Logo
শিরোনাম

ভোজ্যতেলে আবার অশনি সংকেত

প্রকাশিত:রবিবার ২৪ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ১২৯জন দেখেছেন
Image

সরকারের নানামুখী প্রচেষ্টায় সয়াবিন ও পাম অয়েলের দাম কিছুটা কমলেও ইন্দোনেশিয়ার রপ্তানি নিষেধাজ্ঞার খবরে আবার অস্বাভাবিকভাবে বাড়তে শুরু করেছে। একদিনের ব্যবধানে খুচরা পর্যায়ে কেজিতে খোলা সয়াবিন ও পাম অয়েলের দাম ২০ টাকা বেড়েছে। সামনে দাম আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করছেন ব্যবসায়ীরা।

তারা বলছেন, ইন্দোনেশিয়া পাম অয়েলের কাঁচামাল রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা দেওয়ায় সারাবিশ্বে এর প্রভাব পড়বে। কারণ ইন্দোনেশিয়া বিশ্বের বৃহত্তম পাম অয়েল উৎপাদনকারী দেশ। এতে পাম অয়েলের পাশাপাশি অন্যান্য ভোজ্যতেলের দাম বেড়ে যাবে। ভোজ্যতেলের দাম বাড়লে স্বাভাবিকভাবেই অন্যান্য ভোগ্যপণ্যের দামও বাড়বে।

এদিকে অর্থনীতিবিদরা বলছেন, ইন্দোনেশিয়া পাম অয়েলের কাঁচামাল রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা দেওয়ায় ভোজ্যতেলের দাম বাড়ার পাশাপাশি ভোগ্যপণ্যের দাম বেড়ে যেতে পারে। সেই সঙ্গে বাড়তে পারে মূল্যস্ফীতি। এ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সরকারের সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনী বাড়ানো উচিত। এক্ষেত্রে ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) মাধ্যমে ভোজ্যতেল বিক্রি কার্যক্রম বাড়ানো যেতে পারে।

শুক্রবার (২২ এপ্রিল) সন্ধ্যায় কেবিনেট মিটিংয়ে ইন্দোনেশিয়ার প্রেসিডেন্ট জোকো উইদোদো বলেন, বাসাবাড়িতে রান্নার তেলের পর্যাপ্ত সরবরাহ নিশ্চিত করতে তেলের কাঁচামাল রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে। আগামী বৃহস্পতিবার থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য এটি কার্যকর হবে।

ইন্দোনেশিয়ার এই নিষেধাজ্ঞার খবর গতকাল শনিবার দেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশি হয়। এর একদিন পরই রোববার দেশের বাজারে সয়াবিন ও পাম অয়েলের দাম বেড়ে গেছে। এক লাখে খুচরা পর্যায়ে খোলা সয়াবিন তেলের দাম কেজিতে বেড়েছে ২০ টাকা। পাম অয়েলের দাম বেড়েছে ২৫ টাকা।

গত শুক্রবার রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় খুচরা পর্যায়ে খোলা সয়াবিন তেল বিক্রি হয় ১৬০ টাকা কেজি। এখন তা বেড়ে ১৮০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। ১৫০ টাকা কেজি বিক্রি হওয়া পাম অয়েলের দাম বেড়ে ১৭৫ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। খুচরা দাম বাড়ার পাশাপাশি পাইকারিতে সয়াবিন ও পাম অয়েলের দাম বেড়েছে।

এ বিষয়ে মালিবাগ হাজীপাড়ার ব্যবসায়ী মো. আফজাল বলেন, ইন্দোনেশিয়ার রপ্তানি নিষেজ্ঞার খবরে পাইকারিতে সয়াবিন ও পাম অয়েলের দাম অনেক বেড়ে গেছে। বাড়তি দামে কেনার কারণে আমরাও বাড়তি দামে বিক্রি করছি। এখন খোলা সয়াবিন তেল বিক্রি হচ্ছে ১৮০ টাকা কেজি, যা আগে ছিল ১৬০ টাকা। পাম অয়েল বিক্রি হচ্ছে ১৭৫ টাকা, যা আগে ছিল ১৫০ টাকা।

