Logo
শিরোনাম

টিভিতে দেখুন আজকের খেলা

প্রকাশিত:বুধবার ০৪ মে ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২ | ৫০জন দেখেছেন
Image

আইপিএল

বেঙ্গালুরু-চেন্নাই
সরাসরি, রাত ৮টা
স্টার স্পোর্টস ওয়ান, টি-স্পোর্টস

ফুটবল

চ্যাম্পিয়নস লিগ, সেমিফাইনাল, দ্বিতীয় লেগ
রিয়াল মাদ্রিদ-ম্যানচেস্টার সিটি
সরাসরি, রাত ১টা
সনি টেন টু, সনি লাইভ


আরও খবর



চুয়াডাঙ্গায় জমে উঠেছে কোরবানির পশুর হাট

প্রকাশিত:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 | হালনাগাদ:রবিবার ০৩ জুলাই ২০২২ | ২১জন দেখেছেন
Image

আসন্ন ঈদুল আজহা বা কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে চুয়াডাঙ্গায় জমে উঠেছে পশুর হাট। হাটগুলোতে বাড়ছে ক্রেতা-বিক্রেতাদের ভিড়। কোরবানির পশুর দামও ভালো বলে জানাচ্ছেন ব্যবসায়ী ও খামারিরা। তাই পশু কিনতে আসা ক্রেতা-বিক্রেতাদের মধ্য চলছে দর কষাকষি।

শনিবার (২ জুন) চুয়াডাঙ্গার শিয়ালমারী পশুহাট, ডুগডুগি হাট, মুন্সীগঞ্জ হাট এবং আলমডাঙ্গা পশুহাট ঘুরে এমন চিত্র দেখা গেছে।

শিয়ালমারী পশুহাটে গরু বিক্রি করতে আসা জীবননগর উপজেলার উথলী গ্রামের ব্যবসায়ী সেলিম হোসেন বলেন, গত কয়েকদিনের তুলনায় এখন গরু-ছাগলের দাম তুলনামূলক বেশি। আজকে হাটে তিনটি গরু এনেছিলাম বিক্রির জন্য। পাঁচ হাজার টাকা করে লাভে দুটি বিক্রি করেছি। আরেকটা গরুর আশানুরূপ দাম না হওয়ায় বিক্রি করিনি। আগামী হাটে বিক্রি করবো।

মৃগমারী গ্রামের গরু ব্যবসায়ী বেল্টু বলেন, অন্যদিনের তুলনায় আজকের হাটে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জায়গা থেকে ব্যাপারীরা এসেছেন। একারণে গরুর দামও বেশি। আজকে হাটে পাঁচটা গরু এনেছিলাম। সবগুলো গরু বিক্রি বিক্রি হয়ে গেছে। লাভও বেশি হয়েছে। গরুর দাম এরকম থাকলে গরু পালনকারীরা লাভবান হবেন।

চুয়াডাঙ্গায় জমে উঠেছে কোরবানির পশুর হাট

শিয়ালমারী হাটে পশু কিনতে আসা মাজেদুর রহমান নামে এক ক্রেতা বলেন, প্রতিবছর খামার থেকে গরু কিনে থাকি। খামার থেকে গরু কিনলে সুবিধা রয়েছে। ঈদ পর্যন্ত গরু খামারে রাখা যায়। বাড়িতে নিয়ে যাওয়ার বাড়তি ঝামেলা পোহাতে হয় না। তবে এবছর গরুর দামটা একটু বেশি।

হাটে গরু কিনতে আসা নাসির উদ্দিন নামে আরেক ক্রেতা বলেন, কোরবানি করার জন্য মাঝারি গরু খুঁজছি। এবছর গরু প্রতি ২০ থেকে ৩০ হাজার টাকা দাম বেশি মনে হচ্ছে। যেহেতু কোরবানি করতে হবে তাই বেশি দাম দিয়েই গরু কিনতে হচ্ছে।

