক্ষেত্রে পরিকল্পনায় সহায়ক হবে জনশুমারি: শিক্ষামন্ত্রী

প্রকাশিত:বুধবার ১৫ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২ | ৪০জন দেখেছেন
Image

সারাদেশের মতো চাঁদপুরেও ষষ্ঠ ডিজিটাল জনশুমারি ও গৃহগণনা কার্যক্রম শুরু হয়েছে। বুধবার (১৫ জুন) সকাল ৮টায় প্রধান অতিথি হিসেবে নিজস্ব বাসভবনের হলরুমে এই কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি ।

এ সময় শিক্ষামন্ত্রী বলেন, জনশুমারির মাধ্যমে শিক্ষার হারের সঠিক পরিসংখ্যান পাওয়া যাবে এবং সারা দেশের একটি সঠিক চিত্র আমাদের হাতে আসবে। কতজন মানুষ নিরক্ষর রয়েছে, কতজন শিক্ষিত হয়েছেন এবং তাদের আর্থসামাজিক যে অবস্থান আমরা পাব সেটি নানান কর্মপরিকল্পনা গ্রহণে সহায়ক হবে।

মন্ত্রী আরো বলেন, এই প্রথমবার দেশে ডিজিটাল পদ্ধতিতে জনশুমারি হচ্ছে। ডিজিটাল পদ্ধতিতে হওয়ার কারণে এর যত তথ্য সংগৃহীত হবে তার ব্যবহার তত সহজ হয়ে যাবে। জনশুমারির মাধ্যমে বিভিন্ন তথ্য-উপাত্ত বের করে নেওয়া এবং গবেষণা করা অনেক বেশি সহজ হবে।

তিনি বলেন, মূলত জনশুমারি দেশে কত মানুষ আছেন বা তারা কী করেন শুধু তার একটি সংখ্যা জানা নয়; জনশুমারি দেশের উন্নয়ন পরিকল্পনার অন্যতম হাতিয়ার। এই সংখ্যা বা পরিসংখ্যান না থাকলে যথাযথ পরিকল্পনা করা সম্ভব হয় না এবং সে কারণেই জনশুমারি করা হয়।

মন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ যেভাবে অপ্রতিরোধ্যভাবে এগিয়ে চলছে সেই অগ্রযাত্রাকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য এবং তা আরো বেগবান করার জন্য এই জনশুমারিতে প্রাপ্ত তথ্য কাজে লাগবে। তাই আমি আশা করি চাঁদপুরসহ দেশের সবাই এবং প্রত্যেকটি থানার সবাই তাদের সঠিক তথ্য দিয়ে এই জনশুমারিতে যে সকল স্বেচ্ছাসেবক কাজ করছেন তাদেরকে সহযোগিতা করবেন এবং দেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রাকে ত্বরান্বিত করতে সহায়তা করবেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক মো. কামরুল হাসান, পুলিশ সুপার মো. মিলন মাহমুদ, জেলা পরিসংখ্যান কার্যালয়ের উপ-পরিচালক নাঈমা রহমান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) আসিফ মহিউদ্দীন, ফরিদগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জাহিদুল ইসলাম রোমান, চাঁদপুর সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি মো. আব্দুর রশিদ, পুরান বাজার ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ রতন কুমার মজুমদারসহ আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

চাঁদপুরে ৫২ জন জোনাল ও ৫২ জন আইটি অফিসার এবং ৭ হাজার সুপারভাইজার ও গণনাকারী জনশুমারিতে কাজ করবে।


আরও খবর



চাকরির সুযোগ দিচ্ছে বাংলালিংক

প্রকাশিত:রবিবার ২৬ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ৩০ জুন ২০২২ | ২৮জন দেখেছেন
Image

বেসরকারি টেলিযোগাযোগ প্রতিষ্ঠান বাংলালিংকে ‘হেড অব কাস্টমার অপারেশনস’ পদে জনবল নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহীরা আগামী ০৯ জুলাই পর্যন্ত আবেদন করতে পারবেন।

প্রতিষ্ঠানের নাম: বাংলালিংক
বিভাগের নাম: কমার্শিয়াল

পদের নাম: হেড অব কাস্টমার অপারেশনস
পদসংখ্যা: নির্ধারিত নয়
শিক্ষাগত যোগ্যতা: স্নাতক/স্নাতকোত্তর
অভিজ্ঞতা: ০৫ বছর
বেতন: আলোচনা সাপেক্ষে

চাকরির ধরন: ফুল টাইম
প্রার্থীর ধরন: নারী-পুরুষ
বয়স: নির্ধারিত নয়
কর্মস্থল: যে কোনো স্থান

আবেদনের নিয়ম: আগ্রহীরা jobs.bdjobs.com এর মাধ্যমে আবেদন করতে পারবেন।

আবেদনের শেষ সময়: ০৯ জুলাই ২০২২

সূত্র: বিডিজবস ডটকম


আরও খবর