ইন্দোনেশিয়া পাম অয়েলের কাঁচামাল রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা দেওয়ায় বাংলাদেশে কী ধরনের প্রভাব পড়বে- জানতে চাইলে বাংলাদেশ পাইকারি ভোজ্যতেল ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি মোহাম্মদ গোলাম মাওলা জাগো নিউজকে বলেন, ইন্দোনেশিয়ার এ নিষেজ্ঞার কারণে সব ধরনের ভোজ্যতেলের দাম বাড়বে। এরই মধ্যে দেশের বাজারে ভোজ্যতেলের দাম বেড়েছে, সামনে আরও বাড়বে।

তিনি বলেন, সারাবিশ্বে পাম অয়েলের বড় জোগানদার ইন্দোনেশিয়া। এখন ইন্দোনেশিয়া পাম অয়েলের কাঁচামাল রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা দেওয়ায় শুধু বাংলাদেশ না সারাবিশ্বে এর প্রভাব পড়বে। ভোজ্যতেলের দাম বাড়ার পাশাপাশি বিভিন্ন জিনিসপত্রের দামও বাড়বে।

মৌলভীবাজারের আব্দুল রশিদ অ্যান্ড সন্স’র স্বত্বাধিকারী হাজি আব্দুর রাজ্জাক জাগো নিউজকে বলেন, ইন্দোনেশিয়ার এই নিষেধাজ্ঞার কারণে সব ধরনের ভোজ্যতেলের দাম বেড়ে যাবে। ভোজ্যতেলের বাজারে আবার আগের মতো পরিস্থিতি সৃষ্টি হতে পারে। সরকারের উচিত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এখনই ভর্তুকির ব্যবস্থা করা।

সিটি গ্রুপের মহাব্যবস্থাপক বিশ্বজিৎ সাহা জাগো নিউকে বলেন, ইন্দোনেশিয়ার নিষেধাজ্ঞার ফলে শুধু বাংলাদেশে নয়, ভারত, শ্রীলঙ্কা, পাকিস্তানসহ সারাবিশ্বে এর প্রভাব পড়বে। দেশের বাজারে ভোজ্যতেলের দাম বাড়বে এটাই স্বাভাবিক। বিষয়টি নিয়ে ঈদের পর আমরা সরকারের সঙ্গে বসবো। আপাতত ঈদের আগে আমরা তেলের দাম বাড়াচ্ছি না।

সার্বিক বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ এবি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম জাগো নিউজকে বলেন, ভোজ্যতেলের দাম আগেই বেড়েছিল। সরকার পদক্ষেপ নিয়ে দাম কিছুটা কমিয়েছে। তবে সেটা কতটা কার্যকর হয়েছে তা দেখার বিষয়। এখন ইন্দোনেশিয়া পাম অয়েলের কাঁচামাল রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা দেওয়ায় সারাবিশ্বেই এর প্রভাব পড়বে। তবে আন্তর্জাতিক বাজারের পরিস্থিতি ঠেকানো মুশকিল। কাজেই যেটা করতে হবে তা হলো- যারা দরিদ্র মানুষ তাদের জন্য সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীর আওতায় সহায়তা বাড়াতে হবে।

তিনি বলেন, দাম নিয়ন্ত্রণ করা সহজ নয়। এটা করতে গেলে দামও নিয়ন্ত্রণ হয় না, নানা রকমের অভিযোগ আসতে থাকে। বাজারে একটা খারাপ পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়। আবার নিয়ন্ত্রণকারী কর্তৃপক্ষের মধ্যে দুর্নীতিও দেখা যায়। কাজেই সরকার টিসিবির মাধ্যমে বাজারে সরবরাহ বাড়ালে কিছুটা সুফল মিলতে পারে।

এদিকে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ বাধার পর আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বাড়ার অজুহাতে দেশের বাজারে অস্বাভাবিক হারে ভোজ্যতেলের দাম বাড়িয়ে দেন ব্যবসায়ীরা। খুচরা পর্যায়ে খোলা সয়াবিন তেলের দাম ১৯০ টাকা পর্যন্ত উঠে যায়।