এদিকে, চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রাণিসম্পদ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, জেলায় ছোট-বড় মিলিয়ে ১১ হাজার ১৬০টি খামার রয়েছে। এর মধ্যে চুয়াডাঙ্গা সদর উপজেলায় ১ হাজার ১৯৫টি, আলমডাঙ্গা উপজেলায় ৫ হাজার ১৯৫টি, দামুড়হুদা উপজেলায় ২ হাজার ৫০৪টি এবং জীবননগর উপজেলায় ২ হাজার ২৭০টি। এসব খামারে কোরবানি উপলক্ষে ১ লাখ ৫০ হাজার ৫৭২টি পশু প্রস্তুত রয়েছে। এর মধ্যে গরু ৩১ হাজার ৮৭১টি, মহিষ ১৩৮টি, ছাগল ১ লাখ ১৭ হাজার ৩৬টি ও ভেড়া ১ হাজার ৫২৭টি। এবার জেলায় কোরবানির পশুর চাহিদা রয়েছে ৮৭ হাজার ৭৯৬টি। সে হিসাবে স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে ৬২ হাজার ৭৭৬ কোরবানিযোগ্য পশু উদ্বৃত্ত থাকবে। এসব পশু ঢাকাসহ অন্যান্য জেলায় সরবরাহ করা হবে।

চুয়াডাঙ্গায় জমে উঠেছে কোরবানির পশুর হাট

জীবননগর উপজেলার অনন্তপুর গ্রামের খামারি আবুল কালাম বলেন, তিন বছর আগে খামার গড়েছিলাম। খামারে মোট ২০টি গরু রয়েছে। যার মধ্য ১৮টি গরু কোরবানির জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে। যদি গরুর দাম বর্তমান বাজারমূল্যে থাকে তাহলে খামারিরা লাভবান হবেন।

একই উপজেলার সেনেরহুদা গ্রামের খামারি রহিম শেখ বলেন, পাঁচ বছর আগে শখের বশে একটি খামার তৈরি করি। আমার খামারে বর্তমানে ১০টি গরু রয়েছে। যার মধ্য তিনটি গরু বিক্রি করেছি। বাকি গরু ঈদের মধ্য বিক্রির আশা করছি। যদি এমন দাম থাকে তাহলে লাভবান হতে পারবো।

জীবননগর উপজেলার লক্ষ্মীপুর গ্রামের খামারি আবুল বাশার বলেন, আমার খামারে ৫০টি কোরবানি উপযুক্ত গরু ছিল। ২০টি গরু এরই মধ্যে ১ কোটি ১০ লাখ টাকায় বিক্রি করেছি। এখনো আমার খামারে ৩০টি গরু আছে। এই গরুগুলো আরও সাইজে বড়। বিক্রি না হওয়া পর্যন্ত বলতে পারছি না লাভ হবে না লোকসান হবে।

তিনি আরও বলেন, খাবারের দাম গত বছরের তুলনায় এ বছর অনেক বেশি। এলাকায় বিক্রির উপযুক্ত কোরবানির গরু গত বছরের তুলনায় কম। বেচাকেনা গত বছরের তুলনায় কম হবে।

চুয়াডাঙ্গায় জমে উঠেছে কোরবানির পশুর হাট

চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. গোলাম মোস্তফা জানান, জেলায় এবার কোরবানির জন্য প্রায় ৩২ হাজার ৯শ গরু ও মহিষ মোজাতাজা করা হয়েছে। এছাড়া এবার ১ লাখ ১৮ হাজার ৫৬৩ ছাগল ও ভেড়া কোরবানির জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে। খামারগুলোতে নিরাপদ ও স্বাস্থ্যসম্মত পশু উৎপাদনে খামারিদের প্রাণিসম্পদ বিভাগ থেকে নিয়মিত পরামর্শসহ বিভিন্ন সহযোগিতা প্রদান করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, জেলার বিভিন্ন হাট ও খামারগুলোতে কোরবানির পশু বিক্রি শুরু হয়েছে। করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে খামারিদের বিভিন্ন সময় প্রণোদনা দেওয়া হয়েছে। খামারিদের পালনকরা পশু ঢাকা-চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় চাহিদা পূরণ করবে।

ডা. গোলাম মোস্তফা আরও বলেন, ভারতের গরু যেন কোনোভাবেই আমাদের দেশে প্রবেশ করতে না পারে সেদিকে আমাদের দৃষ্টি রয়েছে। খামারিরা এবার কোরবানির পশুর ন্যায্যমূল্য পাবেন।

