Logo
শিরোনাম

সহায়তার নামে বারবার বিয়ের প্রস্তাব, বিরক্ত নাহিদের স্ত্রী

প্রকাশিত:রবিবার ০১ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ২০৪জন দেখেছেন
Image

রাজধানীর নিউমার্কেট এলাকায় ঢাকা কলেজের ছাত্রদের সঙ্গে ব্যবসায়ী-কর্মচারীদের সংঘর্ষে নিহত হন ডেলিভারিম্যান নাহিদ হাসান। পিটিয়ে ও কুপিয়ে হত্যা করা হয় তাকে। তার মৃত্যুতে দিশেহারা হয়ে পড়েছে পুরো পরিবার। সবচেয়ে বেশি মুষড়ে পড়েছেন মাসছয়েক আগেই নাহিদের সঙ্গে গাঁটছড়া বাঁধা ডালিয়া আক্তার। স্বামী হারানোর শোক সামলে তাকে লড়াই করতে হচ্ছে আরও এক অনাকাঙ্ক্ষিত ও বিব্রতকর পরিস্থিতির সঙ্গে।

নাহিদের মৃত্যুর পর লোকজন সাহায্য-সহযোগিতা করার নামে ফোনে ডালিয়াকে বিয়ের প্রস্তাব দিচ্ছে। এমনকি কেউ কেউ সকালে বাড়িতে গিয়েও বসে থাকছে বিয়ের প্রস্তাব নিয়ে। বারবার এমন প্রস্তাবে বিব্রত-বিরক্ত-ক্ষুব্ধ তিনি। এভাবে বিব্রত ও বিরক্ত না করতে সবার প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন নাহিদের স্ত্রী।

গত ১৮ এপ্রিল রাতে ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে নিউমার্কেটের ব্যবসায়ী ও কর্মচারীদের সংঘর্ষ শুরু হয়। প্রায় আড়াই ঘণ্টা চলে এ সংঘর্ষ। রাতে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এলেও পরদিন (১৯ এপ্রিল) সকাল ১০টার পর থেকে ফের দফায় দফায় শুরু হয় সংঘর্ষ, যা চলে সন্ধ্যা পর্যন্ত। এ সংঘর্ষে আহত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান নাহিদ হাসান।

তার মৃত্যুর পর প্রথম ঈদ কেমন যাচ্ছে মা-স্ত্রী-স্বজনদের? তা জানতে জাগো নিউজ হাজির হয় রাজধানীর কামরাঙ্গীরচরে নাহিদের বাসায়। সেখানেই নিজের শোক-দুঃখ আর ক্ষোভের কথা জানান ডালিয়া আক্তার।

ডালিয়াদের বাড়ি টাঙ্গাইলে। তার বাবা সেখানেই থাকেন। অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করা ডালিয়া থাকতেন কামরাঙ্গীরচরের কামরুল ইসলাম কমিউনিটি সেন্টারের গলিতে নানির বাসায়। এখানেই নাহিদের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক তৈরি হয় তার। সম্পর্কটি চিরস্থায়ী করতে ছয় মাস আগে তারা বিয়ে করেন। সুখেই কাটছিল যুগলবন্দি দিন। ভালোবাসার প্রকাশে কয়েকদিন আগেই বাঁ হাতের তালুতে মেহেদি রঙে ইংরেজিতে লিখেছিলেন, ‘আই লাভ ইউ নাহিদ।’

jagonews24

কামরাঙ্গীরচরের যে ঘরটিতে নাহিদ আর ডালিয়া থাকছিলেন, তার ছোট জানালার পাল্লায় বাংলায় নাহিদের নাম লেখা। আর তাদের বিয়ের কয়েকটি ছবি লেমিনেটিং করে রাখা আছে আলমারির ড্রয়ারে। সেসব দেখাতে দেখাতে স্মৃতিচারণ করছিলেন ডালিয়া। তিনি যেন এখনো ভাবতে পারছেন না, নাহিদ আর নেই।

বিয়ের পর এটিই ডালিয়ার প্রথম ঈদ। স্বামীর সঙ্গে ঈদ করবেন বলে অজস্র স্বপ্ন সাজিয়েছিলেন। কিন্তু নাহিদের মৃত্যুর সঙ্গে সঙ্গে যেন মুছে গেছে ডালিয়ার সেসব স্বপ্নও।