পরিস্থিতি সামাল দিতে গত মার্চে পরিশোধিত ও অপরিশোধিত সয়াবিন তেল এবং পাম অয়েল আমদানি পর্যায়ে ভ্যাট ১৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৫ শতাংশ নির্ধারণ করেছে সরকার। ফলে সয়াবিন তেল ও পাম তেলের দাম কিছুটা কমে আসে। কিন্তু ইন্দোনেশিয়া পাম অয়েলের কাঁচামাল রপ্তানিতে নিষেধাজ্ঞা দিচ্ছে এমন সংবাদের পর আবার দাম বাড়ার পালে হাওয়া লেগেছে।


আরও খবর



৫ টাকার টিকিটে ১০ লিখে আদায়, দুজনের জেল-জরিমানা

প্রকাশিত:সোমবার ০৯ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ | ৭৮জন দেখেছেন
Image

টিকিটের গায়ে লেখা আছে পাঁচ টাকা। সেখানে কলম দিয়ে ১০ টাকা লিখে যাত্রীদের কাছ থেকে আদায় করা হচ্ছে। এ অপরাধে সোমবার (৯ মে) দুপুরে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করে ভোলার ইলিশা লঞ্চঘাটে দুজনকে জেল-জরিমানা করা হয়েছে।

তারা হলেন-কাউন্টারম্যান মো. লিটন (২৮) ও ঘাট ইজাদারের প্রতিনিধি মো. ফারুক (৪৫)। লিটনকে সাতদিনের বিনাশ্রম করাদণ্ড ও ফারুককে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

ভোলার নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার মো. সালেহ আহমেদ এ দণ্ড দেন।

কারাদণ্ডপ্রাপ্ত লিটন ভোলা সদর উপজেলার রাজাপুর ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডের তালুকদারহাট এলাকার বাচ্চু মাতাব্বরের ছেলে। অর্থদণ্ডপ্রাপ্ত ফারুক ভোলা পৌর ৪ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সালেহ আহমেদ জাগো নিউজকে জানান, জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা অধিদপ্তরের (এনএসআই) জেলা কার্যালয়ের তথ্যের ভিত্তিতে ভোলা সদর উপজেলার ইলিশা লঞ্চঘাটে অভিযান পরিচালনা করা হয়। এ সময় দেখা যায় ঘাটের পাঁচ টাকার টিকিটে কলম দিয়ে ১০ লিখে লঞ্চ যাত্রীদের কাছ থেকে ১০ টাকা করে আদায় করা হচ্ছে। এ অপরাধে দুজনকে আটক করা হয়। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে একজনের জেল ও অন্যজনের জরিমানা করা হয়।


আরও খবর



প্রবাসীদের জন্য হাইকমিশনের দরজা ২৪ ঘণ্টা উন্মুক্ত

প্রকাশিত:শনিবার ১৪ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ৪৬জন দেখেছেন
Image

মালদ্বীপে বাংলাদেশ হাইকমিশনার রিয়ার অ্যাডমিরাল এস এম আবুল কালাম আজাদ বলেছেন, প্রবাসীরা যে কোনো সময় দূতাবাসের সহযোগিতা নিতে পারবেন। বাংলাদেশিদের জন্য আমাদের দরজা ২৪ ঘণ্টা উন্মুক্ত।

বৃহস্পতিবার (১২ মে) মালদ্বীপস্থ বাংলাদেশ হাইকমিশনে সার্ক মানবাধিকার ফাউন্ডেশনের নেতাদের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতে তিনি এসব কথা বলেন।

বৈঠকে ফাউন্ডেশনের মহাসচিব অধ্যাপক আবেদ আলী বলেন, প্রবাসীদের সঙ্গে মিলেমিশে যথাযথ সেবা দেওয়ার প্রত্যয় নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে বাংলাদেশ হাইকমিশনার। দুই দেশের মধ্যে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক উন্নয়নে দূতাবাস সক্রিয় ভূমিকা রাখছেন বলে তিনি মন্তব্য করেন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন সার্ক মানবাধিকার ফাউন্ডেশন কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি মিজানুর রহমান মজুমদার, কেন্দ্রীয় পরিচালক ড. মুহাম্মদ মাসুম চৌধুরী ও এম এ মালেক।


