Logo
শিরোনাম

‘স্থানীয় বাজারের জন্য উৎপাদনকারী শিল্পকেও নিরাপদ করা হবে’

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৯ মার্চ ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ১০০জন দেখেছেন
Image

প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান বলেছেন, তৈরি পোশাকসহ অন্যান্য রপ্তানিমুখী শিল্পকে যেভাবে নিরাপদ করা হয়েছে, ঠিক একইভাবে অভ্যন্তরীণ বাজারের জন্য যেসব কারখানা পণ্য উৎপাদন করে, সেগুলোকেও নিরাপদ করা হবে।

মঙ্গলবার (২৯ মার্চ) বাংলাদেশ শিল্প ও বণিক সমিতি (এফবিসিসিআই) ও আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার (আইএলও) যৌথ আয়োজনে অনুষ্ঠিত 'উৎপাদনশীলতা বাড়াতে পেশাগত নিরাপত্তা ও স্বাস্থ্যের (ওএসএইচ) প্রসার' শীর্ষক কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ মন্তব্য করেন তিনি।

এফবিসিসিআই কার্যালয়ে আয়োজিত কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি জানান, এরইমধ্যে এ সংক্রান্ত জাতীয় কমিটি পাঁচ হাজার ২০০টি কারখানা পরিদর্শন করেছে। বাকি কারখানাগুলোকেও পরিদর্শনের আওতায় আনা হবে।

তিনি বলেন, দেশের সব শিল্পকারখানায় নিরাপদ কর্মপরিবেশ নিশ্চিত করার জন্য প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন। পোশাক খাতে শুরুর দিকে সংস্কার কার্যক্রমে অনেক মালিকের অনীহা ছিলো। কিন্তু এখন এই খাত সুন্দর কর্মপরিবেশের সুফল পাচ্ছে। একইভাবে দেশের ওষুধ শিল্পও মানসম্পন্ন কারখানার কারণে বিশ্বজুড়ে সুনাম অর্জন করেছে।

কর্মশালায় সবখাতকে নিরাপদ করতে সরকারি নীতিগুলোর সফল বাস্তবায়নের আহ্বান জানিয়ে আইএলও’র কারিগরি উপদেষ্টা জর্জ ফলার বলেন, কর্মক্ষেত্র নিরাপদ হলে মালিক-শ্রমিক উভয়ের জন্যই তা লাভজনক হয়।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে শ্রম ও কর্মসংস্থান সচিব মো. এহছানে এলাহি বলেন, শিল্পকারখানার উন্নয়নে নিরাপত্তা, মান ও উৎপাদন একটি অপরটির সঙ্গে সংশ্লিষ্ট। কারখানার কর্মপরিবেশ উন্নত হলে, কর্মীদের উৎপাদনশীলতা ও মানেরও উন্নয়ন হয়। তিনি জানান, ২০২৫ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে শিশুশ্রমমুক্ত করতে কাজ চলমান রয়েছে।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন এফবিসিসিআই’র সিনিয়র সহ-সভাপতি মোস্তফা আজাদ চৌধুরী বাবু। স্বাগত বক্তব্যে তিনি বলেন, উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে বাংলাদশের শিল্প বাণিজ্য যেমন বাড়ছে, তেমনি সেখানে শ্রমিকদের সংখ্যাও প্রতিনিয়ত বাড়ছে। টেকসই উন্নয়নের বৈশ্বিক প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে সুষ্ঠু কর্মপরিবেশ সৃষ্টির কোনো বিকল্প নেই।

কর্মক্ষেত্রে নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে মালিক, শ্রমিক ও সংশ্লিষ্ট সবাইকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, শিল্পের পেশাগত নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সেফটি কাউন্সিল প্রতিষ্ঠা করেছে এফবিসিসিআই। জাতীয় ওএসএইচ প্রোফাইল ও নীতির ভিত্তিতে কাজ করছে এই কাউন্সিল।

কর্মশালায় উপস্থিত ছিলেন এফবিসিসিআই’র সহ-সভাপতি মো. আমিন হেলালী, মো. হাবীব উল্ল্যাহ ডন, পরিচালক হাসিনা নেওয়াজ, রেজাউল করিম রেজনু, এম জি আর নাসির মজুমদার, সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন, হারুন অর রশীদ, ড. ফেরদৌসী বেগম, আমজাদ হোসাইন, মো. শাহীন আহমেদ, শমি কায়সার, মো. নাসের, ড. যশোদা জীবন দেবনাথ, সিআইপি মো. মাহবুবুর রহমান পাটওয়ারী, মো. আবু হোসাইন ভুঁইয়া (রানু), মো. রেজাউল ইসলাম মিলন ও মহাসচিব মোহাম্মদ মাহফুজুল হক প্রমুখ।


আরও খবর



৫ টাকার টিকিটে ১০ লিখে আদায়, দুজনের জেল-জরিমানা

প্রকাশিত:সোমবার ০৯ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ | ৭৮জন দেখেছেন
Image

