Logo
শিরোনাম

তেলের পর বেড়েছে পেঁয়াজ রসুন ডিমের দাম

প্রকাশিত:রবিবার ১৫ মে ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২ | ৫৪জন দেখেছেন
Image

 

সয়াবিন তেলের তেলেসমাতির পর এবার ময়মনসিংহের বাজারে বেড়েছে আটা, পেঁয়াজ, রসুন, ডিম ও মাছের দাম। তবে কমেছে গরু, খাসি ও মুরগির দাম। দেশব্যাপী টানা অভিযানের পর বাজারে খোলা সয়াবিন তেল পাওয়া গেলেও মিলছে না বোতলজাত সয়াবিন।

শনিবার (১৪ মে) বিকেলে ময়মনসিংহের প্রধান মেছুয়া বাজার ও শম্ভুগঞ্জ বাজার ঘুরে এসব তথ্য তথ্য পাওয়া যায়।

মেছুয়া বাজারের জঙ্গলবাড়ি স্টোরের বিক্রেতা বুলবুল আহমেদ বলেন, গত সপ্তাহের তুলনায় মসুর ডাল, মোটর, খোলা ও প্যাকেট আটায় কেজিতে পাঁচ টাকা করে বেড়েছে।

তিনি বলেন, ভাঙা মাসকলাই ১২০, দেশি মসুর ডাল ১৩০, ইন্ডিয়ান মসুর ডাল ১০৫, ভাঙা মসুর ডাল ৯৫, মুগডাল ১২০, ছোলা ৭০, মোটর ৬০, বুটের ডাল ৮০ টাকা, চিনি ৮০, খোলা আটা ৪০, প্যাকেট আটা ৪৫ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে।

মেছুয়া বাজারের মাছ বিক্রেতা রুবেল মিয়া বলেন, ঈদের পর থেকেই মাছের আমদানি কম। নিয়মিত বাজারে যে পরিমাণ মাছ আসে শনিবার তার অর্ধেক মাছও বাজারে নেই। যে কারণে সব প্রকার মাছেই গড়ে কেজিতে ২৫ টাকা করে বেড়েছে।

তিনি বলেন, শিং মাছ ৩৫০, রুই মাছ ২৮০, মাগুর মাছ ৪৫০, দেশি টেংরা ৫০০, পাবদা মাছ ৩৫০, পুটি মাছ ৩০০, কাচকি মাছ ৬০০, বাতাসি মাছ এক হাজার, বাইম মাছ ৭০০, গুতুম ৬০০, বোয়াল মাছ ৬৫০, পাঙ্গাস মাছ ১৪০, কারপিও মাছ ৩২০, কাতল মাছ ৩৫০, তেলাপিয়া মাছ ১৭০, সিলভার কার্প মাছ ২০০, গ্লাস কার্প ৩০০, চিংড়ি মাছ ৭০০, গুলশা মাছ ৯০০ ও শোল মাছ ৫০০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে।

একই বাজারের মেসার্স মিলন বালা পালের বিক্রেতা কাঞ্চন পাল বলেন, গত সপ্তাহের শেষের দিকে খোলা সয়াবিন তেল কোম্পানি মালিকরা দিয়েছেন। তবে বোতলজাত সয়াবিন এখনো বাজারে আসেনি।

তিনি বলেন, খোলা সয়াবিন ১৯৮ টাকা, পাম তেল ১৮৮, কোয়ালিটি ১৯৪ টাকা, সরিষার তেল ২৪০, ইন্ডিয়ান সরিষার তেল ২১০ কেজি বিক্রি হচ্ছে।

এদিকে শম্ভুগঞ্জ বাজারের কয়েকজন ব্যবসায়ীর সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, খোলা সয়াবিন বা বোতলজাতকরণ কোনোটাই তারা পাননি। তবে কিছু সয়াবিন তেল মজুত করা ছিল। ওই তেল ২১০ টাকায় বিক্রি করছেন।