আরও খবর



‘দাম বেশি তাই ত্যাল খাওয়া কমাই দিছি’

প্রকাশিত:শনিবার ০৭ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১৮ মে ২০২২ | ৪০জন দেখেছেন
Image

বোতলজাত সয়াবিন তেলের দাম ৩৮ টাকা বাড়িয়ে ১৯৮ টাকা নির্ধারণ করেছে সরকার। এই দাম শনিবার (৭ মে) থেকে কার্যকর হয়েছে। তবে কোথাও কোথাও খুচরায় প্রতি লিটার ২০০ টাকার বেশি দরে বিক্রি হচ্ছে বলে অভিযোগ ক্রেতাদের। এই অত্যাবশকীয় নিত্যপণ্যের দাম দাম বৃদ্ধিতে সব থেবে বেশি বিপাকে পড়েছেন নিম্ন আয়ের মানুষ। দফায় দফায় দাম বাড়তে বাড়তে ক্রেতাদের নাগালের বাইরে চলে গেছে পণ্যটি। লাগামহীন দাম বৃদ্ধিতে বেকায়দায় পড়েছেন মধ্যবিত্ত ও নিম্ন আয়ের মানুষ। বিশেষ করে দিন আনা দিন খাওয়া মানুষগুলোর জীবনে পড়েছে হতাশার ছাপ। যেন সংসার চালানোর দায় হয়ে পড়েছে।

শনিবার (৭ মে) নগরীর নিম্ন আয়ের মানুষ সয়াবিন তেলের দাম বৃদ্ধিতে হতাশা প্রকাশ করেছেন। তাদের মধ্যে একজন রিকশাচালক শিপন আলী। সপরিবারে আগারগাঁও কুমিল্লা বস্তিতে বসবাস করেন তিনি। মাসে ছয় লিটার তেল লাগে তার। সয়াবিন তেলের কারণে এখন মাসে বাড়তি টাকা গুণতে হচ্ছে। ফলে ৬ লিটারের পরিবর্তে তিন লিটার তেল দিয়ে সংসার চালান বলে দাবি করেন শিপন আলী।

তিনি বলেন, ‘ত্যালের দাম যেভাবে বাড়তেছে এখন পানি দিয়ে খাইতে হবে। এ ছাড়া কোনো উপায় নাই। দিন যাইতেছে ত্যালের দাম বাড়তেছে। ত্যালের দাম একটু কম দিলেই ভালো হয়। আগে মাসে ৫ থেকে ৬ লিটার যাইতো এখন ২ থেকে ৩ লিটার কিনতে কষ্ট হয়ে যায়। এতা দাম দিয়া ত্যাল খাওয়া সম্ভব না। গরিব মানুষ কোনো রকম খাইয়া বাঁচন লাগবো। দাম বেশি তাই ত্যাল খাওয়া কমাই দিছি।’

jagonews24

আরেক রিকশাচালক আবদুল খালেক। তিনিও কুমিল্লা বস্তিতে বসবাস করেন। আবদুল খালেক বলেন, ‘আগে ডেইলি আধপোয়া তেল খাইতাম। এখন আধপোয়ার জায়গায় এক ছটাক সয়াবিন খাই।’

আরেক রিকশাচালক মোহাম্মদ রিয়াজ। সপরিবারে নগরীর শেওড়াপাড়া ইকবাল রোডে বসবাস করেন। মাসে আয় ২০ হাজার টাকা। এর মধ্যে বাসা ভাড়া ৫ হাজার, রিকশার জমা ৩ হাজার এবং নাস্তাবাবদ মাসে আরও তিন হাজার টাকা খরচ হয়। ফলে মাসে টাকা থাকে ১১ হাজার টাকা। এই টাকা দিয়ে ৫ জনের সংসার চালাতে গিয়ে এমনিতেই বিপাকে পড়েছেন তিনি। ফলে সয়াবিন তেলের দাম বৃদ্ধি তার জন্য মরার উপর খাঁড়ার ঘা।