টিকিটের গায়ে লেখা আছে পাঁচ টাকা। সেখানে কলম দিয়ে ১০ টাকা লিখে যাত্রীদের কাছ থেকে আদায় করা হচ্ছে। এ অপরাধে সোমবার (৯ মে) দুপুরে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে ভোলার ইলিশা লঞ্চঘাটে দুজনকে জেল-জরিমানা করা হয়েছে।

তারা হলেন-কাউন্টারম্যান মো. লিটন (২৮) ও ঘাট ইজাদারের প্রতিনিধি মো. ফারুক (৪৫)। লিটনকে সাতদিনের বিনাশ্রম করাদণ্ড ও ফারুককে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

ভোলার নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার মো. সালেহ আহমেদ এ দণ্ড দেন।

কারাদণ্ডপ্রাপ্ত লিটন ভোলা সদর উপজেলার রাজাপুর ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডের তালুকদারহাট এলাকার বাচ্চু মাতাব্বরের ছেলে। অর্থদণ্ডপ্রাপ্ত ফারুক ভোলা পৌর ৪ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সালেহ আহমেদ জাগো নিউজকে জানান, জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা অধিদপ্তরের (এনএসআই) জেলা কার্যালয়ের তথ্যের ভিত্তিতে ভোলা সদর উপজেলার ইলিশা লঞ্চঘাটে অভিযান পরিচালনা করা হয়। এ সময় দেখা যায় ঘাটের পাঁচ টাকার টিকিটে কলম দিয়ে ১০ লিখে লঞ্চ যাত্রীদের কাছ থেকে ১০ টাকা করে আদায় করা হচ্ছে। এ অপরাধে দুজনকে আটক করা হয়। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে একজনের জেল ও অন্যজনের জরিমানা করা হয়।


আরও খবর



বোতলজাত সয়াবিনের দাম বেড়ে ১৯৮ টাকা লিটার, খোলা ১৮০

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৫ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ | ৪৮জন দেখেছেন
Image

আন্তর্জাতিক বাজারে তেলের দাম বাড়ায় ফের দেশের বাজারে সয়াবিন তেলের দাম বাড়ানো হয়েছে। নতুন নির্ধারিত দাম অনুযায়ী- খোলা সয়াবিন তেল লিটারপ্রতি ১৮০ টাকা ও প্রতিলিটার বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম ১৯৮ টাকা।

এছাড়া পাঁচ লিটারের বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ৯৮৫ টাকা। একই সঙ্গে প্রতিলিটার পাম অয়েলের দাম ১৭২ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (৬ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে বাংলাদেশ ভেজিটেবল অয়েল রিফাইনার্স অ্যান্ড বনস্পতি ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যাসোসিয়েশনের সচিবের সই করা এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

সর্বশেষ চলতি বছরের ৬ ফেব্রুয়ারি বাণিজ্য সচিবের সঙ্গে বৈঠক শেষে তেলের নতুন দাম নির্ধারণ করা হয়।


আরও খবর



ইউক্রেন যুদ্ধে ২৩ হাজারের বেশি রুশ সেনা নিহত: জেলেনস্কি

প্রকাশিত:রবিবার ০১ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ৫৩জন দেখেছেন
Image

ইউক্রেন যুদ্ধে রাশিয়ার ২৩ হাজারের বেশি সেনা নিহত হয়েছে বলে দাবি করা হয়েছে। ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি বলেছেন, তার দেশে অনর্থক আক্রমণ করে রাশিয়া নিজেদের ২৩ হাজারের বেশি সেনা সদস্যকে হারিয়েছে। আল জাজিরার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

সম্প্রতি এক ভিডিওতে জেলেনস্কি বলেন, রাশিয়ার এক হাজারের বেশি ট্যাঙ্ক ধ্বংস করেছে ইউক্রেন। এছাড়া দেশটির দুইশ প্লেন এবং প্রায় আড়াই হাজার সামরিক যান এই সংঘাতে ধ্বংস হয়েছে।

তিনি বলেন, সামনের দিনগুলোতে আরও কয়েক হাজার রুশ সেনা প্রাণ হারাবেন এবং আরও কয়েক হাজার সেনা সদস্য আহত হবেন।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে আকস্মিক হামলা চালায় রাশিয়া। তারপর থেকে এখন পর্যন্ত দুপক্ষের মধ্যে সংঘাত চলছেই।

এদিকে ইউক্রেনের লভিভ শহরে আকস্মিক সফর করেছেন হলিউড অভিনেত্রী অ্যাঞ্জেলিনা জোলি। তিনি সেখানকার একটি রেল স্টেশনে গিয়ে বাস্তুহারা লোকজনের সঙ্গে সাক্ষাত করেছেন।

জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থার বিশেষ দূত হিসেবে কাজ করছেন ৪৬ বছর বয়সী এই অভিনেত্রী।

জাতিসংঘের এই সংস্থাটি জানিয়েছে, গত দুমাসের যুদ্ধ-সংঘাতে ইউক্রেনে নিজেদের বাড়ি-ঘর ছেড়ে পালাতে বাধ্য হয়েছে এক কোটি ২৭ লাখ মানুষ।