শম্ভুগঞ্জ মধ্যবাজারের ব্যবসায়ী খোকন মিয়া বলেন, ভারত থেকে পেঁয়াজ আসার খবরে হঠাৎ করেই ১০ টাকা বেড়ে ৪০ টাকা হয়ে যায়। তবে শুক্রবার থেকে পেঁয়াজ ৩৫ টাকা কেজি হয়েছে। ইন্ডিয়ান ও দেশি রসুনের কেজিতে ২০ টাকা করে বেড়েছে।

তিনি বলেন, পেঁয়াজ ৩৫, ইন্ডিয়ান রসুন ১৪০, দেশি রসুন ১০০, আলু ২০ থেকে ২৫ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে।

এদিকে সপ্তাহের ব্যবধানে হাঁসের ডিম ৫ টাকা বেড়ে ৫০ টাকা, দেশি মুরগির ডিম ৫ টাকা বেড়ে ৬৫, ফার্মের মুরগির ডিম ৮ টাকা বেড়ে ৪০ টাকা হালি বিক্রি হচ্ছে।

মেছুয়া বাজারের সবজি বিক্রেতা তামিম মিয়া জানান, সবজির দামে তেমন ওঠানামা নেই। পেঁপে ৫০, কাঁচা আম ৪০, কাঁচকলা ৩০, টমেটো ৪০, করলা ৫০, পটল ৪০, ঢেঁড়স ২৫, চিচিঙ্গা ৩০, ধুন্দল ৩০, ঝিঙ্গা ৪০, কাঁকরোল ৬০, শাজনা ৮০, কাঁচামরিচ ১০০, মুখি কচু ৮০, লতা ৪০, শসা ২৫, লেবু ১৫ টাকা হালি, ধনে পাতা ১৫০ টাকা কেজি, গাজর ১০০, বরবটি ৬০, কুমড়া ৪০ টাকা পিস বিক্রি হচ্ছে।

মেছুয়া বাজারের মাংস বিক্রেতা আরাফাত রহমান জীবন বলেন, গত সপ্তাহের চেয়ে খাসির মাংস কেজিতে ১৫০ টাকা কমে ৮৫০ টাকা ও গরুর মাংস ৬৫০ টাকা কেজি বিক্রি করছি।

এদিকে ব্রয়লার ১৬০, সোনালী মুরগিতে ২০ টাকা কমে ২৮০, সাদা কক মুরগিতে ২০ টাকা কমে ২৬০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে।


আরও খবর

ওয়ালটনে চাকরির সুযোগ

সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২




বঙ্গবন্ধু আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় চ্যাম্পিয়নশিপের রেজিস্ট্রেশন শুরু

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৭ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৩ জুলাই ২০২২ | ৪০জন দেখেছেন
Image

পাবলিক ও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মাঝে ব্যাপক জনপ্রিয় ক্রীড়া প্রতিযোগিতা বঙ্গবন্ধু আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় স্পোর্টস চ্যাম্পিয়নশিপ আবারও হাজির হচ্ছে নতুন আসর নিয়ে।

প্রতিযোগিতার তৃতীয় আসর শুরুর পরিকল্পনা নিয়ে আয়োজক, বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও সংশ্লিষ্ট ফেডারেশনের প্রতিনিধিবৃন্দ, পৃষ্ঠপোষক ও পরিচালনাকারী এবং দেশের বিভিন্ন ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার প্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে মঙ্গলবার জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ ভবনে অবস্থিত শহীদ শেখ কামাল মিলনায়তনে একটি মিডিয়া লঞ্চিং ইভেন্ট অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী ও বঙ্গবন্ধু আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় স্পোর্টস চ্যাম্পিয়নশিপের সাংগঠনিক কমিটির চেয়ারম্যান মো. জাহিদ আহসান রাসেল এমপি। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের সচিব মেজবাহ উদ্দিন।

