Logo
শিরোনাম

সিএমএইচে ভর্তি খুলনা সিটি মেয়র, পাঠানো হবে সিঙ্গাপুর

প্রকাশিত:রবিবার ০৮ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ২৬৯জন দেখেছেন
Image

উন্নত চিকিৎসার জন্য খুলনা সিটি করপোরেশনের (কেসিসি) মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেককে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে করে ঢাকার সিএমএইচ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। সেখান থেকে তাকে সিঙ্গাপুরে পাঠানো হবে বলে দলীয় একাধিক সূত্র জানিয়েছে।

রোববার (৮মে) বিকেল সাড়ে ৪টায় শহীদ শেখ আবু নাসের হাসপাতাল থেকে তাকে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে করে ঢাকায় পাঠানো হয়।

মেয়রের সঙ্গে রয়েছেন তার সহধর্মিণী এবং পরিবেশ, বন ও জলবায়ু মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী বেগম হাবিবুব নাহার ও ভাইজি মেঘলা।

শহীদ শেখ আবু নাসের হাসপাতালের উপ-পরিচালক ডা. এস এম মোর্শেদ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম ডি এ বাবুল রানা বলেন, মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক আগামী ১৫ তারিখ পর্যন্ত সিএমএইচে চিকিৎসাধীন থাকবেন। এরপর তাকে সিঙ্গাপুরে উন্নত চিকিৎসার জন্য নেওয়া হবে।

তিনি আরও জানান, মেয়রের চিকিৎসার সব দায়িত্ব নিয়েছেন খুলনা-২ আসনের সংসদ সদস্য সেখ সালাহউদ্দিন জুয়েল।

সিটি মেয়রকে এগিয়ে দিতে হেলিপ্যাডে উপস্থিত হন যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও বিসিবি পরিচালক শেখ সোহেল, খুলনা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম ডি এ বাবুল রানা, প্যানেল মেয়র আমিনুল হক মুন্না, কাউন্সিলর আনিস বিশ্বাস, নগর যুবলীগের আহ্বায়ক সফিকুর রহমান পলাশসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতারা।

এর আগে শনিবার (৭ মে) ডায়াবেটিস, ইউরিন সমস্যা ও জ্বরে আক্রান্ত হয়ে খুলনার শহীদ শেখ আবু নাসের হাসপাতালে ভর্তি হন মেয়র তালুকদার আব্দুল খালেক।


আরও খবর



করোনায় আরও ২ হাজার মৃত্যু, শনাক্ত ৬ লাখ

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৩ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ | ৩৪জন দেখেছেন
Image

মহামারি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে বিশ্বে গত ২৪ ঘণ্টায় প্রায় দুই হাজার মানুষের মৃত্যু হয়েছে। এ সময়ে নতুন করে করোনা শনাক্ত হয়েছে প্রায় ছয় লাখ মানুষের। ফলে ২৪ ঘণ্টার ব্যবধানে করোনায় মৃত্যু ও শনাক্ত- দুটোই বেড়েছে।

শুক্রবার (১৩ মে) সকাল সাড়ে আটটায় বৈশ্বিক পর্যায়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত, মৃত্যু ও সুস্থতার আপডেট দেওয়া ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারস থেকে জানা যায়, গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বে করোনায় মারা গেছেন এক হাজার ৯৬১ জন। এ নিয়ে মৃত্যু বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬২ লাখ ৮৪ হাজার ৪১১ জনে। একদিনে ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়েছেন পাঁচ লাখ ৯৮ হাজার ৬৪৯ জন। আগের দিনের তুলনায় নতুন শনাক্ত রোগী বেড়েছে প্রায় ২৩ হাজার। মহামারির শুরু থেকে এ পর্যন্ত ভাইরাসটিতে মোট শনাক্ত পৌঁছেছে ৫১ কোটি ৯৫ লাখ ৫৬ হাজার ৭৮৭ জনে।

