Logo
শিরোনাম

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে হবে কিশোর-কিশোরী ক্লাব

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৬ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২ | ৪৪জন দেখেছেন
Image

কৈশোরকালীন পুষ্টি কার্যক্রমকে বেগবান করতে দেশের সব মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে কিশোর-কিশোরী ক্লাব করা হবে। দেশব্যাপী পুষ্টিকার্যক্রমের অংশ হিসেবে এ উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। আগামী ৩০ জুলাইর মধ্যে প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এ ক্লাব গঠনের জন্য নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

এ জন্য বৃহস্পতিবার (১৬ জুন) প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে চিঠি দিয়েছে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর।

চিঠিতে বলা হয়, মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণি পর্যন্ত প্রতিটি শ্রেণি থেকে ছয়জন করে মোট ৩০ জন এবং উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে চার থেকে পাঁচজন করে মোট ৩০ জন শিক্ষার্থী নিয়ে কিশোর-কিশোরী ক্লাব গঠন করতে হবে।

এক্ষেত্রে বিদ্যালয়টি কো-এডুকেশন হলে ৩০ জন সদস্যদের অর্ধেক মেয়ে এবং অর্ধেক ছেলে হতে হবে। এ কিশোর-কিশোরী ক্লাবের মাধ্যমে সব মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পর্যায়ে সব ছাত্র-ছাত্রীদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করে স্বাস্থ্য, পুষ্টি ও অন্যান্য সেবা দেওয়া হবে। ক্লাব পরিচালনার জন্য স্টুডেন্ট ক্যাবিনেট সদস্যদের মধ্য থেকে সম্ভব হলে দুইজন (একজন মেয়ে ও একজন ছেলে) ক্লাব লিডার নির্বাচন করতে হবে।

চিঠিতে আরও বলা হয়, স্বাস্থ্য, পুষ্টি ও অন্যান্য সেবামূলক কার্যক্রম বাস্তবায়নে ক্লাবের সদস্যদের সহায়তার জন্য দুইজন গাইড শিক্ষক (একজন নারী ও একজন পুরুষ) নির্বাচন করবেন প্রধান শিক্ষক। দুইজন গাইড শিক্ষক বিজ্ঞান/কৃষিশিক্ষা/শরীরচর্চা/গার্হস্থ্য বিজ্ঞান শিক্ষকদের মধ্য থেকে নির্বাচন করা যেতে পারে। গাইড শিক্ষক ক্লাবের দেখভাল করবেন।


আরও খবর

ঢাবি ‘ক’ ইউনিটে সেরা যারা

সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২




৭ ঘণ্টায় ৫৫৮ ভোট!

প্রকাশিত:বুধবার ১৫ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৩ জুলাই ২০২২ | ২৮জন দেখেছেন
Image

কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের (কুসিক) ৫ নম্বর ওয়ার্ডের কুমিল্লা হাই স্কুল কেন্দ্রের চারটি বুথে সাত ঘণ্টায় ভোট পড়েছে মাত্র ৫৫৮টি।

বুধবার (১৫ জুন) বিকেল ৩টার দিকে কেন্দ্রে গিয়ে এমন চিত্র দেখা গেছে।

কেন্দ্র ঘুরে দেখা গেছে, ১ নম্বর বুথে ১৪৪, ২ নম্বর বুথে ১২১, ৩ নম্বর বুথে ১৬০ এবং ৪ নম্বর বুথে ১৩৩টি ভোট পড়েছে।

jagonews24

কেন্দ্রের দায়িত্বে থাকা প্রিসাইডিং কর্মকর্তা ফজলুল করিম জাগো নিউজকে বলেন, বয়স্ক নারীদের জন্য ভোট কার্যক্রম দীর্ঘ হয়। ভোটারের উপস্থিতিও কম ছিল। তবে আমাদের চেষ্টার কমতি ছিল না।

বহুল প্রত্যাশিত কুমিল্লা সিটি করপোরেশন (কুসিক) নির্বাচনে শান্তিপূর্ণ পরিবেশে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) সকাল ৮টা থেকে ভোটগ্রহণ শুরু হয়। বিরতিহীনভাবে চলে বিকেল ৪টা পর্যন্ত। ভোটগ্রহণ শেষে এখন গণনা চলছে।