রিয়াজ বলেন, ‘তরকারি, আলু ভর্তা, ডাল সব খানেই তেল লাগে। তেল ছাড়া চলা যায় না। দাম কমলে আমাদের জন্য একটু ভালো হয়।’

সয়াবিন তেলের দাম বৃদ্ধির কারণে বিপাকে পড়েছেন ছোট ছোট হোটেল ব্যবসায়ীরাও। তাদের দাবি তেলের দাম বৃদ্ধির কারণে ব্যবসায় লাভ হচ্ছে না। লাভের অংশ সয়াবিন তেলের বাড়তি দাম মেটাতেই ফুরিয়ে যায়।

jagonews24

আগারগাঁও-এর ছোট হোটেল ব্যবসায়ী মনি বেগম বলেন, ‘ফুটপাতে ছোট হোটেল। প্রতিদিন ১৫ লিটার সয়াবিন তেল লাগে। লাভের টাকা সয়াবিন তেল কিনতেই চলে যায়।’

কেউ কেউ সয়াবিন তেলের দাম বৃদ্ধির জন্য ব্যবসায়ী সিন্ডিকেটকে দায়ী করেছেন। এসব ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে সরকারের প্রতি অনুরোধ করেছেন। তাদের মধ্যে একজন রিকশাচালক লিহা মিয়া। তার সংসারে মোট সদস্য ৮ জন। ফলে তেলের চাহিদাও বেশি।

লিহা মিয়া বলেন, ‘আমরা কী করুম। আমরা কইলে কাম হইবো। বইলা লাভ কী? আমাদের কথার কোনো দাম আছে। ২০০ টাকা দিলে ত্যাল ভর্তি, কম দিলে কই ত্যাল নাই। কোনো দোকানে ত্যালের অভাব আছে? অভাব নাই। সবখানে ত্যাল আছে, সব দোকানের গোডাউনে ত্যালে ভর্তি।’


আরও খবর



চীনকে মোকাবিলায় আসিয়ানকে অর্থ দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৩ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২০ মে ২০22 | ৫১জন দেখেছেন
Image

দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার নেতাদের শীর্ষ সম্মেলন শুরু হয়েছে ওয়াশিংটনে। এতে যোগ দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনও। অঞ্চলটির অবকাঠামো, নিরাপত্তা ও করোনা মোকাবিলায় ১৫ কোটি ডলার দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন বাইডেন। এদিকে এশিয়ার এ অঞ্চলটিতে চীনের প্রভাব কমাতে চায় ওয়াশিংটন। শুক্রবার (১৩ মে) কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল-জাজিরার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

বৃহস্পতিবার বাইডেন ওয়াশিংটনে সম্মেলনের উদ্বোধন করেন। ১০টি দেশ নিয়ে গঠিত অ্যাসোসিয়েশন অব সাউথইস্ট এশিয়ান ন্যাশনসের (আসিয়ান) শীর্ষ সম্মেলন চলবে দুই দিন। এসময় দেশগুলোর নেতারা হোয়াইট হাউজে বাইডেনের সঙ্গে রাতের খাবার খেয়েছেন।

ইউক্রেনে চলছে রাশিয়ার হামলা। যেখানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে যুক্তরাষ্ট্র। তারপরও এশিয়া-প্যাসিফিক অঞ্চলে নজর রয়েছে দেশটির নেতাদের। তাছাড়া অঞ্চলটিতে ক্রমেই আধিপত্য বাড়ছে চীনের। যা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে আসছে মার্কিন প্রশাসন।

মার্কিন প্রশাসনের একজন সিনিয়র কর্মকর্তা বলেছেন, আমরা দেশগুলোকে যুক্তরাষ্ট্র ও চীনের মধ্যে যেকোনো একটি বেছে নিতে বলছি না। তবে এটা স্পষ্ট যে আমরা একটি শক্তিশালী সম্পর্ক চাই।