গত আসরগুলোর ধারাবাহিকতা রক্ষার প্রত্যাশা জানিয়ে অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মো. জাহিদ আহসান রাসেল এমপি বলেন, ‘বিগত বছরগুলোর আয়োজনে বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া বহু সংখ্যক নারী ক্রীড়াবিদ এই প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে তাদের অসাধারণ নৈপুণ্য দেখিয়েছে। দ্বিতীয় আসরে আমরা অংশগ্রহণকারী মোট বিশ্ববিদ্যালয়ের সংখ্যার শততম মাইলফলক স্পর্শ করেছিলাম। এ বছর আমাদের লক্ষ্য ও প্রত্যাশা সারাদেশের সক্রিয় প্রত্যেকটি বিশ্ববিদ্যালয়ের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করা।’

তরুণসমাজকে খেলাধুলার পাশাপাশি অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক ইত্যাদি কর্মকান্ডের সাথে সম্পৃক্ত হওয়ার আহ্বান জানিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘আপনারাই জাতির কর্ণধার। আপনাদের হাত ধরেই গড়ে উঠবে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সমৃদ্ধ সোনার বাংলা, এটিই আমাদের প্রধানমন্ত্রীর প্রত্যয়। আর এই প্রত্যয়কে বাস্তব রূপ দিতে আপনাদের প্রতিজ্ঞা করতে হবে, নিজেদের গড়ে তুলতে হবে সোনার মানুষ হিসেবে।’

বিগত আসরের ন্যায় এবারও ফুটবল, ক্রিকেট, ভলিবল, বাস্কেটবল, হ্যান্ডবল, ব্যাডমিন্টন, টেবিল টেনিস, সাঁতার, সাইক্লিং, অ্যাথলেটিকস, দাবা ও জাতীয় খেলা কাবাডি ইভেন্টের সমন্বয়ে নারী ও পুরুষ উভয় বিভাগে প্রতিযোগিতা আয়োজিত হবে বলে আয়োজকরা জানান।

মিডিয়া লঞ্চিং অনুষ্ঠানে প্রতিযোগিতার তৃতীয় আসরের প্রতিপাদ্য ছাড়াও থিম সং উপস্থাপন করা হয় এবং রেজিস্ট্রেশন উন্মুক্ত করা হয়। আগামী ৭ জুলাই পর্যন্ত দেশের সকল নিবন্ধিত প্রাইভেট ও পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিযোগিতার নির্ধারিত ওয়েবসাইটে https://www.biusc.org গিয়ে রেজিস্ট্রেশন করতে পারবে।

‘বঙ্গবন্ধুর সোনার দেশ, তারুণ্যের বাংলাদেশ’কে প্রতিপাদ্য হিসেবে ধারণ করে আয়োজিত হতে যাওয়া প্রতিযোগিতার তৃতীয় আসর উপলক্ষে পরিচালনাকারী সংস্থা স্পেলবাউন্ড লিও বার্নেট-এর পক্ষে এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং প্রতিযোগিতার সাংগঠনিক কমিটির সদস্য মোহাম্মদ সাদেকুল আরেফীন চলতি আসরের অধীনে আয়োজিতব্য বিভিন্ন কার্যক্রমের একটি সামগ্রিক পরিকল্পনা উপস্থাপন করেন।

অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় ক্রীড়া পরিষদ এর সচিব পরিমল সিংহ, বিকেএসপির মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ কে মাজহারুল হকসহ আরও অনেকে।


আরও খবর

ওয়ালটনে চাকরির সুযোগ

সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২




রাজধানীতে মাদকবিরোধী অভিযানে গ্রেফতার ৫৩

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৭ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৩ জুলাই ২০২২ | ৩৬জন দেখেছেন
Image

রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় মাদকবিরোধী অভিযান পরিচালনা করে বিক্রি ও সেবনের অভিযোগে ৫৩ জনকে গ্রেফতার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) বিভিন্ন অপরাধ ও গোয়েন্দা বিভাগ।

ডিএমপির নিয়মিত মাদকবিরোধী অভিযানের অংশ হিসেবে সোমবার (৬ জুন) ভোর ৬টা থেকে বুধবার (৭ জুন) ভোর ৬টা পর্যন্ত রাজধানীর বিভিন্ন থানা এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

