Logo
শিরোনাম

সরকার পতন আন্দোলনে জমিয়ত-বিএনপি ঐকমত্য

প্রকাশিত:শনিবার ১৮ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২ | ৫৪জন দেখেছেন
Image

সরকার পতনের আন্দোলন নিয়ে ঐকমত্য হয়েছে জমিয়তে ওলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ ও বিএনপি।

শনিবার (১৮ জুন) সন্ধ্যায় গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে দুই দলের বৈঠকের পর বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ও জমিয়তের সভাপতি মাওলানা মনসুরুল হাসান রায়পুরী সাংবাদিকদের সামনে এ কথা বলেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, আমাদের যে ঘোষিত কর্মসূচি, সব রাজনৈতিক দলের সঙ্গে আলোচনা করার। সেই কর্মসূচি অনুযায়ী আজ ২০ দলীয় জোটের অন্যতম শরীক জমিয়তে ওলামায়ে ইসলামের নেতাদের সঙ্গে বৈঠক করেছি। আমাদের দেশের মানুষের ওপরে যে দুঃশাসন চেপে বসে আছে, অনির্বাচিত একটি সরকার, তাদের বিরুদ্ধে সংগ্রাম করার ব্যাপারে জমিয়তে ওলামায়ে ইসলামের নেতাদের সঙ্গে আলাপ করে একমত হয়েছি।

তিনি বলেন, আমরা এ বিষয়ে একমত হয়েছি যে খালেদা জিয়া, তারেক রহমানসহ আমাদের ৩৫ লাখ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে থাকা মামলা প্রত্যাহার করতে হবে। আমরা আরও একমত হয়েছি যে, এই সরকারকে পদত্যাগ করতে বাধ্য করবো। সরকার পদত্যাগ করে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের হাতে ক্ষমতা হস্তান্তর করবে। সেই সঙ্গে সংসদ বিলুপ্ত করতে হবে। তারপরে নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে একটি নতুন নির্বাচন কমিশন গঠন করে তাদের অধীনে সব দলের অংশগ্রহণে একটি নির্বাচন হবে। যে নির্বাচনের মধ্যে দিয়ে একটি নতুন পার্লামেন্ট গঠন হবে। সেই পার্লামেন্টের মাধ্যমে সব দলের মতামতের ভিত্তিতে একটি সরকার গঠন করা হবে।

তিনি বলেন, এই বিষয়গুলোতে আমরা একমত হয়েছি যে, আন্দোলনের ব্যাপারে আমরা সবাই নিজ নিজ জায়গা থেকে যুগপৎভাবে আন্দোলন শুরু করবো। আন্দোলনকে একটা সুনির্দিষ্ট পর্যায়ে অর্থাৎ এই সরকারকে পদত্যাগের মধ্যে দিয়ে আন্দোলনকে সফল করার জন্য জনগণকে সঙ্গে নিয়ে কাজ করবো।

এসময় জমিয়তের একাংশের সভাপতি মাওলানা মনসুরুল হাসান রায়পুরী বলেন, আজ আমরা একটা গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্তে উপনীত হয়েছি। বিএনপির সঙ্গে বৈঠক হয়েছে। দেশের মানুষ সুখী না। পেটের ক্ষুধায় মানুষ রাস্তাঘাটে হাহাকার করছে। বন্যার মধ্যেও সরকারের সাহায্য পর্যাপ্ত পরিমাণে যাচ্ছে না। তাছাড়া দেশের প্রধান যে জিনিসটা গণতন্ত্রকে এই সরকার শেষ করে ফেলেছে। এই সরকারকে আর টিকে থাকতে দেওয়া যায় না। অনতিবিলম্বে এই সরকারকে হটাতে হবে। সেজন্য আমাদের কোরবানির প্রয়োজন আছে, আন্দোলনের প্রয়োজন আছে। সেজন্য যা কিছু প্রয়োজন হয়, তা করতে আমরা একমত হয়েছি। বিএনপি মহাসচিব যে কথাগুলো বলেছেন, সেগুলোর সঙ্গে আমরা একমত হয়েছি।