মহামারি করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে গত দুইবছর লকডাউনে বন্ধ ছিল জেলার পশুহাটগুলো। এবছর নিষেধাজ্ঞা না থাকায় বেচাকেনা চলছে পশুর হাটগুলোতে। সবকিছু ঠিক থাকলে এবছর লাভের মুখ দেখবেন খামারিরা। এছাড়া ফেরিঘাটে ভোগান্তি এড়াতে পদ্মা সেতু দিয়ে কোরবানির পশুবাহী পরিবহন রাজধানীর পশুহাটে নিতে খামারিদের পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।


আরও খবর



দক্ষ জনবল-উদ্যোক্তা তৈরিতে বিটাক ও ড্যাফোডিলের সমঝোতা

প্রকাশিত:বুধবার ০৮ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৩ জুলাই ২০২২ | ৭৭জন দেখেছেন
Image

কারিগরি ক্ষেত্রে দক্ষ জনবল ও উদ্যোক্তা তৈরিসহ নানামুখী সহযোগিতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে বাংলাদেশ শিল্প কারিগরি সহায়তা কেন্দ্র (বিটাক) ও ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির মধ্যে সমঝোতা স্মারক সই হয়েছে।

বুধবার (৮ জুন) আশুলিয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল ক্যাম্পাসে এ স্মারক সই হয়। ড্যাফোডিল ইউনিভার্সিটির ইন্ডাস্ট্রিয়াল ইনোভেশন সেন্ট্রারের (আইআইসি) পরিচালক আবু তাহের খান ও বিটাক টুল অ্যান্ড টেকনোলজি ইনস্টিটিউটের (টিটিআই) পরিচালক ড. সৈয়দ মো. ইহসানুল করিম চুক্তিতে সই করেন।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বিশ্ববিদ্যালযের উপাচার্য অধ্যাপক ড. এম লুৎফর রহমান এবং প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিটাকের মহাপরিচালক আনোয়ার হোসেন চৌধুরী।

এ প্রসঙ্গে বিটাকের পরিচালক ইহসানুল করিম বলেন, বিটাক কারিগরি ক্ষেত্রে আধুনিক বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে এগিয়ে চলেছে। বর্তমানে বিটাকে সর্বাধুনিক প্রযুক্তিসম্পন্ন একাধিক সিএনসি (কম্পিউটারাইজড নিউমেরিক কন্ট্রোল) মেশিন রয়েছে। এ মেশিনটি এখনও বাংলাদেশে সহজলভ্য নয়। শিক্ষার্থীরা যারা আগামী দিনে নিজেদের প্রযুক্তিবিদ বা উদ্যোক্তা হিসেবে গড়ে তুলতে চায় তারা এই মেশিনটি সম্পর্কে হাতে-কলমে অনেক কিছু জানতে ও শিখতে পারে। তাই প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় ও কারিগরি প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের বাস্তবিক জ্ঞান প্রদানের লক্ষ্যে এই সমঝোতা চুক্তি।

তিনি আরও বলেন, এই চুক্তির আরও অনেক দিক রয়েছে। যেমন- যৌথ প্রশিক্ষণ আয়োজন, শিল্পক্ষেত্রে উদ্ভাবন, খুচরা যন্ত্রাংশ তৈরির লক্ষ্যে বিদ্যমান প্রযুক্তির আধুনিকায়ন, কারিগরি ক্ষেত্রে উদ্যোক্তা তৈরি এবং তাদের নানামুখী সহযোগিতা প্রদান।

অনুষ্ঠানে উপাচার্য অধ্যাপক ড. এম লুৎফর রহমান বলেন, আমাদের দেশটি নানাদিক থেকে সম্ভাবনাময়। আর এই সম্ভাবনার প্রধান শক্তি দেশের তরুণ জনগোষ্ঠী। তাদের এগিয়ে যাওয়ার পথটাকে আমরা যদি আরও একটু সহজ করে দিতে পারি তাহলে প্রত্যক্ষভাবে আমরা এর সুফল পাবো। একই সঙ্গে দেশ টেকসই উন্নয়নের দিকে এগিয়ে যাবে। আশাকরি এই চুক্তি বাস্তবায়নে দুই পক্ষ সবসময়ই আন্তরিক থাকবে।