আরও খবর



বোধিদ্রুমতলে মহাজাগরণ ও বৈশাখী পূর্ণিমা

প্রকাশিত:রবিবার ১৫ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ | ২৭জন দেখেছেন
Image

“জগতের সকল প্রাণী সুখী হোক। শত্রুহীন হোক। অহিংসিত হোক । সুখী আত্মা হয়ে কালবরণ করুক। সকল প্রাণী আপন যথালব্ধ সম্পত্তি হতে বঞ্চিত না হোক।’ -পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ মনিষীদের অন্যতম গৌতমবুদ্ধ আড়াইহাজার বছরেরও বেশি সময় আগে এই প্রার্থনা জানিয়েছিলেন। বঙ্কিমচন্দ্র চট্টোপাধ্যায় যাঁকে বলেছেন, ‘সাম্যের অবতার’ সেই গৌতম বুদ্ধ প্রচলিত অর্থে দার্শনিক না হলেও দর্শন তিনি ছড়িয়েছিলেন।

বলেছিলেন, ‘যে ব্যাপারে নিশ্চিত হওয়া যাবে না, তা নিয়ে আলোচনা অর্থহীন।’ দুঃখকে জয় করতে চেয়েছিলেন। খ্র্রিস্টপূর্ব ষষ্ঠ শতাব্দীতে বৈশাখী পূর্ণিমার শুভ তিথিতে গৌতম বুদ্ধের জন্ম, বুদ্ধত্ব লাভ ও মহাপরিনির্বাণ ঘটে। এই ত্রিস্মৃতি বিজড়িত দিবসটি বৈশাখী পূর্ণিমা হিসেবে পালন করা হয়। রবীন্দ্রনাথ লিখেছিলেন, “ওই নামে একদিন ধন্য হল দেশে দেশান্তরে / তব জন্মভূমি। / সেই নাম আরবার এ দেশের নগরে প্রান্তরে / দান করো তুমি।/ বোধিদ্রুমতলে তব সেদিনের মহাজাগরণ / আবার সার্থক হোক, মুক্ত হোক মোহ-আবরণ-”

বুদ্ধদেব যখন বুদ্ধ হন নি, রাজপুত্র সিদ্ধার্থ- তখনই একদিন রাজসম্পদ, স্ত্রী-পুত্র, ভোগ-বিলাস সবকিছু ত্যাগ করে তপস্যা করতে বসেছিলেন সমস্ত মানুষের দুঃখ মোচনের সংকল্প নিয়ে। সে তপস্যার মধ্যে কোনও অধিকার ভেদ ছিল না। মূর্খ-পন্ডিত, ধনী-দরিদ্র, আর্য-অনার্য, ম্লেচ্ছ-ব্রাহ্মণ সবই সমান এবং একাকার তাঁর কাছে। বুদ্ধত্ব লাভের আগে, যখন তিনি রাজকুমার সিদ্ধার্থ, তখন একদিন তাঁর কোলে দেবদত্তের তীক্ষ্ণশরে বিদ্ধ শুভ্রহংস এসে পড়লো। দেবদত্ত সেই হংস ফেরত চাইবার সময় সিদ্ধার্থ বলেছিলেন যে, আশ্রিত এবং আহত ওই হংসের বদলে তিনি গোটা শাক্যরাজ্যই দিয়ে দিতে পারেন। একদিন সবকিছু ত্যাগ করে সেই সিদ্ধার্থই মানুষের মুক্তির সন্ধানে বেরিয়ে পড়েছিলেন।

বুদ্ধত্ব লাভের বিপুল আকাঙ্খা নিয়ে প্রকৃত গুরুর সন্ধানে ঘুরতে থাকেন সিদ্ধার্থ। প্রথমে আঢ়ার কালাম, তারপর রামপুত্র উদ্রক প্রমুখ সেই সময়কার খ্যাতিমান সন্ন্যাসীদের শিষ্যত্ব গ্রহণ করেন। এতে তাঁর কিছু আধ্যাত্মিক উন্নতি সাধিত হলেও মন তৃপ্ত হয় নি। কিন্তু সিদ্ধার্থের মনে তো হতাশার স্থান নেই। তাঁর নিশ্চিত বিশ্বাস, সাধনার সঠিক পথে গেলে সিদ্ধিলাভ একদিন হবেই। তিনি নতুন করে গুরুর সন্ধানে না গিয়ে বিপুল আত্মবিশ্বাসে কঠোর সাধনায় রত হতে বদ্ধ পরিকর হলেন। সেকালের প্রচলিত কঠোরতম চতুরঙ্গ ব্রহ্মাচর্য সাধনা তিনি শুরু করলেন। পরিধানের বস্ত্রখন্ড ফেলে দিয়ে অনাবৃত দেহে গ্রীষ্মের খরতাপে আর শীতের ঠাণ্ডায় অশেষ ক্লেশ সহ্য করলেন।