এসময় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও ২০দলীয় জোটের সমন্বয়ক নজরুল ইসলাম খান ও জমিয়তে ওলামায়ে ইসলামের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



পদ্মা সেতু অপমানের প্রতিশোধের প্রতীক: সেতুমন্ত্রী

প্রকাশিত:রবিবার ১২ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 | ২৯জন দেখেছেন
Image

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, পদ্মা সেতু এখন আর কোনো স্বপ্ন নয়, এটি দৃশ্যমান বাস্তব। এই সেতু শেখ হাসিনার স্বপ্নের সেতু। এই সেতু আমাদের সামর্থ্য-সক্ষমতার সেতু। এই সেতু একদিকে সম্মান ও মর্যাদার প্রতীক, অন্যদিকে আমাদের যে অপমান করা হয়েছিল, সেই অপমানের প্রতিশোধের প্রতীক।

রোববার (১২ জুন) বিকেলে মুন্সিগঞ্জের মাওয়ায় পদ্মা সেতুর সার্ভিস এরিয়া পরিদর্শনে এসে সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন মন্ত্রী।

মন্ত্রী আরও বলেন, ‘কানাডার আদালত রায় দিলো পদ্মা সেতুতে কোনো দুর্নীতি হয়নি। নির্দোষ বলে কানাডার আদালত রায় দিলো। বিশ্বব্যাংক ২০১২ সালে পদ্মা সেতু প্রকল্প থেকে সরে যায়। প্রধানমন্ত্রী সেতু ঘোষণার পর এই সেতু করতে কত যে ঝুঁকি আমাদের নিতে হয়েছে...সবচেয়ে বেশি ত্যাগ শিকার করেছে উভয় পাড়ের জনগণ। তাদের প্রতি ধন্যবাদ-কৃতজ্ঞতা জানাই। যতই সমালোচনা হয়েছে আমাদের মনোবল আরও দৃঢ় হয়েছে।’

এ সময় সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, ‘পদ্মা সেতুর অনুষ্ঠানে সবাইকে ইনভাইট করবো। বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্ট, প্রফেসর ইউনূস থেকে শুরু করে খালেদা জিয়া সবাইকে ইনভাইট করা হবে।’

তিনি আরও বলেন, সক্রিয় ও ম্যানুয়ালি দুই প্রক্রিয়ায় টোল আদায় করা হবে। এছাড়া সেতুর স্থায়িত্বকাল ১০০ বছর বলেও জানান তিনি।

সেতু চালু হলে রাজধানীতে যানবাহনের চাপ পড়বে। এ বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, পদ্মা সেতু নিয়ে সংশয় ছিল। সেটা যখন আমরা করতে পেরেছি এসব চাপও সহ্য করতে পারবো। ২৬ তারিখ (২৬ জুন) ভোর ৬টা থেকে গাড়ি চলাচল করবে।

সংবাদ সম্মেলনে জাতীয় সংসদের চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী লিটন, নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী, পানিসম্পদ উপমন্ত্রী এনামুল হক শামীম, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম, সেতু বিভাগের সচিব মো. মঞ্জুর হোসেন, পদ্মা সেতুর প্রকল্প পরিচালক শফিকুল ইসলাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর



বরগুনায় একদিনে চার মরদেহ উদ্ধার

প্রকাশিত:রবিবার ০৫ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ জুলাই ২০২২ | ৪২জন দেখেছেন
Image

বরগুনায় একদিনে ৪টি মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এদের মধ্যে দুজনের বিষপানে মৃত্যু হয় এবং অপর দুজনকে ঝুলন্ত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়।

বরগুনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মেহেদী হাছান শনিবার (৪ জুন) রাতে বিষয়টি জাগো নিউজকে নিশ্চিত করেন।