বিটাকের মহাপরিচালক আনোয়ার হোসেন চৌধুরী বলেন, আমরা কিছুদিন আগে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে জ্ঞান ও দক্ষতা বিনিময়ের লক্ষ্যে একটি সমঝোতা চুক্তি সই করেছি। আজ ড্যাফোডিল ইউনিভার্সিটির সঙ্গে এই চুক্তির ফলে দুই প্রতিষ্ঠানের পারস্পরিক সহযোগিতার দ্বার প্রসারিত হলো। বিটাকের সব কর্মকর্তা-কর্মচারী এসব চুক্তি বাস্তবায়নে অত্যন্ত আন্তরিক।


আরও খবর

ঢাবি ‘ক’ ইউনিটে সেরা যারা

সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২




মোস্তাফিজের পর এবাদতের আঘাত

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৭ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ৩০ জুন ২০২২ | ৩৩জন দেখেছেন
Image

ব্যাটাররা যাচ্ছেতাই খেলেছেন। তবে অ্যান্টিগা টেস্টে লড়াইয়ে ফেরার স্বপ্ন দেখাচ্ছেন বাংলাদেশি বোলাররা। দারুণ নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে ক্যারিবীয়দের আটকে রেখেছেন তারা।

মোস্তাফিজ ধীরগতির ওপেনিং জুটি ভাঙার পর এবাদত হোসেনও পেয়েছেন উইকেটের দেখা। দুর্দান্ত এক ডেলিভারিতে রেইমন রেইফারকে (১১) ফিরিয়েছেন এবাদত। ডাইভ দিয়ে ক্যারিবীয় ব্যাটারের ক্যাচটি তালুবন্দি করেন উইকেটরক্ষক নুরুল হাসান সোহান।

এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ৩৭ ওভার শেষে ওয়েস্ট ইন্ডিজের সংগ্রহ ২ উইকেটে ৮০ রান। অধিনায়ক ক্রেইগ ব্রেথওয়েট ৩৫ আর এনক্রূমাহ বোনার ৪ রানে অপরাজিত আছেন। ক্যারিবীয়রা পিছিয়ে ২৩ রানে।

ওপেনিংয়ে জন ক্যাম্পবেল আর ক্রেইগ ব্রেথওয়েট যেন পণ করে বসেছিলেন কোনো ধরনের ঝুঁকিই নেবেন না। রান উঠুক আর না উঠুক, উইকেটে পড়েই থাকবেন। ফলে প্রথম ১৫ ওভারে মাত্র রান উঠে ১৫। চা-বিরতিতে যায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

বিরতির পর একটু রানের গতি বাড়লেও চড়াও হয়নি স্বাগতিকরা। ফলে ২৫ ওভার পর্যন্ত উইকেটও তুলে নিতে পারেনি বাংলাদেশ। অবশেষে ক্যাম্পবেল-ব্রেথওয়েটের ধীরগতির জুটিটি ভেঙেছেন মোস্তাফিজ।

২৬তম ওভারে মোস্তাফিজের যে বলে বোল্ড হয়েছেন ক্যাম্পবেল, সেটিও যে মারতে গেছেন এমন নয়। ডিফেন্ডই করেছিলেন ক্যারিবীয় ওপেনার, ইনসাইডেজ হয়ে বেল পড়ে যায়। ৭২ বলে ২৪ রান করে সাজঘরের পথ ধরেন ক্যাম্পবেল। ৪৪ রানের মাথায় প্রথম উইকেট হারায় ক্যারিবীয়রা।

পরের ওভারে আবারও উইকেট পেতে পারতেন মোস্তাফিজ। কিন্তু টানা দুই বলে রেইফার আর ব্রেথওয়েটের কঠিন ক্যাচ স্লিপে ডাইভ দিয়ে হাতে লাগালেও ধরতে পারেননি লিটন দাস।

বাংলাদেশকে জবাব দিতে নেমে শুরুটাই ধীরগতির ছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজের। মোস্তাফিজুর রহমান আর খালেদ আহমেদ জুটি গড়ে বোলিং শুরু করেন। দুই ওপেনার ক্যাম্পবেল আর ব্রেথওয়েট তাদের প্রথম ৫ ওভারে এক রানও নেননি। অর্থাৎ মেইডেন যায় প্রথম ৫ ওভার।