তিনি জানাচ্ছিলেন, ঘটনার দিন (১৯ এপ্রিল) নাহিদ বাসা থেকে বের হওয়ার সময় স্ত্রীকে বলেছিলেন, বাসায় ফিরে কামরাঙ্গীরচর রনি মার্কেটে নিয়ে ঈদের কেনাকাটা করবেন। ঈদের পরের দিন ডালিয়ার বাবার বাড়ি টাঙ্গাইলেও যাওয়ার কথা ছিল একসঙ্গে। তবে ডালিয়া সন্ধ্যায় খবর পেলেন, স্বামী আছেন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ)। সেখান থেকে আর ফেরা হলো না।

সদ্য বিধবা ডালিয়ার পাশে যেন সমাজের বিত্তবানরা দাঁড়াতে পারেন, সেজন্য গণমাধ্যমে খবর প্রকাশ হয়। সেসব খবরে যুক্ত করে দেওয়া হয় ডালিয়ার বিকাশ নম্বর। আর এই নম্বর নিয়েই কিছু লোক অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতিতে ফেলছে ডালিয়াকে। স্বামীর মৃত্যুর সপ্তাহ না পেরোতেই ফোনে তাকে বিয়ের প্রস্তাব দিচ্ছে। এমনকি ইমো নম্বরে ভিডিও কল দিয়েও সহযোগিতার নামে দীর্ঘক্ষণ কথা বলতে চাইছে তার সঙ্গে।

ডালিয়া আক্তার জাগো নিউজকে বলেন, ‘লোকজন সহযোগিতার নামে ফোনে বিয়ের প্রস্তাব দেয়। ফোন দিয়ে বলে, বিয়ে-শাদি করবেন কি না, সেই চিন্তা-ভাবনা আছে কি না।’

তিনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘আজ যদি আপনার (প্রস্তাবদাতা) কোনো বোন হতো, তাহলে কি এমন কথা বলতে পারতেন? আজ আমার স্বামী মারা গেছে ১২ দিন। ১২ দিন হওয়ার আগেই আপনারা এসব কথা (বিয়ের প্রস্তাব) বলেন। আপনাদের ঘরে মা-বোন থাকলে তাদেরও কি ১২ দিনেই এসব কথা বলতেন? অন্তত ছয় মাস, এক বছর, দুই বছর, ছয় বছর তো যাইতো। আপনারা কেন আমাকে বিয়ের প্রস্তাব দেন?’

‘অনেকে বিয়ের প্রস্তাব নিয়ে সকালে বাসায়ও আইসা বইয়া থাকে। সকাল ৭টা বাজে আইসা বিয়ের প্রস্তাব দেয়। সবাই বিয়ের কথা বলে অথচ কেউ টাকা সহযোগিতা করে না। এই বিষয়টা নিয়ে পরিবার বিরক্ত। নম্বর দিয়েছি যেন আমার হেল্প হয়। তবে দয়া করে কেউ বিয়ের প্রস্তাব দেবেন না। যে নম্বর মিডিয়াতে দেওয়া সেই নম্বরে টাকা পাঠানোর পরিবর্তে বিয়ের প্রস্তাব দিয়ে বসে।’

jagonews24

ভালোবাসার স্মৃতিচারণ করে ডালিয়া বলেন, ‘স্বামী আমাকে বেশিই ভালোবাসতো। সংসারের অভাব বুঝতে দিতো না।’

এসময় অশ্রু গড়ায় ডালিয়ার চোখ বেয়ে, ধরা গলায় তিনি বলতে থাকেন, ‘আল্লাহ ওকে (নাহিদকে) কেন আমার কপালে মাত্র ছয় মাস লিখে রাখলো? যেদিন বাসা থেকে বের হয় সেই দিন ফোন করে বলেছিলো, তুমি রেডি থাইক্কো ঈদের কেনাকাটা করবো। আর সে বাসায় ফিরা আইলো না।’

এসময় পাশে ছিলেন নিহত নাহিদের বাবা মো. নাদিম মিয়া ও মা নার্গিস বেগম।

নার্গিস বেগম জাগো নিউজকে বলেন, ‘সন্তান ছাড়া কি মায়ের কোনোদিন ঈদ হয়? হয় না। ছেলে মারা গেছে মাত্র কয়েকদিন আগে। সেই ক্ষত আজীবন থাকবে। ছেলেকে ছাড়া মা ক্যামনে ঈদ করবো?’