বিষপানে নিহতরা হলেন- সদর উপজেলার ঢলুয়া ইউনিয়নের আবদুর রহিম হাওলাদারের ছেলে জুনায়েদ হাসান (১৮) ও বেতাগী উপজেলার পৌর শহরের মো. হেমায়েত মিয়ার ছেলে মো. মিরাজ (৩০)।

এছাড়া ঝুলন্ত অবস্থায় উদ্ধার হওয়া নিহতেরা হলেন- বেতাগী উপজেলার চান্দখালী এলাকার মিরাজ শিকদারের স্ত্রী সাথী আক্তার লিমা (২৮) ও বরিশালের আগরপুরের মৃত লতিফ শিকদারের ছেলে আইনের শিক্ষার্থী জহিরুল ইসলাম (২৫)।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, প্রাথমিকভাবে প্রত্যেকেই আত্মহত্যা করেছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে।

বরগুনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মেহেদী হাছান জাগো নিউজকে বলেন, চারটি মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্ত শেষে পরবর্তী ব্যবস্থা নেওয়া হবে। স্বজনদের লিখিত অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


আরও খবর



টানা ৯ ইনিংস দশের নিচে আউট মুমিনুল

প্রকাশিত:শনিবার ১৮ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ২৯ জুন ২০২২ | ২৬জন দেখেছেন
Image

নেতৃত্বের চাপে ভেঙে পড়ছেন, এমনটা ভেবেই অধিনায়কত্ব ছেড়ে দেন মুমিনুল হক। কিন্তু নেতৃত্ব ছাড়লেও অফফর্ম ছাড়েনি সাবেক টেস্ট অধিনায়ককে। টানা ৯ ইনিংস দশের নিচে আউট হলেন তিনি।

এবার মুমিনুল সাজঘরে ফিরেছেন ৪ রানে। কাইল মায়ার্সের ডেলিভারি প্যাডে লাগলে আঙুল তুলে দেন আম্পায়ার। মুমিনুল রিভিউ নিয়েছিলেন। কিন্তু লেগ স্ট্যাম্প অল্প একটু পেয়ে যাওয়ায় আম্পায়ার্স কলে ফিরতে হয়েছে বাঁহাতি এই ব্যাটারকে। প্রথম ইনিংসে তিনি করেছিলেন শূন্য।

এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ৩৫ ওভার শেষে বাংলাদেশের দ্বিতীয় ইনিংসে সংগ্রহ ৪ উইকেটে ৭৬ রান। নতুন ব্যাটার হিসেবে ক্রিজে এসেছেন লিটন দাস। জয় ২৮ রানে অপরাজিত আছেন।

দ্বিতীয় দিন শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ছিল ২ উইকেটে ৫০ রান। আগের দিন অভিজ্ঞ ওপেনার তামিম ইকবাল ও প্রমোশন পেয়ে ওপরে ওঠা মেহেদি হাসান মিরাজের উইকেট হারায় সফরকারীরা। ১১২ রানে পিছিয়ে থেকে দিন শুরু করে বাংলাদেশ।

এর আগে মেহেদি মিরাজের চার উইকেটের সঙ্গে খালেদ আহমেদ ও এবাদত হোসেনদের জোড়া শিকারে ক্যারিবীয়দের ২৬৫ রানে অলআউট করে বাংলাদেশ। তবে প্রথম ইনিংসে মাত্র ১০৩ রানে গুটিয়ে যাওয়ায় স্বাগতিকরা পেয়ে যায় ১৬২ রানের বড় লিড।

দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে ইতিবাচক শুরুর আভাসই দিয়েছিলেন তামিম ইকবাল ও মাহমুদুল হাসান জয়। একপ্রান্তে রয়েসয়ে খেলেন জয়, তামিম ছিলেন স্বপ্রতিভ। কিন্তু দশম ওভারে আক্রমণে এসেই তামিমকে ফিরিয়ে দেন আলজারি জোসেফ।