সারাদেশের দৃষ্টি এখন কুসিক নির্বাচনের দিকে। কাজী হাবিবুল আউয়াল কমিশনের অধীনে প্রথম নির্বাচন এটি। তাই নির্বাচনে কোনো ধরনের ফাঁক রাখতে চাচ্ছে না কমিশন। যে কোনো নির্বাচনের তুলনায় বেশি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য মোতায়েন করা হয়েছে।

jagonews24

এবার নির্বাচনে পাঁচজন মেয়রপ্রার্থী রয়েছেন। তবে মূল লড়াইটা হবে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আরফানুল হক রিফাত ও বিএনপি থেকে বহিষ্কৃত সদ্য সাবেক মেয়র মনিরুল হক সাক্কু এবং নিজাম উদ্দিন কায়সারে মধ্যে। সাক্কু গত দুই মেয়াদে মেয়র নির্বাচিত হয়েছিলেন। বাকি দুজন প্রথমবারের মতো লড়াই করছেন। ফলে কুমিল্লাবাসীর মুখে এখন প্রশ্ন—সাক্কুর হ্যাটট্রিক নাকি নতুন মুখের অভিষেক।

রিটার্নিং কর্মকর্তার দপ্তর সূত্রে জানা যায়, এবার নির্বাচনে মোট ভোটার দুই লাখ ২৯ হাজার ৯২০। এর মধ্যে নারী ভোটার এক লাখ ১৭ হাজার ৯২, পুরুষ ভোটার এক লাখ ১২ হাজার ৮২৬ জন। আর দুজন তৃতীয় লিঙ্গের ভোটার।

মোট ১০৫টি কেন্দ্রের ৬৪০টি কক্ষে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। মেয়র ছাড়াও সাধারণ কাউন্সিলর পদে ১০৬ জন ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ৩৬ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।


আরও খবর

পতনের মধ্যেই শেয়ারবাজার

সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২




ছয় মাসের মাথায় জবি ছাত্রলীগের সাংগঠনিক কার্যক্রম স্থগিত

প্রকাশিত:শুক্রবার ০১ জুলাই ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২ | ২০জন দেখেছেন
Image

কমিটি হওয়ার ছয় মাসের মাথায় জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সকল সাংগঠনিক কার্যক্রম স্থগিত করেছে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। শুক্রবার (১ জুলাই) কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় ও সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্যের স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিরতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এর আগে গত ১ জানুয়ারি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণা করে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ। কমিটিতে ইব্রাহিম ফরাজিকে সভাপতি এবং আকতার হোসেনকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়।

কমিটিতে মহিউদ্দিন অনি, শাহবাজ হোসেন বর্ষণ, আতাউল গনি টুটুল, আসাদুজ্জামান আসাদ, মো. মসিউর রহমান লিজন, মেহেদি বাবু, মো.কামরুল হুসাইন, প্রীতিশ দত্ত রাজ, শামিম ফেরদৌস অপি, মেহেদী হাসান জয়, আসাদুল্লাহ আসাদ, খালিদ হাসান, মো. রিয়াদ খান, ইব্রাহিম হোসেন সানিম, হাবুল হোসেন পরাগ, ফজলে রাব্বি, ফয়সাল আহমেদ, মিঠুন বাড়ৈ, মাসুম পারভেজকে সহসভাপতি করা হয়। এছাড়া কমিটিতে অঞ্জন চৌধুরী পিংকু, নুরুল আফসার, ঋত্বিক রাজ বাহাদুর, আদম সাইফুল্লাহ, ইনজামামুল ইসলাম নিলয়, মুন্নি আক্তার, ফৌজিয়া জাফরিন প্রিয়ন্তীকে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে। এছাড়া রিফাত সাঈদ, আবদুল রায়হান, হাসিবুল হাসান হৃদয়, জিনিয়া আফরিন, সৈয়দ হাফসা ফারিয়া উর্মি, মফিজুর রহমান হামিম ও শেখ রাসেলকে সাংগঠনিক সম্পাদক করা হয়।


আরও খবর

পতনের মধ্যেই শেয়ারবাজার

সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২




চীনের দশম সৌরপদে রীতিনীতির বৈচিত্র্য ও অরোরা প্রসঙ্গ

প্রকাশিত:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 | হালনাগাদ:রবিবার ০৩ জুলাই ২০২২ | ১৯জন দেখেছেন
Image