স্বাগতিকদের প্রথম রান আসে ৩২তম বলে। এরপরও খোলস ছেড়ে বের হননি ক্যারিবীয় দুই ওপেনার। মোস্তাফিজ তার প্রথম চার ওভারই নেন মেইডেন। ৫ ওভারে ৪ মেইডেনসহ ১ রান দেন মোস্তাফিজ। খালেদ ৫ ওভারে ৩ মেইডেনসহ দেন ৩ রান।

প্রথম ১০ ওভারে মাত্র ৮ রান নেয় ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ১৩ ওভারে নেয় ১০। অবশেষে ১৪তম ওভারে এসে রান কিছুটা বাড়ে তাদের। মেহেদি হাসান মিরাজকে একটি বাউন্ডারি হাঁকান ব্রেথওয়েট। তবে এরপর ক্যারিবীয় দলপতি আবার খোলসে ঢুকে পড়েন।

এর আগে অধিনায়ক সাকিবের ক্যারিয়ারের ২৮তম হাফসেঞ্চুরির পরও ৩২.৫ ওভারে ১০৩ রানে থামে বাংলাদেশের প্রথম ইনিংস।


আরও খবর



হোমিওপ্যাথি চিকিৎসার মানোন্নয়নে আলাদা মন্ত্রণালয় গঠনের দাবি

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৭ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ জুলাই ২০২২ | ৩২জন দেখেছেন
Image

হোমিওপ্যাথি চিকিৎসার মানোন্নয়নে আলাদা মন্ত্রণালয় গঠন এবং এ বিষয়ে উচ্চতর গবেষণার জন্য মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপনসহ ১১ দফা দাবি জানিয়েছেন হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকরা।

শুক্রবার (১৭ জুন) জাতীয় প্রেস ক্লাবের জহুর হোসেন চৌধুরী হলে বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথিক পরিষদ আয়োজিত আলোচনা সভায় তারা এসব দাবি করেন।

তাদের অনান্য দাবিগুলো হলো- হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকের নামের পূর্বে ডাক্তার উপাধি লেখার ব্যবস্থা রাখা, হোমিওপ্যাথি চিকিৎসা আইন ২০২১ শিগগির পাশ করা, জাতীয় রাজস্ব বাজেটের ২৫ শতাংশ হোমিওপ্যাথি চিকিৎসা উন্নয়নে বরাদ্দ দেওয়া, হোমিওপ্যাথি কাউন্সিল গঠন, আমদানিকৃত ওষুধ ও কাঁচামালের ওপর ভ্যাট-ট্যাক্স বাতিল করা।

এছাড়াও তারা আরও দাবি জানান, ডিএইচএমএস কোর্সের মান নির্ধারণ এবং উন্নত শিক্ষার ব্যবস্থা করা, ডিএইচএমএস এবং বিএইচএমএস চিকিৎসকদের বিসিএস পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ দেওয়া, প্রতিটি বিভাগে সরকারিভাবে হোমিওপ্যাথি কলেজ ও হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা করাসহ স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের উচ্চ পর্যায়ে হোমিওপ্যাথি চিকিৎসকদের নিয়োগের দাবি জানান তারা।

আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, স্বাধীনতার পর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশ হোমিওপ্যাথি বোর্ড গঠন করেন এবং এই খাতে আর্থিক বরাদ্দ প্রদান করেন। কিন্তু হোমিওপ্যাথি চিকিৎসার উন্নয়নের পথে বেশ কিছু সমস্যা বাধা হয়ে আছে। এসব সমস্যা সমাধানের জন্য হোমিওপ্যাথি চিকিৎসার সঙ্গে সম্পর্কিত বিভিন্ন সংগঠন দাবি জানিয়ে আসছে। তাদের দাবিসমূহ বাস্তবায়ন হলে হোমিওপ্যাথি চিকিৎসার উন্নয়ন হবে। স্বল্পমূল্যে মানুষ সুচিকিৎসা পাবে। একইসঙ্গে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের বাস্তবায়ন হবে।

ডা. মো. নজরুল ইসলাম খানের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন, ডা. শেখ ফারুখ এলাহী, ডা. এ কে এম শহীদ উল্লাহ্, ডা. রফিকুল ইসলাম ভূঁইয়া, ডা. মো. তাজুল ইসলাম প্রমুখ।