উইকেটের পেছনে ক্যাচ হওয়ার আগে চারটি চারের মারে ৩১ বলে ২২ রান করেন তামিম। তিন নম্বরে নাইটাওয়াচম্যান হিসেবে নামানো হয় মেহেদি মিরাজকে। নিজের পরের ওভারে এ ডানহাতি অলরাউন্ডারকেও ফিরিয়ে দেন জোসেফ। আউট হওয়ার আগে মাত্র ২ রান করতে পেরেছেন মিরাজ।

এরপর দিনের শেষভাগের প্রায় আধঘণ্টা সময় নির্বিঘ্নেই কাটিয়ে দিয়েছেন মাহমুদুল জয় ও নাজমুল হোসেন শান্ত। এ দুজনের অবিচ্ছিন্ন ৫০ বলের জুটিতে আসে ১৫ রান। জয় ১৮ ও শান্ত ৮ রান নিয়ে তৃতীয় দিনের ব্যাটিং শুরু করেন।

তৃতীয় দিনের সকালটাও দেখেশুনে শুরু করেছিলেন মাহমুদুল হাসান জয় আর নাজমুল হাসান শান্ত। প্রথম আধ ঘণ্টা কাটিয়েও দিয়েছিল এই জুটি। কিন্তু এরপরই ভুল করে বসেন শান্ত।

কাইল মায়ার্সের বাউন্সি ডেলিভারিতে ব্যাট ছুঁইয়ে দিয়ে দ্বিতীয় স্লিপে সহজ ক্যাচ হয়েছেন বাঁহাতি এই ব্যাটার। ৪৫ বলে ৩ বাউন্ডারিতে তিনি করেন ১৭ রান। প্রথম ইনিংসে কেমার রোচের বলে শান্ত বোল্ড হয়েছিলেন, আরও একবার দৃষ্টিকটু আউট হলেন।


আরও খবর



বাজেটে বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন শিশুদের গুরুত্ব

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৯ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 | ৫৭জন দেখেছেন
Image

আসন্ন বাজেটে বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন শিশুদের অধিক গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। মাঠপর্যায়ে বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন শিশুদের সহায়ক উপকরণ বরাদ্দ বাড়ানো হয়েছে। এসব শিশুর জন্য অভিন্ন শিক্ষার সুযোগ তৈরি করা হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে ২০২২-২৩ অর্থ বছরের বাজেট বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের বরাদ্দ ঘোষণা করেন।

অর্থমন্ত্রী মুস্তফা কামাল বলেন, আমরা বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন শিশুসহ ধর্ম, বর্ণ, গোত্র নির্বিশেষে সমাজের সব শিশুকে মূলধারার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে লেখাপড়া নিশ্চিতকল্পে একীভূত শিক্ষা কার্যক্রম চালু করেছি। মাঠপর্যায়ে বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন শিশুদের প্রতিবন্ধিতা সহায়ক উপকরণ (হুইল চেয়ার, ক্র্যাচ, শ্রবণযন্ত্র, চশমা ইত্যাদি) ক্রয় ও বিতরণের জন্য আমরা প্রতিটি উপজেলা/থানায় চাহিদার ভিত্তিতে অর্থ বরাদ্দ প্রদান অব্যাহত রেখেছি।

করোনাভাইরাসের অভিঘাত পেরিয়ে উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় প্রত্যাবর্তনের লক্ষ্য নিয়ে প্রস্তাবিত ২০২২-২৩ অর্থবছরের বাজেটের আকার হচ্ছে ছয় লাখ ৭৮ হাজার ৬৪ কোটি টাকা। এবারের বাজেটের আকার যেমন বড়, তেমনি এ বাজেটে ঘাটতিও ধরা হয়েছে বড়।

অনুদান বাদে এই বাজেটের ঘাটতি দুই লাখ ৪৫ হাজার ৬৪ কোটি টাকা, যা জিডিপির সাড়ে ৫ শতাংশের সমান। অনুদানসহ বাজেট ঘাটতির পরিমাণ দুই লাখ ৪১ হাজার ৭৯৩ কোটি টাকা, যা জিডিপির ৫ দশমিক ৪০ শতাংশের সমান।