Aurora (অরোরা) শব্দটি ল্যাটিন; অর্থ ‘ঊষা’ বা ভোর। আবার একজন রোমান দেবীর নামও ছিল অরোরা। তিনি ছিলেন ঊষাদেবী বা ভোরের দেবী। কথিত আছে, এই দেবী প্রতিদিন পূর্ব থেকে পশ্চিম পর্যন্ত ভ্রমণ করতেন এবং মর্ত্যবাসীকে সূর্যের আগমনী বার্তা শোনাতেন।

ইংরেজিতে এখনও ‘অরোরা’ শব্দটিকে ঊষা বা ভোর অর্থে ব্যবহার করা হয়। তবে, এ শব্দটি বেশি ব্যবহৃত হয় আকাশে দৃশ্যমান একধরনের বিশেষ প্রাকৃতিক আলোকচ্ছটাকে বোঝাতে। বাংলায় এই অসাধারণ সুন্দর আলোকচ্ছটাকে বলে ‘মেরুপ্রভা’ বা ‘মেরুজ্যোতি’। প্রাচীনকালের কোনো কোনো উপকথায় এই মেরুপ্রভা-কে বলা হয়েছে ‘ঈশ্বরের সেতু’।

আবার কোনো কোনো অঞ্চলের মানুষ বিশ্বাস করতেন যে, তাদের পূর্বপুরুষরা আকাশে নৃত্য করেন বলেই আকাশের রঙ বদলে যায়, সৃষ্টি হয় রঙিন আলোকচ্ছটার। কিন্তু আধুনিক বিজ্ঞান বলে, সূর্যের বিভিন্ন কণার সাথে আমাদের পৃথিবীর চৌম্বকক্ষেত্র ও বায়ুমন্ডলের বিভিন্ন গ্যাসের ঘর্ষণের ফলে সৃষ্টি হয় অরোরা বা মেরুপ্রভা। বিজ্ঞানীরা আরও বলছেন, মেরুপ্রভার সবুজ রঙের জন্য দায়ী বায়ুমণ্ডলের অক্সিজেন এবং লাল ও নীল রঙের জন্য দায়ী নাইট্রোজেন।

jagonews24

অরোরা সম্পর্কে লিখিত যত ইতিহাস পাওয়া যায়, সেগুলোর মধ্যে সবচেয়ে পুরাতনটি হচ্ছে একটি চীনা উপকথা। এই উপকথা লেখা হয়েছিল যীশু খ্রিস্টের জন্মের ২৬০০ বছর আগে। উপকথায় বলা হয়েছে: (যীশু খ্রিস্টের জন্মের প্রায় ২০০০ বছর আগে) এক শরৎকালে, ফুপাও (Fubao) নামের এক তরুণী একটি জলাভূমির কাছে একাকী বসে ছিল। তখন সে হঠাৎ আকাশে আশ্চর্যজনক, সুন্দর, ও চলমান আলোকচ্ছটা দেখতে পায়। এই স্বর্গীয় আলোকচ্ছটার প্রভাবে ফুপাও গর্ভবতী হয় এবং পরে এক পুত্রসন্তানের জন্ম দেয়। তাঁর এই পুত্রই পরে সম্রাট সুয়ানইয়ুয়ান (Xuanyuan) হিসেবে খ্যাতি অর্জন করে। উপকথা অনুসারে, এই সম্রাটই চীনা সংস্কৃতির স্রষ্টা ও আধুনিক চীনাদের আদিপুরুষ।