অবশ্য অনেকে আর্থিক সাহায্য-সহযোগিতা নিয়ে শোকাহত এই পরিবারের পাশে দাঁড়িয়েছেন। সে কথা জানিয়ে নার্গিস বেগম বলেন, ‘বসুন্ধরা গ্রুপ ১০ লাখ টাকার চেক দিয়েছে, ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে সেলাই মেশিন দেওয়া হয়েছে। মগবাজার ব্যবসায়ী সমিতি ও বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতির নেতা হেলাল সাহেব বলেছেন, আমাদের ছোট পিকআপ ভ্যানের ব্যবস্থা করে দেবেন। এছাড়া ঢাকা-২ আসনের সংসদ সদস্য ও সাবেক খাদ্যমন্ত্রী অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম এক লাখ টাকা দিয়েছেন।’


আরও খবর



সিলেটে মুহিতের মরদেহ

প্রকাশিত:রবিবার ০১ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ | ৪৮জন দেখেছেন
Image

গত মার্চ মাসে জন্মস্থান সিলেটে গিয়েছিলেন সাবেক অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। তখন তিনি শৈশবের স্মৃতিচারণ করেছিলেন। সিলেট এবং সিলেটের মানুষকে তিনি কতটুকু ভালোবাসেন তাও বলেছিলেন। আকাঙ্ক্ষা প্রকাশ করেছিলেন নিজের জন্মস্থানে আবারও যাওয়ার। তিনি সিলেটে গেলেন ঠিকই। তবে নিথর হয়ে। তার এমন ফেরা দেখে অনেকে কান্নায় ভেঙে পড়েন।

শনিবার (৩০ এপ্রিল) রাত ১০টার দিকে সিলেটে এসে পৌঁছায় আবুল মাল আবদুল মুহিতে মরদেহবাহী অ্যাম্বুলেন্স। তাকে নেওয়া হয় নগরের ধোপাদিঘীরপাড়স্থ বাসভবন হাফিজ কমপ্লেক্সে।

আবুল মাল আবদুল মুহিতের মরদেহ যাওয়ার আগেই সেখানে দলীয় নেতাকর্মীসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার হাজারো শোকার্ত মানুষ জড়ো হন। মরদেহ যাওয়ার পরই সেখানে এক শোকাবহ পরিবেশের তৈরি হয়।

রাতে হাফিজ কমপ্লেক্সেই রাখ হয়েছে এই ভাষা সংগ্রামীর মরদেহ। রোববার দুপুর ১২টায় তার মরদেহ সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা নিবেদনের জন্য সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে নেওয়া হবে। দুপুর ১২ থেকে দেড়টা পর্যন্ত শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে থাকবে মরদেহ। এরপর দুপুর ২টায় জানাজা হবে সিলেট আলিয়া মাদরাসা মাঠে। জানাজা শেষে সিলেট নগরের রায়নগরস্থ পারিবারিক গোরস্তানে মা-বাবার পাশে চিরনিদ্রায় শায়িত হবেন তিনি।


আরও খবর



উত্তর-পূর্বাঞ্চলের সব নদ-নদীর পানি বাড়ছে

প্রকাশিত:বুধবার ০৪ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১২ মে ২০২২ | ৫২জন দেখেছেন
Image

দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের (সিলেট অঞ্চল) সব প্রধান নদ-নদীর পানি বাড়ছে। আগামী ২৪ ঘণ্টায় পানি বাড়ার এ ধারা আরও গতিশীল হতে পারে বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের (বাপাউবো) বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্র।

বুধবার (৪ মে) সন্ধ্যায় বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আরিফুজ্জামান ভূঁইয়া জাগো নিউজকে জানিয়েছেন, দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের সব প্রধান নদ-নদীর পানি বাড়ছে। আগামী ২৪ ঘণ্টা পর্যন্ত তা অব্যাহত থাকতে পারে।