মার্কিন এ আর্থিক সহায়তার চার কোটি ডলার কার্বন নিঃসরণ কমাতে, ছয় কোটি ডলার সামুদ্রিক নিরাপত্তায়, স্থাস্থ্যখাতে এক কোটি ৫০ লাখ ডলার ব্যয় করা হবে। দেশগুলোতে ডিজিটাল অর্থনীতি ও কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার জন্য আইনি কাঠামোর বিকাশে বাকি অর্থ ব্যয় করা হবে।

গত বছরের নভেম্বরে আশিয়ানকে এক দশমিক পাঁচ বিলিয়ন ডলারের উন্নয়ন সহায়তা দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেয় চীন।


আরও খবর



নওগাঁয় চালু হলো ট্যুরিস্ট বাস

প্রকাশিত:বুধবার ০৪ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২ | ৪৭জন দেখেছেন
Image

উত্তরের জেলা নওগাঁর বিভিন্ন স্থানে ছড়িয়ে-ছিটিয়ে রয়েছে প্রায় অর্ধশতাধিক ঐতিহাসিক স্থাপনা। পরিবার-পরিজন নিয়ে ভ্রমণপ্রিয়রা সহজেই যাতে এসব স্থান ভ্রমণ করতে পারেন সেজন্য চালু করা হয়েছে ট্যুরিস্ট বাস।

বুধবার (৪ মে) সকাল ৯টায় শহরের মুক্তির মোড় পদ্মা কাউন্টারে ট্যুরিস্ট বাস ‘ভ্রমণ বিলাস’র উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক খালিদ মেহেদী হাসান।

তিনি প্রথম দিনের যাত্রীদের রজনীগন্ধার গুচ্ছ দিয়ে শুভেচ্ছা জানান। পরে সেখান থেকে ৩৮ জন পর্যটক নিয়ে বাসটি যাত্রা শুরু করে।

jagonews24

জেলা প্রশাসনের সার্বিক ব্যবস্থাপনায় জেলা সড়ক পরিবহন মালিক গ্রুপের পক্ষে বাসটি চালু করা হয়েছে।

একদিনে চারটি দর্শনীয় স্থান (আলতাদিঘী-জগদ্দলবিহার-পাহাড়পুর ও হলুদ বিহার) ভ্রমণে জেলা প্রশাসন থেকে থেকে এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ৪৫০ টাকার একটি প্যাকেজ করা হয়েছে। প্যাকেজে থাকছে সকাল-বিকেলের নাস্তা ও দুপুরের খাবার।

নওগাঁর জেলা প্রশাসক খালিদ মেহেদী হাসান বলেন, জেলায় প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শনগুলোর পাশাপাশি প্রাকৃতিক অনেক দর্শনীয় স্থান রয়েছে। পর্যটকরা সেখানে গেলে উপভোগ করাসহ অনেক কিছু জানতে পারবেন।

jagonews24

তিনি আরও জানান, প্রাথমিকভাবে চারটি দর্শনীয় স্থান ভ্রমণে একটি রুট নির্ধারণ করা হয়েছে। প্রথমে ধামইরহাট উপজেলার আলতাদিঘী এবং পাশেই জগদ্দলবিহার বিহারে যাবে। তারপর বদলগাছী উপজেলার ঐতিহ্যবাহী পাহাড়পুর বৌদ্ধবিহার হয়ে হলুদ বিহার দর্শন শেষে নওগাঁ শহরের মুক্তির মোড়ে এসে শেষ হবে। বাড়তি আকর্ষণ হিসেবে ভ্রমণের দিন বিকেলে পাহাড়পুর বৌদ্ধ বিহারে স্থানীয় ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠী শিল্পীদের পরিবেশনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান উপভোগ করতে পারবেন।

ট্যুরিস্ট বাস সার্ভিস উদ্বোধনের সময় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ ইব্রাহিম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মামুন খাঁন চিশতি, সড়ক পরিবহন মালিক গ্রুপের সভাপতি শহিদুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মোস্তফা কালিমী বাবু প্রমুখ।


আরও খবর