প্রাচীন চীনা ধ্রুপদি গ্রন্থ শানহাইচিং (Shanhaijing)-এও অরোরা সম্পর্কে ইঙ্গিত পাওয়া যায়। যীশু খ্রিস্টের জন্মের ৪০০ বছর আগে এই গ্রন্থটি রচিত বলে ধারণা করা হয়। এতে শত শত পর্বত এবং নদী-নালার বর্ণনা আছে; আছে বহু আশ্চর্যজনক পশু-পাখির কথাও। তেমন একটি বিচিত্র পশুর নাম ‘শিলুং’ (Shilong)। গ্রন্থে বলা হয়েছে, এটি একটি লাল ড্রাগন যা রাতের আকাশে জ্বলজ্বল করে এবং এর দেহ হাজার মাইল দীর্ঘ। বলা বাহুল্য, প্রাচীন চীনে মেরুপ্রভা বা অরোরা বোঝাতে কোনো নির্দিষ্ট শব্দ ছিল না, বিভিন্ন আকৃতির অরোরা-কে ভিন্ন ভিন্ন নামে ডাকা হতো। তেমন কয়েকটি নাম হচ্ছে: থিয়েনকৌ (আকাশ কুকুর), তাওসিং (তরবারি তারকা), ছিঅওছি (ছিঅও ব্যানার), থিয়েন খাইইয়ান (আকাশের খোলা চোখ), সিং ইয়ুন রু ইয়ু (বৃষ্টির মতো তারার পতন), ইত্যাদি।

jagonews24

সাধারণত উঁচু অক্ষাংশের এলাকাগুলোতে আরোরা বা মেরুপ্রভা দেখা যায়। অরোরা-কে মূলত দুই ভাগে ভাগ করা হয়: অরোরা অস্ট্রেলিস (aurora australis) এবং অরোরা বোরিআলিস (aurora borealis)। প্রথম ধরনের অরোরা দেখা যায় মূলত অ্যান্টার্কটিকা, চিলি, আর্জেন্টিনা, দক্ষিণ আফ্রিকা, নিউ জিল্যান্ড ও অস্ট্রেলিয়ায়। আর দ্বিতীয় ধরনের অরোরা দেখা যায় আলাস্কা, কানাডা, আইসল্যান্ড, গ্রিনল্যান্ড, নরওয়ে, সুইডেন, ফিনল্যান্ড ও রাশিয়ায়।

চীনেও অরোরা বা মেরুপ্রভা দেখা যায়। তবে, অসাধারণ সুন্দর মেরুপ্রভা দেখতে হলে আপনাকে চীনে আসতে হবে দশম সৌরপদে। অনেকেই জানেন, চীনের চান্দ্রপঞ্জিকা অনুসারে বছরকে ভাগ করা হয় ২৪টি সৌরপদ (solar terms)-এ। প্রাচীন চীনে হলুদ নদীর অববাহিকায় এই ২৪ সৌরপদের উৎপত্তি। আন্তর্জাতিক অঙ্গনে এই ২৪ সৌরপদ ‘চীনের পঞ্চম মহান আবিষ্কার’ (Fifth Great Invention of China) হিসেবে স্বীকৃত। ইউনেস্কোও একে মানবজাতির অবৈষয়িক সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে। প্রতিটি সৌরপদের আছে ভিন্ন ভিন্ন বৈশিষ্ট্য।

jagonews24

চীনে হাজার হাজার বছর আগে এই সৌরপদ-ব্যবস্থার উৎপত্তি। প্রাচীনকাল থেকেই চীনারা সৌরপদ অনুসারে নিজেদের দৈনন্দিন জীবনের বিভিন্ন কর্মকাণ্ড, বিশেষ করে কৃষিকাজ আঞ্জাম দিয়ে আসছে। বছরের কোন সৌরপদে আবহাওয়া কেমন থাকবে— তা নামগুলো দেখলেই বোঝা যায়। সৌরপদ অনুসারে চীনারা তাদের খাওয়া-দাওয়ায়ও পরিবর্তন আনে, পরিবর্তন আনে পোশাক-আশাকে। এখন চলছে চীনের দশম সৌরপদ। এ সৌরপদের নাম ‘সিয়াচি’; বাংলায় আমরা বলতে পারি ‘উত্তরায়ণ’। ইংরেজিতে একে ডাকা হয় Summer Solstice। এ সৌরপদের ব্যাপ্তিকাল ২১শে জুন থেকে ৬ জুলাই পর্যন্ত।