গত একদিনে সবচেয়ে বেশি মৃত্যু হয়েছে যুক্তরাজ্যে। তবে শনাক্তের হিসাবে শীর্ষে যুক্তরাষ্ট্র। যুক্তরাজ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় মারা গেছেন ২৮৪ জন। এ সময়ে দেশটিতে নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে ১৪ হাজার ৪৫৮ জন। এ নিয়ে দেশটিতে মোট শনাক্ত ২ কোটি ২১ লাখ ৫৯ হাজার ৬১৫ জন এবং মৃত্যু হয়েছে এক লাখ ৭৬ হাজার ৭০৮ জন।

এদিকে, সর্বোমোট মৃত্যু ও শনাক্তের বিচারে করোনায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশ যুক্তরাষ্ট্র। দেশটিতে গত ২৪ ঘণ্টায় ২২২ জন মৃত্যুর পাশাপাশি শনাক্ত হয়েছে ৮৫ হাজার ৮৩০ জন। দেশটিতে এখন পর্যন্ত মোট শনাক্ত আট কোটি ৪০ লাখ ৬৬ হাজার ৩৭৯ জন এবং মারা গেছেন ১০ লাখ ২৬ হাজার ১০৯ জন।

জার্মানিতে ২৪ ঘণ্টায় শনাক্ত হয়েছেন ৮২ হাজার ৬৫২ জন এবং মারা গেছেন ১৭৯ জন। এ নিয়ে দেশটিতে এখন পর্যন্ত মোট শনাক্ত দুই কোটি ৫৬ লাখ ৬৫ হাজার ৯১০ জন এবং মৃত্যু হয়েছে এক লাখ ৩৭ হাজার ৬২৮ জনের।

গত ২৪ ঘণ্টায় ফ্রান্সে শনাক্ত ৩৬ হাজার ৪৭ জন এবং মারা গেছেন ৮৪ জন। দেশটিতে এ পর্যন্ত মোট শনাক্ত দুই কোটি ৯০ লাখ ৯৭ হাজার ৫৭০ জন এবং মারা গেছেন এক লাখ ৪৭ হাজার ১৫৯ জন।

রাশিয়ায় ২৪ ঘণ্টায় চার হাজার ৬৫ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। দেশটিকে এসময়ে মারা গেছেন ১১১ জন। রাশিয়ায় এ পর্যন্ত মোট শনাক্ত এক কোটি ৮২ লাখ ৪৫ হাজার ৩৯৪ জন এবং মারা গেছেন তিন লাখ ৭৭ হাজার ৩৫৯ জন।

একই সময়ে দক্ষিণ কোরিয়ায় সংক্রমিত ৩৫ হাজার ৮৮৩ জন এবং মারা গেছেন ৬৩ জন। পূর্ব এশিয়ার এ দেশটিতে মহামারি শুরুর পর থেকে এ পর্যন্ত মোট শনাক্ত এক কোটি ৭৬ লাখ ৯৪ হাজার ৬৭৭ জন এবং মারা গেছেন ২৩ হাজার ৫৫৪ জন।

একদিনে ইতালিতে ৩৯ হাজার ৩১৭ জন সংক্রমিত হওয়ার পাশাপাশি মারা গেছেন ১৩০ জন। দেশটিতে এ পর্যন্ত মোট সংক্রমিত এক কোটি ৬৯ লাখ ৫৪ হাজার ৭৮৪ জন এবং মারা গেছেন এক লাখ ৬৪ হাজার ৯৭৬ জন।

সংক্রমণের দিক থেকে তৃতীয় এবং মৃত্যুর সংখ্যায় দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা লাতিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিলে গত ২৪ ঘণ্টায় সংক্রমিত ২১ হাজার ২৪৪ জন এবং মারা গেছেন ১৩৬ জন। এ পর্যন্ত দেশটিতে মোট সংক্রমিত তিন কোটি ছয় লাখ ৩৯ হাজার ১৩০ জন এবং মারা গেছেন ছয় লাখ ৬৪ হাজার ৭০০ জন।

সংক্রমণের দিক থেকে দ্বিতীয় এবং মৃত্যুর সংখ্যায় তৃতীয় অবস্থানে থাকা ভারতে গত ২৪ ঘণ্টায় সংক্রমিত হয়েছেন তিন হাজার ১৮৭ জন। তবে এসময়ে ভাইরাসটিতে কারও মৃত্যুর তথ্য পাওয়া যায়নি। দেশটিতে এ পর্যন্ত মোট সংক্রমিত চার কোটি ৩১ লাখ ১৬ হাজার ৬০০ জন এবং মারা গেছেন পাঁচ লাখ ২৪ হাজার ১৮১ জন।