তিনি বলেন, আবহাওয়া সংস্থাগুলোর গাণিতিক মডেলভিত্তিক পূর্বাভাস অনুযায়ী, আগামী ২৪ ঘণ্টায় দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চল, পূর্বাঞ্চল এবং তৎসংলগ্ন ভারতের বরাক অববাহিকা, মিজোরাম ও ত্রিপুরা প্রদেশের কতিপয় স্থানে মাঝারি থেকে ভারী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা হয়েছে। ফলে আগামী ২৪ ঘণ্টায় দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চল ও পূর্বাঞ্চলের প্রধান নদ-নদীগুলোর (সুরমা, কুশিয়ারা, মনু, খোয়াই, গামতী, তিতাস ও ফেনী নদী) পানি দ্রুত বাড়তে পারে।

দীর্ঘমেয়াদি পূর্বাভাস দিতে আবহাওয়া অধিদপ্তরের গঠিত বিশেষজ্ঞ কমিটি মে মাসের পূর্বাভাসে জানিয়েছে, মে মাসে ভারী বৃষ্টিপাতের কারণে দেশের উত্তরাঞ্চল ও উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় কিছু স্থানে স্বল্পমেয়াদি আকস্মিক বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে।

অন্যদিকে বুধবার সন্ধ্যা ৬টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাস তুলে ধরে আবহাওয়াবিদ খো. হাফিজুর রহমান জাগো নিউজকে জানান, ময়মনসিংহ, খুলনা, বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং রংপুর, রাজশাহী ও ঢাকা বিভাগের দু-এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা বা ঝোড়ো হাওয়ার সঙ্গে প্রবল বিজলী চমকানোসহ বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে।

আগামী ৪৮ ঘণ্টার (২ দিন) মধ্যে আন্দামান সাগর এলাকায় একটি লঘুচাপের সৃষ্টি হতে পারে বলেও জানান এ আবহাওয়াবিদ।


আরও খবর



জাপানি দুই শিশুর বাবার বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার আবেদন

প্রকাশিত:সোমবার ১৬ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ৩৩জন দেখেছেন
Image

জাপানি দুই শিশু জেসমিন মালিকা ও লাইলা লিনার বাবা বাংলাদেশি নাগরিক ইমরান শরীফের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার অভিযোগ আনতে আবেদন করেছেন শিশু দুটির মা নাকানো এরিকো।

সোমবার (১৬ মে) প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীর নেতৃত্বাধীন আপিল বিভাগে এ আবেদন করা হয়। আদালত আগামী ২৩ মে শুনানির জন্য দিন ধার্য করেন।

আদালত আজ শুনানি করেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী ব্যারিস্টার আজমালুল হোসেন কিউসি। তাকে সহযোগিতা করেন অ্যাডভোকেট মোহাম্মদ শিশির মনির।

পরে এ বিষয়ে আইনজীবী শিশির মনির জাগো নিউজকে বলেন, সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের আদেশে বলা হয়েছে, দুই শিশু মায়ের সঙ্গে বারিধারায় থাকবেন। প্রতিদিন বাবা শিশুদের সঙ্গে দেখা করতে পারবেন। এ নির্দেশনা অমান্য করে ইমরান শরীফ জোর করে মাঝে মাঝেই শিশুদের নিয়ে বাইরে যান। এ কারণে আমরা আদালত অবমাননার আবেদন করেছি। আগামী সোমবার (২৩ মে) পরবর্তী শুনানির দিন ঠিক করেছেন আদালত।

এর আগে গত ১৩ ফেব্রুয়ারি ঢাকার পারিবারিক আদালতে মামলা নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত দুই শিশু জেসমিন মালিকা ও লাইলা লিনা তাদের মা নাকানো এরিকোর কাছে থাকবে বলে রায় দেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ। পাশাপাশি এ বিষয়ে দেওয়া হাইকোর্টের রায় বাতিল করা হয়। এবং বিচারিক আদালতে মামলা নিষ্পত্তির জন্যে বলা হয়।