লোকালয়ের ভিক্ষা ত্যাগ করে গাছ থেকে যে ফলমূল ঝরে পড়ত তাই ছিল আহার। শরীরের আরাম যাতে না হয় সে জন্য কাঁটা ছিল শয্যার উপাদান। যত রকমভাবে শরীরকে কষ্ট দেওয়া সম্ভব, তার মাধ্যমেই তিনি তপস্যা শুরু করলেন। নির্জন তপশ্চর্যার সময় কখনো কখনো এমন হতো যে, তিনি যখন আসন করে বসতেন, হয়তো রাখাল বালক এসে তাঁর নিশ্চল দেহের উপর মূত্রত্যাগ করতো। ধুলো ছড়িয়ে দিতো। এসব দৈনন্দিন অত্যাচার নীরবে সয়ে করুণা বিগলিত চিত্তে তাদের ক্ষমা করতেন। দিনে দিনে অল্পাহার এবং অনাহারে তার শরীর ভেঙ্গে গেল। হাড়-পাঁজরা বেরিয়ে পড়লো। চক্ষু হলো কোটরাগত। সমস্ত শরীর পরিণত হলো চর্মাবৃত্ত কংকালে। অবশেষে তাঁর উত্থান শক্তিও রহিত হলো। এই কঠোর তপশ্চর্যায়ও যখন সিদ্ধিলাভ হলো না, তাঁর মনে হলো সত্যের পথ এটা নয়। এতে শুধু দেহ মনের নিপীড়নই হয়। অবশেষে এক গ্রাম্য বালকের দেওয়া এক বাটি দুধ খেয়ে কিছুটা প্রকৃতিস্থ হলেন। সিদ্ধান্ত নিলেন, আহার বিষয়ে অতো কঠোর পন্থা অবলম্বন না করে তিনি মধ্যপন্থা গ্রহণ করবেন। এতে আবার তাঁর সহচর পঞ্চব্রাহ্মণ-কৌন্ডিন্য, ভদ্রজিৎ, বপ্পা, মহানাম এবং অশ্বজিৎ- যাঁরা সিদ্ধার্থের কৃচ্ছসাধনায় মুগ্ধ হয়ে তাঁর সেবাযত্ন করতেন, তাঁকে পরিত্যাগ করলেন। ভাবলেন, সিদ্ধার্থ পথভ্রষ্ট। তা স্বত্ত্বেও সিদ্ধার্থ মত পরিবর্তন করেন নি। তিনি মধ্যপন্থা অনুসরণ করেই নতুন সাধন পদ্ধতি শুরু করলেন। তাঁর হৃদয় ভরে উঠলো পুলকে, অন্তরে এলো নতুন আলোর স্পর্শ।

অল্পদিনের মধ্যেই ফিরে পেলেন হৃতস্বাস্থ্য। বসন্তের আগমনে যেমন বনে-বনান্তরে নতুনের সমারোহ শুরু হয়, তেমনই তাঁর মনোজগতেও দেখা দিল এক নতুন পরিবর্তন। মনে হলো, উদ্দেশ্য সিদ্ধির সময় যেন আসন্ন। বৈশাখের শুক্লপক্ষের চতুর্দশ তিথির প্রভাতে এক বটবৃক্ষের ছায়ায় তিনি বিভোর হয়ে বসলেন। দেহ হলো নিশ্চল। চোখে ফুটে উঠলো অপূর্ব ধ্যান দৃষ্টি। সিদ্ধার্থের ভাবমগ্ন জ্যোতির্ময় মূর্তি দেখে সেখানে উপস্থিত কুলবধূ সুজাতা ভাবলেন তাঁর আরাধ্য বনদেবতা সশরীরে যেন আবির্ভূত হয়েছেন। সীমাহীন আনন্দে সুজাতা গৃহে গিয়ে স্বর্ণপাত্রে নিয়ে এলেন পায়েসান্ন। ভক্তিভরে পায়েসের স্বর্ণপাত্র তুলে দিলেন সিদ্ধার্থের হাতে। আহারান্তে তিনি স্বর্ণপাত্রকে মৃৎপাত্রের মতো ফেলে দিলেন নিরঞ্জনা নদীর পানিতে। স্রোতের টানে তা ভেসে গেলে তিনি তন্ময় হয়ে তাকিয়ে থাকলেন। ক্রমশ সন্ধ্যা ঘনিয়ে এলো। বৈশাখি পূর্ণিমার জ্যোৎস্নায় প্লাবিত হলো চারিদিক।

সিদ্ধার্থের মনে এক অপূর্ব আলোর অনুভূতি জাগলো। তিনি বুদ্ধত্ব লাভের কঠিন সংকল্প নিয়ে অদূরে এক অশ্বত্থ গাছের তলায় আসন গ্রহণ করলেন। তাঁর চোখ ধ্যান নিমীলিত হয়ে এলো। মন ক্রমশ ধ্যানের বিভিন্ন স্তর অতিক্রম করে সুখ-দুঃখের অতীত সহানুভূতিযুক্ত শুদ্ধশান্ত ধ্যানে মগ্ন হলেন। তাঁর সমাহিত চিত্ত জাতিস্মর জ্ঞান লাভ করলো। তিনি দর্পণে প্রতিফলিত বস্তুর মতো জন্ম-জন্মান্তরের চিত্র দেখতে পেলেন। রাত্রির প্রথম যামেই আয়ত্ব হলো তাঁর এ বিদ্যা।