এসময় গ্রেফতারদের কাছ থেকে ১৭৯৮ পিস ইয়াবা, ২১৮ গ্রাম হেরোইন, ২০ কেজি ৭৬৫ গ্রাম গাঁজা, ১৪০ বোতল ফেনসিডিল ও ১০ লিটার দেশি মদ উদ্ধার করা হয়।

গ্রেফতারদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে ৪২টি মামলা রুজু হয়েছে।


আরও খবর

ওয়ালটনে চাকরির সুযোগ

সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২




এক মসলার গুণেই বশে থাকবে ইউরিক অ্যাসিড

প্রকাশিত:সোমবার ১৩ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২ | ৫৭জন দেখেছেন
Image

বর্তমানে ইউরিক অ্যাসিড বেড়ে যাওয়ার সমস্যায় অনেকেই ভুগছেন। বয়স্কদের পাশাপাশি কমবয়সীরাও অনিয়মিয়ত জীবনযাপনের কারণে এই রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন। বিশেষজ্ঞদের মতে, অনিয়ন্ত্রিত জীবনযাপন ও অত্যধিক প্রোটিনযুক্ত খাবার খাওয়ার কারণে রক্তে ইউরিক অ্যাসিডের মাত্রা বেড়ে যায়।

যারা শাকসবজি কিংবা ফলমূলের চেয়ে বেশি মাছ-মাংস খান, তাদের ইউরিক অ্যাসিড বেড়ে যাওয়ার ঝুঁকি বেশি। অত্যধিক মদ্যপানও ইউরিক অ্যাসিডের কারণ হতে পারে।

সাধারণত ইউরিক অ্যাসিড হাঁটু ও বিভিন্ন অস্থিসন্ধিতে জমা হয়। ফলে হাঁটু ফুলে যায়। আবার কারও কারও ক্ষেত্রে গোড়ালি, পায়ের আঙুল ফুলে ব্যথার সৃষ্টি হয়। ফলে হাঁটতে কষ্ট হয়। এই সমস্যায় যারা ভোগেন তারা দীর্ঘক্ষণ বসতেও পারেন না, এতেও ইউরিক অ্যাসিড বেড়ে যায়।

এক মসলার গুণেই বশে থাকবে ইউরিক অ্যাসিড

ইউরিক অ্যাসিডের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখতে ও ব্যথা কমাতে চিকিৎসকরা রোগীকে পথ্য দেন, তবে এই সমস্যার দ্রুত সমাধান করা যায় সঠিক ডায়েট ও শরীরচর্চার মাধ্যমে। এর পাশাপাশি কিছু ভেষজ আছে যা খাদ্যতালিকায় রাখলে এই সমস্যা নিয়ন্ত্রণে থাকবে। তেমনই এক উপাদান হলো হলুদ।

কীভাবে ইউরিক অ্যাসিড বশে রাখে হলুদ?

সবার রান্নাঘরেই এই মসলা থাকে। শুধু খাবার রঙিন করতেই নয়, বরং স্বাস্থ্যের জন্যও অনেক উপকারী এই ভেষজ। ওষুধি গুণ থাকায় হলুদ যুগ যুগ ধরে আয়ুর্বেদ চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয়ে আসছে। এছাড়া বৈজ্ঞানিকভাবেও প্রমাণিত যে, গাউট, আর্থ্রাইটিসের চিকিৎসায় দারুন কার্যকরী এক উপাদান হলো হলুদ।

‘কারকিউমিন’ হলো হলুদের সবচেয়ে সক্রিয় রাসায়নিক। এটি হলুদের শক্তিশালী অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি ক্ষমতার জন্য বিবেচিত। ২০১৯ সালের প্রাণী গবেষণা ‘আর্থ্রাইটিস অ্যান্ড থেরাপি’ অনুসারে, কারকিউমিন নিউক্লিয়ার ফ্যাক্টর-কাপ্পা বি (এনএফ-কাপ্পা বি) নামক একটি প্রোটিনকে দমন করতে পারে। এনএফ-কাপ্পা বি গাউটসহ বিভিন্ন প্রদাহের জন্য দায়ী।