এদিকে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় বাংলাদেশে কারও মৃত্যু হয়নি। এ নিয়ে টানা ২২ দিন দেশে কোনো করোনা রোগী মারা যাননি।

সবশেষ গত ২০ এপ্রিল করোনা আক্রান্ত হয়ে দেশে একজনের মৃত্যুর খবর জানিয়েছিল স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। ফলে দেশে করোনায় মৃতের সংখ্যা ২৯ হাজার ১২৭ জনেই রয়েছে।

একই সময়ে করোনা আক্রান্ত হিসেবে নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছেন ৫১ জন। এ নিয়ে দেশে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ১৯ লাখ ৫২ হাজার ৯৩৯ জনে।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের উহানে প্রথম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়। এরপর ২০২০ সালের ১১ মার্চ করোনাকে ‘বৈশ্বিক মহামারি’ হিসেবে ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।


আরও খবর



চট্টগ্রাম বন্দরে আরও ২ গ্যান্ট্রি ক্রেন, গতি বাড়বে কাজে

প্রকাশিত:রবিবার ০৮ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ | ৩৮জন দেখেছেন
Image

দেশের প্রধান সমুদ্রবন্দর চট্টগ্রামে কনটেইনার ওঠানামার সরঞ্জামের বহরে যুক্ত হলো আরও দুটি কী গ্যান্ট্রি ক্রেন (কিউজিসি) ও তিনটি রাবার টায়ার গ্যান্ট্রি (আরটিজি)।

শনিবার (৭ মে) চট্টগ্রাম বন্দরের নিউমুরিং কন্টেইনার টার্মিনালের (এনসিটি) ৫নং বার্থে ভিড়েছে এসব যন্ত্রবাহী জাহাজ। বন্দর সংশ্লিষ্টরা বলছেন, নতুন যন্ত্রপাতি সংযোজনের ফলে বন্দরের অপারেশনাল কাজে গতি বাড়বে।

বন্দর কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, চীনের সাংহাই বন্দর থেকে দুটি কিউজিসি ও তিনটি আরটিজি নিয়ে আসা ‘জেন হুয়া-১২’ নামের জাহাজটি গত ৫মে (বৃহস্পতিবার) বন্দরের বহির্নোঙরে ভিড়ে। পরে শনিবার দুইটি শক্তিশালী টাগবোটের সহায়তায় ভারী যন্ত্রপাতিবাহী জাহাজটিকে এনসিটির বার্থে ভেড়ানো হয়।

বন্দর সূত্রে জানা গেছে, ২০০৫ সালে চট্টগ্রাম বন্দরের চিটাগাং কন্টেইনার টার্মিনালে (সিসিটি) প্রথম গ্যান্ট্রি ক্রেন যুক্ত হয়। এরপর ২০১৭ ও ২০১৮ সালে এনসিটিতে গ্যান্ট্রি ক্রেন (চলন্ত কপিকল) সংযুক্ত করা হয়।

বর্তমানে বন্দরের সিসিটিতে চারটি ও এনসিটিতে ১০টি কিউজিসি রয়েছে। নতুন আসা কিউজিসি দুটি এনসিটির ৫নং বার্থে বসানো হবে। এছাড়া বন্দরের অপারেশনাল কাজে ৩৯টি আরটিজি রয়েছে। নতুন তিনটি আরটিজি রেফার ইয়ার্ডে কন্টেইনার অপারেশনে যুক্ত হতে পারে বলে জানা গেছে।

বন্দর সচিব মো. ওমর ফারুক জানান, চীনে তৈরি অত্যাধুনিক দুইটি কিউজিসি ও তিনটি আরটিজি বন্দরে এসে পৌঁছেছে। এগুলো এনসিটিতে আনলোড হবে। এরপর ফিটিং, ট্রায়াল শেষে যত দ্রুত সম্ভব কিউজিসিগুলো অপারেশনে (কাজে) ব্যবহার করা হবে।