দ্বিতীয় যামে তাঁর কাছে উদঘাটিত হলো জন্ম-মৃত্যুর রহস্য। দিব্যদৃষ্টি মেলে প্রত্যক্ষ করলেন জীবজগতের আসা-যাওয়ার খেলা। রাত্রির তৃতীয় যামে অন্তরের সমস্ত রিপুকে নির্মূল করে তাঁর চিত্ত হলো মুক্ত, বন্ধনহীন। এখানেই তাঁর বুদ্ধ জীবনের বিকাশ, সাধনার পরিপূর্ণতা। তিনি হলেন, ‘বুদ্ধ’ অর্থাৎ জ্ঞানের প্রতিমূর্ত।

সিদ্ধার্থ বুদ্ধত্ব লাভ করবার পর বারাণসীর সারনাথ নামক স্থানে দেওয়া প্রথম উপদেশে বলেছিলেন যে, ‘মুক্তির জন্য সাধনার দু’টি চরম পথই বর্জন করতে হয়। প্রথম হলো ইন্দ্রিয়পরতা, যা মানুষকে করে দেয় হীন, বর্বর, অশ্লীল এবং অনর্থের ভাগীদার। আর দ্বিতীয় হলো কৃচ্ছ্রতা সাধন বা সাধনার নামে আত্মপীড়ন। যাতে শরীরের ভোগান্তি হয়ে মনে অবসন্নতা আনে। এই দুইয়ের মধ্যপথেই মানুষের চোখ খুলে দেয়। আলো আনে। এবং কামনা বাসনার বহ্নি নিভিয়ে নির্বাণের পথে যেতে তাকে সাহায্য করে। সে কারণেই তিনি বলেছেন মধ্যপন্থার কথা অর্থাৎ ‘মজ্ঝিমা পটিপদা’। এ সবই বুদ্ধের নিজের জীবনচর্চার নির্যাস থেকে নেওয়া।

কোনো মানুষ সর্বজ্ঞ হতে পারে বলে বুদ্ধ বিশ্বাস করতেন না। বলেছেন, ‘এমন কোনো শ্রমণ-ব্রাহ্মণ নেই, যিনি একেবারেই সব জানবেন ও দেখবেন। অর্থাৎ সর্বজ্ঞ, সর্বদ্রষ্টা হবেন। স্বাধীন চিন্তাচর্চায় উদ্বুদ্ধ করে তোলার জন্যই ভিক্ষুদের উপদেশ দিয়েছিলেন, “ভিক্ষুগণ! আমি সেতুর মতো অতিক্রম করার জন্য তোমাদের ধর্মোপদেশ দিচ্ছি, ধরে রাখার জন্য নয়। ...যেমন একজন পুরুষ এক বিরাট নদীর তীরে উপস্থিত হলো, যার এপার বিপদসংকূল, ভয়পূর্ণ ও ওপার সুখসমৃদ্ধিপূর্ণ তথা ভয়রহিত। অথচ সেখানে যাওয়ার জন্য কোনো তরীও নেই। নেই কোনো সেতু। ...তখন ...সে তৃণকাষ্ঠ...পত্র সংগ্রহ করে সেতু বেঁধে, তার সাহায্যে দৈহিক পরিশ্রমের দ্বারা স্বস্তিপূর্বক নদী পার হলো। .... এরপর তার মনে হলো- ‘এই সেতু আমার উপকার করলো, এর সাহায্যে .... আমি পার হলাম; অতএব এখন একে আমি কেনই বা মাথায় করে অথবা কাঁধে তুলে ...নিয়ে যাব না’। ...তবে কি ...ঐ পুরুষকে সেতুটির প্রতি কর্তব্য পালনকারী ধরতে হবে? ...না ...ভিক্ষুগণ! ঐ সেতুটি থেকে দুঃখকেই আহরণ করবে।”

অহিংসা, সাম্য, মৈত্রী, যুক্তি, মুক্তবুদ্ধি, পরমত সহিষ্ণুতা এবং শান্তমন প্রভৃতি যে সব সদ্গুণ আধুনিক গণতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থায় প্রধান উপাদান হিসেবে গণ্য, মহামনিষী বুদ্ধ কিন্তু এসব গুণাবলী আড়াইহাজার বছরেরও আগে মানুষকে অর্জন করার জন্য উপদেশ দিয়েছিলেন। তিনি যাগযজ্ঞ, মন্ত্রতন্ত্র, জাতিভেদ এবং অস্পৃশ্যতার অভিশাপ থেকে মানবতার মুক্তির কথা ঘোষণা করেছিলেন। মানুষের মর্যাদা নির্ধারণ করার জন্য বুদ্ধ মানুষের শ্রেণী বা জন্মের উপর কোনও গুরুত্ব আরোপ করেন নি। তিনি জোর দিয়েছিলেন মানুষের গুণ এবং সদাচরণের উপর। তাঁর প্রতিষ্ঠিত সংঘের দরোজা সকলের জন্য ছিল উম্মুক্ত ও অবারিত। ধনী-দরিদ্র, ব্রাহ্মণ-ক্ষত্রিয়, বৈশ্য-শূদ্র, স্পৃশ্য-অস্পৃশ্য সকলেই সেখানে স্বাগত। ক্ষৌরকার, উপালি, অস্পৃশ্য সুণীত, চন্ডাল কন্যা, প্রকৃতি, নগরনটী, আম্রপালি সকলেই ছিলেন বৌদ্ধ সংঘের সম্মানিত সদস্য-সদস্যা।