রায়ে বলা হয়, এই সময়ে নাকানো এরিকো শিশুদের নিয়ে দেশত্যাগ করতে পারবেন না। তবে বাবা ইমরান শরীফ শিশুদের সঙ্গে দেখা করতে পারবেন।


আরও খবর



এরদোয়ানের আপত্তিতে ফিনল্যান্ড-সুইডেনের ন্যাটোয় ঢোকা অনিশ্চিত

প্রকাশিত:শনিবার ১৪ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ৩১জন দেখেছেন
Image

ফিনল্যান্ড ও সুইডেনের ন্যাটোয় যোগদানের খবরে আপত্তি জানিয়েছে তুরস্ক। তুর্কি প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যেপ এরদোয়ান পরিষ্কার জানিয়ে দিয়েছেন, নর্ডিক দেশ দুটিকে পশ্চিমা সামরিক জোটে অন্তর্ভুক্ত করায় তাদের ‘ইতিবাচক মতামত’ নেই। এর ফলে ফিনল্যান্ড ও সুইডেনের ন্যটোয় যোগদান অনেকটাই অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। কারণ, জোটে ঢুকতে হলে এর ৩০ সদস্যেরই সম্মতি প্রয়োজন তাদের। খবর এএফপির।

শুক্রবার (১৩ মে) জুমার নামাজের পর সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তুর্কি প্রেসিডেন্ট এরদোয়ান অভিযোগ করেছেন, ফিনল্যান্ড-সুইডেন উভয়ই ‘সন্ত্রাসী সংগঠনগুলোর’ পৃষ্ঠপোষকতা করছে।

দেশ দুটিকে ন্যাটোয় অন্তর্ভুক্ত করা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমাদের ইতিবাচক মতামত নেই। কারণ, স্ক্যান্ডিনেভিয়ান দেশগুলো সন্ত্রাসী সংগঠনের গেস্টহাউজের মতো।

তুরস্ক দীর্ঘদিন ধরে অভিযোগ করে আসছে, উত্তর ইউরোপীয় দেশগুলো, বিশেষ করে সুইডেন কুর্দি সংগঠন এবং ২০১৬ সালে ব্যর্থ অভ্যুত্থানে জড়িত অভিযুক্ত ফেতুল্লাহ গুলেনকে পৃষ্ঠপোষকতা করছে।

jagonews24

এদিন ১৯৫২ সালে গ্রিসের ন্যাটোয় অন্তর্ভুক্তিতে তুরস্কের সাবেক শাসকদের সম্মতি দেওয়া ‘ভুল’ ছিল বলেও মন্তব্য করেন এরদোয়ান। তিনি বলেন, আমরা এই ইস্যুতে দ্বিতীয়বার ভুল করবো না।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে রুশ আক্রমণ শুরুর পর থেকে প্রতিবেশী ফিনল্যান্ড ও সুইডেন ন্যাটোয় যোগ দেওয়ার বিষয়টি নতুন করে আলোচনায় উঠে আসে। উভয় দেশই যত দ্রুত সম্ভব পশ্চিমা এ সামরিক জোটের সদস্য হতে চায়।

ন্যাটো প্রধান জেনস স্টলটেনবার্গও জানিয়েছেন, তারা দুহাত খুলে নর্ডিক দেশ দুটিকে স্বাগত জানাতে প্রস্তুত। তবে ন্যাটোর সদস্য দেশগুলোর মধ্যে তুরস্কই প্রথম এ বিষয়ে আপত্তি জানালো।

শুক্রবার এরদোয়ানের এমন মন্তব্যের পর সুইডেন ও ফিনল্যান্ডের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা জানিয়েছেন, শনিবার ন্যটোর অনানুষ্ঠানিক বৈঠকে বার্লিনে তুর্কি পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে তাদের কথা হবে বলে আশা করছেন।

jagonews24

সুইডিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান লিন্ডে বলেছেন, তুর্কি সরকার আমাদের কাছে সরাসরি এ ধরনের কোনো বার্তা দেয়নি। ফিনল্যান্ডের পররাষ্ট্রমন্ত্রী পেক্কা হাভিস্তোও বলেছেন, তিনি আলোচনা এগিয়ে নিতে তুর্কি পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত কাভুসোগলুর সঙ্গে সাক্ষাতের আশা করছেন।