তিনি বলেন, এসব যন্ত্রপাতি সংযোজনের কারণে বন্দরের কন্টেইনার হ্যান্ডলিংয়ে (ওঠানামা করানো) আরও গতি আসবে। এতে চট্টগ্রাম বন্দরে জাহাজের অবস্থানকাল কমে আসবে বলে আশা করেন তিনি।


আরও খবর



অ্যাপেই মিলবে গৃহকর্মী সেবা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৫ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১৮ মে ২০২২ | ৪৮জন দেখেছেন
Image

গৃহকর্মী নিয়ে গৃহিণীদের অভিযোগের শেষ নেই। একে তো ভালো গৃহকর্মী খুঁজে পাওয়া যায় না, অন্যদিকে পরিষ্কার করে কাজ না করা, ঠিক মতন না আসা, নিরাপত্তার অভাবের অভিযোগ তো আছেই। পাশাপাশি বিনা নোটিশে প্রায়ই লাপাত্তা হয়ে যান তারা। এই সমস্যার সমাধানে হ্যালোটাস্ক নামে অ্যাপ নিয়ে হাজির হন একদল উদ্যোক্তা।

অ্যাপটির মাধ্যমে ঘণ্টা, দিন বা মাসিক যে কোনো চুক্তিতেই পাওয়া যায় প্রশিক্ষিত গৃহকর্মী। আপনার প্রয়োজনের ডাকলেই হাজির হবে গৃহকর্মী। এছাড়া রেটিং দেখে প্রশিক্ষিত গৃহকর্মী বাছাই করার সুযোগ আছে।

২০১৭ সালে চালু হওয়ার পর অ্যাপটি থেকে ৭০ হাজারের ও বেশি মানুষ সেবা নিয়েছে। রোবট ডাকো নামে অ্যাপটির যাত্রা শুরু হলেও বর্তমানে এর নাম হ্যালোটাস্ক।

নিজেদের কর্মপদ্ধতি সম্পর্কে হ্যালোটাস্কের সহ-প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী মাহমুদুল হাসান লিখন জাগো নিউজকে বলেন, আমরা শুধু মাত্র গৃহকর্মীদের কানেক্ট করি। উবারের মতো ট্রান্সপোর্ট সেবা দেই না। উবার যেমন যাত্রীদের সঙ্গে গাড়ির চালকদের সম্পর্ক করিয়ে দেয়, তেমনি আমরা ও গৃহকর্মীর সঙ্গে গৃহকর্তা-গৃহকর্তীর সংযোগ ঘটাই। আমরা সেবাগ্রহীতারা আমাদের পরিশোধ করে। আমরা সেখান থেকে কিছু কমিশন নেই বাকিটা গৃহকর্মীদের দিয়ে দেই।

তিনি আরও বলেন, আমরা দুইভাবে কাজ করছি। প্রথমত যদি এক দিন বা দুদিনের জন্য গৃহকর্মী দরকার হয় তাহলে ঘণ্টা বেসিসে গৃহকর্মী নেওয়া যাবে। ন্যূনতা দুই ঘণ্টা থেকে শুরু করে যতক্ষণ দরকার পড়ে। প্রতিঘণ্টা আমরা ৫৯ টাকা রাখছি। আরেকটি হচ্ছে মাসিক সেবা, যেটা সাধারণ বাসা বাড়ির মাসিক ছুটা বুয়ার মতো। প্রতিদিনই একই গৃহকর্মী যায় একটা নিদিষ্ট টাকার চুক্তিতে। তবে এলাকা ভেদে টাকার পরিমাণ উঠানামা করে।

লিখন বলেন, ঢাকার ভেতরে মোহাম্মদপুর, উত্তরা, ধানমন্ডি, গুলশান, বনানী, বসুন্ধরাতে আমার কাভার করতে পেরেছি।

কোরবানির ঈদে গৃহকর্মীর চাহিদার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ঈদে আমারে সেবা সীমিত কেননা এই সময় বেশিরভাগ গৃহকর্মী গ্রামের বাড়ি চলে যায়। তবে কোরবানির ঈদে আমাদের ইনস্ট্যান্ট সার্ভিসটা বাড়ে। তখন গৃহকর্মী চাহিদা প্রায় তিনশ শতাংশ বেড়ে যায়।