বুদ্ধের সময় বৈশালী ছিল এথেন্সের মতো একটি শক্তিশালী গণরাজ্য। শক্তিশালী মগধ সাম্রাজ্যের পাশে অবস্থিত বৈশালী গণরাজ্যকে তিনি অজেয় থাকার অভয়বাণী শুনিয়েছিলেন। গৌতমের সময় ভারতবর্ষে যদিও মূলত নিপীড়নমূলক রাজতন্ত্রেরই প্রতিষ্ঠা ঘটে গিয়েছিল, তবু সেই সময়ে বেশ কয়েকটি গণরাজ্যও বিদ্যমান ছিল। সেই গণরাজ্যগুলোতে ‘শাসনের রূপ ছিল যৌথ ব্যবস্থা।

নির্বাচিত হতো একজন সভাপতি- রাজা হিসেবে তাঁর পরিচয় থাকলেও রাজতন্ত্রের রাজা তিনি নন বরং বলা যায় উপজাতি প্রধান। শাসনের বিভিন্ন বিষয়ে তুমুল তর্কবিতর্ক হতো। সিদ্ধান্ত গ্রহণে একমত না হলে ভোট নেওয়া হতো। ভূমির মালিকানা কখনো ছিল গ্রামের সকলের যৌথভাবে অথবা কখনো উপজাতি প্রধানের। তিনি লোক নিয়োগ করে চাষ করাতেন। ... ব্যক্তিস্বাতন্ত্র্য ও স্বাধীন মতামত প্রকাশের ব্যাপারে রাজতন্ত্র অপেক্ষা অনেক বেশী উদার ছিল গণরাজ্য। প্রচলিত মতের বিরোধী দৃষ্টিভঙ্গী সহ্য করা হতো। এই গণরাজ্য থেকে উত্থান হয় দুই নেতার- শাক্য উপজাতি থেকে গৌতম বুদ্ধ এবং জ্ঞাতৃক উপজাতি থেকে জৈন ধর্মের প্রবর্তক মহাবীর।

গৌতম বুদ্ধের গণতান্ত্রিক আদর্শে একান্ত আস্থার প্রমাণ বৌদ্ধ সংঘে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা ও চালু। অধিকাংশের এবং স্বল্পসংখ্যকের মত জানার জন্য ভোট গণনার ব্যবস্থা ছিল। সংখ্যাগরিষ্ঠের মতের ভিত্তিতেই সংঘের অধ্যক্ষ বা সংঘনায়ক নির্বাচিত হতেন। গণতান্ত্রিক ব্যবস্থাপনার উপর বুদ্ধের গভীর আস্থার প্রমাণ পাওয়া যায় তাঁর পরিনির্বাণের পূর্বে কোনও উত্তরসূরি নিযুক্ত করে না যাওয়া। যোগ্য উত্তরসূরি নির্বাচনের দায়িত্ব তিনি সংঘের উপরই ন্যস্ত করেছিলেন। সেকালের সমাজের স্বার্থান্বেষী গোষ্ঠীর বিরোধিতা স্বত্ত্বেও বুদ্ধ তাঁর সংঘে সাম্যবাদ প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। তাঁর পুরো জীবনের কর্ম ও সাধনাই ছিল; ‘বহুজন হিতায় বহুজন সুখায়।’

হিংসা, অবিশ্বাস, প্রেমহীনতা এবং লোভ সে আমলে মহামারির মতোই ছড়িয়েছিলো। এই বাতাবরণে বুদ্ধ অহিংসা, বিশ্বাস, ক্ষমা, নির্লোভ এবং প্রেমের বাণী প্রচার করেন। তাঁর দর্শনের সার্বভৌম উদারতাই মানুষকে তাঁর প্রতি আকৃষ্ট করেছিল। বুদ্ধ বলেছেন সেই মূল মন্ত্রের কথা- “অক্কোধেন জিনে কো ধং/ অসাধুং সাধুনা জিনে।”