এক মসলার গুণেই বশে থাকবে ইউরিক অ্যাসিড

২০১৩ সালে ওপেন জার্নাল অব রিউমাটোলজি অ্যান্ড অটোইমিউন ডিজিজেস’এ প্রকাশিত একটি মানব গবেষণায় কারকিউমিনের প্রদাহ-বিরোধী প্রভাবও উল্লেখ করা হয়েছে।

গাউটে আক্রান্ত ব্যক্তিরা হলুদের নির্যাস গ্রহণ করার পরে স্বস্তি অনুভব করেন। কারকিউমিনের ক্ষমতার বলে এনএফ-কাপ্পা বি ব্লক করার মাধ্যমেই দ্রুত প্রদাহ কমে যায় বলে জানান গবেষকরা।

২০১৮ সালে ‘বিএমসি কমপ্লিমেন্টরি অ্যান্ড অলটারনেটিভ মেডিসিন’ এর গবেষণায় দেখা গেছে, প্রদাহ কমাতে হলুদের কারকিউমিন খুবই কার্যকরী। যা আর্থ্রাইটিস সম্পর্কিত জয়েন্টেও ব্যথাও মুহূর্তেই সারাতে পারে।

গবেষণায় অংশ নেওয়া অস্টিওআর্থারাইটিসে আক্রান্ত ব্যক্তিরা টানা তিন মাস ধরে কারকিউমিন নির্যাস গ্রহণ করেন ও তারা ফল পান হাতেনাতে। অংশগ্রহণকারীদের শারীরিক ক্রিয়াকলাপের উন্নতি ও জয়েন্টের ব্যথা খুব দ্রুত সেরে যায়।

এক মসলার গুণেই বশে থাকবে ইউরিক অ্যাসিড

এছাড়া হলুদে থাকা অ্যন্টি অক্সিডেন্ট শরীরের ফ্রি র্যাডিকেল (কোষের ক্ষতি করে যে অণু) ধ্বংস করে। যদি আপনার শরীরে ফ্রি র্যাডিক্যাল এও অ্যান্টিঅক্সিডেন্টের ভারসাম্যহীনতা থাকে, তাহলে অক্সিডেটিভ স্ট্রেস দেখা দেয়। আর অক্সিডেটিভ স্ট্রেসই শরীরে বিভিন্ন প্রদাহের সৃষ্টি করে।

জার্নাল অব ফুড কোয়ালিটির ২০১৭ সালের এক নিবন্ধ অনুসারে, হলুদে থাকে শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। এর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট বৈশিষ্ট্য কারকিউমিনসহ ফ্ল্যাভোনয়েড, অ্যাসকরবিক অ্যাসিড ও পলিফেনল থেকে আসে। এর মানে হলো হলুদ অক্সিডেটিভ স্ট্রেস কমিয়ে গাউটের প্রদাহ নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করতে পারে।

তাই ইউরিক অ্যাসিডের সমস্যার সমাধানে নিয়মিত খাদ্যতালিকায় রাখতে পারেন হলুদ। বিভিন্ন খাবারে মিশিয়ে কিংবা হলুদের চা, হলুদের গুঁড়ার মিশ্রণ পান করুন নিয়মিত।

এমনকি সকালে এক টুকরো কাঁচা হলুদ চিবিয়ে বা রস করে খেতে পারে। এর পাশাপাশি হাঁটু, গোড়ালি কিংবা পায়ের আঙুল যেখানেই ফুলে ব্যথা হোক না কেন হলুদের পেস্ট লাগালে মুহূর্তেই স্বস্তি মিলবে।

এক মসলার গুণেই বশে থাকবে ইউরিক অ্যাসিড

হলুদ কতটুকু খাবেন? আর্থ্রাইটিস ফাউন্ডেশনের পরামর্শ অনুযায়ী, অস্টিওআর্থারাইটিসের জন্য দিনে ৩ বার ৪০০-৬০০ মিলিগ্রাম ক্যাপসুল খেতে পারবেন।