গৃহকর্মী পেতে হলে প্রথমে গুগল প্লে স্টোর থেকে হ্যালোটাস্ক অ্যাপ ডাউনলোড করতে হবে। এরপর সেটি ইনস্টল করে বাসার ঠিকানাসহ প্রয়োজনীয় তথ্য দিতে হবে। তারপর সকাল ৮টা থেকে সন্ধ্যা ৭টা পর্যন্ত অ্যাপের মাধ্যমে গৃহকর্মী ডাকা যাবে। সব ধরনের নিরাপত্তার জন্য অ্যাপটিতে যারা যুক্ত হন গৃহকর্মী হিসেবে তাদের জাতীয় পরিচয় পত্রের কপি, জন্ম নিবন্ধনের কপি, স্থানীয় দুই জন অভিভাবকের আইডি কার্ড রাখা হয়।


আরও খবর



ট্রেনের টিকিট কালোবাজারি: সহকারীর নামে স্টেশন মাস্টারের জিডি

প্রকাশিত:বুধবার ১৮ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ | ১৭জন দেখেছেন
Image

খুলনা স্টেশনে ট্রেনের টিকিট কলোবাজারির সঙ্গে সহকারী স্টেশন মাস্টারসহ অন্তত ১০ জন জড়িত বলে অভিযোগ উঠেছে। এসব কালোবাজারিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে খুলনা স্টেশন মাস্টার মানিক চন্দ্র সরকার জিআরপি থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন।

বুধবার (১৮ মে) দুপুরে খুলনা জিআরপি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোল্লা মো. খবির আহমেদ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, বিষয়টি নিয়ে গত ১৬ মে স্টেশন মাস্টার মানিক চন্দ্র সরকার জিডি করেন। সেখানে তিনি উল্লেখ করেন, খুলনা স্টেশনের সহকারী স্টেশন মাস্টার আশিক, আইডব্লিউ মো. জাফর মিয়া, বায়তুল ইসলাম, জাকির হোসেন ও বহিরাগত তোতা মিয়াসহ আরও ৪/৫ জন বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতার নামে টিকিট নিয়ে কালাবাজারে বিক্রি করেন।

ওসি মোল্লা মো. খবির আহমেদ বলেন, অভিযোগের বিষয়টি আদালতের নির্দেশনা সাপেক্ষে তদন্ত করা হবে। এরইমধ্যে আদালতের অনুমতি চাওয়া হয়েছে। তদন্ত করে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এদিকে, অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে সহকারী স্টেশন মাস্টার মো. আশিক আহমেদ বলেন, আমরা তিনজন খুলনা স্টেশন অপারেট করি। স্টেশনের বাতি জ্বালাতে প্রতি মাসে ১১ হাজার ৩০০ টাকা বরাদ্দ রয়েছে। কিন্তু সেই টাকায় তেল কেনা হয় না। এদিকে, স্টেশনের দুটি সিগন্যালের মোবাইল ফোন নষ্ট হয়ে গেছে। আমরা তেল কেনার সেই টাকা থেকে স্টেশন মাস্টার মানিক চন্দ্র সরকারকে দুটি মোবাইল কেনার কথা বলি। কিন্তু তিনি তা না কেনায় এ নিতে কথাকাটাকাটি হয়। এখন তিনি এই বিষয়টির জেরে আমাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ তুলে জিডি করেছেন।

আশিক আরও বলেন, আমরাও আইনগত ব্যবস্থা নেবো।


আরও খবর



নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে শেখ হাসিনার দেশে ফেরার দিন আজ

প্রকাশিত:শনিবার ০৭ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ | ৪৩জন দেখেছেন
Image

আজ ৭ মে, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের জন্য একটি স্মরণীয় দিন। ২০০৭ সালের এই দিনে তৎকালীন তত্ত্বাবধায়ক সরকার ঘোষিত জরুরি অবস্থা চলাকালীন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে চিকিৎসা শেষে বাংলাদেশে ফিরে আসেন বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা।