অর্থাৎ সর্বজীবে দয়া এবং বিশ্বমৈত্রী যে ধর্মের ভিত্তি; জগতে তার প্রাসঙ্গিকতা চিরকালীন। বৌদ্ধ ধর্ম এবং দর্শনে অন্ধ বিশ্বাসের কোনও স্থান নেই। যুক্তি এবং বিচারই এখানে গ্রহণ বা বর্জনের শেষ কথা। সকলের প্রতি তথাগত বুদ্ধের অমর অবদান বিশ্বমৈত্রী। এই বিশ্বমৈত্রী কিন্তু শ্রেণী বা সম্প্রদায়গত নয়। সার্বজনীন মানবধর্মরূপেই স্বীকৃত এই বিশ্বমৈত্রী। বুদ্ধ এই পৃথিবীতে জন্মগ্রহণ করে করুণাঘন অন্তরে যে দর্শন পরিবেশন করেছেন, তাতে বিশ্বমৈত্রীই ব্যাপকতা লাভ করেছে। বিশ্বের সকল প্রাণীর সার্বিক মঙ্গলের জন্য তাঁর পরিবেশিত ধর্মদর্শন বিশ্বের এক অসাধারণ অধ্যায়ের সূচনা করে। বিশ্বমৈত্রীর ভাবনা ছাড়া মানুষের সুখ-শান্তি প্রায় অসম্ভব। আর এর মূলমন্ত্রই হলো, ‘তুমি যেমন সুখে থাক, অপরকেও সুখে থাকতে দাও।’ বুদ্ধ বলেছেনও, “নাই বেরেন বেরানি সম্মান্তীধ কুদাচনং’/ অবেরেন চ সম্মন্তি এস ধম্মো সনন্তনো।’ অর্থাৎ বৈরিতার দ্বারা বৈরিতা, শত্রুতার দ্বারা শত্রুতা কখনো প্রশমিত হয় না, অবৈরিতা ও মৈত্রী দ্বারাই শত্রুতার উপশম হয়। হিংসাকে হিংসা দিয়ে জয় করা যায় না। অহিংসা দিয়েই হিংসাকে জয় করতে হয়। আগুনকে আগুন দিয়ে যেমন নেভানো সম্ভব নয়, তদ্রƒপ অসাধুতাকে সাধুতার প্রভাবে জয় করাই চিরন্তন সত্যধর্ম।

বুদ্ধ যখন তার বাণী ও দর্শন প্রচার শুরু করেন, তখন তা ছিল শুধু সংসারত্যাগীদের জন্য। গৃহীদের জন্য ধর্মপালনের কোনো ব্যবস্থা ছিল না। পরবর্তী সময়ে যখন ভিক্ষুসংঘ গড়ে উঠল; তখন বৌদ্ধ দর্শনের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে সাধারণ মানুষ ভিক্ষুদের জন্য নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য দিয়ে যেতো তাদের সেবা করার মানসে। এভাবেই গৃহীরা ভিক্ষুদের কাছাকাছি আসে। এর পরই নিয়ম হয়, ত্রিশরণ গ্রহণ করলেই বৌদ্ধগৃহী হওয়া যাবে।

বাংলা বর্ষের প্রথম মাস বৈশাখের পূর্ণিমা তিথির উৎসব বুদ্ধ পূর্ণিমা বা বৈশাখী পূর্ণিমা নামে অভিহিত। এই পূর্ণিমা তিথিতে বুদ্ধ সিদ্ধার্থ লুম্বিণীকাননে জন্মগ্রহণ করেন। আবার এই পূর্ণিমা তিথিতে সিদ্ধার্থ ৩৫ বছর বয়সে বুদ্ধত্ব অর্জন করেন। অবশেষে এই পূর্ণিমা তিথিতেই মহাপরিনির্বাণ লাভ করেন। বুদ্ধের জীবনের গুরুত্বপূর্ণ তিনটি ঘটনা বিশ্ব বৌদ্ধসম্প্রদায় পালন করে আসছে যুগ যুগ ধরে। জীব জগতের প্রতি অপরিসীম সহানুভূতি ও করুণা বুদ্ধের ধর্মবৈশিষ্ট্য। এজন্য তার ধর্মকে ‘মানব ধর্ম’ বলেও আখ্যায়িত করা হয়। মানবের অধোগতি রোধই ছিল তাঁর আরাধ্য।

কলুষমুক্ত জাগতিক পরিবেশ চেয়েছিলেন বুদ্ধ। জগত জীবন ও প্রকৃতি নিয়েই তার চিন্তা ও দর্শনের বিস্তার। সকল বিভ্রান্তিকে জয় করেই শাক্যমুনি গৌতম হয়েছিলেন বুদ্ধ। জ্ঞানের বিস্তারের জন্য তিনি সঙ্ঘও প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। আড়াইহাজার বছর আগে বুদ্ধ চেয়েছিলেন, বিশ্বশান্তি। প্রতিহিংসা বা বিবাদকে পরিহার করতে বলেছিলেন। কারণ এসব হচ্ছে যুদ্ধের কারণ। যুদ্ধ অপরিহার্য বা ইতিহাসের অপরাজয় বলতে কিছু নেই। মানুষের শক্তি রয়েছে নিজেকে দমন করার। গৌতম বুদ্ধ বলেছেনও তাই-
“যো সহস্সং সহসসেন সঙ্গামে মানুষে জিনে, / একঞ্চ জেয়্যমত্তানং স বে সঙ্গাম জুত্তমো।”
অর্থাৎ যে ব্যক্তি যুদ্ধে হাজার হাজার মানুষকে জয় করে তার তুলনায় যিনি কেবল নিজেকে জয় করেন, তিনিই সর্বোত্তম সংগ্রামজয়ী। আত্মজয় হচ্ছে শ্রেষ্ঠ জয়। বুদ্ধের মতে, সৃষ্ট জগৎকে খণ্ড খণ্ড করে নানা দেশ, নানা জাতি হিসেবে দেখার নাম মানবতা নয়। সমস্ত পৃথিবী ও প্রাণীলোককে অখণ্ড হিসেবে দেখার নামই মানবতা। বুদ্ধ মানবকল্যাণে, মানবহিত সাধনায় এক বিস্তৃত দিগন্ত রেখে গেছে মানব জাতির জন্য। যা আজো বহমান। বৈশাখীপূর্ণিমার লগ্নে তাই আকাঙ্খা থাকুক যেন বিশ্বশান্তি ও মৈত্রীর সোপান প্রসারিত হয় মানবাত্মা জুড়ে। বুদ্ধ তা-ই চেয়েছিলেন।