অন্যদিকে রিউমাটয়েড আর্থ্রাইটিসের রোগীরা দিনে ২ বার ৫০০ মিলিগ্রাম হলুদের সাপ্লিমেন্ট ক্যাপসুল খেতে পারেন। তবে জটিল কোনো রোগ বা দীর্ঘস্থায়ী কোনো সমস্যায় ভুগলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে তবেই হলুদ গ্রহণ করুন।

এক মসলার গুণেই বশে থাকবে ইউরিক অ্যাসিড

ইউরিক অ্যাসিডের সমস্যা নিয়ন্ত্রণে রাখতে ডায়েট ও শরীরচর্চার বিকল্প নেই। এক্ষেত্রে চিকিৎসকরা পরামর্শ দিয়ে থাকেন, প্রতি আধা ঘণ্টা মিনিট বসার পর অন্তত ৩ মিনিট করে দাঁড়াতে। হাঁটাহাঁটি করলে আরও ভালো।

এর পাশাপাশি মসুর ডাল, মটর ডাল, পাঁঠার মাংস, মেটে, সামুদ্রিক মাছ, অ্যালকোহলসহ ভাজাপোড়া বিভিন্ন ধরনের খাবার এড়িয়ে যেতে হবে। সব ধরনের নিয়ম মেনে চললে ইউরিক অ্যাসিডের সমস্যা থেকে দ্রুত মিলবে মুক্তি।

সূত্র: হেলথলাইন


আরও খবর



ক্লাসের ফাঁকে পানি খেতে বেরিয়ে স্কুলের পাশে মিললো শিশুর মরদেহ

প্রকাশিত:শনিবার ২৫ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০১ জুলাই ২০২২ | ৪৯জন দেখেছেন
Image

ফেনীর দাগনভূঞায় মিফতাহুল জান্নাত অর্পা (৫) নামে এক শিশুকে নির্যাতনের পর গলায় ফাঁস দিয়ে হত্যা করা হয়েছে। শিশুটি স্কুলে গিয়ে ক্লাসের ফাঁকে পানি খেতে বেরিয়ে এই হত্যাকাণ্ডের শিকার হয় বলে জানিয়েছেন স্বজনরা।

শনিবার (২৫ জুন) দুপুরে উপজেলার জায়লস্কর ইউনিয়নের দক্ষিণ নেয়াজপুর গ্রামের নেয়াজ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পেছন থেকে শিশুটির মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

নিহত অর্পা একই এলাকার বক্সআলী ভূঞা বাড়ির ওসমান গনির মেয়ে ও নেয়াজপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রাক-প্রাথমিকের শিক্ষার্থী।

নিহত শিশুর ফুপু তোহরা আক্তার বিউটি বলেন, আমাদের বাড়ির পাশেই নেয়াজপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। শনিবার স্কুলে গিয়েছিল অর্পা। এরপর ক্লাসের ফাঁকে পানি খাওয়ার জন্য বেরিয়ে নিখোঁজ হয় সে। অনেক খোঁজাখুঁজির পর বিদ্যালয়ের পেছনে কবরস্থানের ঝোপের মধ্যে গাছের সঙ্গে তার মরদেহ ঝুলন্ত অবস্থায় পাওয়া যায়। পরে খবর পেয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা ঘটনাস্থলে এসে মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ফেনী জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।

দাগনভূঞা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাসান ইমাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ময়নাতদন্ত শেষ না পর্যন্ত এ বিষয়ে বিস্তারিত জানানো যাচ্ছে না। তবে প্রাথমিক ধারণা করা যাচ্ছে, শিশুটিকে শারীরিক নির্যাতনের পর হত্যা করা হয়েছে।

স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মামুনুর রশিদ মিলন বলেন, আমি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। শিশুটির মরদেহ দেখে স্থানীয় সবাই হতবাক। এ বিষয়ে দ্রুত আইনি ব্যবস্থা নিতে নিহতের পরিবারকে বলা হয়েছে।


আরও খবর

ওয়ালটনে চাকরির সুযোগ

সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২




৯৭ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে সম্মাননা দিলো রেড ক্রিসেন্ট