নিয়ম অনুসারে, কোনো দেশ ন্যাটো সদস্য হতে আবেদনের সিদ্ধান্ত নেওয়ার পর ৩০ সদস্যের এই জোট থেকে আনুষ্ঠানিক প্রস্তাব দেওয়া হয়। তবে তার জন্য প্রত্যেক সদস্যের সম্মতির প্রয়োজন হয়। এরপর শুরু হয় সদস্যপদের জন্য সমঝোতা।

তুরস্ক বা অন্য কোনো সদস্য আপত্তি না জানালে ফিনল্যান্ড-সুইডেনের ন্যাটোয় যোগদানের চূড়ান্ত অনুমোদন হতে পারে আগামী জুনে অনুষ্ঠিতব্য মাদ্রিদ সম্মেলনে। তবে কোনো সদস্য আপত্তি করলে বা সমঝোতা না হলে নর্ডিকদের স্বপ্ন স্বপ্নই থেকে যেতে পারে।

সূত্র: এনডিটিভি


আরও খবর



বিএনপি-জামায়াতের উদ্দেশ্য বাংলাদেশকে পাকিস্তান বানানো

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১০ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ৫১জন দেখেছেন
Image

চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক সিটি মেয়র আ.জ.ম নাছির উদ্দীন বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের মান-সম্মান, উন্নয়ন ও অর্জনের মাত্রাকে হিমালয়ের সমান উচ্চতায় উন্নীত করেছেন। অন্যদিকে ৭১’র পরাজিত শক্তির প্রশ্রয় ও আশ্রয়দাতা বিএনপি। এই বিএনপি-জামায়াতের আসল খায়েস হলো বাংলাদেশকে পাকিস্তান বানানো। এই অসমাপ্ত মিশন সম্পন্ন করতে তারা আবার সামনে এসেছে।

মঙ্গলবার বিকেলে দলীয় কার্যালয়ে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের কার্যকরী পরিষদের সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে সভায় সিদ্ধান্ত হয়, এখনো যেসব ইউনিটের সম্মেলন হয়নি সেগুলো ২৫ মে’র মধ্যে সম্পন্ন করতে হবে।

সভায় উপস্থিত ছিলেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আলহাজ্ব নঈম উদ্দিন চৌধুরী, অ্যাডভোকেট ইব্রাহিম হোসেন চৌধুরী বাবুল, আলহাজ্ব খোরশেদ আলম সুজন, এম. জহিরুল আলম দোভাষ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব বদিউল আলম, কোষাধ্যক্ষ আবদুচ ছালাম, সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্য নোমান আল মাহমুদ, শফিক আদনান, চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী, আলহাজ্ব শফিকুল ইসলাম ফারুক, হাসান মাহমুদ শমসের, শেখ ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী, চন্দন ধর, মশিউর রহমান চৌধুরী, আহমেদুর রহমান ছিদ্দিকী, হাজী মোহাম্মাদ হোসেন, হাজী জহুর আহমদ, জোবাইরা নার্গিস খান, জালাল উদ্দিন ইকবাল, মাহবুবুল হক মিয়া, আলহাজ্ব দিদারুল আলম চৌধুরী, আবদুল আহাদ, মো. আবু তাহের, ডা. মো. ফয়সাল ইকবাল চৌধুরী, জহর লাল হাজারী, কার্যনির্বাহী সদস্য নুরুল আবছার মিয়া, ছৈয়দ আমিনুল হক, আলহাজ্ব পেয়ার মোহাম্মদ, কামরুল হাসান বুলু, অ্যাডভোকেট কামাল উদ্দিন আহমেদ, বখতেয়ার উদ্দিন খান, জাফর আলম চৌধুরী, আবদুল লতিফ টিপু, রোটারিয়ান ইলিয়াস, ড. নেছার উদ্দিন আহমেদ মঞ্জু, হাজী বেলাল আহমেদ, মোর্শেদ আকতার চৌধুরী প্রমুখ।


আরও খবর