দশম সৌরপদের প্রথম দিন বছরের দীর্ঘতম দিন। উত্তর গোলার্ধে এদিন বছরের সবচেয়ে বেশি সময় ধরে সূর্যালোক পাওয়া যায়। পরের দিন থেকে দিন ক্রমশ ছোট হতে থাকে এবং তাপমাত্রা ক্রমশ বাড়তে থাকে। উত্তরায়ণের প্রথম দিন সবচেয়ে বেশি সময় ধরে সূর্যালোক পাওয়া গেলেও, এসময় সবচেয়ে বেশি গরম পরে না; সর্বোচ্চ গরমের জন্য অপেক্ষা করতে হয় আরও ২০ থেকে ৩০ দিন।

jagonews24

চীনের সবচেয়ে বড় দিন কতোক্ষণ স্থায়ী হয়? প্রায় ১৭ ঘন্টা। চীনের দীর্ঘতম দিনের সঙ্গে পরিচিত হতে আপনাকে যেতে হবে দেশটির হেইলুংচিয়াং প্রদেশের ‘মো হ্য’ (Mohe) শহরে। জায়গাটি চীনের সর্বউত্তরে অবস্থিত। বছরের দীর্ঘতম দিনটি এখানে দেখা যায় বলে একে অনেকে ডাকেন ‘চীনের নিন্দ্রাহীন শহর’ বলে। এই ‘নিন্দ্রাহীন’ শহরেই চীনের সবচেয়ে সুন্দর অরোরা বা মেরুপ্রভারও দেখা পাবেন। আর মেরুপ্রভা দেখার জন্য সবচেয়ে উত্তম সময় হচ্ছে সিয়াচি (Xiazhi) সৌরপদ।

প্রাচীন চীনে সিয়াচি’র প্রথম দিনে সরকারি ছুটি থাকতো; দিনটি পালিত হতো গুরুত্বপূর্ণ উৎসব হিসেবে। হান রাজবংশ আমলেও (খ্রিস্টের জন্মের আড়াই শ বছর আগে) সিয়াচি উত্সব ছিল মধ্য-শরৎ উৎসব ও ছুং ইয়াং উৎসবের চেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। ছিং রাজবংশ আমলের (১৬৪৪-১৯১১) আগ পর্যন্তও সিয়াচি-তে একদিনের সরকারি ছুটি থাকতো।

jagonews24

সুং রাজবংশ আমলের (৯৬০-১২৭৯) রেকর্ড অনুসারে, সিয়াচি সৌরপদে সরকারি কর্মকর্তারা তিন দিনের ছুটি নিতে পারতেন। তখন সিয়াচি উৎসব পালন উপলক্ষ্যে নারীরা একে অপরকে রঙিন হাতপাখা ও সুগন্ধিচূর্ণযুক্ত থলে উপহার দিত। হাতপাখা ব্যবহার করা হতো গা শীতল করার জন্য এবং সুগন্ধিচূর্ণযুক্ত থলে ব্যবহার করা হতো মশা তাড়াতে ও গায়ে সুগন্ধির আমেজ আনতে।

চীনের ইয়ুননান প্রদেশ বাংলাদেশের সবচেয়ে কাছে অবস্থিত। দক্ষিণ-পশ্চিম চীনের এই প্রদেশটির মোচিয়াং কাউন্টি হানি জাতি-অধ্যুষিত স্বায়ত্তশাসিত অঞ্চল। এই অঞ্চলটি উত্তর অয়নবৃত্তে (northern tropic) অবস্থিত। আর, প্রতিবছর সিয়াচি সৌরপদের প্রথম দিনে সূর্য কর্কটক্রান্তির (Tropic of Cancer) ঠিক উপরে অবস্থান করে। এর পর থেকেই সূর্য ক্রমশ উত্তর থেকে দক্ষিণে সরতে থাকে। এ সময়টা মোচিয়াংয়ের হানি মানুষের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ, এ জাতির মানুষ প্রাচীনকাল থেকেই সূর্যের পূজা করে আসছে। সিয়াচি সৌরপদে তাঁরা সূর্যের বিশেষ পূজা করে থাকে।

jagonews24

চীনের শানতুং প্রদেশে একটি কথা প্রচলিত আছে: মকরক্রান্তি বা দক্ষিণায়ণে ডাম্পলিং খাও এবং কর্কটক্রান্তি বা উত্তরায়ণে খাও নুডলস। সিয়াচি-তে শানতুংয়ের বিভিন্ন এলাকার মানুষ ঠাণ্ডা নুডলস খায়। বেইজিংসহ চীনের অন্যান্য অঞ্চলেও এ সময় বিশেষভাবে নুডলস খাওয়ার রীতি প্রচলিত আছে।