লেখক : একুশে পদকপ্রাপ্ত সাংবাদিক, মহাপরিচালক, প্রেস ইনস্টিটিউট বাংলাদেশ (পিআইবি)।


আরও খবর



আন্তর্জাতিক জাদুঘর দিবস আজ

প্রকাশিত:বুধবার ১৮ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ২৫জন দেখেছেন
Image

আন্তর্জাতিক জাদুঘর দিবস আজ (বুধবার)। প্রতি বছরই একটি স্লোগান সামনে রেখে এ দিবসের তাৎপর্য তুলে ধরা হয়- যাতে ছাত্র-শিক্ষকদের গবেষণার সুযোগ সৃষ্টি হয়। বিশ্ব নাগরিকরা জাদুঘর ও তার আপন ঐতিহ্য সম্পর্কে ভাবতে শেখে।

এ বছর দিবসটির প্রতিপাদ্য হচ্ছে ‘পাওয়ার অব মিউজিয়াম’। ইন্টারন্যাশনাল কাউন্সিল অব মিউজিয়ামস এর আহ্বানে ১৯৭৭ সাল থেকে বিশ্বব্যাপী দিবসটি পালিত হচ্ছে। ১৯৪৬ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় আইসিওএম। এর সদস্য হিসেবে বর্তমানে ১০৭ দেশের ২৮ হাজার জাদুঘর যুক্ত রয়েছে।

বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘর প্রতি বছর দিবসটিতে বর্ণাঢ্য র্যালি, বিষয়ভিত্তিক সেমিনার ও বিশেষ প্রদর্শনী আয়োজন করে থাকে। দিবসটি উপলক্ষে এ বছরও বিস্তারিত কর্মসূচি রয়েছে।

কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে র্যালি ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। আজ সকাল ৮টা ৩০ মিনিটে শাহবাগস্থ বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘর প্রাঙ্গনে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ।

জাতীয় জাদুঘরের সভাপতি অধ্যাপক ড. অ আমস আরেফিন সিদ্দিকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. আবুল মনসুর।

জাদুঘর এমন একটি প্রতিষ্ঠান যেখানে পুরাতাত্ত্বিক নিদর্শনসমূহের সংগ্রহ সংরক্ষিত থাকে। জাদুঘরে বৈজ্ঞানিক, শৈল্পিক ও ঐতিহাসিক গুরুত্বসম্পন্ন বস্তুসমূহ সংগ্রহ করে সংরক্ষণ করা হয় এবং তা জনসমক্ষে প্রদর্শন করা হয়।

জানা গেছে, এ উপমহাদেশে জাদুঘরের ধারণাটি এসেছে ব্রিটিশদের মাধ্যমে। ভারতীয় এশিয়াটিক সোসাইটির সদস্যরা এই অঞ্চলের জাতিতাত্ত্বিক, প্রত্নতাত্ত্বিক, ভূ-তাত্ত্বিক ও প্রাণীবিষয়ক নমুনা সংগ্রহ করে সেগুলোকে যথাযথভাবে সংরক্ষণ ও প্রদর্শনের ব্যাপারে উদ্যোগী হন। লর্ড ওয়ারেন হেস্টিংস, যিনি এশিয়াটিক সোসাইটির পৃষ্ঠপোষক ছিলেন।

তিনি কলকাতার পার্কস্ট্রিটে জমির ব্যবস্থা করেন। ১৮০৮ সালে সেখানে জাদুঘরের জন্য ভবন নির্মাণ শেষ হয়। এই প্রক্রিয়ায় ১৮১৪ সালে উপমহাদেশের প্রথম জাদুঘর ‘এশিয়াটিক সোসাইটি মিউজিয়াম’ -এর জন্ম ও প্রতিষ্ঠা হয়। আর ১৯১০ সালের এপ্রিলে দিঘাপতিয়া রাজপরিবারের সার্বিক পৃষ্ঠপোষকতায় শরৎকুমার রায়ের উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত ‘বরেন্দ্র গবেষণা জাদুঘর’ হচ্ছে বাংলাদেশের প্রথম জাদুঘর। এটি নির্মাণ শেষ হয় ১৯১৩ সালে। বাংলাদেশে শতাধিক জাদুঘর আছে। তবে বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘরই দেশের প্রধান জাদুঘর হিসেবে বিবেচিত।


আরও খবর