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৪ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৩ জুলাই ২০২২ | ৩৮জন দেখেছেন
Image

মানুষের জীবন বাঁচাতে স্বেচ্ছায় রক্তদান এবং রক্তদানে অগ্রণী ভূমিকা রাখা দেশের ৭২ ব্যক্তি এবং ২৫ প্রতিষ্ঠানকে সম্মাননা দিয়েছে বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি।

বিশ্ব রক্তদাতা দিবস উপলক্ষে মঙ্গলবার (১৪ জুন) বিকেলে রাজধানীর হলি ফ্যামিলি রেড ক্রিসেন্ট মেডিকেল কলেজ অডিটোরিয়ামে এক অনুষ্ঠানে এসব ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠানকে সম্মাননা স্মারক ও সনদ দেওয়া হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে সম্মাননা স্মারক ও সনদ তুলে দেন বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির বোর্ড সদস্য ডা. রোকেয়া সুলতানা।

এ বছর পাঁচটি ক্যাটাগরিতে এ সম্মাননা দেওয়া হয়ে। এর মধ্যে ব্যক্তি পর্যায়ে বিশেষ ক্যাটাগরিতে সম্মাননা পেয়েছেন বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) এটিএম আবদুল ওয়াহ্হাব। প্রতিষ্ঠান পর্যায়ে এসওএস শিশুপল্লি, নটরডেম কলেজ, বাংলাদেশ রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেপজা), ঢাকা কমার্স কলেজ, শান্তা মারিয়াম বিশ্ববিদ্যালয়, ব্যাংক এশিয়া, রেড ক্রিসেন্ট ঢাকা জেলা, ঢাকা সিটি, টাঙ্গাইল, মুন্সিগঞ্জ ও নারায়ণগঞ্জ ইউনিটসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানকে এ সম্মাননা দেওয়া হয়।

সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির বোর্ড সদস্য মো. আতিকুল হক শামীম ও মহাসচিব কাজী শফিকুল আযম।

অনুষ্ঠানে ডা. রোকেয়া সুলতানা বলেন, একজন সুস্থ মানুষ চার মাস পর পর রক্ত দিতে পারেন। রক্ত দেওয়ার মাধ্যমে তিনি সবাইকে মুমূর্ষু ব্যক্তিদের সাহায্যে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

কাজী শফিকুল আযম বলেন, প্রতি বছর দুই লাখ ব্যাগ রক্ত সরবরাহের সক্ষমতা রয়েছে বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির, যা দেশের মোট রক্তের চাহিদার ১১ শতাংশ। রক্ত দিতে সাধারণ মানুষকে উৎসাহিত করার মাধ্যমে এ হার আমরা ২৫ শতাংশে উন্নীত করতে চাই।

যারা স্বেচ্ছায় ও বিনামূল্যে রক্ত দিয়ে লাখ লাখ মানুষের মানুষের প্রাণ বাঁচাচ্ছেন তাদেরসহ সাধারণ মানুষকে রক্তদানে উৎসাহিত করাই এ সম্মাননার উদ্দেশ্য বলে জানান সোসাইটির ব্লাড প্রোগ্রাম বিভাগের পরিচালক ইমাম জাফর সিকদার।

ব্লাড বিভাগের উদ্যোগে আয়োজিত অনুষ্ঠানে আলোচনা পর্বে আরও অংশ নেন হলি ফ্যামিলি রেড ক্রিসেন্ট মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. দৌলতুজ্জামান, আইএফআরসির কোভিড-১৯ প্রোগ্রামের ব্যবস্থাপক আলী আকগুল ও রেড ক্রিসেন্টের জাতীয় ইয়ুথ কমিশনের প্রধান ইফতেখার হোসেন ইমু প্রমুখ।

“রক্তদান সংঘবদ্ধতারই প্রকাশ, এ কাজে যুক্ত হোন, জীবন বাঁচান”- প্রতিপাদ্যে এ বছর সারা বিশ্বে রক্তদাতা দিবস পালিত হচ্ছে।


আরও খবর

ওয়ালটনে চাকরির সুযোগ

সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২