চীনে চান্দ্রপঞ্জিকার পঞ্চম মাসের পঞ্চম দিনে ড্রাগন নৌকা উৎসব পালিত হয়। তবে, চীনের চ্যচিয়াং প্রদেশের শাওসিং-এ ড্রাগন নৌকা উৎসব পালিত হয় দশম সৌরপদে। মিং রাজবংশ আমল (১৩৬৮-১৬৪৪) ও ছিং রাজবংশ আমল (১৬৪৪-১৯১১) থেকেই এটা চলে আসছে। তবে, ড্রাগন নৌকা উত্সবের বৈশিষ্ট্য ও আমেজ পুরোপুরিই পাওয়া যায় এতে। স্থানীয় বিশেষ জলবায়ুর কারণেই সিয়াচি-তে শাওসিং-এর বাসিন্দারা ড্রাগন নৌকা উৎসব পালন করে থাকে বলে জানা গেছে।

jagonews24

চীনের একটি বহুল প্রচলিত প্রবাদ বা লোকোক্তির সঙ্গে জড়িয়ে আছে সিয়াচি সৌরপদের নাম। এসম্পর্কিত একটি গল্প বলে আজকের লেখার ইতি টানব। গল্পটি পাওয়া যাবে ‘ফ্যংসুথং’ (Fengsutong) নামক একটি গ্রন্থে। এতে চীনের বিভিন্ন প্রথা ও রীতিনীতির বর্ণনা আছে। গ্রন্থটি রচনা করেন পূর্বাঞ্চলীয় হান রাজবংশ আমলের (২৫-২২০) ঈং শাও (Ying Shao)। তো, গল্পটি এমন: একবার তুসুয়ান নামের এক ব্যক্তি সিয়াচি সৌরপদ উপলক্ষ্যে আয়োজিত এক ভোজে অংশ নেন। তাঁর চায়ের কাপে দেয়ালে ঝুলানো একটি ধনুকের ছায়া পড়ে।

jagonews24

তিনি ছায়াটিকে মনে করেন সাপ এবং ভয়ে ভয়ে সেই চা পান করেন। ভোজের পর তিনি বুকে প্রচণ্ড ব্যথা অনুভব করেন। অনেক ডাক্তার-কবরেজ দেখিয়েও তাঁর ব্যথার উপশম হলো না। শেষ পর্যন্ত যখন তিনি বুঝতে পারলেন যে, কাপে সাপ পড়েনি, বরং ধনুকের ছায়া পড়েছিল, তখন তিনি সুস্থ হলেন। এই ঘটনার পর থেকে সন্দেহপ্রবণ ও ভীত লোকদের সম্পর্কে যে-লোকোক্তিটি চালু হয়ে যায়, সেটি হচ্ছে: ‘পেইকুংশ্যঈন’ (Beigongsheying), যার বাংলা অর্থ করলে দাঁড়াবে ‘অতি সন্দেহপ্রবণ ব্যক্তি’।

লেখক: বার্তাসম্পাদক, চায়না মিডিয়া গ্রুপ (সিএমজি), বেইজিং।
[email protected]


আরও খবর

পতনের মধ্যেই শেয়ারবাজার

সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২




পাহাড়ি ঢলে ভাসছে শেরপুর

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৭ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ৩০ জুন ২০২২ | ২৬জন দেখেছেন
Image

ভারি বর্ষণ ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলের পানিতে দ্বিতীয় দফায় শেরপুরের নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। এতে ঝিনাইগাতী উপজেলার মহারশী ও সোমেশ্বরী নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে উপজেলার সাতটি ইউনিয়নের অন্তত ৩০ গ্রামের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে।

এসব এলাকার রামেরকুড়া, দিঘীর পাড়, চতলের বেড়িবাঁধ ভেঙে আশপাশের বিভিন্ন এলাকার ওপর দিয়ে প্রবল স্রোতে পানি প্রবেশ করছে।

jagonews24

পানির তোড়ে শুক্রবার (১৭ জুন) দুপুরে রামেরকুড়া বাঁধের সঙ্গে চার বাড়ি ও দুটি মুরগির খামার ভেসে গেছে। সেইসঙ্গে ওই গ্রামের বেশ কয়েকটি বাড়ির মানুষ পানিবন্দি হয়ে আটকে পড়েছেন। তাদের উদ্ধারে চেষ্টা করছেন স্থানীয়রা।