এটি বর্তমান সরকারের ২৩তম এবং বাংলাদেশের ৫১তম ও বর্তমান অর্থমন্ত্রীর চতুর্থ বাজেট। বাজেটে সঙ্গত কারণেই মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ, কৃষিখাত, স্বাস্থ্য, মানবসম্পদ, কর্মসংস্থান ও শিক্ষাসহ বেশকিছু খাতকে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে।


আরও খবর



দাবি আদায়ে ওসমানী মেডিকেলের শিক্ষার্থীদের তোশক বিছিয়ে অবস্থান

প্রকাশিত:বুধবার ০৮ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 | ৩৪জন দেখেছেন
Image

সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজের আবাসিক হল সংস্কারসহ বিভিন্ন দাবিতে বিক্ষোভ করেছেন সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

বুধবার (৮ জুন) সকাল ১০টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত ক্যাম্পাসের প্রশাসনিক ভবনে তোশক বিছিয়ে প্রায় দেড় শতাধিক শিক্ষার্থী অবস্থান নেন।

শিক্ষার্থীরা কলেজের প্রশাসনিক ভবন ও ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন। পরে উপাধ্যক্ষ দাবি পূরণের আশ্বাস দিলে দুপুর ২টার দিকে কর্মসূচি শেষ হয়।

jagonews24

বিক্ষোভ চলাকালে বিভিন্ন দাবি-সম্বলিত প্ল্যাকার্ড প্রদর্শন করেন শিক্ষার্থীরা। তাতে লেখা ছিল ‘প্রশাসনের বানোয়াট ছল শামসুদ্দিন গেলো রসাতল’, ‘প্রশাসনের গা-ছাড়া ভাব শামসুদ্দিনের অবস্থা খুব খারাপ’ ইত্যাদি।

বিক্ষোভরত শিক্ষার্থীরা বলেন, ১০ থেকে ১৫ বছর ধরে কলেজের আবাসিক ছাত্রাবাস এবং ছাত্রীনিবাসগুলো সংস্কার করা হচ্ছে না। হলের ভেতরে ছাদ থেকে পানি চুইয়ে পড়ে। বৃষ্টি হলে ছাদ থেকে পানি পড়ায় ঘুমাতে পারেন না শিক্ষার্থীরা।

শৌচাগারগুলো ভাঙাচোরা, পানি থাকে না। হলের ভেতরে বৃষ্টির পানি জমে স্যাঁতসেঁতে হয়ে থাকে। একাধিকবার বিষয়গুলো কলেজ প্রশাসনের কাছে জানিয়েও তারা কোনো প্রতিকার পাননি।

jagonews24

কলেজের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র নাইমুর রহমান বলেন, ছাত্র ও ছাত্রীদের হলে কোনো নিরাপত্তার ব্যবস্থা নেই। রাতে বহিরাগতরা হলের ভেতের ঢুকে পড়ে। হলে একাধিকবার চুরির ঘটনাও ঘটেছে।

শিক্ষার্থীদের কর্মসূচিতে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের নৈতিক সমর্থন আছে জানিয়ে কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হাসান বলেন, ‘যারা বিক্ষোভে অংশ নিয়েছেন, তারা সবাই সাধারণ শিক্ষার্থী। ছাত্রলীগের নৈতিক সমর্থন থাকলেও আমরা সাংগঠনিকভাবে এতে অংশ নিচ্ছি না।’

jagonews24

এ বিষয়ে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজের উপাধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. শিশির রঞ্জন চক্রবর্তী বলেন, ‘শিক্ষার্থীরা আন্দোলন নয়, দাবি-দাওয়া নিয়ে এসেছিল। যেগুলো সমাধান সম্ভব, সেগুলো সমাধানের আশ্বাস দেওয়া হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘যে হলের কথা বলা হচ্ছে, সেটি প্রায় শত বছরের পুরোনো। তাই যেগুলো জরুরি, সেগুলো সংস্কারের চেষ্টা করা হবে।’


আরও খবর