এদিনটিকে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস হিসেবে পালন করে। এ উপলক্ষে আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক স্বাক্ষরিত একটি সংবাদ বিজ্ঞপ্তি গণমাধ্যমে পাঠানো হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, ‘সে সময় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সভাপতি ও বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনাকে দেশে ফিরতে তদানীন্তন তত্ত্বাবধায়ক সরকার এক অবৈধ নিষেধাজ্ঞা জারি করে। বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনাকে বাংলাদেশে প্রবেশ করতে না দেওয়ার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয় তত্ত্বাবধায়ক সরকার। কিন্তু সাহসিকা শেখ হাসিনা তৎকালীন সরকারের বেআইনি নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে দেশে ফেরার ঘোষণা দেন। অবৈধ নিষেধাজ্ঞার বিরুদ্ধে প্রতিবাদের ঝড় ওঠে বিশ্বব্যাপী। স্বদেশ প্রত্যাবর্তনে শেখ হাসিনার ঐকান্তিক দৃঢ়তা, সাহস ও গণতন্ত্রকামী দেশবাসীর চাপে তদানীন্তন তত্ত্বাবধায়ক সরকার নিষেধাজ্ঞা তুলে নিতে বাধ্য হয়।’

‘৭ মে বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা ঢাকায় ফিরে এলে লাখো জনতা তাকে সাদর অভ্যর্থনা জানায়। ঢাকা বিমানবন্দর থেকে মিছিল শোভাযাত্রা সহকারে বঙ্গবন্ধুকন্যাকে ঐতিহাসিক বঙ্গবন্ধু ভবনে নিয়ে আসে। দেশে ফিরে জনগণের হারানো গণতান্ত্রিক অধিকার পুনঃপ্রতিষ্ঠায় শুরু করেন নবতর সংগ্রাম। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে ঐক্যবদ্ধ হয় দেশবাসী। তত্ত্বাবধায়ক সরকার ভীত-সন্তস্ত্র হয়ে ২০০৭ সালের ১৬ জুলাই শেখ হাসিনাকে সাজানো মামলায় গ্রেফতার করে। ২০০৮ সালের ১১ জুন প্যারোলে মুক্তি পাওয়ার আগ পর্যন্ত তাকে কারান্তরীণ রাখা হয়। প্যারোলে মুক্তি পেয়ে চিকিৎসার জন্য বিদেশ গমন এবং চিকিৎসা শেষে ৪ ডিসেম্বর স্বদেশে ফিরে আসেন বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা। অতঃপর গণতন্ত্রের মানসকন্যা শেখ হাসিনার সাহসী ও দূরদর্শী নেতৃত্বে ব্যাপক আন্দোলন-সংগ্রামের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার হয়। আন্দোলনের মুখে জাতীয় সংসদ নির্বাচন দিতে বাধ্য হয় জোরপূর্বক রাষ্ট্র ক্ষমতায় চেপে বসা তৎকালীন তত্ত্বাবধায়ক সরকার।’

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি আরও বলা হয়, ‘২০০৮ সালের ২৯ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে সরকার গঠন করে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন মহাজোট। দ্বিতীয়বারের মতো প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হয়ে রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্বভার গ্রহণ করেন বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা। শুরু করেন সংকটের আবর্তে নিমজ্জমান অবস্থা থেকে দেশকে পুনরুদ্ধার করে একটি উন্নত-সমৃদ্ধ রাষ্ট্র গড়ে তোলার সংগ্রাম। দিন বদলের অভিযাত্রায় উন্নয়নের মহাসড়কে দুর্বার গতিতে এগিয়ে যায় বাংলাদেশ।’

আওয়ামী লীগ মনে করে, ‘বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক আন্দোলন-সংগ্রাম এবং উন্নয়ন-অগ্রগতি ও সমৃদ্ধি অর্জনের ইতিহাসে ৭ মে জননেত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন একটি তাৎপর্যপূর্ণ ঘটনা। মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনার ভিত্তিতে বাংলাদেশ রাষ্ট্রের মূলনীতি ও গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ সমুন্নত রাখতে শেখ হাসিনা এদেশের রাজনীতিতে অবিকল্প নেতৃত্ব।’

সবশেষে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে শেখ হাসিনার সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু কামনা করে পরম করুনাময় সৃষ্টিকর্তার নিকট প্রার্থনা করার জন্য দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানানো হয়েছে।


আরও খবর