নালিতাবাড়ী উপজেলার চেল্লাখালী ও ভোগাই নদীর পানি বিপৎসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে নিম্নাঞ্চলের বেশ কয়েকটি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৬ জুন) রাত থেকে টানা বৃষ্টি ও মেঘালয় থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে শেরপুরের নদ-নদীর পানি বেড়েছে। শুক্রবার জেলা সদরে ৮৫ ও নালিতাবাড়ী উপজেলায় ১১৫ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে।

নালিতাবাড়ীর চেল্লাখালি নদীর পানি বিপৎসীমার ১৭৬ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। নদ-নদীর পানি বাড়ায় নদীর আশপাশের নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হচ্ছে।

অন্যদিকে ঝিনাইগাতীর মহারশী নদীর ভাঙা বাঁধ দিয়ে নিম্নাঞ্চলে ফের পানি প্রবেশ করতে শুরু করেছে। এতে আতংকে রয়েছেন স্থানীয়রা।

ঝিনাইগাতী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফারুক আল মাসুদ বলেন, আমরা ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করেছি। ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতির পরিমাণ নিরুপণ করে দ্রুত সহায়তা দেওয়া শুরু হবে।

jagonews24

এদিকে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির সভায় জরুরি ভিত্তিতে উপজেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটিকে সভা করার জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। সভায় সকল দপ্তরের কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি, স্বেচ্ছাসেবী, এনজিও, সুশীল সমাজ, স্কাউট, রেডক্রিসেন্টসহ সবাইকে বন্যা মোকাবিলায় সর্বাত্মক আহ্বান জানানো হয়।

জেলা প্রশাসক সাহেলা আক্তার জানান, বন্যা পরিস্থিতিতে সব দপ্তরপ্রধানদের সার্বক্ষণিক কর্মস্থলে থাকার জন্য বলা হয়েছে। উপজেলাগুলোতে জিআর চাল, নগদ অর্থ, শুকনা খাবার বরাদ্দ দিয়ে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে বিতরণের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। ।


আরও খবর

পতনের মধ্যেই শেয়ারবাজার

সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২




‘বাংলাদেশে জাইকার অংশীদারত্ব আরও জোরদার হবে’

প্রকাশিত:শনিবার ১১ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ জুলাই ২০২২ | ৫০জন দেখেছেন
Image

বাংলাদেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রায় জাপান ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন এজেন্সির (জাইকা) অংশীদারত্ব ভবিষ্যতে আরও জোরদার হবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন বক্তারা।

‘বাংলাদেশের সঙ্গে জাইকা: ৫০ বছরে পদার্পণ এবং ভবিষ্যত পরিকল্পনা’ শীর্ষক এ সেমিনারে কি-নোট বক্তব্য দেন জাইকার সিনিয়র নির্বাহী ভাইস প্রেসিডেন্ট জুনিচি ইয়ামাদা।

শুক্রবার (১০ জুন) এক ভিডিও বার্তায় বাংলাদেশ দূতাবাস টোকিও ও জাইকার যৌথ উদ্যোগে দূতাবাসের বঙ্গবন্ধু সম্মেলন কক্ষে এ সেমিনার উদ্বোধন করেন অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব ফাতিমা ইয়াসমিন।

জাপানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বক্তব্য দেন মন্ত্রণালয়ের পরিচালক মারি আকিইয়ামা।

‘বাংলাদেশে জাইকার অংশীদারত্ব আরও জোরদার হবে’

জাপানের সরকারি কর্মকর্তা, শিল্প খাত, একাডেমিয়া ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের নিয়ে গঠিত প্যানেল আলোচনায় বক্তারা বাংলাদেশের উন্নয়ন অগ্রয়াত্রায় ভবিষ্যতে জাইকার অংশীদারত্ব কীভাবে আরও জোরদার করা যায় সে বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেন।

জাপানে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত শাহাবুদ্দিন আহমদ সেমিনারে সমাপনী বক্তব্য দেন।


আরও খবর