আরও খবর



হোটেলে জিম-সুইমিং করলেন জামাল ভূঁইয়ারা

প্রকাশিত:রবিবার ১২ জুন ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ০২ জুলাই 2০২2 | ২০জন দেখেছেন
Image

মালয়েশিয়ায় এশিয়ান কাপ বাছাইয়ের মিশন শেষের পথে জামাল ভূঁইয়াদের। বাহরাইন ও তুর্কমেনিস্তানের বিপক্ষে হারের পর মঙ্গলবার শেষ ম্যাচ খেলবে স্বাগতিক মালয়েশিয়ার বিপক্ষে। দুই ম্যাচ হারা বাংলাদেশের শেষটা কেমন হবে?

শেষ হওয়া দুই ম্যাচ দুইরকম ছিল জামাল ভূঁইয়াদের। রক্ষণ মজবুত করে বাহরাইনের বিপক্ষে খেলে ২-০ গোলে হেরেছে এবং তুর্কমেনিস্তানের বিপক্ষে তেঁড়েফুঁড়ে খেলে হেরেছে ২-১ গোলে। দ্বিতীয় ম্যাচটিতে বাংলাদেশ লড়াকু ফুটবল খেলছে। সাহস করে খেললে যে প্রতিপক্ষের ওপর চড়াও হওয়া যায় তার উদাহরণ তুর্কমেনিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচটি।

মালয়েশিয়ার বিপক্ষে ম্যাচের আগে শেষ অনুশীলন করবে সোমবার। আজ (রোববার) বাংলাদেশ দলের কোনো অনুশীলন ছিল না। সকালে হোটেলেই জিম ও সুইমিং করেছেন জামাল ভূঁইয়ারা।

দুই ম্যাচ হারার পর এই টুর্নামেন্ট থেকে বিদায় প্রায় নিশ্চিত বাংলাদেশের। শেষ ম্যাচ থেকে কিছু অর্জন করতে পারলে সেটাই হবে বাংলাদেশের জন্য বড় পাওয়া। কী সেই অর্জন? ফিফা র‍্যাংকিংয়ে ৩৪ ধাপ এগিয়ে মালয়েশিয়া। এমন একটি দলের বিপক্ষে একটি পয়েন্ট পাওয়াও হবে অনেক অর্জন।

যদিও বাংলাদেশ এখন আর এক পয়েন্ট পাওয়ার জন্য রক্ষণে জমাট থাকবে না। জয়ের জন্যও মরিয়া হবে। ৫৪ ধাপ সামনে থাকা তুর্কমেনিস্তানকে নাড়িয়ে দেওয়া সম্ভব হলে মালয়েশিয়াকে কেন নয়? বাংলাদেশ ভয়-ডরহীন ফুটবল খেলেই মিশনটা শেষ করতে চায়।

তুর্কমেনিস্তানের বিপক্ষে ম্যাচটা বাংলাদেশ জিততে পারবে কি না তা তর্ক থাকলেও ড্র যে করতে পারতো সেটা মানবেন যারা খেলা দেখেছেন। একজন দক্ষ স্ট্রাইকারের অভাবে বাংলাদেশ দ্বিতীয় গোলটি আর বের করতে পারেনি। বরং পাল্টা আক্রমণে তুর্কমেনিস্তানই তাদের জয়ের জন্য প্রয়োজনীয় গোলটি আদায় করে নিয়েছে।

এই ম্যাচের পর কিছু না পাওয়ার হতাশা প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশ কোচ হ্যাভিয়ের ক্যাবরেরা। ম্যাচের পর তিনি প্রেস ব্রিফিংয়ে বলেছেন, এই ম্যাচ থেকে দলের কিছু পাওয়া উচিত ছিল। অন্তত একটি পয়েন্ট না পাওয়ায় বাংলাদেশ দলের খেলোয়াড়রাও হতাশ। তবে বাংলাদেশ দলের জন্য ইতিবাচক বিষয় হলো খেলতে চাইলে যে খেলা যায় সেটা প্রমাণ হয়েছে এই ম্যাচে। (তুর্কমেনিস্তান) দুই পয়েন্ট নিয়ে মাঠ ছাড়লেও বাংলাদেশের চোখ রাঙানি দেখেছে তারা।


আরও খবর